কালামান্দালাম কল্যাণীকুট্টি আম্মা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

কালামান্দালাম কল্যাণীকুট্টি আম্মা (১৯১৫-১৯৯৯) দক্ষিণ ভারতের কেরালার এক নবযুগসৃষ্টিকারী মহিনিয়ত্তম নৃত্যশিল্পী ছিলেন।[১] ভারতের কেরালা রাজ্যের মালাপ্পুরম জেলার থিরুনভ্যে তিনি ছিলেন একজন মূলধারার ভারতীয় নৃত্যশিল্পী।

কল্যাণীকুট্টি আম্মা, কেরালার কালামান্দালামের প্রারম্ভিক ব্যাচের অন্যতম শিক্ষার্থী, প্রয়াত কথাকলীর আধ্যাত্মিক পদ্মশ্রী কালামান্দালাম কৃষ্ণন নায়েরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন।[২]

কল্যাণীকুট্টি আম্মা দু'টি গ্রন্থ রচনা করেছেন, মহিনিয়ত্তম - ইতিহাস ও নৃত্যের কাঠামো যেটি মহিনিয়ত্তম সম্পর্কিত একটি বিস্তৃত এবং একমাত্র খাঁটি দলিল হিসাবে বিবেচিত।[৩] তাঁর শিষ্যদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন তাঁর কন্যা শ্রদ্ধেবী রাজন, কালা বিজয়ন এবং মৃণালিনী সারাভাই এবং দীপ্তি ওমচেরি ভাল্লা[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

কেরল সংগীত নাটক একাডেমি এবং কেন্দ্র সংগীত নাটক আকাদেমি পুরস্কার জয়ী কল্যাণিকুট্টি আম্মা ৮ মে ১৯৯৯ সালে ত্রিপুনিথুরায় (যেখানে এই দম্পতি বসবাস করতেছিল) ৮৪ বছর বয়সে মারা যান। তাঁর পুত্র কালশালা বাবু সিনেমা ও টেলিভিশন অভিনেতা ছিলেন, আর তাঁর নাতনি স্মিতা রাজন রাজনীতিবিদ মোহিনীয়ত্তম শিল্পী।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তিনি বিখ্যাত কবি বল্লাথল নারায়ণ মেননের কাছ থেকে 'কাব্যথ্রি' পুরস্কার পেয়েছিলেন। [৪] ১৯৮৬ সালে তিনি কেরালার কালামান্দালা ফেলোশিপ পান।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

কল্যাণীকুট্টি আম্মা ভারতের বাইরেও মোহিনীত্তম শিল্পকে প্রসারিত করেছিলেন। প্রথম রাশিয়ান মোহিনীত্তম নৃত্যশিল্পী মহিনিত্তম ছিলেন মিলানা সেভেরস্কায়া[৫] ১৯৯৭ সালে, কালামান্দালাম কল্যাণীকুট্টি আম্মা তাকে মোহিনীত্তম ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা রক্ষার উত্তরসূরী করেছিলেন। মিলানা সেভেরসকায়া রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে ভারতের শিক্ষাব্যবস্থার বাইরে প্রথম মোহিনীত্তম বিদ্যালয় গড়ে তুলেছিল। তিনি নাট্য থিয়েটার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যেখানে তাঁর স্মৃতিতে উৎসর্গীকৃত নাটকে কোরিওগ্রাফি কালামান্দালাম কল্যাণীকুট্টি আম্মাকে দেখতে পাওয়া যায়। মিলানা সিভারস্কায়া গুরু কল্যাণীকুট্টি আম্মার স্মরণে উৎসর্গীকৃত একটি ছবি প্রকাশ করেছেন, যাতে দেখা যায় গুরু কীভাবে তাকে অত্যন্ত বৃদ্ধ বয়সে নাচ শিখিয়েছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sinha, Biswajit (২০০৭)। South Indian theatre (ইংরেজি ভাষায়)। Raj Publications। আইএসবিএন 9788186208540 
  2. Reporter, Staff; Reporter, Staff (২০১৪-০৪-১০)। "Unsung legends who resurrected two dying arts of Kerala"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৭ 
  3. "Traditions in Mohiniyattam"Sahapedia (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৮ 
  4. "Mohini Attam – The Traditional Dance of Kerala!" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৮ 
  5. "YOUTHEXPRESS 18/10/1996"www.milana-art.ru। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]