ধুলোট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ধুলোট মেলা, বা, ধুলোট গান মেলা মূলত ভারতীয় কীর্তনীয়াদের মহাসম্মেলন। গৌড়বঙ্গের প্রথিতযশা কীর্তনীয়ারা বছরে এক বার মিলিত হতেন নবদ্বীপের বড় আখড়ায়। নানা ঘরানার কীর্তনীয়ারা নিজেস্ব ঢঙে পরিবেশন করতেন কীর্তন গান। গরানহাটি, মনোহরশাহি, ময়নাডালরেনেটি ঘরানার খ্যাতনামা কীর্তনীয়ারা আসতেন এখানে। গানমেলার শেষদিনে নগর সঙ্কীর্তনের সময় উদ্যোক্তা মাধবচন্দ্র দত্ত পথের ধূলো দুহাতে তুলে ভক্তদের মাথায় নিক্ষেপ করতেন। সেই থেকেই এই উৎসবের নাম ‘ধুলোট’।[১] ১২৫০ বঙ্গাব্দে এই উৎসবের সূচনা হয়। এই উৎসব শুরু হত মাঘ মাসের শুক্লপক্ষে এবং সমাপ্ত হত কৃষ্ণপক্ষের পঞ্চমীর দিন।[২]

চণ্ডী লাহিড়ী জানিয়েছেন, ‘শ্রীপঞ্চমীর (মাঘ মাসের) পরে মাকরী সপ্তমী থেকে পরের কৃষ্ণ পক্ষের চতুর্থী পর্যন্ত গানমেলা বসতো। ভারত বিখ্যাত কীর্তনীয়া যামিনী মুখোপাধ্যায়, ধ্রুব দাস, বড় রসিক দাস, ছোট রসিক দাস, গণেশ দাস, সুরেন আচার্য, অবধূত বন্দোপাধ্যায়, রাধেশ্যাম দাস, রাধাবিনোদ দাস, রাধিকা গোস্বামী, গোপীবল্লব দাস, পণ্ডিতদাস বাবাজি, নবনীধর মিত্রঠাকুর ও খোলবাদক বিষ্ণু দাস, আশুতোষ দাস, মাখন দাস, পূর্ণ দাস আসতেন ও আসর জমাতেন। প্রতিবছর এই আসরে ১০০/১৫০ জন কীর্তনীয়া বাংলার নানা প্রান্ত থেকে যোগ দিতেন।’[৩] আজ আর এই গান মেলার অস্তিত্ব নেই।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. তদেব পৃ. ৪০৭
  2. Sena, Pralaẏa (১৯৭৯)। Paścimabāṃlāra tīrtha। Maḍela Pābaliśiṃ Hāusa। 
  3. নবদ্বীপ হিন্দুস্কুল শতবর্ষ স্মারক গ্রন্থ, পৃ. ১০৩-০৪