কোডিট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাঁচ বছর বয়সের Acer platanoides বৃক্ষে পার্শ্বীয় ও বৃত্তাকার দেয়ালিকরণের উদাহরণ
দেয়ালের চিহ্নসহ কোডিট মডেল

বৃক্ষের ক্ষয়কে শ্রেণীতে বিভক্তকরণ বা কোডিট (ইংরেজি: Compartmentalization Of Decay In Trees বা CODIT) হল ডাঃ আলেক্স শিগোর তৈরিকৃত একটা ধারণা যা বছরের পর বছর বৃক্ষের ক্ষয়ের নকশা অধ্যয়নে অর্জিত হয়েছে। ১৯৭০ দশকের শেষের দিকে, সূচনালগ্নে যদিও ধারণাটি নানান বিতর্কের জন্ম দেয়, তথাপি বর্তমানে এটি সর্বত্র ব্যাপকভাবে সমাদৃত। আর্বরিকালচারের অনেক পাঠ্য বইয়ে আজকাল এই ধারণাটির উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।

তত্ত্বীয় পটভূমি[সম্পাদনা]

জড় বস্তু থেকে জীবন্ত বস্তুর জন্ম হতে পারে- অজীবজনি নামক এই তত্ত্বের সাথে সঙ্গতি রেখে একসময় বিজ্ঞানীরা প্রথাগতভাবে বিশ্বাস করতেন যে, বৃক্ষের অবক্ষয়ের কারণেই ছত্রাকের বিকাশ ঘটে। কিন্তু জার্ম তত্ত্বের আবির্ভাবের ফলে ২০ শতকে জার্মান বনবিদ রবার্ট হার্টিগ পূর্বতন ধারণার সম্পূর্ণ বিপরীতের মতবাদ দিলেন এবং বৃক্ষের অবক্ষয়ের একটি নতুন মডেল প্রনয়ণ করলেনঃ বৃক্ষ যখন আঘাত পায়, সেই ক্ষততে ছত্রাক সংক্রমণ করে, আর এর ফলেই কাঠের ক্ষয় হয়। সময়ের সাথে সাথে, শাইগো এবং আরোও অনেকের গবেষণা এই তত্ত্বকে প্রসারিত করে এবং জন্ম দেয় বৃক্ষ অবক্ষয়ের আধুনিক ধারণা। এই ধারণা মতে, বৃক্ষের মাঝে কোনো ধরণের ক্ষত নানা রকম কাষ্ঠ অবক্ষয়ি জীবের প্রবেশের পথ করে দেয়। তাছাড়াও, এই প্রসারিত ধারনাটি অবক্ষয় ও সংক্রমণের প্রতি শারীরিক ও রাসায়নিক পরিবর্তনের মাধ্যমে বৃক্ষের সাড়া প্রদানের বিষয়টিও বিবেচনায় আনে যেখানে বৃক্ষের ক্ষতিগ্রস্থ কলা অন্যান্য সুস্থ কলার সাথে দেয়াল তুলে দিয়ে বা প্রকোষ্ঠ তৈরি করে আলাদা হয়ে যায়।[১]

প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

কোডিট অনুসারে, যখন কোনো বৃক্ষ আঘাতপ্রাপ্ত হয় তখন এর কোষগুলো গাছের অন্যান্য অংশে ক্ষত ও রোগ ছড়ানো রোধে বা এই ছড়ানোর গতি মন্থর করতে ঐ ক্ষতস্থানকে ঘিরে “দেয়াল” তৈরীর উদ্দেশ্যে পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়।

  • প্রথম দেয়াল: এটি অবক্ষয়ি জীবদেরকে ক্ষতের উপর এবং নিচ দিকে যাতায়াতে বাঁধা দেয়। এক্ষেত্রে উল্লম্ব পরিবহন তন্ত্র তার নানা উপাদান থেকে সৃষ্ট গাম, রেজিন, টাইলোসিস, প্রভৃতি দ্বারা ক্ষতের উপরে এবং নিচে দেয়াল তৈরি করে ফেলে। এটি দেয়ালগুলোর মাঝে তুলনামূলক সবচাইতে দুর্বল।[১]
  • দ্বিতীয় দেয়াল: এটি স্পর্ষক দেয়াল যা অবক্ষয়ি জীবদেরকে বৃক্ষের ভেতরের মজ্জার দিকে ছড়িয়ে যাওয়া থেকে রোধ করে। বৃক্ষের বৃদ্ধি রিংয়ের প্রান্তীয় কোষগুলোই সাধারণত এই দেয়াল তৈরি করে। এটি প্রথম দেয়ালের চেয়ে কম দুর্বল।[১]
  • তৃতীয় দেয়াল: এই দেয়ালটি মজ্জারশ্মির কোষ দিয়ে গঠিত যা অবক্ষয়ের যাতায়াত পার্শ্বীয় দিক থেকে বাঁধা দেয়। আঘাতের সাথে সাথেই প্রথম যে তিনটি দেয়াল তৈরি হয়, তার মাঝে এই দেয়ালটি সবচাইতে শক্তিশালি।[১]
  • চতুর্থ দেয়াল: বৃক্ষ আঘাতপ্রাপ্ত হবার বেশ পরে ক্যাম্বিয়াম থেকে এই দেয়ালটির সৃষ্টি হয়।[১] আঘাতের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ার সময় যেসকল কলা গঠিত হয় তাদের থেকে পরবর্তী সময়ে ক্যাম্বিয়াম থেকে সৃষ্ট এই চতুর্থ দেয়ালটি বৃক্ষের বাইরের দিকে উপবৃদ্ধিরূপে সৃষ্টি হয়। এই দেয়ালটি সবচাইতে শক্তিশালি এবং সংক্রমণ সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করতে কার্যকরি। অরণ্য বা উদ্যানের ভেতর দিয়ে হাঁটার সময়, অনেকেই ভেতরের দিকে সম্পূর্ণরূপে ক্ষয়ে যাওয়া জীবন্ত বৃক্ষ লক্ষ্য করে থাকেন। এটি আর কিছুই নয়- কেবলমাত্র চতুর্থ দেয়াল অক্ষত থেকে যাওয়ার ফলাফল। এক্ষেত্রে বলা যায়, আঘাতের সময় উপস্থিত সকল কলা সংক্রমিত হয়ে পড়েছে, কিন্তু চতুর্থ দেয়ালকে ঘিরে ঠিকই নতুন স্বাস্থ্যবান কলা গজিয়ে উঠছে।

ব্যবহারিক প্রভাব[সম্পাদনা]

কেমন করে বৃক্ষ অবক্ষয়ের প্রতি সাড়া প্রদান করে তা জানার সাথে সাথে কোডিট এর জ্ঞান নানা কাজে প্রয়োগ করা যায়। উদাহরণস্বরূপ, ক্ষতিগ্রস্ত বা অবক্ষয়ি বৃক্ষের দ্বারা জানমালের উপর কেমন বিপদের ঝুঁকি রয়েছে তা বিশ্লেষণের জন্য প্রায়শঃ বাগানবিদদের তলব করা হয়। ক্ষত কেমন করে ছড়াবে সেটা জানা থাকলে, এ ধরণের ঝুঁকিপ্রবণ বৃক্ষ বিশ্লেষণ আরোও সঠিক হতে পারে যা অপ্রয়োজনীয় বৃক্ষনিধন, সম্পত্তিহানি, বা অনাহুত আঘাত থেকে বিরত রাখবে।

নোট[সম্পাদনা]

  1. ভূমিকা ও নির্দিষ্ট তথ্যসূত্র সংবলিত অনুচ্ছেদ ব্যতীত, এই নিবন্ধের অধিকাংশ তথ্যই ইউএসডিএ বন পরিষেবা কৃষি তথ্য বুলেটিন নং. ৪১৯ (এপ্রিল ১৯৭৯), "Tree Decay: An Expanded Concept" থেকে নেয়া

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]