নাও কে'ন্যাও প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নাও কে'ন্যাও প
Naw K’nyaw Paw From Burma Receives Her 2019 IWOC Award (47310453991).jpg
২০১৯ সালে নাও কে'ন্যাও প (মাঝখানে)
জাতীয়তামিয়ানমারিজ
পেশানারী অধিকার কর্মী
পুরস্কারআন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার ২০১৯

নাও কে'ন্যাও প হলেন মিয়ানমারের কারেন জাতিগোষ্ঠীর নারী অধিকার কর্মী।[১] তিনি কারেন নারী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক।

জীবনী[সম্পাদনা]

নাও কে'ন্যাও প জন্মেছিলেন থাইল্যান্ডের এক শরণার্থী ক্যাম্পে। তিনি বেড়ে উঠেছেন শরণার্থী শিবিরে। তার পরিবার সহিংসতা থেকে বাঁচতে থাইল্যান্ডের শরণার্থী শিবিরে আশ্র‍য় নিয়েছিল।[২]

১৯৯৯ সালে নাও কে'ন্যাও প কারেন নারী সংগঠনের হয়ে কাজ করতে শুরু করেন। সংগঠনটি থাইল্যান্ড সীমান্তে অবস্থিত শরণার্থী শিবিরে থাকা কারেন নারীদের উন্নতির জন্য কাজ করে চলেছে। ২০১৩ সালে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন নাও কে'ন্যাও প। তিনি কারেন নারীদের মাঝে গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও নারী অধিকার বিষয়ক প্রশিক্ষণ দিয়ে চলেছেন।

তিনি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার কাউন্সিলে কারেন জাতিগোষ্ঠীসহ মিয়ানমারের বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর নারীদের করুণ অবস্থার কথা বর্ণনা করেছেন, কথা বলেছেন শরণার্থীদের করুণ অবস্থা নিয়ে। তিনি কারেনদের গল্প আন্তর্জাতিক মহলের কাছে তুলে ধরতে কাজ করে চলেছেন।[২]

সম্মানন[সম্পাদনা]

নাও কে'ন্যাও পকে ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার প্রদান করে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর[১][৩][৪][৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Biographies of the Finalists for the 2019 International Women of Courage Awards"। US Department of State। ১১ মার্চ ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৯ 
  2. "APHEDA People: Meet Naw K'Nyaw Paw (Karen Women's Organisation)"Union Aid Abroad-APHEDA (ইংরেজি ভাষায়)। ৩১ অক্টোবর ২০১৮। 
  3. "Myanmar Woman to Receive the 2019 International Women of Courage Award"। Mizzima। ৮ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৯ 
  4. "US honours Irish sister for work in Sudan"Ellen Coyne। The Times। ৮ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৯ 
  5. "Myanmar Woman to Receive 2019 International Women of Courage Award"। US Embassy in Burma। ৭ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৯