চাঁদপুর এম.এ. খালেক মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চাঁদপুর এম.এ. খালেক মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ
চাঁদপুর এম.এ. খালেক মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের লোগো
চাঁদপুর এম.এ. খালেক মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের লোগো
অবস্থান
সাহেদাপুর, কচুয়া , চাঁদপুর [১]
বাংলাদেশ
তথ্য
ধরনবেসরকারী
প্রতিষ্ঠাকাল৮ জানুয়ারী, ১৯৭০
বিদ্যালয় কোডEIIN: 103789
চেয়ারম্যানএম.এম. ফজলে কাদের মুকুল
অধ্যক্ষমোঃ মোশারেফ হোসেন চৌধুরী
শ্রেণীষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ
লিঙ্গছেলে, মেয়ে
শিক্ষার্থী সংখ্যা১০০০+
ভাষার মাধ্যমবাংলা
বিদ্যালয়ের কার্যসময়৬ ঘন্টা
ক্যাম্পাসের আকার২.১১ একর
শিক্ষা বোর্ডকুমিল্লা
যোগাযোগ01819047664
ওয়েবসাইট

চাঁদপুর এম.এ. খালেক মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার চাঁদপুর গ্রামে অবস্থিত। ২০১৭ সালে বিদ্যালয়টি কচুয়া উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৭০ সালে চাঁদপুর জুনিয়র স্কুল নামে যাত্রা শুরু করে ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠানটি নবম শ্রেনী খোলার অনুমতি এবং চাঁদপুর উচ্চ বিদ্যালয় হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করে। ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠানটি চাঁদপুর এম এ খালেক মেমোরিয়াল হাই স্কুল নামকরণ করা হয়। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানে মোট জমির পরিমান ২.১১ একর। প্রতিষ্ঠানের ১টি প্রশাসনিক ভবনসহ ৪টি একাডেমিক ভবন রয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও শিক্ষাবোর্ডের অনুমতিক্রমে ২০১০ সালে একাদশ শাখায় বিজ্ঞান, মানবিক, ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ চালুর মাধ্যমে স্কুল এন্ড কলেজ হিসাবে যাত্রা শুরু করে। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠানটি কচুয়া উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে নির্বাচিত হয়।

ফলাফল[সম্পাদনা]

এইচ.এস.সি

সন মোট পরীক্ষার্থী উত্তীর্ন অনুত্তীর্ন এ+ পাসের হার বোর্ডের পাসের হার
২০১২ ৬০ ৫৪ ০৬ ০১ ৯০.০০ ৭৪.৫৬
২০১৩ ৬১ ৬০ ০১ ০১ ৯৮.৩৬ ৬১.২৪
২০১৪ ৮১ ৮০ ০১ ০৩ ৯৮.৭৭ ৭০.১১
২০১৫ ৯০ ৭৫ ১৫ -- ৮৩.৩৩ ৫৯.৭৭
২০১৬ ৯২ ৯০ ০২ ০১ ৯৭.৮৩ ৬৪.৫১
২০১৭ ৭২ ৪৯ ২৩ -- ৬৮.০৬ ৪৯.৪৭
২০১৮ ১১১ ৭২ ৩৯ -- ৬৪.৮৬ ৬৫.৪০

এস.এস.সি (বিভাগ ভিত্তিক)

সন মোট পরীক্ষার্থী ১ম বিভাগ ২য় বিভাগ ৩য় বিভাগ মোট পাস পাসের হার
১৯৯০ ১৪ -- ০১ ০৩ ০৪ ২৮.৫৭
১৯৯১ ১৪ -- ০৪ ০৪ ০৮ ৫৭.১৪
১৯৯২ ৩২ ০৭ ১৩ ০১ ২১ ৬৫.৬৩
১৯৯৩ ২৭ ১০ ০৯ ০১ ২০ ৭৪.০৮
১৯৯৪ ৫০ ৩০ ০৯ -- ৩৯ ৭৮.০০
১৯৯৫ ৫১ ১৭ ২১ -- ৩৮ ৭৪.৫১
১৯৯৬ ২৮ ১৮ ০৬ -- ২৪ ৮৫.৭১
১৯৯৭ ৪২ ১২ ২১ -- ৩৩ ৭৮.৫৭
১৯৯৮ ৪২ ১২ ০৮ -- ২০ ৪৭.৬২
১৯৯৯ ৮০ ২০ ১৬ ০২ ৩৮ ৪৭.৫০
২০০০ ৬০ ০১ ০৪ ০৫ ১০ ১৬.৬৭

এস.এস.সি (গ্রেডিং ভিত্তিক)

সন মোট পরীক্ষার্থী উত্তীর্ন অনুত্তীর্ন এ+ পাসের হার বোর্ডের পাসের হার
২০০১ ৪০ ২৩ ১৭ -- ৫৭.৫০
২০০২ ৪২ ২১ ২১ -- ৫০.০০
২০০৩ ৫৩ ৩১ ২২ -- ৫৮.৪৯
২০০৪ ৪৩ ৩২ ১১ ০১ ৭৪.৪২
২০০৫ ৫৭ ৩৫ ২২ -- ৬১.৪০ ৫৫.৮৯
২০০৬ ৫৩ ৪২ ১১ ০২ ৭৯.২৫ ৬৩.৪৫
২০০৭ ৫৫ ৩০ ২৫ ৫৪.৫৫ ৪৬.৮৩
২০০৮ ৫৮ ৫৫ ০৩ ৯৪.৮৩ ৭৩.০০
২০০৯ ৫১ ৪৮ ০৩ ৯৪.১২ ৭২.৭৭
২০১০ ৭২ ৭০ ০২ ৯৭.২২ ৮১.০৩
২০১১ ৬৩ ৫৪ ০৯ ৮৫.৭২ ৮৫.৮৫
২০১২ ৬৭ ৬৭ -- ০১ ১০০ ৮৫.৬৪
২০১৩ ৮৮ ৮৩ ০৫ ০৮ ৯৪.৩২ ৯১.১০
২০১৪ ৮৮ ৮৬ ০২ ০৬ ৯৭.৭৩ ৮৯.৯২
২০১৫ ৯৯ ৮২ ১৭ -- ৮২.৮৩ ৮৪.২৪
২০১৬ ৯৬ ৯৬ -- ০২ ১০০ ৮৪.০৮
২০১৭ ৯২ ৮৩ ০৯ -- ৯০.২২ ৫৯.০৯
২০১৮ ১১৪ ৯৩ ২১ ০৬ ৮১.৫৮ ৮০.৩৯

জে.এস.সি

সন মোট পরীক্ষার্থী উত্তীর্ন অনুত্তীর্ন এ+ পাসের হার বোর্ডের পাসের হার
২০১০ ৯৪ ৮৯ ০৫ ৯৪.৬৮ ৭৩.৫৬
২০১১ ১১৬ ১১৪ ০২ ৯৮.২৮ ৯১.২৫
২০১২ ১১৫ ১১৫ -- -- ১০০ ৯১.৮৭
২০১৩ ১৫১ ১৪২ ০৯ ০৯ ৯৪.০৪ ৯০.৪৩
২০১৪ ১৩৮ ১৩৪ ০৪ ০৪ ৯৭.১০ ৯৩.৭৮
২০১৫ ১৫৭ ১৪৫ ১২ ১২ ৯২.৩৬ ৯২.৫৪
২০১৬ ১৫০ ১৪৯ ০১ ০৬ ৯৯.৩৩ ৮৯.৭১
২০১৭ ১২০ ১১২ ০৮ ০৪ ৯৩.৩৩ ৬২.৮৩
২০১৮ ১১৮ ১১০ ০৮ ০১ ৯৩.২২ ৮৬.৯৯

জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফল

সন বৃত্তি প্রাপ্তির সংখ্যা
১৯৯২ ০১
১৯৯৮ ০১
২০০১ ০১
২০০৪ ০১
২০০৬ ০২

সহশিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

স্কুলটি ১৯৯৫ সালে স্কাউটিং কার্যক্রমের সাথে যুক্ত হয়। ২০০২-০৩ সালে দুইজন শিক্ষার্থী থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত বিশ্ব স্কাউট জাম্বুরীতে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া ২০০৪ সালে ৭ম বাংলাদেশ ও ৪র্থ সার্ক জাম্বুরীতে নয়জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]