এরিথ্রোজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এরিথ্রোজ[১]
D-erythrose.svg
ডি-এরিথ্রোজ
L-erythrose.svg
এল-এরিথ্রোজ
নামসমূহ
ইউপ্যাক নামs
(২R,৩R)-২,৩,৪-ট্রাইহাইড্রক্সিবিউটানাল (ডি)
(২S,৩S)-২,৩,৪-ট্রাইহাইড্রক্সিবিউটানাল (এল)
শনাক্তকারী
ত্রিমাত্রিক মডেল (জেমল)
সিএইচইবিআই
কেমস্পাইডার
ইসিএইচএ ইনফোকার্ড ১০০.০০৮.৬৪৩
ইসি-নম্বর
ইউএনআইআই
  • InChI=1S/C4H8O4/c5-1-3(7)4(8)2-6/h1,3-4,6-8H,2H2/t3-,4+/m0/s1 YesY
    চাবি: YTBSYETUWUMLBZ-IUYQGCFVSA-N YesY
  • InChI=1/C4H8O4/c5-1-3(7)4(8)2-6/h1,3-4,6-8H,2H2/t3-,4+/m0/s1
    চাবি: YTBSYETUWUMLBZ-IUYQGCFVBI
  • (ডি): OC[C@@H](O)[C@@H](O)C=O
  • (এল): OC[C@H](O)[C@H](O)C=O
বৈশিষ্ট্য
C4H8O4
আণবিক ভর ১২০.১০ g·mol−১
বর্ণ হালকা হলুদ সিরাপ
অত্যন্ত দ্রবণীয়
ঝুঁকি প্রবণতা
এনএফপিএ ৭০৪
সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করা ছাড়া, পদার্থসমূহের সকল তথ্য-উপাত্তসমূহ তাদের প্রমাণ অবস্থা (২৫ °সে (৭৭ °ফা), ১০০ kPa) অনুসারে দেওয়া হয়েছে।
YesY যাচাই করুন (এটি কি YesY☒না ?)
তথ্যছক তথ্যসূত্র

এরিথ্রোজ হল একটি টেট্রোজ স্যাকারাইড, এর রাসায়নিক সংকেত C4H8O4। এর একটি অ্যালডিহাইড মূলক রয়েছে এবং এটি আলডোজ গোত্রের অংশ। এর স্বাভাবিক আইসোমার হল ডি-এরিথ্রোজ।

ফিশার অভিক্ষেপ এরিথ্রোজের দুটি এনঅ্যান্টিমার চিত্রিত করে

ফরাসি ফার্মাসিস্ট লুই ফেউস জোসেফ গ্যারোট (১৭৯৮-১৮৬৯) রুবার্ব থেকে ১৮৪৯ সালে প্রথম এরিথ্রোজ পৃথকীকরণ করেন[২] এবং ক্ষারীয় ধাতুর উপস্থিতি (ἐρυθρός, "লাল") এর লাল রঙের কারণে এটির এই নামকরণ হয়।[৩][৪]

এরিথ্রোজ ৪-ফসফেট হচ্ছে পেন্টোজ ফসফেটের পথ[৫] এবং ক্যালভিন চক্রের মধ্যবর্তী।[৬]

অক্সিডেটিভ ব্যাকটিরিয়া এর একমাত্র শক্তির উৎস হিসাবে এরিথ্রোজ ব্যবহার করে।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Merck Index, 11th Edition, 3637
  2. Obituary of Garot (1869) Journal de pharmacie et de chimie, 4th series, 9 : 472-473.
  3. Garot (1850) "De la matière colorante rouge des rhubarbes exotiques et indigènes et de son application (comme matière colorante) aux arts et à la pharmacie" (On the red coloring material of exotic and indigenous rhubarb and on its application (as a coloring material) in the arts and in pharmacy), Journal de Pharmacie et de Chimie, 3rd series, 17 : 5-19. Erythrose is named on p. 10: "Celui que je propose, sans y attacher toutefois la moindre importance, est celui d'érythrose, du verbe grec 'ερυθραινω, rougir (1)." (The one [i.e., name] that I propose, without attaching any importance to it, is that of erythrose, from the Greek verb ερυθραινω, to redden (1).)
  4. Wells, David Ames; Cross, Charles Robert; Bliss, George; Trowbridge, John; Nichols, William Ripley; Kneeland, Samuel (১৮৫১)। Annual of Scientific Discovery। Boston: Gould, Kendall, and Lincoln। পৃষ্ঠা 211। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৪erythrose discovery. 
  5. Kruger, Nicholas J; von Schaewen, Antje (জুন ২০০৩)। "The oxidative pentose phosphate pathway: structure and organisation"। Current Opinion in Plant Biology6 (3): 236–246। ডিওআই:10.1016/S1369-5266(03)00039-6পিএমআইডি 12753973 
  6. Schwender, Jörg; Goffman, Fernando; Ohlrogge, John B.; Shachar-Hill, Yair (৯ ডিসেম্বর ২০০৪)। "Rubisco without the Calvin cycle improves the carbon efficiency of developing green seeds"Nature432 (7018): 779–782। ডিওআই:10.1038/nature03145পিএমআইডি 15592419 
  7. Hiatt, Howard H; Horecker, B L (১৩ অক্টোবর ১৯৫৫)। "D-erythrose metabolism in a strain of Alcaligenes faecalis"Journal of Bacteriology71 (6): 649–654। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৪