থুরিনগিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
থুরিনগিয়া
Freistaat Thüringen
জার্মানির রাজ্য
থুরিনগিয়ার পতাকা
পতাকা
Coat of arms of থুরিনগিয়া
প্রতীক
Deutschland Lage von Thüringen.svg
স্থানাঙ্ক: ৫০°৫১′৪০″ উত্তর ১১°৩′৭″ পূর্ব / ৫০.৮৬১১১° উত্তর ১১.০৫১৯৪° পূর্ব / 50.86111; 11.05194
দেশ  জার্মানি
রাজধানী Erfurt
সরকার
 • Minister-President ক্রিসটিন লিবারনেখট্‌ (CDU)
 • শাসক দলসমূহ CDU / SPD
 • বুনডেসরাটে ভোট 4 (of 69)
আয়তন
 • মোট ১৬১৭১ কিমি (৬২৪৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (2013-12-31)[১]
 • মোট ২১,৬০,৮৪০
 • ঘনত্ব ১৩০/কিমি (৩৫০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চল সিইটি (ইউটিসি+১)
 • Summer (ডিএসটি) সিইডিটি (ইউটিসি+২)
আইএসও ৩১৬৬ কোড DE-TH
জিডিপি/নামমাত্র € 49.87 বিলিয়ন (2010)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
বাদাম অঞ্চল DEG
ওয়েবসাইট thueringen.de

থুরিনগিয়া জার্মানির মধ্যাঞ্চলে অবস্থিত একটি রাজ্য। এর আয়তন ১৬,১৭১ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ২.২৯ মিলিয়ন। আয়তনের দিক থেকে এটি ষষ্ঠ ক্ষুদ্র এবং জনসংখ্যার দিক থেকে পঞ্চম ক্ষুদ্র। এর রাজধানী এরফুর্ট। এই রাজ্যের পাশ দিয়ে এলবা নদী বয়ে গেছে। থুরিনগিয়া জার্মানির সবুজ হৃদয় বা গ্রিন হার্ট অফ জার্মানি নামে সুপরিচিত।[২] কারণে এখানে ঘন বনাঞ্চল রয়েছে।

এই রাজ্যটিতে প্রাকৃতিক শোভার জন্য পর্যটকরা ঘুরতে আসে। এবং শীতকালীন খেলাধূলার জন্যেও থুরিনগিয়া বিখ্যাত। জার্মানির সবচেয়ে বিখ্যাত হাইকিং ট্রেইল রান্সটাইগ এখানে অবস্থিত। শীতকালীন অবকাশকেন্দ্র ওবারহোফ এখানে রয়েছে। গত বিশ বছরে শীতকালীন অলিম্পিকে অন্য যেকোন দেশের চেয়ে বেশি স্বর্ণপদক অর্জন করেছে এবং এসব পদকের অর্ধেকই থুরিনগিয়ার অ্যাথলেটরা জিতেছে।

বিখ্যাত জার্মান সুরকার ও সঙ্গীতজ্ঞ ইয়োহান জেবাস্টিয়ান বাখ তাঁর জীবনের প্রথম অংশ এবং পরবর্তি জীবনের অনেক সময়ই থুরিনগিয়াতে অতিবাহিত করেন। বিখ্যাত জার্মান কবি ও দার্শনিক ইয়োহান ভোলফগাং ফন গোটে এবং ফ্রিডরিখ শিলার থুরিনগিয়ার শহর ভাইমারে বসবাস করতেন।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

থুরিনগিয়াতে জার্মান পুনঃএকত্রীকরণের পরে অধিকাংশ ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে যায় এবং ২০০৫ সালে বেকারত্বের হার সর্বোচ্চ হয়। পরবর্তিতে অর্থনৈতিক অবস্থায় গতির সঞ্চার হয় এবং ক্রমশ উন্নতি লাভ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bevölkerung der Gemeinden, erfüllenden Gemeinden und Verwaltungsgemeinschaften nach Geschlecht in Thüringen"Thüringer Landesamt für Statistik (German ভাষায়)। আগস্ট ২০১৪। 
  2. "A. Trinius (1898)"। Books.google.com। ২০০৯-০৭-৩০। সংগৃহীত ২০১৪-০২-২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]