রাইনলান্ড-ফালৎস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
রাইনলান্ড-ফালৎস
Rheinland-Pfalz
জার্মানির রাজ্য
রাইনলান্ড-ফালৎসের পতাকা
পতাকা
রাইনলান্ড-ফালৎসের প্রতীক
প্রতীক
Deutschland Lage von Rheinland-Pfalz.svg
স্থানাঙ্ক: ৪৯°৫৪′৪৭″ উত্তর ৭°২৭′০″ পূর্ব / ৪৯.৯১৩০৬° উত্তর ৭.৪৫০০০° পূর্ব / 49.91306; 7.45000
দেশ  জার্মানি
রাজধানী মাইন্স
সরকার
 • Minister-President Malu Dreyer (SPD)
 • শাসক দলসমূহ SPD / Greens
 • বুনডেসরাটে ভোট 4 (of 69)
আয়তন
 • মোট ১৯৮৫৩.৩৬ কিমি (৭৬৬৫.৪৩ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (2012-12-31)[১]
 • মোট ৩৯,৯০,২৭৮
 • ঘনত্ব ২০০/কিমি (৫২০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চল সিইটি (ইউটিসি+১)
 • Summer (ডিএসটি) সিইডিটি (ইউটিসি+২)
আইএসও ৩১৬৬ কোড DE-RP
জিডিপি/নামমাত্র € ১০৭.৬৩ বিলিয়ন (২০১০)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
বাদাম অঞ্চল DEB
ওয়েবসাইট www.rlp.de

রাইনলান্ড-ফালৎস (জার্মান ভাষায়: Rheinland-Pfalz, উচ্চারণ [ˈʁaɪ̯nlant ˈp͡falt͡s] ) জার্মানির একটি রাজ্য।এর আয়তন ১৯,৮৪৬ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা প্রায় চার মিলিয়ন। রাইনলান্ড-ফালৎসর রাজধানী মাইন্স।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রাইনলান্ড-ফালৎস ১৯৪৬ সালের ৩০ আগস্ট প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি ফ্রান্স কর্তৃক দখলকৃত জার্মানির উত্তরাঞ্চলের এলাকা নিয়ে গঠিত হয়। বাভারিয়ার অংশবিশেষ, প্রুশিয়ার রিনে ও নাসায় প্রদেশ ও হেসে-ডার্মস্টাডের অংশবিশেষের সমন্বয়ে রাইনলান্ড-ফালৎস গঠিত হয়।

ভূগোল[সম্পাদনা]

রাইনলান্ড-ফালৎস পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থিত। এর সীমানায় নর্থ রিনে-ভেস্টফালিয়া, হেসে, বাডেন-ভুর্টেমবার্গ, জারল্যান্ড রাজ্যগুলো অবস্থিত। এছাড়া ফ্রান্স, লুক্সেমবার্গ ও বেলজিয়ামের সাথে আন্তর্জাতিক সীমারেখা রয়েছে। এই রাজ্যের সবচেয়ে বড় নদী রিনে। এটি বাডেন-ভুর্টেমবার্গ ও হেসের সাথে রাইনলান্ড-ফালৎসর দক্ষিণে সীমানা তৈরি করেছে। রিনে নদী উপত্যকা কয়েকটি পর্বত দ্বারা বেষ্টিত এবং এখানে জার্মানির বেশ কিছু ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ স্থান রয়েছে। রিনের নদীড় পশ্চিম উপকূলে রয়েছে আইফেল ও হুন্সরুক পর্বতশ্রেণী। ভেস্টারভাল্ড ও টাউনুস পর্বত অবস্থিত পূর্ব উপকূলে। রাইনলান্ড-ফালৎসর দক্ষিণের ভূমি অসমতল ও পর্বতময়। এখানে প্যালাটিনাটা বন অবস্থিত।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

রাইনলান্ড-ফালৎস রাজ্যের রপ্তানী অন্য যেকোন রাজ্যের চেয়ে বেশি। আমদানী পণের মধ্যে রয়েছে ওয়াইন, কেমিক্যাল, ফার্মাসি ও গাড়ির যন্ত্রাংশ। এই রাজ্যে সিরামিক শিল্প, গ্লাস শিল্প ও চামড়া শিল্প রয়েছে। মাঝারি ও ছোট ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান রাইনলান্ড-ফালৎসর অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। এখানকার সবচেয়ে বড় কর্মসংস্থান সৃষ্টিকারী শিল্প হল কেমিক্যাল ও প্লাস্টিক শিল্প। বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাসায়নিক পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিএএসএফ এই রাজ্যের লুডভিগশ্যাফেন-এ অবস্থিত।

রাইনলান্ড-ফালৎস জার্মানির সবচেয়ে বড় ওয়াইন প্রস্ততকারী রাজ্য। এর রাজধানী মাইন্স জার্মানির ওয়াইন শিল্পের রাজধানী। এখানে জার্মান ওয়াইন ইন্সটিটিউট, জার্মান ওয়াইন ফান্ড অবস্থিত। জার্মানির যে তেরটি জায়গায় উচ্চমানের ওয়াইন তৈরি হয়, তার ছয়টিই রাইনলান্ড-ফালৎসতে অবস্থিত। জার্মানির ৬৫% থেকে ৭০% ওয়াইন প্রস্ততকারী আঙ্গুরের উৎপাদন এই রাজ্যে হয়। এখানকার ১৩০০০ ওয়াইন প্রস্ততকারী জার্মানির ৮০% থেকে ৯০% রপ্তানিযোগ্য ওয়াইন তৈরি করে, ২০০৩ সালে যার পরিমাণ ছিল ২.৬ হেক্টোলিটার।

ধর্ম[সম্পাদনা]

২০১০ সাল নাগাদ রাইনলান্ড-ফালৎসের ৪৪.৯% জনসংখ্যা রোমান ক্যাথলিক, ৩০.৬% জার্মান ইভাঞ্জেলিক্যাল চার্চের অনুসারী। ২২.০% জনসংখ্যা অন্যান্য ধর্মে বিশ্বাসী বা কোন ধর্মে বিশ্বাসী না। মুসলিম জনসংখ্যা ২.৫%।

অভিবাসন[সম্পাদনা]

রাইনলান্ড-ফালৎস থেকে অনেক মানুষ পৃথিবীড় বিভিন্ন স্থানে অভিবাসিত হয়েছে। এমনকি বিশ্বের কিছু দেশের অনেক স্থানের নাম এই রাজ্যের সাথে মিল রেখে করা হয়েছে, কারণ সেসমস্ত জায়গাতে এই রাজ্যের অভিবাসীর সংখ্যা বেশি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bevölkerung der Gemeinden am 31.12.2012"Statistisches Bundesamt (German ভাষায়)। ২০১২। 
  2. "State Facts of Rhineland-Palatinate"। State of Rhineland-Palatinate। সংগৃহীত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]