দাউই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দাউই
ထားဝယ်
তাভয়
শহর
দাউইয়ের স্কাইলাইন
দাউই মিয়ানমার-এ অবস্থিত
দাউই
দাউই
মিয়ানমারে (বার্মা) অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ১৪°০৫′০″ উত্তর ৯৮°১২′০″ পূর্ব / ১৪.০৮৩৩৩° উত্তর ৯৮.২০০০০° পূর্ব / 14.08333; 98.20000
দেশ মিয়ানমার
অঞ্চলতনিন্থারি অঞ্চল
জেলাদাউই জেলা
শহরদাউই শহর
রাজধানীদাউই
জনসংখ্যা (২০১৪)১,৪৬,৯৬৪
 • ধর্মথেরবাদ বৌদ্ধ ধর্ম
বিশেষণদাউয়ী
সময় অঞ্চলএমএমটি (ইউটিসি+৬.৩০)
এলাকা কোড৫৯[১]

দাউই (বর্মী: ထားဝယ်; এমএলসিটিএস: hta: wai; টেমপ্লেট:Lang-mnw; থাই: ทวาย; পূর্বে তাভয় নামে পরিচিত ছিল) দক্ষিণ-পূর্ব মিয়ানমারের একটি শহর এবং এটি দাউই নদীর উত্তর তীরবর্তী তনিন্থারি অঞ্চলের রাজধানী, এটি পূর্বে তেনাসেরিম বিভাগ নামে পরিচিত ছিল। শহরটি ইয়াঙ্গুনের দক্ষিণ-পূর্বে প্রায় ৬১৪.৩ কিমি (৩৮১.৭ মাইল) দূরে অবস্থিত। এর জনসংখ্যা (২০১৪ হিসাব) ১৪৬,৯৬৪ জন। দাউই আন্দামান সাগর থেকে ৩০ কিলোমিটার (১৮.৬ মাইল) দূরে দাউই নদীর মোহনায় অবস্থিত একটি বন্দর। ফলে বর্ষা মৌসুমে শহরটি বন্যার ঝুঁকিতে থাকে। "দাউই" মিয়ানমারের ১৩৫ টি জাতিগত সংখ্যালঘুদের মধ্যে একটির নামও।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

দাউই শব্দটি মন ভাষার শব্দ হাওয়াই (মন: ထ ဝဲါ; / হাওয়াই /) থেকে উদ্ভূত, যার অর্থ 'আড়াআড়ি পা রেখে বসা', যা প্যালিনে (সিংহাসনে) বুদ্ধের বসার ভঙ্গি নির্দেশ করে।[২][৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দাউই নদীর মোহনার আশেপাশের অঞ্চলে কয়েক শতাব্দী ধরে দাউই, মোন, কায়িন এবং থাই নাবিকদের বসতি ছিল।

প্রাচীন স্থান, সাগর শহর হিসাবে পরিচিত পুরাতন দাউই বর্তমান শহর থেকে প্রায় ৬ মাইল উত্তরে অবস্থিত, এখানে পাইউ সংস্কৃতির বহু নিদর্শন রয়েছে, এটি প্রাচীন পাইউ যুগে প্রদেশের রাজধানী হিসাবে স্বীকৃত ছিল।

একাদশ থেকে ত্রয়োদশ শতাব্দী পর্যন্ত দাউই প্যাগান সাম্রাজ্যের অংশ ছিল। ১২৮৭ থেকে ১৫৬৪ পর্যন্ত দাউই সুখোথাই রাজ্য এবং এর উত্তরাধিকারী আয়ুথায়া রাজ্যের (সাম) অংশ ছিল। ১৫৬৪ থেকে ১৫৯৪ পর্যন্ত দাউই বার্মার তুঙ্গু রাজ্যের অংশ ছিল। সাম অস্থায়ীভাবে ১৫৯৪ থেকে ১৬১৪ পর্যন্ত শহরটি পুনরায় অধিকার করেছিল। ১৬১৪ সাল থেকে ১৭৪০-এর দশকে, দাউই বর্মি কর্তৃত্বের অধীনে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর এবং এটি একটি বর্মি গ্যারিসন দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। ১৭৪০-এর দশকের শেষদিকে ১৭৪০-১৭৫৭ এর বর্মি গৃহযুদ্ধের সময়, দাউই উত্তর তেনাসেরিম উপকূল সহ সাম এর দখলে আসে। বার্মা ১৭৬০ সালে শহরটি পুনরুদ্ধার করে এবং ১৭৬৫ সালে পুরো তেনাসেরিম উপকূলে এর নিয়ন্ত্রণ প্রসারিত করে। তেনাসেরিম উপকূল প্রথম অ্যাংলো-বর্মি যুদ্ধের পরে ব্রিটিশদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল (১৮২৪-১৮২৬)।

১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর শহরটি তেনাসেরিম বিভাগের অংশে পরিণত হয়, যার মধ্যে আজকের মন রাজ্যও অন্তর্ভুক্ত ছিল। ১৯৭৪ সালে মন রাজ্য তেনাসেরিম থেকে গঠন করা হয় এবং দাউই কাটা বিভাগের রাজধানী হয়ে ওঠে। ১৯৮৯ সালে শহরের ইংরেজি নাম তাভয় থেকে দাউইতে পরিবর্তন করা হয় এবং তেনাসেরিম তানিনথারিতে পরিণত হয়।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

দাউই উত্তর-পশ্চিম দিকের সিত্বের অনুরূপ একটি চরম ক্রান্তীয় মৌসুমি জলবায়ুর (কোপেন জলবায়ু শ্রেণিবিন্যাসে এএম) বৈশিষ্ট্যযুক্ত। নভেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত এখানে প্রচন্ড শুকনো মৌসুম বিরাজ করে, তবে আর্দ্র মৌসুমে স্থানীয় পর্বতের প্রভাবে দাউই এ প্রতি মাসে ১,৩০০ মিলিমিটার (৫১ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হয়। কলম্বিয়ার চোকো অঞ্চল এবং আফ্রিকার ক্যামেরুনের পর্বতের আশেপাশের অঞ্চল বাদে এটি সম্ভবত পৃথিবীর সবচেয়ে আর্দ্রতম ক্রান্তীয় নিম্নভূমি অঞ্চল।

দাউই (১৯৮১-২০১০, চরম ১৯৪৯–১৯৯৪)-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ৩৬.৭
(৯৮.১)
৩৭.২
(৯৯.০)
৩৭.২
(৯৯.০)
৩৮.৩
(১০০.৯)
৩৮.৯
(১০২.০)
৩৬.১
(৯৭.০)
৩৭.৮
(১০০.০)
৩৩.৯
(৯৩.০)
৩৭.২
(৯৯.০)
৩৭.২
(৯৯.০)
৩৭.৮
(১০০.০)
৩৬.১
(৯৭.০)
৩৮.৯
(১০২.০)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ৩৩.৩
(৯১.৯)
৩৪.১
(৯৩.৪)
৩৪.৭
(৯৪.৫)
৩৫.০
(৯৫.০)
৩২.০
(৮৯.৬)
২৯.৪
(৮৪.৯)
২৮.৭
(৮৩.৭)
২৮.৪
(৮৩.১)
২৯.৭
(৮৫.৫)
৩১.৭
(৮৯.১)
৩২.৮
(৯১.০)
৩২.৬
(৯০.৭)
৩১.৯
(৮৯.৪)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ১৮.৪
(৬৫.১)
১৯.৬
(৬৭.৩)
২১.২
(৭০.২)
২৩.৩
(৭৩.৯)
২৩.৭
(৭৪.৭)
২৩.২
(৭৩.৮)
২২.৭
(৭২.৯)
২২.৮
(৭৩.০)
২২.৭
(৭২.৯)
২২.৫
(৭২.৫)
২০.৮
(৬৯.৪)
১৮.২
(৬৪.৮)
২১.৬
(৭০.৯)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) ১০.০
(৫০.০)
১০.৬
(৫১.১)
১৩.৯
(৫৭.০)
১৭.৮
(৬৪.০)
২০.০
(৬৮.০)
২০.৬
(৬৯.১)
২০.০
(৬৮.০)
২০.০
(৬৮.০)
২০.৬
(৬৯.১)
১৬.৭
(৬২.১)
১১.১
(৫২.০)
৮.৯
(৪৮.০)
৮.৯
(৪৮.০)
বৃষ্টিপাতের গড় মিমি (ইঞ্চি) ৫.৮
(০.২৩)
১৬.৬
(০.৬৫)
৩৯.৫
(১.৫৬)
১১৫.৩
(৪.৫৪)
৫৩৬.৩
(২১.১১)
১,০৯৯.৪
(৪৩.২৮)
১,২০১.৪
(৪৭.৩০)
১,৩১০.৪
(৫১.৫৯)
৭০৭.৩
(২৭.৮৫)
৩৫৫.৮
(১৪.০১)
৪৪.৫
(১.৭৫)
৭.৬
(০.৩০)
৫,৪৩৯.৯
(২১৪.১৭)
উৎস ১: নরওয়েজিয়ান আবহাওয়া ইনস্টিটিউট[৪]
উৎস ২: সিস্তেমা দে ক্লাশিফিক্যাসিয়ন বায়োক্লিম্যাটিকা মুন্ডিয়াল (নথি)[৫]

পরিবহন[সম্পাদনা]

সম্প্রতি দাউই কেবলমাত্র মিয়ানমারের বাকি অংশের সাথে সড়ক ও রেলপথে সংযুক্ত ছিল। যদি প্রস্তাবিত গভীর সমুদ্রবন্দর প্রকল্পটি এগিয়ে যায়, তবে দাউই ও ব্যাংকককে[৬] সংযুক্তকারি তেনেসেরিম পাহাড়ের ওপারে একটি বহুজাতিক সড়ক এবং রেলপথ পরিকল্পনা করা হয়েছে।[৭] এই বন্দরটি সিঙ্গাপুর-গামী যান চলাচল উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে পারে।[৮]

দাউই বিমানবন্দর

বিমানবন্দরটি দাউই শহরের সাথে পার্শ্ববর্তী শহরগুলির অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর হিসাবে কাজ করে। সরকার পর্যটন কেন্দ্রের জন্য বিমানবন্দরকে উন্নত করার পরিকল্পনা করেছে।

দাউই রেল স্টেশন

এটি মায়ানমারের দক্ষিণতম এবং শেষ স্টেশন।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

দাউইতে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।[৯] ২০১০ সালের নভেম্বরে মিয়ানমার বন্দর কর্তৃপক্ষ দাউই সমুদ্রবন্দরের উন্নয়নের জন্য ইতালীয়-থাই ডেভেলপমেন্টের সাথে ৮.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের চুক্তি করেছে।[১০] দাউই বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল মিয়ানমারের প্রথম বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড) হয়ে উঠবে, যার মধ্যে থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া এবং ভিয়েতনামের সমুদ্র, স্থল (রেলপথ এবং সড়কপথ) অবকাঠামোগত সংযোগ সহ ২৫০ বর্গকিলোমিটার (৯৭ বর্গ মাইল) শিল্প জমি গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে, পাশাপাশি থাইল্যান্ডের কাঞ্চনবুরি প্রদেশের সাথে প্রদেশে একটি গ্যাস পাইপলাইন এবং বাণিজ্যিক এবং আবাসিক উন্নয়ন পরিকল্পনা রয়েছে।[১১][১২]

এসইজেডের উন্নয়ন ৬৩,৭৬৮ একর (২৫,৮০৬ হেক্টর) (প্রত্যক্ষ) ও ১৫৩,৯১৯ একর (৬২,২৮৯ হেক্টর) কৃষকদের জমি দখল ও জমি দখলের সাথে যুক্ত হয়েছে, সম্ভাব্যভাবে পাঁচ লাখ স্থানীয় দাউই স্থানচ্যুত হবে।[১৩] স্থানীয় জাতিগত জনগোষ্ঠীর একটি উল্লেখযোগ্য অংশ এই প্রকল্পটির বিরোধিতা করছে।[১৪]

দাউই লঙ্গি (সারং) এই অঞ্চলের বিখ্যাত পণ্য।[১৫] এই অঞ্চলে রাবার, শুকনো মাছ এবং সেগুন কাঠ উৎপন্ন হয়। এখানে কাজু বাদাম এবং সুপারি উৎপাদিত হয় এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে চীন, ভারত এবং থাইল্যান্ডে রফতানি হয়। দাউই বিভিন্ন ধরনের ফল যেমন আনারস, বিভিন্ন জাতের আম, তার গাছ এবং ডুরিয়ানের জন্যও পরিচিত। জিন থি (দাউই ভাষায়) নামে একটি ফল রয়েছে, যা কেবলমাত্র দাউই এবং এর আশেপাশের অঞ্চলে পাওয়া যায়।

উচ্চ শিক্ষা[সম্পাদনা]

উল্লেখযোগ্য স্থান[সম্পাদনা]

  • মংম্যাগান সমুদ্র সৈকত
  • মংম্যাগান গরম পানির ঝরনা
  • সুউ তাং সার প্যাগোডা, পেয়াগি
  • পে গরম পানির ঝরনা
  • লুংলন বোক দ্বীপপুঞ্জ
  • প্যারাডাইজ সমুদ্র সৈকত
  • গ্র্যান্ড ফাদার সমুদ্র সৈকত
  • সিন তাউক সমুদ্র সৈকত
  • ওয়া জাওয়াম চৌং জলপ্রপাত এবং গরম পানির ঝরনা
  • কা লোন তার খাঁড়ি
  • সরগারা প্রাচীন শহর (বর্তমান দাউইয়ের পুরাতন শহর)
  • মোখতি প্রাচীন শহর

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Myanmar Area Codes"। ২০০৯-১২-০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৪-১০ 
  2. Tun, Than (১৯৮৮)। "Observations on the Translation and Annotation of the Royal Orders Of Burma"। Crossroads: An Interdisciplinary Journal of Southeast Asian Studies4 (1): 91–99। জেস্টোর 40860260 
  3. Banyar, Ko (৭ নভেম্বর ২০১৩)। "မွန်တို့ဌာနေ ရာမည တိုင်းက မွန် အခေါ်အဝေါ်များ"Phophtaw News Association। ২৬ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "Myanmar Climate Report" (PDF)। Norwegian Meteorological Institute। পৃষ্ঠা 26–36। ৮ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৮ 
  5. "Tavoy (Myanmar)" (PDF)। Centro de Investigaciones Fitosociológicas। ১২ মে ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "Dawei Road could endanger forests and wildlife - Report"। Burma News International। ১২ জুলাই ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৯ 
  7. "Table A1-1-1a. Prospective projects in Mekong sub-region" (PDF)। ২০১৩-০৫-০৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-২৮ 
  8. Narayan, Ranjana (১২ আগস্ট ২০১৩)। "India to link Myanmar port to boost connectivity with ASEAN"SME Times 
  9. "China's horizons extend southwards"Railway Gazette International। ৪ জানুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০১-০৬ 
  10. Aye Thidar Kyaw; Stuart Deed (৭ ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "SPDC signs Special Economic Zone law into effect on Jan 27"Myanmar Times। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১১ 
  11. Thein Linn (৪ নভেম্বর ২০১০)। "Dawei deep-sea port, SEZ gets green light"Myanmar Times। ৩১ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১১ 
  12. Calderon, Justin (৩০ অক্টোবর ২০১২)। "Italian-Thai takes lead in delayed Dawei"Investvine.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-২৭ 
  13. Loewen, Elizabeth (সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Land Grabbing in Dawei (Myanmar/Burma): a (Inter)national Human Rights Concern" (PDF)Transnational Institute টেমপ্লেট:Nonspecific
  14. Wangkiat, Paritta (২৫ মে ২০২০)। "Thai TV series give ugly truths a rosy hue" (Opinion)Bangkok Post। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০২০ 
  15. "Dawei Traditional Longyi Weaving Art inc. video"। ২০০৭-১০-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিমিডিয়া কমন্সে দাউই সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন।
  • উইকিভ্রমণ থেকে দাউই ভ্রমণ নির্দেশিকা পড়ুন।