গুন্টার গ্রাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গুন্টার গ্রাস
Günter Grass auf dem Blauen Sofa.jpg
গুন্টার গ্রাস ২০০৬ সালে
জন্ম গুন্টার উইলহেম গ্রাস
(১৯২৭-১০-১৬)অক্টোবর ১৬, ১৯২৭
দানজিগ-লংফোর,
ফ্রি সিটি অফ ডানজিগ
মৃত্যু এপ্রিল ১৩, ২০১৫(২০১৫-০৪-১৩) (৮৭ বছর)
লুবেক, জার্মানি
জীবিকা
  • ঔপন্যাসিক
  • কবি
  • নাট্যকার
  • ভাস্কর
  • গ্রাফিক ডিজাইনার
জাতীয়তা জার্মান / কাশুবিয়ান
নাগরিকত্ব জার্মান
সময়কাল ১৯৫৬–২০১৫
সাহিত্য আন্দোলন Vergangenheitsbewältigung
উল্লেখযোগ্য রচনাসমূহ Die Blechtrommel
Katz und Maus
Hundejahre
Im Krebsgang
"Was gesagt werden muss"
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার Georg Büchner Prize
১৯৬৫
Honorary Fellow of the Royal Society of Literature
১৯৯৩
সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার
১৯৯৯
প্রিন্স অব আস্তুরিয়াস পুরস্কার
১৯৯৯

স্বাক্ষর


গুন্টার গ্রাস (অক্টোবর ১৬, ১৯২৭ – ১৩ এপ্রিল, ২০১৫) ছিলেন সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী জার্মান সাহিত্যিক, কবি, নাট্যকার, ভাস্কর এবং গ্রাফিক ডিজাইনার।[১][২][৩][৪] গ্রাস ছিলেন কাশুবিয়ান আদিবাসী[৫]

গ্রাস ফ্রি সিটি অফ ডানজিগ (বর্তমান জিডানস্কে, পোল্যান্ড) শহরে জন্মগ্রহণ করেন। মে ১৯৪৫ সালে, ওয়াপেন এসএস-এ কিশোর সৈনিক হিসেবে সংক্ষিপ্ত পরিষেবা প্রদানের পর, মার্কিন বাহিনী কর্তৃক তাকে বন্দি করে নিয়ে যাওয়া হয় এবং এপ্রিল ১৯৪৬ সালে তিনি মুক্তি পান। একজন স্টোনম্যাসন এবং ভাস্কর হিসাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্তির পর, তিনি ১৯৫০-এর দশকে লেখালেখি শুরু করেন। তার কথাসাহিত্যে ঘন-ঘন তার শৈশবের ড্যান্জিং শহরের উল্লেখ রয়েছে।

গ্রাস তার প্রথম উপন্যাস দ্য টিন ড্রাম (১৯৫৯)-এর জন্য পরিচিত হয়, যা একটি ইউরোপীয় ৰজাদু বাস্তবতার অন্যতম শ্রেষ্ঠ লেখনী এবং দানজিগ ত্রয়ীর প্রথম অংশ যাতে ক্যাট এ্যন্ড মাউস, ও ডগ ইয়ার্স অর্ন্তভূক্ত রয়েছে। তার লেখা সবসময় বামপন্থী রাজনৈতিক লেখা হিসেবে ধরা হয়ে থাকে এবং তিনি সোসাল ডেমোক্রেটিক পার্টি অফ জার্মানির একজন সক্রিয় সমর্থনকারী। দ্য টিন ড্রাম উপন্যাসটি নিয়ে একই নামের চলচ্চিত্র নির্মান করা হয়েছে যা ১৯৭৯ সালে পাম ডি’অর এবং সেরা বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্রের জন্য একাডেমি পুরস্কার অর্জন করে। সুয়েডীয় একাডেমি ১৯৯৯ সালে তাকে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার প্রদান করে।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

গ্রাস ১৩ এপ্রিল ২০১৫ সালে লুবেক শহরে ৮৭ বছর বয়সে ফুসফুসের সংক্রমণ জনিত কারণে মৃত্যু বরণ করেন।[৬][৭][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kulish, Nicholas; Bronner, Ethan (৮ এপ্রিল ২০১২)। "Gunter Grass tries to hose down row over Israel"The Sydney Morning Herald। সংগৃহীত ৮ এপ্রিল ২০১২। "GUNTER Grass, Germany's most famous living writer, has tried to quell the growing controversy..." 
  2. "Outrage in Germany"Der Spiegel। ৪ এপ্রিল ২০১২। সংগৃহীত ৪ এপ্রিল ২০১২। "Günter Grass, Germany's most famous living author and the 1999 recipient of the Nobel Prize in literature..." 
  3. "Yishai: Günter Grass not welcome in Israel"The Jerusalem Post। ৪ এপ্রিল ২০১২। সংগৃহীত ৪ এপ্রিল ২০১২। "Germany’s most famous living writer, the Nobel literature laureate Günter Grass..." 
  4. Harding, Luke; Sherwood, Harriet (৮ এপ্রিল ২০১২)। "Outcry as Gunter Grass poem strongly criticises Israel"The Hindu (Chennai, India)। সংগৃহীত ৮ এপ্রিল ২০১২। "During his long literary career, Gunter Grass has been many things. Author, playwright, sculptor and, unquestionably, Germany's most famous living writer. There is the 1999 Nobel Prize and Mr. Grass's broader post-war role as the country's moral conscience..." 
  5. "Günter Grass nie żyje. Noblista miał 87 lat"Gazeta Wyborcza। ১৩ এপ্রিল ২০১৫। সংগৃহীত ১৩ এপ্রিল ২০১৪। "Pytany o tożsamość narodową, mówił, że jest Kaszubą." 
  6. "Renowned German author Günter Grass dies, aged 87"। DW.de। সংগৃহীত এপ্রিল ১৪, ২০১৫ 
  7. German author Guenter Grass dies, BBC News, 13 April 2015.
  8. Richard Lea। "Günter Grass, Nobel-winning German novelist, dies aged 87"the Guardian 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]