ধুবড়ী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ধুবড়ী জেলা
জেলা
আসামে ধুবড়ী জেলার অবস্থান
আসামে ধুবড়ী জেলার অবস্থান
দেশ ভারত
রাজ্যআসাম
সদরধুবড়ী
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
ওয়েবসাইটhttp://www.dhubri.nic.in

ধুবড়ি ভারতবর্ষের ধুবড়ি জেলার (অসম) সদর। এটি ব্রহ্মপুত্র ও গদাধর নদীর তীরবর্তী একটি পুরাতন ঐতিহাসিক তাৎপর্যপূর্ণ শহর। ১৮৮৩ সনে শহরে প্রথম পৌরসভা গঠন করা হয়। শহরটি রাজ্যের রাজধানী দিসপুর থেকে প্রায় ২৭৭.৪ কিলোমিটার (১৭২ মাইল) দূরত্বে পশ্চিমদিকে অবস্থিত।

ধুবড়ি একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কেন্দ্র এবং বিশেষ করে পাটের জন্য একটি ব্যস্ত নদীবন্দর ছিল। তিনদিকে নদী দ্বারা আচ্ছাদিত বলে ধুবড়ি শহরকে "নদী ভূমি" বলা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ধুবড়িতে চিলারায়ের মূর্তি
শ্রী গুরু তেগ বাহাদুর সাহিব গুরুদুয়ারা, ধুবড়ি

ধুবুড়ী শব্দটি নেতাই - ধুবুনি নামে একজন কাল্পনিক মহিলা নাম থেকে আসে। কাহিনীটি বেহুলা-লক্ষীন্দরের সঙ্গে জড়িত। ধুবুনি 'শব্দটি উচ্চারণ বিকৃতিতে ধুবুড়ী হিসেবে বিবেচিত হয়। বোডো-কাছাড়ীদের মতে, শব্দটি বোডো শব্দ ধুবরা (এক ধরনের ঘাস ) থেকে আহরিত হয়। নেতাই-ধুবুনি নামে মহিলাটির গল্প ব্যাপকভাবে ধুবড়ি নামকরণের ইতিহাস জন্য গৃহীত হয়েছে এবং স্পষ্টত সেখানে শ্রী তেগ বাহাদুর সাহেবের গুরুদুয়ারা দাঁড়িয়েছে।

এই স্থানটি শিখ গুরুদুয়ারা গুরুদুয়ারা দমদমা সাহিব বা থারা সাহেবের জন্য প্রসিদ্ধ যা শিখ গুরু নানক দেবের প্রথম আগমন স্মরণে নির্মাণ করা হয় এবং পরবর্তীকালে তা গুরু তেগ বাহাদুর, নবম গুরুর আগমনের দ্বারা অনুসরণ করা হয় ও গুরুদুয়ারাটি গুরুদুয়ারা শ্রী গুরু তেগ বাহাদুর সাহিবের নামে নামকরণ করা হয়। সতরাং, স্থানটি শিখ সম্প্রদায়ের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

১৮৭৪ সন অব্দি, ধুবড়ি অধিকাংশই বঙ্গের রাজাদের অধীনে ছিল। ১৮৭৪ সনে,ব্রিটিশ সরকার তিন বেসামরিক মহকুমা ধুবড়ি, গোয়ালপাড়া এবং কোকড়াঝাড় সমন্বয়ে গোয়ালপাড়া জেলা অন্তর্ভূক্ত আসাম উপত্যকা প্রদেশের নামে একটি নতুন প্রদেশ সৃষ্টি করেছিল। ১৮৭৯ সনে, জেলা সদর গোয়ালপাড়া থেকে ধুবড়ি শহরে স্থানান্তরিত হয়। ধুবড়ি জেলার আবার তিন জেলায় যথা ধুবড়ি, গোয়ালপাড়া এবং কোকড়াঝাড় জেলার মধ্যে বিভক্ত করা হয়। ধুবড়ি শহর ধুবড়ি জেলার অধীনস্থ পড়ে যার প্রধান কার্যালয় ধুবড়ি শহর ।

বর্তমানের ধুবড়ি জেলা ব্রিটিশ শাসনামলে ১৮৭৬ সনে প্রতিষ্ঠিত পূর্বকালীন গোয়ালপাড়া জেলার তিনটি অসামরিক মহকুমার একটি। ১৮৭৯ সনে জেলার প্রধান কার্যালয় গোয়ালপাড়া থেকে ধুবড়িতে স্থানান্তর করা হয়।

১৯৮৩ সনে গোয়ালপাড়া জেলা বন, নদীমাতৃক, পাহাড় ইত্যাদি সহ প্রতি ২,৮৩৮ বর্গকলোমিটার চারটি পৃথক জেলায় বিভক্ত করা হয় এবং এর মধ্যে একটি ধুবড়ী । জেলাটি বর্গকিলোমিটার প্রতি ৫৮৪ জনের ঘনত্বের সঙ্গে ভারতবর্ষের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ জেলাতে পরিণত হয়েছে (২০০১ সনের আদমশুমারী অনুযায়ী)।

ধুবড়ি শহর একটি ম্যাচ ফ্যাক্টরির (WIMCO) জন্য খুব বিখ্যাত ছিল, যদিও ইহা পরিস্থিতির কারণে বন্ধ হয়ে গেছে কিন্তু আজও যারা দেখেছেন কারখানার ও এর কর্মীদের আবাস এবং তাদের জীবনযাত্রার আধুনিক শিল্প এখনও একই সৌন্দর্যের স্মরণ করেন ।

ধুবড়ি দুর্গাপূজা এবং দশহরার জন্য ও বিখ্যাত।

জনপরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

ভারতবর্ষের ২০১১ সনের আদম শুমারি অনুযায়ী, ধুবড়ির জনসংখ্যা ১০৯,২৩৪ জন। এরমধ্যে পুরুষদের জনসংখ্যা ৫১% এবং মহিলাদের ৪৯%। ধুবড়ির সাক্ষরতার হার ৭৪% যা জাতীয় গড় ৫৯.৫% আয়ের চেয়ে বেশিঃ পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৭৯% এবং মহিলাদের মধ্যে এই হার ৬৮.8%। এই শহরের জনসংখ্যার ১১% ৬ বছর বয়সের কম। এখানকার মুসলমানদের জনসংখ্যা ৭৫% কাছাকাছি এবং ইহা ভারতবর্ষের সংখ্যালঘু ঘনীভূত জেলার অন্যতম।

এদের মধ্যে অধিকাংশই স্বদেশী লোক (গোয়ালপাড়ীয়া অসমিয়া এবং এরমধ্যে উভয় হিন্দু ও মুসলিম অন্তর্ভুক্ত)। ধুবড়ি শহরে বাঙালিদের জনসংখ্যা প্রায় ৫০% এবং এটি কোচ রাজ্যের অংশ।

ভৌগোলিক অবস্থান ও জলবায়ু[সম্পাদনা]

ধুবড়ী শহরটি ৮৯ ডিগ্রী ৫ মিঃ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ এবং ২৬ ডিগ্রী ১ মিঃ উত্তর অক্ষাংশের মধ্যবর্তী অবস্থিত। শহরটি সমুদ্রতল প্রায় ৩৪ মিটার উপরে। ধুবড়ি তিন দিক থেকে নদী দ্বারা আচ্ছাদিত করা হয়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

কলেজ[সম্পাদনা]

ভোলা নাথ কলেজ, ধুবড়ি
ক্যাটস ধুবড়ি (ল্যাব)
  • ভোলানাথ কলেজের বা বি এন কলেজ (1946 সালে প্রতিষ্ঠিত) পশ্চিম আসামের প্রাচীনতম এবং প্রথম সারির কলেজ।
  • ধুবড়ি আইন কলেজে
  • ধুবড়ি বালিকা মহাবিদ্যালয়।
  • ধুবড়ি বি টি কলেজ।
  • কলেজ অফ অ্যাডভান্সড টেকনিকাল স্টাডিস বা কাটস ধুবড়ী (২০০৯ সনে প্রতিষ্ঠিত) নিম্নতর আসামের একমাত্র পেশাগত প্রতিষ্ঠান।

বিদ্যালয়[সম্পাদনা]

  • সরকারি বালক উচ্চত্তর মাধ্যমিক বিদ্যালয়
  • সরকারি বালিকা উচ্চত্তর মাধ্যমিক বিদ্যালয়
  • শিশু পাঠশালা উচ্চত্তর মাধ্যমিক বিদ্যালয়
  • বিদ্যাপাড়া বালক উচ্চত্তর মাধ্যমিক বিদ্যালয়
  • বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠ
  • ধুবড়ি পৌর উচ্চ বিদ্যালয়
  • জওহর হিন্দি হাইস্কুল
  • শঙ্করদেব শিশু বিদ্যা নিকেতন, ধুবড়ি
  • বিদ্যাপাড়া বালিক বিদ্যালয়
  • এস.পি. ইংলিশ মিডিয়াম হাইস্কুল
  • হ্যাপি কনভেন্ট বিদ্যালয়
  • সেন্ট আগস্ত্য স্কুল
  • বেথেল ব্যাপ্টিস্ট মিশন স্কুল
  • প্যারাডাইস কনভেন্ট স্কুল
  • ধুবরী কলেজ অফ আর্টস এন্ড সাইন্স
  • গ্রীন ফিল্ড জুনিয়র কলেজ
  • ১২৮ নং বিদ্যাপাড়া এলপি স্কুল
  • আজমল কলেজ অফ আর্টস এন্ড সাইন্স
  • রসরাজ জাতীয় বিদ্যালয়
  • ধুবড়ি জাতীয় বিদ্যালয়
  • আরাধনা একাডেমী

সংস্কৃতি ও উৎসব[সম্পাদনা]

প্রতি বছর দেশ-বিদেশ থেকে ৫০০০০ এর বেশি হিন্দু, শিখ, মুসলমান সব ধর্মের ভক্তরা ডিসেম্বর মাসের ৩ তারিখ থেকে গুরু তেগ বাহাদুরের শাহাদত উপলক্ষে জড় হন যা মহান গাম্ভীর্য এবং অনুষ্ঠান দিয়ে শুরু হয়। শিখরা সপ্তাহব্যাপী দীর্ঘ শ্রদ্ধেয় অনুষ্ঠানটিকে শহীদী-গুরু-পরব বলে আখ্য দেন যা বিশাল মিছিল দিয়ে চিহ্নিত করা হয় ।গুরু তেগ বাহাদুর এইভাবে "হিন্দ-দি-চাদর" বা "হিন্দ তারিখের ঢাল হিন্দুস্তানে ফেরা" স্নেহপরায়ণ শিরোনাম অর্জন করেছেন ।

পরিবহন[সম্পাদনা]

বিমানবন্দর[সম্পাদনা]

ধুবড়ির রুপসীতে বিমানবন্দর রয়েছে যা শহর থেকে প্রায় ২৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত । ইহা প্রধানত সামরিক বাহিনীর উদ্দেশ্যে ব্রিটিশরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ৫২ টি জেট বিমান ব্যবস্থার উপযোগী নির্মাণ করেছিল । ১৯৮৩ সন পর্যন্ত ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্স এবং কিছু বেসরকারি বাণিজ্যিক উড়ানগুলি কলকাতা, গুয়াহাটি ও ধুবরি মধ্যে নিয়মিতভাবে পরিচালিত হত। এখন ইহা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে আছে। যাহোক, সম্প্রতি ডোনর মন্ত্রণালয়, ভারত সরকার বিমানবন্দরটিকে পুনঃসংস্কারের ও কার্যকরী করার জন্য কিছু উদ্যোগ নিয়েছে এবং জায়গাটি একটি বিমানবন্দর হিসাবে পুনর্নির্মিত হতে পারে কিনা তা জানার জন্য গুয়াহাটি থেকে একটি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ দল একটি সমীক্ষা ঐতিহাসিক বিমানবন্দর চালায়।

জল পরিবহন[সম্পাদনা]

শহরটির ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে একটি অত্যন্ত কর্মব্যস্ত নদীবন্দর ছিল যা প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে একটি আন্তর্জাতিক বাণিজ্য কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হত,বিশেষত ব্রিটিশ যুগে। বর্তমানে এই বন্দরটি কর্মবিহীন অবস্থায় পড়ে আছে।

রেলপথ[সম্পাদনা]

রেল স্টেশনের এবং এমজি লাইন গুরুত্ব ১৯৪৭ সন থেকে কমে আসে, যখন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান (বর্তমান বাংলাদেশ) রেল পরিষেবার মাধ্যমে ছুটা কলকাতার সরাসরি লাইন হিসাবে বিচ্ছিন্ন হয়। ট্রেন চলাচল নতুন করে আবার ২০১০ শুরু করে এবং ইহা নির্বিঘ্নে কাজ করে। তবে ট্রেন চলাচল চলতে শুরু করে ধুবড়ি রেলওয়ে স্টেশন থেকে একটি নতুন যাত্রাপথে ধুবড়ি থেকে কামাখ্যা ও গুয়াহাটির জংশন দিকে। ধুবড়ি স্টেশন থেকে উৎসারিত ট্রেনগুলোর মধ্যে রয়েছে ধুবড়ি - শিলঘাট (রাজ্য রানী এক্সপ্রেস), ধুবড়ি - শিলিগুড়ি (আন্তঃশহর এক্সপ্রেস) ও ধুবড়ি-ফকিরগ্রাম যাত্রিবাহী ট্রেন।

রাজনীতি[সম্পাদনা]

ধুবড়ি শহরটি ধুবড়ি লোকসভা সমষ্টির একটি অংশ।

প্রচার মাধ্যম[সম্পাদনা]

ধুবড়িতে আকাশবাণী ধুবড়ি নামে পরিচিত অল ইন্ডিয়া রেডিও রিলে স্টেশন রয়েছে যা এফএম কম্পাঙ্কের উপর প্রচারিত হয়।

বিশিষ্ট ব্যক্তি[সম্পাদনা]

  • রেবতী মোহন দত্ত চৌধুরী, বিশিষ্ট অসমিয়া সাহিত্যিক
  • প্রমতেশ বড়ুয়া, চলচ্চিত্র নির্মাতা
  • যমুনা বড়ুয়া, অভিনেত্রী
  • প্রতিমা বড়ুয়া পান্ডে, গায়ক
  • বিজয় সাক্সেনা, বলিউড অভিনেতা
  • প্রেম খান, অভিনেতা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • ধুবড়ি জেলা অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ( dhubri.gov.in )