গজনি মিনার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গজনি মিনার
Ghazni-Minaret.jpg
২০০১ সালে গাজনীর একটি মিনারের দৃশ্য
গজনি আফগানিস্তান-এ অবস্থিত
গজনি
গজনি
আফগানিস্তানে মিনার দুইটির অবস্থান
বিকল্প নামমাসুদ (৩য়) মিনার ও বাহরাম শাহ মিনার[১]
অবস্থানগজনি, আফগানিস্তান
অঞ্চলগজনি প্রদেশ
স্থানাঙ্ক৩৩°৩৩′৫২.৪″ উত্তর ৬৮°২৬′০১.৮″ পূর্ব / ৩৩.৫৬৪৫৫৬° উত্তর ৬৮.৪৩৩৮৩৩° পূর্ব / 33.564556; 68.433833স্থানাঙ্ক: ৩৩°৩৩′৫২.৪″ উত্তর ৬৮°২৬′০১.৮″ পূর্ব / ৩৩.৫৬৪৫৫৬° উত্তর ৬৮.৪৩৩৮৩৩° পূর্ব / 33.564556; 68.433833
ধরনমিনার
উচ্চতা২০ মিটার (৬৬ ফুট)
ইতিহাস
নির্মাতামাসুদ (৩য়), বাহরাম শাহ
উপাদানইট
প্রতিষ্ঠিত১২শ শতাব্দী
স্থান নোটসমূহ
অবস্থাসংকটাপন্ন

গজনি মিনার মূলত মধ্য আফগানিস্তানের গজনি শহরে অবস্থিত দুটি অষ্টভুজ আকৃতির সুসম্পন্ন ভাবে অলংকৃত মিনার। মিনার দুইটি দ্বাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে নির্মিত এবং বর্তমানে বাহরাম শাহের মসজিদের টিকে থাকা একমাত্র নিদর্শন।[২] মিনার দুইটিকে তৎকালীন গজনভি রাজবংশের 'বিজয়ী' সম্রাজ্যের প্রতীক হিসেবে দেখা হয়। দুইটি মিনার ৬০০ মিটার (১৯৬৮ ফুট) দূরত্বের ব্যবধানে গজনী শহরের উত্তর-পূর্বদিকে একটি খোলা সমতল স্থানে সম্রাট তৃতীয় মাসুদের প্রাসাদের অবশিষ্টাংশের কাছে অবস্থিত।[৩]

বর্তমানে মিনার দুইটি উচ্চতায় ২০ মিটার (৬৬ ফুট) লম্বা। পোড়ামাটির ইট দিয়ে নির্মিত মিনার দুইটি আফগানিস্তানের ইসলামি স্থাপত্যকলার অনন্য নিদর্শণ। মিনারগুলির পৃষ্ঠদেশ বিস্তারিত ও জটিল জ্যামিতিক নকশার টেরাকোটার মাধ্যমে গজনভি রাজবংশের বিভিন্ন শাসকদের নাম অলংকৃত হয়েছে। টেরাকোটা ছাড়াও কুরআনের বিভিন্ন আয়াতের ক্যালিগ্রাফি দ্বারা সুন্দরভাবে সজ্জিত। ১৯৬০-এর দশকে, মিনারগুলিকে সংরক্ষণের প্রচেষ্টা স্বরূপ চূড়ায় টিনের শিট নির্মিত আচ্ছাদন লাগানো হয়।[২][৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দ্বাদশ শতাব্দীতে নির্মিত মিনারদ্বয় গজনি শহরের সবচেয়ে বিখ্যাত স্মৃতিস্তম্ভ এবং পরাক্রমশালী গজনভি সাম্রাজ্যের সময় নির্মিত স্থাপনাগুলির সর্বশেষ নিদর্শণ। মিনার দুটির নাম, নির্মাণকালীন শাসক, যথা: মাসুদ তৃতীয় (১০৯৯–১১১৫) ও বাহরাম শাহ (১১১৮–১১৫৭)-এর নাম অনুসারে তৃতীয় মাসুদ মিনার এবং বাহরাম শাহ মিনার রাখা হয়েছে।[১] মিনারগুলি 'বিজয় মিনার' নামেও পরিচিত।[২] মিনারগুলির অষ্টভুজ আকৃতির নিম্নাংশের উপরে বেলনাকৃতির অর্ধাংশ ছিল। যা সময়ের আবর্তে ক্ষয়ে যায়। ১৯০২ সালের ভূমিকম্পে এই বেলন আকৃতির অংশগুলি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়। ঐ ভূমিকম্পে মাসুদ তৃতীয় মিনার নিচের অংশ কিছুটা ধ্বংস হয়।[২][৪]

সুরক্ষা ও নিরাপত্তা[সম্পাদনা]

মিনারগুলি ভালভাবে সংরক্ষিত ও সুরক্ষিত নয়। দুইটি মিনারই জলবায়ুগত অবক্ষয়ের শিকার এবং আফগানিস্তানের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে সংকটাপন্ন অবস্থায় রয়েছে। মিনার গুলির উপরিভাগের জটিল জ্যামিতিক নিদর্শন এবং কুরআনের আয়াত সংবলিত শিলালিপি বৃষ্টি এবং তুষারপাতের কারণে দ্রুত ক্ষয় হচ্ছে। এছাড়াও নিকটবর্তী রাস্তার ধুলা ও নিয়মিত বন্যার পানি মিনার দুইটির ভিত্তিকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। রোধে টাওয়ারগুলি নতুন ছাদের প্রয়োজন।মিনারদ্বয়ের ভাঙন রোধের জন্য মৌলিক সুরক্ষা ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই।[৪]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "072. Ghazni: Bahram Shah Minaret"cemml.colostate.edu। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  2. C.E. Bosworth, The Later Ghaznavids, (Columbia University Press, 1977), 115.
  3. "Ghazni Towers Documentation Project: History"eca.state.gov। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  4. "Ghazni Minarets"wmf.org। World Monuments Fund। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮