জোবাইদা রহমান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জোবাইদা রহমান
জন্ম (1972-06-18) ১৮ জুন ১৯৭২ (বয়স ৫০)[১]
জাতীয়তা
মাতৃশিক্ষায়তন
পেশারাজনীতি,চিকিৎসক
উপাধিডাক্তার
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
দাম্পত্য সঙ্গীতারেক রহমান
সন্তানজাইমা রহমান (কন্যা)
পিতা-মাতামাহবুব আলী খান (বাবা) সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানু (মা)
আত্মীয়এমএজি ওসমানী (চাচা)
ওয়েবসাইটwww.zubaidarahman.net

জোবাইদা রহমান একজন বাংলাদেশী চিকিৎসক ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্ত্রী। তার জন্ম ১৯৭২ সালের ১৮ জুন।[২]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

জোবাইদা রহমানের জন্ম বাংলাদেশের সিলেটে। তার বাবা রিয়ার অ্যাডমিরাল মাহবুব আলী রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাসনামলে বাংলাদেশের নৌবাহিনীর প্রধান ছিলেন। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সরকারে তিনি যোগাযোগ ও কৃষিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল এমএজি ওসমানী জোবাইদা রহমানের কাকা। তিনি অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাবেক সেক্রেটারি জেনারেল আইরিন খানের চাচাতো বোন।[৩]

১৯৯৫ সালে বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারে যোগ দেওয়ার দুই বছর আগে তারেকের সাথে জোবাইদার বিয়ে হয়। ২০০৮ সালে তারেকের জেলমুক্তির পর শিক্ষাছুটি নিয়ে তারেকের চিকিৎসার জন্য তিনি লন্ডন যান। বর্তমানে সেখানেই অবস্থান করছেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

জোবাইদা লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন থেকে মেডিসিন বিভাগে বিদ্যায়ন করে রেকর্ড নম্বর ও স্বর্ণপদক নিয়ে এমএসসি করেছেন। তিনি চিকিৎসকদের সিভিল সার্ভিস (বিসিএস)পরীক্ষায় প্রথম হয়ে ১৯৯৫ সালে চিকিৎসক হিসেবে প্রজাতন্ত্রের চাকুরীতে যোগ দেন। এর দুই বছর আগে তারেকের সঙ্গে বিয়ে হয় জোবাইদার।[৪]

জিয়া পরিবারের সদস্য ও বিএনপির শীর্ষ দুই নেতা দুর্ণীতি মামলায় দণ্ডিত হওয়ায় জোবাইদা রহমানের দলের হাল ধরার কথা প্রচার হলেও তিনি কখনো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন নি কিংবা প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে তাকে দেখা যায় নি।[৩][২]

জোবাইদা রহমানের রাজনীতিতে আসা নিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রীসভার বৈঠকে মন্তব্য করেছিলেন-

সে (জোবাইদা) শিক্ষিতা এবং ভালো বংশের মেয়ে। সে রাজনীতিতে এলে ভালোই হবে।[৫]

বিতর্ক[সম্পাদনা]

জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের আদালতে একটি দুর্ণীতির মামলা চলমান। অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জন এবং সম্পদ বিবরণীতে তথ্য গোপনের অভিযোগে ২০০৮ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের জরুরি সরকারের শাসনামলে তারেক রহমান, তার স্ত্রী জোবাইদা ও জোবাইদার মা ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় মামলাটি করে দুদক।[৬][৭]

২০০৮ সালে শিক্ষাছুটি নিয়ে লন্ডন যাওয়ার পর আবার দ্বিতীয় মেয়াদে ছুটি বাড়ানোর পরও ফেরত এসে চাকুরীতে যোগ না দেওয়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাকে বরখাস্ত করেছে।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Official Site of zubaida Rahman"www.zubaidarahman.net। ৩ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৩ 
  2. টেলিভিশন, Ekushey TV | একুশে। "আলোচনায় ডা. জোবাইদা রহমান"Ekushey TV। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮ 
  3. "আলোচনায় ডা. জোবাইদা"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮ 
  4. https://www.risingbd.com। "তারেকের স্ত্রী ডা. জোবাইদা বরখাস্ত"Risingbd Online Bangla News Portal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮ 
  5. "তারেকের স্ত্রী জোবাইদার প্রশংসা করলেন প্রধানমন্ত্রী"Bangla Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮ 
  6. "জোবাইদা রহমান ন্যায় বিচার পাননি: রিজভী"banglanews24.com। ২০২২-০৪-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮ 
  7. রিপোর্ট, স্টার অনলাইন (২০২২-০৪-১৩)। "জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা চলবে: সুপ্রিম কোর্ট"The Daily Star Bangla (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৮