উইকিপিডিয়া:বাংলা প্রয়োগবিধি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

বাংলা প্রয়োগবিধি

কি/কী[সম্পাদনা]

  • 'কি' প্রশ্নবোধক, সংশয়সূচক এবং বিস্ময়বোধক অব্যয়। যেমন: তুমি কি খাবে, নাকি খেয়ে এসেছ? তুমি কি কথাটা তাকে বলেছ?
  • 'কী' প্রশ্নবোধক সর্বনাম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যেমন: তুমি কী খাবে? ভাত, না রুটি? তুমি তাকে কী বলেছ যে সে এত রেগে আছে?
  • 'কী' বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যেমন: কীভাবে, কী আশ্চর্য্য, কী সুন্দর, কী বিভৎস, কী খুনেরে বাবা, কী শয়তান।
  • বিস্ময়বোধক অব্যয় 'কী' বাক্যের প্রথমে না বসে শেষে বসলে 'কি' হয়ে যায়। যেমন: আশ্চর্য কি! তার মতো ইতরের পক্ষে সবই সম্ভব। তোমার কথা শুনে মুশকিলে পড়ি আর কি!

টা/টি/টে/খান/খানা/খানি/টুকু[সম্পাদনা]

একত্বসূচক টা/টি/টে/খান/খানা/খানি/টুকু - এগুলোর কোনোটাই পৃথক শব্দ হিসেবে বাক্যে ব্যবহৃত হবে না৷

  • টা: একটা, ছেলেটা, কলমটা, ...
  • টি: ছেলেটি, বইটি, তিনটি, নিবন্ধটি, ...
  • টে: তিনটে, চারটে, ...
  • খান: একখান, দুইখান, ...
  • খানা: খাতাখানা, ঘরখানা, ...
  • খানি: অনেকখানি, ভুরুখানি বাঁকা, ...
  • টুকু: এতটুকু ছেলে, দুধটুকু খেয়ে নাও, ...

তবে, খান শব্দের আগে বসলে পৃথকভাবে ব্যবহৃত হবে৷ যেমন: খান দশেক শাড়ি৷

গুলি/গুলো/রা/এরা/গণ/বৃন্দ/সমূহ[সম্পাদনা]

বহুবচন-জ্ঞাপক গুলি/গুলো/রা/এরা/গণ/বৃন্দ/সমূহ - এগুলোর কোনোটাই পৃথকভাবে বসবে না, আগের শব্দের সাথে যুক্ত থাকবে৷ যেমন: বইগুলি, চিঠিগুলো, লেখকগণ, সাহিত্যিকবৃন্দ, গ্রন্থসমূহ, ...

ক্ষণ এবং কাল শব্দের পূর্ববর্তী বিশেষণ[সম্পাদনা]

ক্ষণ এবং কাল শব্দের পূর্ববর্তী বিশেষণ আলাদা না বসে একসঙ্গে বসবে৷

{এ, এত, কত, তত, যত, অনেক, কিছু, বহু, সে} + কাল/ক্ষণ = একাল, এতকাল, কতকাল, ততকাল, যতকাল, অনেককাল, কিছুকাল, বহুকাল, সেকাল; এক্ষণ, এতক্ষণ, কতক্ষণ, ততক্ষণ, যতক্ষণ, অনেকক্ষণ, কিছুক্ষণ, বহুক্ষণ, সেক্ষণ৷

ব্যতিক্রম:

  1. খানিকক্ষণ হয়, তবে খানিককাল হয় না৷
  2. দিন শব্দের পূর্ববর্তী বিশেষণ (এ, সে বিশেষণ দুটি ছাড়া) একসঙ্গে বসবে না৷ যেমন: এত দিন, কত দিন, তত দিন, যত দিন, অনেক দিন, কিছু দিন, বহু দিন৷ কিন্তু এদিন, সেদিন৷
  3. এ ছাড়া অন্যান্য শব্দের ক্ষেত্রে এত, কত, তত, যত, অনেক, কিছু, বহু পৃথকভাবে বসবে৷ যেমন: এত বই, কত নৌকা, তত কষ্ট, যত আনন্দ, অনেক বছর, অনেক সময়, কিছু পদক্ষেপ, বহু প্রচেষ্টা ইত্যাদি৷

আগামী ও গত শব্দের পরের শব্দ[সম্পাদনা]

আগামী ও গত শব্দের পরের শব্দ সর্বদা পৃথক বসবে৷

{আগামী, গত} + {কাল, দিন, পরশু, বছর, বার, মরশুম, মাস, রাত} = আগামী কাল, আগামী দিন, আগামী পরশু, আগামী বছর, আগামী বার, আগামী মরশুম, আগামী মাস, আগামী রাত ; গত কাল, গত দিন, গত পরশু, গত বছর, গত বার, গত মরশুম, গত মাস, গত রাত৷

এর[সম্পাদনা]

যে শব্দের বানানে শুধু একটা অক্ষর থাকে, সেগুলোতে "-র/-এর" (possessive/genitive case) যোগ করতে হলে -র/-ের (ড্যাশ/হাইফেনটা বাদ দিয়ে) লিখবেন, যেমনঃ

স্বপ্ন -> স্বপ্নের (স্বপ্ন-র/স্বপ্ন-এর নয়)
বাংলাদেশ -> বাংলাদেশের (বাংলাদেশ-এর নয়)
বাবা -> বাবার (বাবা-র/বাবায়ের নয়)

বিদেশী শব্দেও একই নিয়মঃ

জাপান -> জাপানের (জাপান-এর নয়)
আমেরিকা -> আমেরিকার (আমেরিকা-র বা আমেরিকা-এর নয়)
স্টেশন -> স্টেশনের (স্টেশন-এর নয়)

বানানে শুধু একটা অক্ষর থাকলে, বা সব্দের শেষে দ্বিস্বর (আই, আয়, আউ, আও, ঐ, ঔ, ইত্যাদি) থাকলে, -য়ের (ড্যাশ/হাইফেনটা বাদ দিয়ে) লিখবেন, যেমনঃ

মা -> মায়ের (মা-এর/মা-র/মার নয়)
ভাই -> ভাইয়ের (ভাইএর/ভাইর/ভাই-এর/ভাই-র নয়)
হৈচৈ -> হৈচৈয়ের (হৈচৈ-এর/হৈচৈএর/হৈচৈর/হৈচৈ-র নয়)

শব্দের শেষে ং/ঙ থাকলে, -ঙের (ড্যাশ/হাইফেনটা বাদ দিয়ে) লিখবেন, -ংয়ের লিখবেন না, যেমনঃ

রং/রঙ -> রঙের (রং-এর/রঙ্গের/রংয়ের নয়)
শিলং -> শিলঙের (শিলং-এর/শিলঙ্গের/শিলংয়ের নয়)
টিচিং (teaching) -> টিচিঙের (টিচিং-এর/টিচিঙ্গের/টিচিংয়ের নয়)

ক্রিয়াপদে 'ও'-কার (ো)[সম্পাদনা]

  • ক্রিয়াপদের শেষ বর্ণে অপ্রয়োজনীয় ও-কার বর্জন করতে হবে। সঠিক উদাহরণ: করছ, করেছ, করেছিল, করত, করব, আছ, গেল, ছিল, দিল, নিল, দেব, ইত্যাদি।
    • ব্যতিক্রম: তবে অধিক প্রচলিত শব্দের ক্ষেত্রে ও অর্থবিভ্রাট এড়ানোর জন্য কয়েকটি ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হবে। যেমন: হলো, হতো।
  • ক্রিয়াবিশেষ্যের ক্ষেত্রে শেষ বর্ণে ও-কার হবে। যেমন: করানো, পড়ানো, বলানো, থামানো, ইত্যাদি।
  • তিনটি বিশেষ ক্ষেত্রে ক্রিয়াপদের শেষ বর্ণে ও-কার বসবে।
    1. বর্তমান অনুজ্ঞায়: তুমি আমার সাথে চলো। কী হয়েছিল ঠিক ঠিক বলো
    2. ভবিষ্যৎ অনুজ্ঞায়: বইটা বাড়ি গিয়ে পোড়ো। তাকে আমার কথা বোলো। (এখানে লক্ষ্য করুন দুইটি ব্যঞ্জন বিশিষ্ট ক্রিয়ার ভবিষ্যৎ অনুজ্ঞায় প্রথম বর্ণের সাথেও ও-কার বসেছে)
    3. নিত্য বর্তমানে: তোমরা যা বলো তা ভাল লাগে না। তুমি যেভাবে চলো সেটা ঠিক নয়।

দেওয়া/নেওয়া[সম্পাদনা]

  • 'দেয়া', 'নেয়া' লেখার বদলে লিখতে হবে 'দেওয়া', 'নেওয়া'। অনুরূপে 'দেওয়ার', 'নেওয়ার', 'খাওয়ার', ইত্যাদি লিখতে হবে। তবে ' 'খাদ্য' অর্থে 'খাবার' লিখতে হবে।


জাতীয়তাসূচক বা উদ্ভবস্থলসূচক বিশেষ্য ও বিশেষণ[সম্পাদনা]

  • American বলতে যদি ব্যক্তি বোঝায়, তাহলে বাংলায় মার্কিনী লিখতে হবে, "আমেরিকান" নয়।
  • American বলতে যদি জাতীয়তা নির্দেশক বিশেষণ বোঝায়, তাহলে বাংলায় মার্কিন লিখতে হবে, "আমেরিকান" নয়।
  • American শব্দটি যদি কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি নামের অংশ হয়, তাহলে "মার্কিন" বা "মার্কিনী" লেখা হবে না, সহজ প্রতিবর্ণীকরণ করে আমেরিকান লিখতে হবে।
  • Spanish-এর বাংলা হবে স্পেনীয়, "স্প্যানিশ" নয়। তবে Spanish শব্দটি যদি কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি নামের অংশ হয়, তাহলে সহজ প্রতিবর্ণীকরণ করে স্প্যানিশ লিখতে হবে।
  • Latin-এর বাংলা হবে লাতিন, "ল্যাটিন" নয়। তবে Latin শব্দটি যদি কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি নামের অংশ হয়, তাহলে সহজ প্রতিবর্ণীকরণ করে ল্যাটিন লিখতে হবে।

কী লিখবেন, কী লিখবেন না[সম্পাদনা]

কী লিখবেন কী লিখবেন না কী পরিবেশে উৎস
অনুপস্থিতিতে অবর্তমানে মানুষটি জীবিত, কিন্তু উপস্থিত নেই, এই অবস্থা বোঝাতে আ.বা.ব্য.বি
অনুবাদ অনূবাদ ভাষান্তরকরণ বোঝাতে আ.বা.ব্য.বি
অনূদিত অনুদিত আ.বা.ব্য.বি
অন্তঃকলহ অন্তর্কলহ আ.বা.ব্য.বি
অন্তঃসত্ত্বা অন্তঃসত্তা, অন্তস্বত্বা আ.বা.ব্য.বি
অন্তঃস্থ অন্তস্থ ভিতরে অবস্থিত অর্থে আ.বা.ব্য.বি
অন্তরিক্ষ অন্তরীক্ষ আ.বা.ব্য.বি
অন্তরিন অন্তরিণ, অন্তরীণ, অন্তরীন আ.বা.ব্য.বি
অন্তস্থ অন্তঃস্থ শেষে অবস্থিত অর্থে আ.বা.ব্য.বি
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.
প্র.আ.ভা.রী.

আ.বা.ব্য.বি = আনন্দবাজার পত্রিকা ব্যবহারবিধি প্র.আ.ভা.রী. = প্রথম আলো ভাষারীতি