দ্য ম্যান হু নিউ ইনফিনিটি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্য ম্যান হু নিউ ইনফিনিটি
দ্য ম্যান হু নিউ ইনফিনিটি পোস্টার.jpg
পরিচালকম্যাথিউ ব্রাউন
প্রযোজক
  • এডোয়ার্ড আর. প্রেসম্যান
  • জিম ইয়াং
  • জো থমাস
চিত্রনাট্যকারম্যাথিউ ব্রাউন
শ্রেষ্ঠাংশে
  • দেব পটেল
  • জেরেমি আয়রন্স
  • দেবিকা ভিসে
  • টবি জোন্স
  • স্টিফেন ফ্রাই
  • জেরেমি নর্থাম
  • কেভিন ম্যাকনালি
  • এনজো সাইলেন্টি
  • ধৃতিমান চ্যাটার্জি
  • অরুন্ধতী নাগ
সুরকারকোবি ব্রাউন
চিত্রগ্রাহকল্যারি স্মিথ (সিনেমাটোগ্রাফার)
সম্পাদকজেসি বন্ড
প্রযোজনা
কোম্পানি
প্রেসম্যান ফিল্ম,
জিটগিস্ট এন্টারটেইনমেন্ট গ্রুপ,
ক্যায়েন পেপার প্রোডাকশনস্
পরিবেশকওয়ার্নার ব্রস. পিকচার্স(মিস্টার স্মিথ এন্টারটেইনমেন্ট) (আন্তর্জাতিক)
মুক্তি
  • ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৫ (2015-09-17) (২০১৫ টরন্টো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব)
দৈর্ঘ্য১০৮ মিনিট
দেশযুক্তরাজ্য
ইন্ডিয়া
ভাষাইংরেজি
তামিল
নির্মাণব্যয়$১০ মিলিয়ন[১]
আয়$১২.৩ মিলিয়ন[২]

দ্য ম্যান হু নিউ ইনফিনিটি হল ২০১৫ ব্রিটিশ ভারতীয় ইংরেজি ভাষার চলচ্চিত্র জীবনী-বিষয়ক ব্রিটিশ ড্রামা চলচ্চিত্রচলচ্চিত্রটি হল বিখ্যাত ভারতীয় গণিতজ্ঞ শ্রীনিবাস রামানুজনের সম্পর্কে১৯৯১ সালে রবার্ট ক্যানিজেলের লেখা পুস্তক দ্য ম্যান হু নিউ ইনফিনিটির উপর নির্ভর করে চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছে।

চলচ্চিত্রটিতে ব্রিটিশ অভিনেতা দেব পটেল শ্রীনিবাস রামানুজনের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন যিনি বাস্তব জীবনে ছিলেন একজন প্রকৃত গণিতজ্ঞ,তিনি ভারতের মাদ্রাজে বেড়ে ওঠার পর লন্ডনের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন,তখন ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়। সেখানে তাঁর অধ্যাপক জি.এইচ.হার্ডির পরামর্শে গণিতে খুব অগ্রগামী হন।

চলচ্চিত্রটির নির্মাণ শুরু হয় ২০১৪ সালের আগস্ট মাসে কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজে[৩] ২০১৫ সালের টরন্টো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে মুভিটি আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনে ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার সম্পন্ন হয়। [৪][৫] এবং এটিকে ২০১৫ সালের জুরিখ চলচ্চিত্র উৎসবে উদ্বোধনী আয়োজন হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।[৬] চলচ্চিত্রটি অন্যান্য চলচ্চিত্র উৎসব যেমন সিঙ্গাপুর আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ও দুবাই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও অভিনীত হয়েছিল। [৭][৮]

পটভূমি[সম্পাদনা]

বিংশ শতাব্দীর শুরুতে, শ্রীনিবাস রামানুজন নামে এক যুবক দারিদ্রপূর্ণ ভারতের মাদ্রাজ শহরে একজন সংগ্রামী নাগরিক হিসেবে সামান্য চাকরিতে কাজ করেন। কাজ করার সময়, তার নিয়োগকর্তারা লক্ষ্য করেন যে গণিতে তাঁর ব্যতিক্রমী দক্ষতা রয়েছে এবং তারা তাকে প্রাথমিক অ্যাকাউন্টিংয়ের কাজে ব্যবহার করতে শুরু করে। কলেজের শিক্ষিত চাকুরিজীবীদেরও কাছে এটি সমানভাবে স্পষ্ট হয়ে গেল যে রামানুজনের গাণিতিক অন্তর্দৃষ্টি অনেক উচ্চমানের ও তারা তাকে যে সাধারণ অ্যাকাউন্টিংয়ের কাজগুলিতে ব্যবহার করছে তা তার কাছে নগণ্য ও শীঘ্রই গণিত সম্পর্কে তার ব্যক্তিগত লেখাগুলি সাধারণ গণিতাগ্রহীদের কাছে উপলব্ধ করার জন্য ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলির অধ্যাপকদের সাথে তার যোগাযোগ করার জন্য তারা তাকে উৎসাহিত করে। এরকমই একটি চিঠি,কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন বিখ্যাত গণিতবিদ জি.এইচ.হার্ডির কাছে পাঠানো হয় ও তিনি রামানুজন সম্পর্কে বিশেষ আগ্রহী হতে শুরু করেন।[৯]

শ্রমসাধ্য গবেষণা সম্পাদন এবং প্রথম প্রকাশনা প্রকাশের সময়ই রামানুজন তার বিবাহ সম্পন্ন করেন। হার্ডি শীঘ্রই একটি সম্ভাব্য তাত্ত্বিক গণিতবিদ হিসাবে তার সাহস পরীক্ষা করার জন্য রামানুজনকে কেমব্রিজে আমন্ত্রণ জানান। রামানুজন এমন সুযোগ দেখে অভিভূত হয়ে হার্ডির আমন্ত্রণে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন, যদিও এর জন্য তাকে অবশ্যই তার স্ত্রীকে অনিশ্চিত সময়ের জন্য রেখে যেতে হত। তিনি তার স্ত্রীকে চিঠিপত্রের মাধ্যমে কথাবার্তার প্রতিশ্রুতি দেন।

কেমব্রিজ পৌঁছে, রামানুজন বিভিন্ন ধরণের জাতিগত কুসংস্কারের মুখোমুখি হন এবং ইংল্যান্ডের জীবনের সাথে তাঁর অসামঞ্জস্যতা প্রত্যাশার চেয়েও বেশি কঠিন বলে মনে হতে থাকে, যদিও হার্ডি রামানুজনের দক্ষতা দেখে অনেক বেশি মুগ্ধ হন। গণিতের প্রমাণ লেখার অভিজ্ঞতা না থাকার কারণে হার্ডি রামানুজনের দক্ষতা সম্পর্কে কিঞ্চিৎ উদ্বিগ্ন হন, কিন্তু অধ্যবসায়ের জন্য তিনি রামানুজন সম্পর্কে একটি বড় জার্নালে প্রকাশনা করতে সক্ষম হন।[১০] এরই মধ্যে, রামানুজন জানতে পারেন যে তিনি যক্ষ্মা রোগে ভুগছেন এবং তার স্ত্রীর প্রেরিত ঘন ঘন চিঠিগুলি বহু মাস পরে উত্তরহীন হয়ে রয়ে গেছে। রামানুজন তার বাসস্থান এবং ভারতে পরিবারের সাথে যোগাযোগের অভাব নিয়ে যে ব্যক্তিগত অসুবিধা ভোগ করছে,তা হার্ডির কাছে অজানা রয়ে গেছে। হার্ডি এবং কেমব্রিজের অন্যদের পরিচালনায় গণিতের আরও গভীর গবেষণার দিকে তাকাতে গিয়ে রামানুজনের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে।

তাঁর স্ত্রী অনেক সময় অতিবাহিত হওয়ার পর অবাক হয়ে বলেছিলেন যে কেন তিনি রামানুজনের কাছ থেকে কোনো চিঠি পাচ্ছেন না এবং অবশেষে জানতে পারলেন যে তার মা তাঁর চিঠিগুলি আটকাচ্ছেন। ইংল্যান্ডে থাকাকালীন হার্ডি রামনুজনকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক ট্রিনিটি কলেজের ফেলোশিপের জন্য মনোনীত করেন ও তার ব্যতিক্রমী গাণিতিক দক্ষতা সম্পূর্ণরূপে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক স্বীকৃত করানোর জন্য বিশেষ প্রচেষ্টা করেন। প্রথমদিকে, হার্ডি কলেজের রাজনীতি এবং সেই সময়ে পুনরাবৃত্ত বর্ণগত কুসংস্কার সম্পর্কিত কারণে ব্যর্থ হন। কলেজের মূল সদস্যদের সমর্থন পেয়ে হার্ডি আবারও রামানুজনকে ফেলোশিপের জন্য মনোনীত করেন ও এর পর রামানুজন রয়েল সোসাইটির ফেলো এবং তারপরে ট্রিনিটি কলেজের ফেলো হিসাবে স্বীকৃত হন। এর কিছু দিন পর রামানুজন অবশেষে ভারতে তাঁর পরিবারের সাথে পুনরায় মিলিত হলেন, যদিও তার ক্ষয়িষ্ণু স্বাস্থ্য, যা ইংল্যান্ডে অস্বাস্থ্যকর আবাসন এবং শীতের আবহাওয়ায় ভুগে হয়েছিল, চূড়ান্তভাবে তার ক্ষতি করে এবং আন্তর্জাতিক মেধার গণিতবিদ হিসাবে স্বীকৃতি ও গুরুত্ব পাওয়ার পরে খুব শীঘ্রই তার অকাল মৃত্যু হয়।

শ্রেষ্ঠাংশে[সম্পাদনা]

যেখানে জেরেমি আয়রন্সের বয়স, দেব পটেলের চাইতে ৪০ বছর বেশি , সেখানে হার্ডির বয়স রামানুজনের থেকে মাত্র ১০ বছর বেশি ছিল।

প্রধান চরিত্র[সম্পাদনা]

২০১২ সালের জানুয়ারিতে,এই চলচ্চিত্রে তামিল অভিনেতা আর.মাধবনকে প্রধান ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছিল। কিন্তু চলচ্চিত্র-নির্মাতারা অবশেষে সিদ্ধান্ত নেন যে রামানুজনের ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য তাদের একজন আন্তর্জাতিক অভিনেতা প্রয়োজন [১২]

সমাদর[সম্পাদনা]

ফিল্ম রিভিউ অ্যাগ্রিগেটর রোটেন টমেটোস রিপোর্ট দিয়েছে যে ৬২% সমালোচক ফিল্মটিকে একটি ইতিবাচক রেটিং দিয়েছেন, যার গড় হল ১০ এর মধ্যে ৬.১। সমালোচকদের ঐকমতে লেখা আছে: "দ্য ম্যান হু ইনফিনিটি ''সত্যিকার অর্থে তার ন্যায়বিচার সম্পাদন করতে পারে না, তবে দেব পটেল (শ্রীনিবাস রামানুজন) এবং জেরেমি আয়রন্স (জি এইচ হার্ডি ) কেবলমাত্র বায়োপিক সূত্রের বাইরে শেষের ফলাফলটি উন্নত করেছেন।"[১৩] [১৪]

চলচ্চিত্রের ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ারের পরে অ্যালান হান্টার স্ক্রিন ডেইলি তে রামানুজনের ইংরাজী পরামর্শদাতা ও বন্ধুর স্মৃতি অনুসরণ করে একটি "সুদৃঢ় আন্তরিক প্রযোজনা" হিসাবে ছবিটি পেয়েছে ... ছবিটি এমন একটি ভাল কথা বলেছে গল্পটি যে এটি প্রতিরোধ করা শক্ত। গল্পে গণিত মূল ভূমিকা পালন করে, তবে পুরোপুরি অ্যাক্সেসযোগ্য এমন একটি উপায়ে দর্শককে রামানুজন যে অগ্রগতি করেছিলেন এবং তা তাঁর মৃত্যুর প্রায় এক শতাব্দী পরে কেন তার উত্তরাধিকার এতটা গুরুত্বপূর্ণ থেকে যায় তা বোঝার সুযোগ দেয়।[১৫] "দেবোরা ইয়ং ইন(হলিউড রিপোর্টার) ছবিটি "সম্মানজনক তবে সমস্ত প্রচলিত বায়োপিকের মতনই" বলে মনে করেছেন।[১৬]

গণিতবিদ কেন ওনো এবং মনজুল ভরগভা চলচ্চিত্রটিতে সহযোগিতা করেছিলেন, যা গণিতবিদ এবং বিজ্ঞানীদের দ্বারা গণিতবিদদের সঠিক গণিত এবং খাঁটি চিত্রের জন্য প্রশংসিত হয়েছে।আমেরিকান ম্যাথমেটিকাল সোসাইটি এর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি, জর্জ ই অ্যান্ড্রুজ, রামানুজন এবং হার্ডির মধ্যে গভীর সম্পর্কের চলমান চিত্রের জন্য এই চলচ্চিত্রটির প্রশংসা করেছেন।[১৭] লন্ডন ম্যাথমেটিকাল সোসাইটি ঘোষণা দিয়েছিল যে চলচ্চিত্রটি প্রায় প্রতিটি উপায়ে "আউটশাইনস" 'গুড উইল হান্টিং' 'আউটসাইন করে।[১৮]'প্রকৃতি 'র জন্য ছবিটি পর্যালোচনা করে অ্যান্ড্রু রবিনসন লিখেছেন যে "চলচ্চিত্রটি তৈরি করতে দশ বছরেরও বেশি সময় লেগেছে। এটি অপেক্ষা করার মতো।"[১৯]

মুক্তি[সম্পাদনা]

মিস্টার স্মিথ এন্টারটেইনমেন্ট, চলচ্চিত্রটির আন্তর্জাতিক ব্যবসার দায়িত্ব পালন করে।[২০]২০১৬ সালের ৮ এপ্রিল,ওয়ার্নার ব্রসের দ্বারা যুক্তরাজ্যে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায় এবং ২০১৬ সালের ২৯ এপ্রিল,আই.এফ.সি. চলচ্চিত্রের (আমেরিকার একটি চলচ্চিত্র সংস্থা) দ্বারা সিনেমাটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি পায়।[২১]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Man Who Knew Infinity – PowerGrind"The Wrap। ৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ 
  2. "The Man Who Knew Infinity (2016)"Box Office Mojo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৬ 
  3. "Dev Patel's 'The Man Who Knew Infinity' Moves to Production After 8 Years in Development"Variety (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-০৭ 
  4. Matt Brennan (১৪ অক্টোবর ২০১৫)। "IFC Films Acquires Math Genius Biopic 'The Man Who Knew Infinity,' with Jeremy Irons and Dev Patel"Indiewire / Thompson on Hollywood!। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  5. "The Man Who Knew Infinity [programme note]"TIFF.netToronto International Film Festival। ২০ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  6. Zack Sharf (২৫ আগস্ট ২০১৫)। "'The Man Who Knew Infinity' Selected as Zurich Film Festival Opening Night Film"Indiewire। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  7. "The Man Who Knew Infinity"। SGIFF। ২০১৫। ২০১৬-০৪-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৭ 
  8. "The Man Who Knew Infinity"। DIFF। ২০১৬। ২০১৬-০৩-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৭ 
  9. Webster, Andy (২০১৬-০৪-২৮)। "Review: 'The Man Who Knew Infinity' Gives a Mathematical Genius His Due"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-১২ 
  10. "The Man Who Knew Infinity is a by the numbers biopic - review"The Telegraph (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-১২ 
  11. Joseph, Raveena (২৮ জুলাই ২০১৬)। "Tales from a journeyman"The Hindu 
  12. Warrier, Shobha (২০১২-০১-২৪)। "Madhavan as Ramanujan, the Mathematical genius"। Rediff। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৭ 
  13. "The Man Who Knew Infinity (2016)"Rotten Tomatoes। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১৬ 
  14. "The Man Who Knew Infinity"Metacritic। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৬, ২০১৯ 
  15. Allan Hunter (১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "'The Man Who Knew Infinity': Review"Screen Daily। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  16. Deborah Young (১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "'The Man Who Knew Infinity': TIFF Review"The Hollywood Reporter। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬Brown’s screenplay brings math into the dialogue often and without embarrassment. 
  17. George Andrews (ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। "Film Review: 'The Man Who Knew Infinity'" (PDF)Notices of the American Mathematical Society 
  18. Armando Martino and David Singerman (মার্চ ২০১৬)। "The Man Who Knew Infinity: film review" (PDF)London Mathematical Society Newsletter 
  19. Andrew Robinson (৩১ মার্চ ২০১৬)। "Film: In search of Ramanujan"। Nature531 (7596): 576–577। ডিওআই:10.1038/531576aঅবাধে প্রবেশযোগ্য 
  20. N'Duka, Amanda (১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "'The Man Who Knew Infinity' Clip: Toronto Film About Math Genius Ramanujan" 
  21. Matt Brennan (১৪ অক্টোবর ২০১৫)। "IFC Films Acquires Math Genius Biopic 'The Man Who Knew Infinity,' with Jeremy Irons and Dev Patel"Indiewire / Thompson on Hollywood!। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]