বিষয়বস্তুতে চলুন

পশ্চিমবঙ্গের খনিজ সম্পদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

পশ্চিমবঙ্গ খনিজ সম্পদে মাঝারি মানের সমৃদ্ধ রাজ্য। এই রাজ্যের প্রধান খনিজ দ্রব্য হল কয়লা ও ফায়ার ক্লে বা তাপসহ মাটি। এই দুটি খনিজ দ্রব্য রাজ্যটিতে বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়। অন্যান্য খনিজ দ্রব্যের মধ্যে চিনামাটি, চুনাপাথর, অ্যাপেটাইট, আকরিক লোহা, আকরিক তামা, ম্যাঙ্গানিজ, প্রাকৃতিক গ্যাস প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।[১]

কয়লা[সম্পাদনা]

কয়লা পশ্চিমবঙ্গের প্রধান খনিজ সম্পদ। ভারতে প্রতিবছর উত্তলিত কয়লার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ এই রাজ্য থেকে পাওয়া যায়। কয়লা উত্তোলনে রাজ্যটি দেশের মধ্যে সপ্তম স্থানে রয়েছে এবং কয়লা সঞ্চয়ের হিসাবে দেশের মধ্যে চতুর্থ। এই রাজ্যে মোট সঞ্চিত কয়লার পরিমান হল ৩১.৪৩৫ বিলিয়ন টন যা দেশের মোট সঞ্চিত কয়লার ১০.২৫৩ শতাংশ।[২]

পশ্চিমবঙ্গে কয়লা প্রধানত দুটি এলাকাতে পাওয়া যায়।যথা-

দামদর উপত্যকা[সম্পাদনা]

দামোদর উপত্যকায় ভারতবর্ষের প্রথম কয়লা খনি রানীগঞ্জে আবিষ্ক‌ৃত হয়। এরপর ধীরে ধীরে দামোদর উপত্যকার বিভিন্ন অংশে কয়লা খনি আবিষ্ক‌ৃত হতে থাকে। এই উপত্যকায় দুটি কয়লা ক্ষেত্র রয়েছে । যথা-

রানীগঞ্জ কয়লা ক্ষেত্র[সম্পাদনা]

রানীগঞ্জ কয়লা ক্ষেত্রটি দেশের সবচেয়ে প্রাচীন কয়লা ক্ষেত্র।এটি দামোদর নদীর উত্তর তীর থেকে অজয় নদের পশ্চিম তীর পর্যন্ত বিস্তৃত।এই কয়লা ক্ষেত্রটি পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম বর্ধমান জেলাঝাড়খণ্ড-এর ধানবাদ জেলার কিছু অংশ নিয়ে গঠিত।রানিগঞ্জ কয়ল ক্ষেত্র ৪৪৩.৫০ কিমি ২২ (১৭১.২৪ বর্গ মাইল) এলাকা জুড়ে রয়েছে এবং ৪৯.১৭ বিলিয়ন টন মোট কয়লা সম্পদ রয়েছে, যা ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও ঝাড়খণ্ড জুড়ে ছড়িয়েছে। এটি দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কয়লাখনি এলাকা (সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে)। মোট সংরক্ষিত কয়াল মধ্যে , ৩০.৬১ (৩,০৬১ কোটি টন) বিলিয়ন টন পশ্চিমবঙ্গে এবং ১৮.৫৬ বিলিয়ন টন ঝাড়খণ্ডে রয়েছে।[৩] এই কয়লা ক্ষেত্রে উৎকৃষ্ট মানের গন্ডোয়ানা যুগের কয়লা পাওয়া যায়।এখান কার উল্লেখযোগ্য কয়লা খনি হল - রানিগঞ্জ, আসানসোল, জামুরিয়া, অন্ডাল, কালাপাহাড়ি, দিশেরগর, রামনগর, কুল্টি, সালানপুর প্রভৃতি। এছাড়া দামোদর নদের দক্ষিণ তীরে মেজিয়াতে এক বিশাল কয়লা ব্লক রয়েছে। পুরুলিয়া জেলা ও অজয় নদের উত্তরে বীরভূমে কয়লা উত্তোলন করা হয়।

বীরভূম কয়লা ক্ষেত্র[সম্পাদনা]

ভারতে অবস্থিত বৃহৎ কয়লা ক্ষেত্র গুলির মধ্যে একটি হল বীরভূম কয়লা ক্ষেত্র। এই কয়লা ক্ষেত্রে আনুমানিক ৬ বিলিয়ন টন কয়লার সংরক্ষণে রয়েছে।এই কয়লা ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য কয়লা ব্লক হল দেউচা পাঁচামি কয়লা খনি।

দেউচা পাঁচামি কয়লা খনি বা দেউচা পাঁচামি কোল ব্লক হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গরাজ্যের বীরভূম জেলারমহম্মদবাজার সমষ্ঠি উন্নয়ন ব্লকের অন্তর্গত দেউচা ও পাঁচামি এলাকায় অবস্থিত একটি কয়লা খনি।এই কয়লা খনি বা ব্লকটি রানিগঞ্জ কয়ালখনি এলাকার অন্তর্গত। দেউচায় প্রায় ২১০ কোটি ২০ লক্ষ টন কয়লা মজুত রয়েছে। [৪] কয়লা মজুতের পরিমানের হিসাবে এই কয়লা খনিটি এশিয়ার বৃহত্তম কয়লা খনি বা কোল ব্লক। [৫] এটি পশ্চিমবঙ্গের নবীনতম কয়লা খনি।

দার্জিলিং-জলপাইগুড়ি পার্বত্য অঞ্চল[সম্পাদনা]

কালিম্পং জেলার বাগরাকোট ও মালঞ্চ এবং জলপাইগুড়ি জেলার বক্সা-জয়ন্তী এলাকায় কয়লা পাওয়া যায়।

আকরিক লোহা[সম্পাদনা]

রাণীগঞ্জে কয়লা খনির কাছাকাছি অবস্থিত। বর্ধমানের কুলটিতে প্রথম লৌহ-আকরিক কারখানা স্থাপন করা হয়। লৌহ আকরিক পুরুলিয়া (বার্নপুর, মানবাজার, গৌরাঙ্গডিহ, তিলুরিয়া, ঝালদা), বাঁকুড়া (পোরেপাহাড়) এবং দার্জিলিং-এ অবস্থিত।

ফায়ার ক্লে[সম্পাদনা]

ফায়ার ক্লে হল পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় প্রধান খনিজ সম্পদ। পশ্চিম বর্ধমান জেলার রানিগঞ্জ কয়লাখনি অঞ্চলে অন্তর্গত রানিগঞ্জ, রামনগর, সালানপুর এবং বীরভূম জেলাপুরুলিয়া জেলাতে ফায়ার ক্লে পাওয়া যায়। রানিগঞ্জ অঞ্চলে উত্তোলিত ফায়ার ক্লেতে কয়লার গুঁড়ো মিশে থাকে। তবে পুরুলিয়া ও বীরভূমের ফায়ার ক্লেতে এই সমস্যা নেই। ২০০৩ সালে পশ্চিমবঙ্গে ₹৪৫ লক্ষ ৩ হাজার টাকা মূল্যের ৩৮ হাজার ১৬৫ টন ফায়ার ক্লে উত্তোলিত হয়েছিল।

চিনামাটি[সম্পাদনা]

চিনামাটি পশ্চিমবঙ্গের একটি উল্লেখযোগ্য খনিজ দ্রব্য। পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার মহম্মদবাজার খানি, কামারপুকুর বাঁকুড়া জেলার মেজিয়া ও পুরুলিয়া জেলার রঘুনাথপুরে চিনামাটি উত্তোলিত হয়। ২০০৩ সালে পশ্চিমবঙ্গে ৯৬ হাজার টন চিনামাটি উত্তোলিত হয়েছিল যার বাজার মূল্য ছিল ₹২ কোটি ৩৩ লক্ষ টাকা।

চুনাপাথর[সম্পাদনা]

বাঁকুড়া জেলার চম্পাবনী ও বারিরামপুর এবং পুরুলিয়া জেলার ঝালদা ও হাসাপাথর অঞ্চলে চুনাপাথরের খনি রয়েছে। এই সব খনি থেকে চুনাপাথর উত্তোলিত হয়। তবে এই এলাকায় উত্তোলিত চুনাপাথর উৎকৃষ্ট মানের নয়।

ডলোমাইট[সম্পাদনা]

জলপাইগুড়ি জেলার বক্সা-জয়ন্তী অঞ্চলে ডলোমাইট পাওয়া যায়।

অ্যাপেটাইট[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার দক্ষিণাংশে পাওয়া যায়।

ম্যাঙ্গানিজ[সম্পাদনা]

পশ্চিম মেদিনীপুরের বেলপাহাড়ি ও গিধনি, পুরুলিয়ার পাহাড়পুর এবং পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার মালাচিটে ম্যাঙ্গানিজদের জমা পাওয়া যায়।

তামা[সম্পাদনা]

পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং জেলায় তামার খনি পাওয়া যায়। বর্ধমান, পুরুলিয়া, বীরভূমেরও কিছু অংশে অল্প তামা পাওয়া যায়।

কম অর্থনৈতিক গুরুত্বের খনিজ[সম্পাদনা]

আর্সেনোপাইরাইট[সম্পাদনা]

দার্জিলিং জেলার সামথার পাহাড়ের উত্তর প্রান্তে আর্সেনোপাইরাইটের উপস্থিতি রেকর্ড করা হয়েছে।

বেরিল[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার সুলুং লোহার এবং বেলামু পাহাড় থেকে বেরিলের ফ্যাকাশে সবুজ ষড়ভুজ স্ফটিকের খবর পাওয়া গেছে।

কোরান্ডাম[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার শালবোন, পাহাড়পুর এবং ভাগাবাঁধ এলাকায় মিকা শিস্টের মধ্যে গাঢ় নীল স্টাম্পি কোরুন্ডাম স্ফটিক, যা এক সেন্টিমিটারের ভগ্নাংশ থেকে প্রায় ২.৫ সেন্টিমিটার ব্যাসের আকারের।

ফ্লোরাইট[সম্পাদনা]

মারামুর পূর্ব দিকে সুলিং লোহার এবং পুরুলিয়া জেলার বেলামু পাহাড়ের দক্ষিণ দিক থেকে পেগমেটাইটের মধ্যে ফ্লোরাইটের উপস্থিতির পাওয়া গেছে।

সোনা[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া, বাঁকুড়া এবং মেদিনীপুর জেলার প্রোটেরোজয়িক আগ্নেয়গিরি-পাললিক স্তূপের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত নদীগুলিতে প্লেসার গোল্ডের দেখা গেছে।

গ্রাফাইট[সম্পাদনা]

গ্রাফাইটের একটি শিরা, প্রায় ১ মিটার পুরুত্বের মধ্যে পুরুলিয়া জেলার বাঙ্গোরায় মিকা শিস্টের মধ্যে ঘটে। পুরুলিয়া জেলার গোবাগের কাছে গ্রাফাইটের আরও একটি ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে। রাক্তি নদীর ডালিং গ্রুপের গ্রাফাইট শিস্ট এবং দার্জিলিং জেলার সুখিয়াপুখ-ট্যাংলু রোডে কার্বনেশিয়াস উপাদান (প্রধানত গ্রাফাইট) হিসাবে গ্রাফাইটের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

লৌহ আকরিক[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার মানবাজার, গৌরাঙ্গডিহ, তিলুরি এবং ঝালদার আশেপাশের পেগমেট্রেট এবং কোয়ার্টজ শিরাগুলিতে টাইটানিফেরাস লৌহ আকরিক দেখা যায়। বাঁকুড়া জেলায়, ম্যাগনেটাইট আকরিক কোয়ার্টজাইট এবং গনিসের মধ্যে ইন্টারলেমিনেটেড ব্যান্ড হিসাবে উপস্থিত হয়, যা ৭ সেন্টিমিটার থেকে ১ মিটার পর্যন্ত বেধ এবং দৈর্ঘ্যে ২৪ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত।

ম্যাঙ্গানিজ আকরিক[সম্পাদনা]

ল্যাটেরিটিক ম্যাঙ্গানিজ পাতলা ব্যান্ড, লেন্স, লেন্টিকল, কনক্রিশন ইত্যাদি এবং সিংভূম গ্রুপের স্কিস্ট এবং কোয়ার্টজাইটের বিভিন্ন ধরনের কলফর্ম কাঠামোর আকারে পাওয়া যায়।

মাইকা[সম্পাদনা]

রুবি মাইকা এবং সাধারণ অভ্রের ছোট বইয়ের ঘটনা, আকারে 2.5 বর্গ সেমি থেকে পরিবর্তিত। থেকে 20.5 বর্গ সেমি। পুরুলিয়া জেলার আদাবানা, ভুর্সা, কুমারগড় এবং বাঁকুড়া জেলার কাদুরিয়া, পীররাবানি এলাকা থেকে রিপোর্ট করা হয়েছে।

পাইরাইট[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার কারচা এবং তালমু এলাকায় ছোটনাগপুর গনিসিক কমপ্লেক্সের গ্রাফাইট বহনকারী মাইকা শিস্টের মধ্যে অন্যান্য সালফাইডের সাথে পাইরাইটের ঘটনা পাওয়া যায়।

রি মিনারেল[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় প্রজন্মের ম্যাপিং দ্বারা পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচিত সেক্টরগুলির সাথে ছোটনাগপুর জেনেসিক কমপ্লেক্সের অধ্যয়ন পুরুলিয়া জেলার নওয়াহাতুর কাছে একটি পরিত্যক্ত পেগমাটাইট খনির মধ্যে 'বাস্টনেসাইট', অ্যালানাইট এবং ব্যারাইটের একটি সংস্থার প্রকাশ করেছে।

সিজিয়াম-বহনকারী খনিজ[সম্পাদনা]

এনপিএসজেড-এর উত্তরে অবস্থিত বেকু-র কাছে ক্যালক-সিলিকেট শিলা সংলগ্ন পেগমেটিক শিরাগুলির মধ্যে পেগমেটিক শিরাগুলির মধ্যে সিজিয়ামের একমাত্র আকরিক পোলুসাইটের আকর্ষণীয় ঘটনাগুলি সম্প্রতি রিপোর্ট করা হয়েছে।

ট্যালক এবং স্টেটাইট[সম্পাদনা]

দার্জিলিং জেলার, তালক এবং স্টিয়েটের ঘটনাগুলি রামউক খোলায় অবস্থিত। জলপাইগুড়ি জেলার লেপাচকস ওয়ার বক্সা থেকে স্টিয়েটের খবর পাওয়া গেছে। পুরুলিয়া জেলার খুসবানি, পুকলুঙ্কতা ও হালুদবানি এবং বাঁকুড়া জেলার মাতগোদা, মাওলা কুলদিয়াহ ও পঞ্চপাথর থেকে বেশ কয়েকটি স্টাইটিংয়ের ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

ডাইমেনশন স্টোন[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া, বাঁকুড়া এবং বীরভূম জেলার কিছু অংশ কভার করে ছোটনাগপুর গ্রানাইট গনিস কমপ্লেক্সে ফিল্ড সিজন 1994-95-এর সময় পশ্চিমবঙ্গে সম্ভাব্য ডাইমেনশন স্টোন সম্ভাবনা চিহ্নিত করার জন্য একটি পুনরুদ্ধার জরিপ শুরু হয়েছিল।

১০০০ বর্গ কিলোমিটারের বেশি এলাকা জুড়ে বিস্তৃত পরীক্ষা এবং স্ক্যানিং। যেটি ভূতাত্ত্বিক এবং ভূতাত্ত্বিকভাবে উপযুক্ত বলে মনে হয়েছে, যার ফলে সম্ভাব্য পঁচিশটি সম্ভাবনার শনাক্তকরণ এবং চিত্রায়ন করা হয়েছে।

টাইটানিয়াম আকরিক[সম্পাদনা]

পুরুলিয়া জেলার গৌরাঙ্গডিহের প্রায় ১০ কিলোমিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে বেশ কয়েকটি এলাকায় ইলমেনাইট এবং রুটিল বহনকারী কোয়ার্টজ এবং পেগমেটিক শিরা পাওয়া গেছে। পুরুলিয়া জেলার মানবাজার এবং ঝালদা এলাকার কাছে পেগমেট এবং কোয়ার্টজ শিরাগুলিতেও ইলমেনাইট দেখা যায়।

ভার্মিকুলাইট[সম্পাদনা]

বাঁকুড়া জেলার ডাকটিগোড়া, নিচু ভুয়েনপুর, গৌরনগডিহ এবং পাবিয়ান এলাকা থেকে ভার্মিকুলিটের কয়েকটি ঘটনার খবর পাওয়া গেছে।


প্রাকৃতিক গ্যাস[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উচ্চমাধ্যমিক অর্থনৈতিক ভূগোল। ক্যালকাটা বুক হাউস (প্রা) লিমিটেড।প্রকাশক:শ্রী চঞ্চল ভাওয়াল। ১/১, বঙ্কিম চ্যাটার্জি স্ট্রিট, কলকাতা-৭০০০৭৩
  2. "COAL RESERVES IN INDIA"। ৯ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৭ 
  3. "Coal Resources of india"। geologydata.info। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-৩১ 
  4. "India's largest coal mine coming up at Birbhum: Mamata" 
  5. "deucha coal block"। ejatlas।