এস ডি রুবেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এস ডি রুবেল
S D Rubel Singer.jpg
জন্ম
জাতীয়তাবাংলাদেশী
পেশাসঙ্গীত শিল্পী, গীতিকার, সুরকার, প্রযোজক চলচ্চিত্র পরিচালকঅভিনেতা
পরিচিতির কারণগায়ক

এস ডি রুবেল (জন্ম: ১৮ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী।[১] তিনি ১৪০০ নতুন বাংলা গানে এবং শতাধিক বাংলা চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। তাঁর জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ’অনেক বেদনা ভরা আমার জীবন’, ‘লাল বেনারসি জড়িয়ে তুমি যে’, ‘তোমার নীল নীল নীল চোখে’, ‘তুমি যুগ যুগ করেছ শাসন’, ‘আমার একটা সাথি ছিল দেশের বাড়িতে’, ‘মন যেন মায়াবী পাখী,বিধি রে আমার কোনো দুঃখ নাই’, ‘এলো বৈশাখ; এই শহরে আমি একা;দূরে চলে গেছো, অপরাধী প্রিয় ফুল, অনেক।

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

এস ডি রুবেল বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের অন্তর্গত চাঁদপুর জেলায় ১৮ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমানে ঢাকায় থাকেন । তার শৈশব, কৈশোর ও তারুণ্য কেটেছে চাঁদপুরে। তিনি চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছেন। এরপর পড়েছেন চাঁদপুর সরকারি কলেজে। তিনি ঢাকা কলেজ থেকে রসায়ন শাস্ত্রে এম.এস.সি পাশ করেন এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস থেকে এমফিল ডিগ্রি লাভ করেন।

পেশাগত জীবন[সম্পাদনা]

তিনি "অশ্রু "একক অ্যালবাম দিয়ে সংগীত শিল্পে আত্মপ্রকাশ করেন। তিনি "অনেক বেদনা ভরা জীবন" , 'লাল বেনরশী' গানের মধ্য দিয়ে দেশব্যাপী জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। গায়কের পাশাপাশি তিনি একাধারে একজন গীতিকার, সুরকার, অভিনেতা, পরিচালক ও প্রযোজক। তিনি প্রায় ৮-১০টির মত নাটক ও টেলিফিল্মের প্রযোজনা করেছেন। এস ডি রুবেল প্রায় ১৪০০ নতুন বাংলা গানে, অডিও অ্যালবাম এর জন্য কণ্ঠ দিয়েছেন। অন্যদিকে প্রায় ১০০ টি চলচিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন, এছাড়া ২ টি চলচিত্রে সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন। এস ডি রুবেল বাংলাদেশের প্রথম গায়ক যিনি প্রথম, গায়ক থেকে নায়ক হয়েছেন এবং বৃদ্ধাশ্রম নামক একটি চলচিত্র পরিচালনা করেছেন। এস ডি রুবেল অন্যদিকে নাটক, মিউজিক  ভিডিও, বিজ্ঞাপন,ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান, ডকু ড্রামা পরিচালনা করেছেন এবং করেছেন বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রযোজনা ।

২০১৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক উপকমিটির সহসম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পান রুবেল । তিনি চাঁদপুর সরকারি কলেজে অধ্যয়নকালে কলেজ ছাত্রলীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯৮ সালে নিজের কথা ও সুরে ‘আমি নই মুসলিম/হিন্দু বৌদ্ধ-খ্রিস্টান/ পরিচয় বাংলাদেশের আমি এক বাঙালি’। গানটি বাংলাদেশ টেলিভিশনে ফিলার সং হিসেবে বাজানো হলে তৎকালিন একজন সংসদ সদস্য গানটির বিরুদ্ধে সংসদে বক্তব্য দেয়। এ সূত্রে ২০০২ সালে রুবেলকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে লিখিতভাবে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়।

অ্যালবাম[সম্পাদনা]

একক অ্যালবাম[সম্পাদনা]

তার প্রায় এই পর্যন্ত ৩৭টির মত একক এ্যালবাম প্রকাশ পেয়েছে।[২]

মিশ্র ও দ্বৈত অ্যালবাম[সম্পাদনা]

তার এই পর্যন্ত প্রায় ৪০০ (চারশত) মিশ্র অ্যালবাম প্রকাশ পেয়েছে।[৩]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

‘বৃদ্ধাশ্রম’ একটি সামাজিক প্রেম, পারিবারিক গল্প এবং সামাজিক বন্ধনের চলচ্চিত্র। এটিতে এস ডি রুবেল পরিচালনা করেছেন এবং মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ও করেছেন। [৪][৫] ২০১১ সালে মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘এভাবেই ভালোবাসা হয়’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে তার।[৬] এছাড়াও নিজের প্রযোজনায় কয়েকটি ছায়াছবি তৈরি করেছেন এবং নায়ক হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও প্রায় দেড়শতাধিক চলচ্চিত্রে গান করেছেন।[৭]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

এস ডি রুবেল পরপর ৩ বার(২০১৭-২০১৮-২০১৯) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে বাংলাদেশের  সঙ্গীত শিল্পীদের  মাঝে  শ্রেষ্ঠ করদাতা  হিসেবে জাতীয় সম্মাননা ও" সি আই পি 'সম্মাননা পেয়েছেন । এছাড়া বাচসাস পুরস্কার সহ শতাধীক সরকারি বেসরকারি সংস্থা থেকে পুরস্কৃত হয়েছেন দেশে বিদেশে বারবার ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "রুমান্টিক গায়ক এস ডি রুবেলের আজ জন্মদিন"। ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৮ 
  2. "এইডসবিষয়ক গানে এস ডি রুবেল"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-০৮ 
  3. "এস ডি রুবেলের 'আমার মন পাড়ায়'"সমকাল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-০৮ 
  4. "বিনা কর্তনে এস ডি রুবেলের বৃদ্ধাশ্রম | বাংলাদেশ প্রতিদিন"Bangladesh Pratidin (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-০৮ 
  5. আহসান, সোহেল; ডটকম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর। "নতুন সিনেমায় এস ডি রুবেল"bangla.bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-০৮ 
  6. আহসান, সোহেল (২২ নভেম্বর ২০১৬)। "নতুন সিনেমায় এস ডি রুবেল"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৮ 
  7. "আলোচনার বাইরে এস ডি রুবেল"দৈনিক ভোরের কাগজ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-০৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]