কল্পনা কার্তিক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কল্পনা কার্তিক
Kalpana Karthik.jpg
১৯৫৭ সালের চলচ্চিত্র 'নাউ দো গিয়ারাহ'তে কল্পনা
জন্ম
মোনা সিংহ

(1931-08-19) ১৯ আগস্ট ১৯৩১ (বয়স ৮৯)
পেশাচলচ্চিত্র অভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৫১-১৯৫৭
দাম্পত্য সঙ্গীদেব আনন্দ (বি. ১৯৫৪; মৃ. ২০১১)
সন্তানদেবিনা, সুনিল

কল্পনা কার্তিক (হিন্দি: कल्पना कार्तिक) বর্ষীয়ান ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা দেব আনন্দের স্ত্রী ছিলেন। দেবের সঙ্গে বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি।[১] লাহোরে জন্মগ্রহণকারী কল্পনার জন্মনাম ছিলো মোনা এবং তার চলচ্চিত্রজীবন ১৯৫১ সালের 'বাজি' চলচ্চিত্র দ্বারা শুরু হয়েছিলো যেটাতে দেব আনন্দ ছিলেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

বর্তমান পাকিস্তানের একটি পাঞ্জাবি খ্রিস্টান পরিবারে মোনা সিংহ নামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন কল্পনা। তার পিতা গুরুদাসপুর জেলার বাটালার তেহসিলদার (রাজস্ব পরিদর্শক) ছিলেন, পাঁচ ভাই এবং দুই বোনের মধ্যে কল্পনা ছিলেন সবচেয়ে ছোটো। ভারত বিভাজনের সময় কল্পনার পরিবার শিমলাতে চলে আসেন, এবং শিমলার সেন্ট বেডেস কলেজে ভর্তি হন কল্পনা। স্নাতকের বছরে কল্পনা মিস শিমলা নামের এক সুন্দরী প্রতিযোগিতায় খেতাব জেতেন, তখনই দেব আনন্দের ভাই চলচ্চিত্র পরিচালক চেতন আনন্দ কল্পনাকে দেখেন এবং পছন্দ করে ফেলেন, চেতনের স্ত্রী ঊমা আনন্দের মা আবার কল্পনার মামাতো বোন ছিলেন।[৩] চেতন আনন্দের মাধ্যমে কল্পনা 'নবকেতন ফিল্মস' প্রযোজনান প্রতিষ্ঠানে যোগ দেন, তিনি অভিনেত্রী হিসেবে কাজ করবেন বলে চুক্তিবদ্ধ হন। এই চলচ্চিত্র জগতেই আসল নাম মোনা থেকে কল্পনা হয়ে ওঠে, কল্পনা মুম্বাই শহরে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন চলচ্চিত্রের জন্য। ১৯৫১ সালে প্রথম অভিনীত চলচ্চিত্র দেব আনন্দের সঙ্গে 'বাজি' মুক্তি পায় যেটা হয় বড় একটি ব্যবসাসফল এবং দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র।

কল্পনা নবকেতনের অংশ হয়ে যান যেটি তখন নতুন একটি প্রতিষ্ঠান ছিলো, কল্পনার প্রথম চলচ্চিত্রের পরিচালক ছিলেন গুরু দত্ত এবং সর্বশেষ ১৯৫৭ সালের চলচ্চিত্র 'নাউ দো গিয়ারাহ' পরিচালক ছিলেন বিজয় আনন্দ (দেব আনন্দের আরেক ভাই)। ১৯৫৪ সালের চলচ্চিত্র 'ট্যাক্সি ড্রাইভার'-এর শুটিং চলাকালীন দেব আনন্দ এবং কল্পনা বিয়ে করেন। ১৯৫১ থেকে '৫৭ পর্যন্ত সব কটি চলচ্চিত্রে কল্পনা দেব আনন্দের নায়িকাই ছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৫৬ সালে দেব আনন্দ এবং কল্পনার প্রথম সন্তান সুনিল আনন্দের জন্ম হয়, এছাড়া দেবিনা আনন্দ নামের কন্যার জন্ম হয়। ১৯৫৭ সালের চলচ্চিত্র 'নাউ দো গিয়ারাহ'এর পর কল্পনা আর কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেননি।[৪][৫] যদিও কল্পনা বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রের সহকারী প্রযোজক হিসেবে কাজ করেছেন যেমনঃ তেরে ঘর কে সামনে, জুয়েল থিফ, প্রেম পূজারী এবং হীরা পান্না যেগুলোতে দেব আনন্দ মুখ্য ভূমিকায় ছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Anand, Dev (২০০৭)। Romancing with Life - an autobiography। Penguin Viking। পৃষ্ঠা 108। আইএসবিএন 978-0-670-08124-0 
  2. Massey, Reginald (২০১১-১২-১৪)। "Dev Anand: Actor and director who towered over India's film industry - Obituaries - News"। The Independent। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  3. http://cineplot.com/kalpana-kartik-interview/
  4. "Metro Plus Delhi / Cinema : A family drive"। The Hindu। ২০০৮-১১-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  5. "Kalpana Kartik - Biography, Photo, Movies, Kalpana Kartik Wallpapers, Videos, Songs"। Chakpak.com। ২০১২-০৭-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]