এরাবন তীর্থস্থান, ব্যাঙ্কক, থাইল্যান্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এরাবন তীর্থস্থান (২০০৬)
ব্রহ্মা
স্কাইট্রাইন থেকে মন্দির

এটি মূলত ব্রহ্মার (Phra Phrom) মন্দির। থাইরা এখানে থাই নাচ প্রদর্শন করে। এই মন্দিরে ব্রহ্মা, লক্ষ্মী, গণেশ, নারায়ণ, গরুড় এবং ত্রিমূর্তি রয়েছে। মূর্তিগুলো ব্রোঞ্চ দ্বারা নির্মিত।

অবস্থান[সম্পাদনা]

পাথুম ওয়ান( Pathum Wan Distric)জেলার লুম্ফিনি(Lumphini Subdistrict) উপজেলার রাতছাপ্রাসং (Ratchaprasong)এর গ্র্যান্ড হায়াত এরাবন হোটেলের কাছে রাতছাদাম্রি( Ratchadamri Road) রোডের মোড়ে অবস্থিত মন্দিরটি ব্রহ্মার। এটির কাছে বিটিএস স্কাইট্রেনের চিট লোম স্টেশন(Chit Lom Station) রয়েছে। এই অঞ্চলে গেইসর্ন, সেন্ট্রাল ওয়ার্ড (CentralWorld )এবং আমরিন প্লাজা সহ অনেক শপিং মল রয়েছে।

অন্য পাঁচটি মন্দির হিন্দু দেবদেবী লক্ষ্মী ( Phra Laksami ),ত্রিমূর্তি (Phra Trimurati ),গণেশ ( Phra Khanet), ইন্দ্র(ফ্রা ইন ) ,গরুড়এর উপর নারায়ণ এর( Phra Narai Song Suban ) । [১][২]  

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রার্থনা করছে মানুষ (২০১৮)

সরকারী মালিকানাধীন এরাবান হোটেলের অংশ হিসেবে ভুল তারিখে ভিত্তি স্থাপন করে সৃষ্ট মন্দ কর্মকাণ্ডের অবসান ঘটানোর জন্য ১৯৫৬ সালে থাই সরকার মন্দিরটি নির্মাণ করে । হোটেল নির্মাণ বিলম্বিত খরচ, শ্রমিকদের আহত হওয়া এবং বিল্ডিংয়ের জন্য ইতালীয় মার্বেলের একটি জাহাজভর্তি মাল লসের কারণে বিলম্বিত হয়েছিল। তদুপরি এই রাচাপসং ক্ষেত্রটি একসময় অপরাধদের পাবলিক ডিসপ্লে হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছিল। এক জ্যোতিষী নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলা করতে মন্দির নির্মাণের পরামর্শ দিয়েছিলেন। ব্রহ্মার মূর্তিটি ফাইন আর্টসের বিভাগ দ্বারা ডিজাইন এবং নির্মিত হয়েছিল ১৯৫৬ সালের ৯ নভেম্বর এ । এরপর হোটেলের নির্মাণ আর কোনো ঘটনা ছাড়াই চলতে থাকে। ১৯৮৭ সালে, হোটেলটি ধ্বংস হয়ে যায় এবং গ্র্যান্ড হায়াত এয়াবান হোটেলের জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। [৩] ২০০৬ সালের ২১ মার্চ থানাকরন পাকদীপল হাতুড়ি দিয়ে পিঠিয়ে ব্রম্মা মূর্তি ভেঙে ফেলে। স্থানীয় জনগণ তাকে ধরে পিঠিয়ে হত্যা করে। রাস্তার সুইপার গ্রেফতার [৪] এবং অভিযুক্ত করা হয়। [৫] প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, পাকদীপল মূর্তিটির কাছে দাঁড়িয়ে ছিল এবং ব্রহ্মার মূর্তিটি বড় হাতুড়ি দিয়ে টুকরো টুকরো করে ভেঙ্গে দিয়েছিল, চারটি মাথা, ধনু, ছয় অস্ত্র। অঙ্কদেশ এবং বেস শুধুমাত্র অক্ষত ছিল। ঘটনা ঘটে প্রায় ১ টায়। [৬] ডাক্তাররা পাকদীপোলের একটি শৌচাগার পরিদর্শন করে এবং তার পিছনে ও বাহুতে উলকিতে আরবি অক্ষর খুঁজে পায়। পুলিশকে তদন্ত করার জন্য এই আবেদন করা হয় যে, এই হামলার কি ধর্মীয় উদ্দেশ্য ছিল কিনা এবং ভণ্ড মুসলিম চরমপন্থীদের সাথে সম্পর্কযুক্ত কিনা। [৭] ভাংচুরকারির বাবা সাঈদ পাকদীপল বলে, তার ছেলে মনস্তাত্ত্বিক সমস্যাগুলির জন্য চিকিৎসা গ্রহণ করেছে এবং মানসিক অসুস্থতা এই আক্রমণের কারণ ছিল। তিনি একটি "overreaction" হিসাবে তার পুত্র মারাত্মক কাজকে বর্ণনা করেছে। সে এই জাতীয় সংবাদপত্রকে বলে, "এ রকম কিছু করার অর্থ ভাল বিশ্বাসের লোকেদের কাজ নয়, যারা ব্রহ্মের প্রকৃত বিশ্বাসের সাথে"। "হত্যা একটি অনৈতিক কাজ এবং লোকেরা যা করেছিল তা তারা নৈতিকতা সহকারে করেনি তা।[৮]

মূর্তি ধ্বংসের পরপরই থাই প্রধানমন্ত্রী থাকসিন শিনওয়াত্রা মন্দির পরিদর্শন করেন এবং হিন্দু দেবতার ভগ্ন মূর্তির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। একটি সাদা কাপড় মূর্তির অনুপস্থিতি গোপন করতে ব্যবহৃত হয়। কর্মকর্তারা পরে এই সাইটটিকে জনগনের কাছে ফিরিয়ে দেয় যাতে উপাসকরা মূর্তির ছবি প্রদর্শন করে তাদের সম্মান দিতে পারে। [৫][৯][১০] পরের দিন একটি সমাবেশে সরকারী সমালোচক সৈন্দি লিম্বংকুল অভিযোগ করেন যে মূর্তি ধ্বংস কালো জাদুর মাধ্যমে তার রাজনৈতিক ক্ষমতা বজায় রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রীর একটি চক্রান্ত ছিল। থানকর্ন এর বাবা এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে, জাতিকে বলে যে লিম্বংংকুল "আমার দেখা সবচেয়ে বড় মিথ্যাবাদী।" [৮]

২০০৬ সালের ২১ মের 11:39 এ মন্দিরটিতে একটি নতুন ব্রহ্মা মূর্তি স্থাপন করা হয়েছিল, যে মুহূর্তে সূর্য সরাসরি উপরে ছিল। ধর্মীয় বিষয়ক বিভাগ এবং মহাব্রহ্মা ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা জানান যে এটি মূল মূর্তির টুকরা সহ স্বর্ণ, ব্রোঞ্জ এবং অন্যান্য বহুমূল্য ধাতু মিশ্রণের সাথে প্লাস্টার দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল। ধাতুটির সম্পূর্ণরূপে তৈরি আরেকটি নকল মূর্তি একই ছাঁচে ঢুকানো হয় এবং জাতীয় যাদুঘরে রাখা হয়। [১১]

বোমা হামলা

২০১৫ সালের ৭ আগস্ট ১৮:৫৫ স্থানীয় সময়ে, তিন কিলোগ্রাম টিএনটি দিয়ে তৈরি মেটাল পাইপে স্টাফ করা এবং একটি ব্যাকপ্যাকের ভিতরে সাদা কাপড়ে আবৃত একটি বিস্ফোরক যন্ত্র , মন্দিরের কাছে বিস্ফোরিত হয় ।এতে ২0 জন নিহত ও ১২৫ জন আহত হয়। [১২][১৩][১৪][১৫][১৬][১৭] বোমা বিস্ফোরণ ইউনিট দুটি সন্দেহজনক বস্তু চেক কিন্তু অন্য কোন বোমা পায় নি। [১৮] আইএইচএস জেনের (IHS Jane's) একজন বিশ্লেষক অনুমান করেছিলেন যে, প্যান-তুর্কিক তুর্কি অতি-জাতীয়তাবাদী ( Turkish nationalism Turkish ultra-nationalist)সংগঠন গ্রে ভলভেসের(Grey Wolves) দ্বারা থাইল্যান্ডের উইঘুর(East Turkestan independence movement Uyghur) মুসলিম সন্ত্রাসীরা সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের আশ্রয়ের জন্য তুরস্ক যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার পরিবর্তে চীনকে ফেরত দেওয়ার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য এই হামলা চালিয়েছিল।[১৯][১৯]

মেটাল রেলিংয়ের পাশে মন্দিরটিতে বোমা স্থাপন করা হয়েছিল। মূর্তি সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত ছিল। [২০] দুদিনের মধ্যেই সব মেরামতের কাজ সম্পন্ন হয় এবং মন্দিরটি পুনরায় চালু হয়। মন্দিরে দ্রুতগতিতে পুনরায় চালু হওয়ার প্রশংসা করার পরিবর্তে, সরকারের কর্মকাণ্ড সমালোচনার মুখে পড়ে। [২১][২২] তদন্তে সরকারের অগ্রগতির অনুপস্থিতিতে সমালোচকরা বেশ কয়েকটি তত্ত্ব উত্থাপন করে , কারা বোমা হামলার জন্য দায়ী, যার মধ্যে সরকারের নিজস্ব উপাদান রয়েছে ।

গ্যালারি[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Lim, Eric। "Lakshmi Shrine – guardian angel of Ratchaprasong"Tour Bangkok Legacies। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  2. "Thailand's World: Hindu Shrines at Ratchaprasong"thailandsworld.com। ২১ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  3. McGirk, Jan (২২ মার্চ ২০০৬)। "Attack on Thai statue seen as bad omen for beleaguered Thaksin"The Independent। ২ জানুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০০৭ 
  4. "อาเพศร้ายทุบท้าวมหาพรหม"Manager Online (thai ভাষায়)। ২১ মার্চ ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯ 
  5. "Much-revered Phra Prom statue destroyed"The Nation। ২১ মার্চ ২০০৬। ১৯ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  6. "ท้าวมหาพรหมถูกทำลาย มิอาจทำลายหัวใจพรหม"Manager Online (thai ভাষায়)। ২২ মার্চ ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯ 
  7. Wannabovorn, Sutin (২২ মার্চ ২০০৬)। "Police probing whether attacker of sacred shrine in Thailand was Muslim extremist"San Diego Union-Tribune। ২০ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  8. "Vandal's dad distraught"। The Nation। ২৩ মার্চ ২০০৬। পৃষ্ঠা 4A। 
  9. McGirk, Jan (২২ মার্চ ২০০৬)। "Attack on Thai statue seen as bad omen for beleaguered Thaksin"The Independent। ২ জানুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০০৭ 
  10. Poo, Monthathip (২২ মার্চ ২০০৬)। "Man beaten to death after desecrating the Erawan Shrine"The Nation। ২০ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  11. Kaewmorakot, Chatrarat (২২ মে ২০০৬)। "Erawan Shrine statue restored"The Nation। ১২ জুন ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  12. Holmes, Oliver (১৭ আগস্ট ২০১৫)। "Bangkok explosion: fatal blast at Erawan shrine"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  13. Akkoc, Raziye (১৯ আগস্ট ২০১৫)। "Bangkok bomb: Suspect 'didn't do it alone' and 'may not be in Thailand'"The Telegraph। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  14. Forgan, Duncan; Bacon, John (১৭ আগস্ট ২০১৫)। "Death toll rises in Bangkok bomb blast"USA Today। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  15. Beech, Hannah (১৭ আগস্ট ২০১৫)। "Bangkok Bombing: At Least 20 Dead at Erawan Shrine"Time। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  16. McLaughlin, Eliott C.; Olarn, Kocha (১৭ আগস্ট ২০১৫)। "Bangkok shrine explosion kills 22, including tourists"CNN। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  17. "Bangkok bomb: Deadly blast rocks Thailand capital"BBC News। ১৭ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৫ 
  18. "Bangkok bomb: What do we know?"BBC 
  19. Ruiz, Todd (২৮ আগস্ট ২০১৫)। "Floundering Bomb Investigation Deepens Doubts About Competency"Khaosod English। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৫ 
  20. "Bangkok bomb-hit Erawan shrine reopens"BBC। ১৮ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১৫ 
  21. "Thailand's investigation of deadly Bangkok bombing dogged by unsavory police legacy"Fox News। Associated Press। ২৫ আগস্ট ২০১৫। ২৮ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৫ 
  22. Ngarmboonanant, Geng (২৭ আগস্ট ২০১৫)। "The Thai Government Is Whitewashing the Bangkok Bombing to Reassure Tourists"The New Republic। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]