রিজাল শাস্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

আসমাউর রিজাল বা রিজাল শাস্ত্র (আরবি: اسماء الرجال‎‎) হল ইসলামি শরিয়তের দ্বিতীয় উৎস আল হাদিস সম্পর্কিত এক বিশেষ 'চরিত বিজ্ঞান'। ইসলাম ধর্মের অনুসারীদের নবি ও রাসুল হযরত মুহাম্মাদ (দঃ) এর প্রদত্ত ধর্মীয় পথনির্দেশনা , তার আদেশ নিষেধ উপদেশ কথা-কাজ ও মৌনসম্মতির বর্ণিত রুপ আল হাদিস সমুহের বর্ণনাকারীদের গ্রহণযোগ্যতার সঠিকত্ব মান যাচাই-বাছাইয়ের লক্ষ্যে সুবিজ্ঞ হাদিসবেত্তাগণ যুগে যুগে তাদের মেধা ও মনন দিয়ে অনুপুঙ্খ বিশ্লেষণ আর বিস্তর গবেষণায় হাদিস সংরক্ষণের জন্য যে বিশেষ শাস্ত্র উদ্ভাবন করেন তার নাম আসমাউর রিজাল বা রিজাল শাস্ত্র । ইলমে হাদিসের বহুবিধ শাখার মধ্যে এটি অন্যতম ।

শব্দগত পরিচয়[সম্পাদনা]

আসমাউর রিজাল কথাটি আরবি দু'টি শব্দের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে যেমন : اسماء الرجال - এর প্রথম শব্দটি 'আসমা' ( اسماء ) এটি 'ইসম্' ( اسم ) শব্দের বহুবচন যার অর্থ : 'নাম সমুহ' । আর দ্বিতীয় শব্দটি 'রিজাল' ( رجال ) এটি 'রাজুল' ( رجل ) শব্দের বহুবচন - যার অর্থ হল 'ব্যক্তিবর্গ' ।[১][২] সুতরাং আসমাউর রিজাল ( اسماء الرجال ) কথাটির অর্থ হল : 'ব্যক্তিবর্গের নামসমুহ' । আর এখানে 'ব্যক্তিবর্গ' বলতে হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম - এর হাদিস সমুহ যারা বর্ণনা করেছেন - ঐসব বর্ণনাকারীগণই এই 'রিজাল' শব্দের অন্তর্ভুক্ত । তাদের গ্রহণযোগ্য বৈশিষ্ট্য নিরুপনে তাদেরকে নিয়েই রচিত হয়েছে এই চরিত বিজ্ঞান ।[৩]

পারিভাষিক সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

যে শাস্ত্রে রাবীগণের ( হাদিস বর্ণনাকারীদের ) জীবনী সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা করা হয় তাকে ইলমে আসমাউর রিজাল বলা হয় ।[১][৪]

উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ[সম্পাদনা]

ইলমে হাদিসের খেদমত আঞ্জাম দিতে গিয়ে হাদিসের রাবীদের পরিচয় জানা ও তাদের মানগত স্থান নিরুপণ করতে শত সহস্র মনীষী তাদের স্বীয় জীবন উৎসর্গ করেছেন । তারা দেশে দেশ পায়ে হেঁটে দূর দূরান্ত অতিক্রম করেন । গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে গিয়ে রাবীদের (হাদিস বর্ণনাকারী) সাথে সাক্ষাৎ করে বর্ণনার সকল তথ্য সংগ্রহ করেন । যেসব রাবী তথ্য অনুসন্ধানকারীদের সমসাময়ীক ছিলেননা , তাদের সম্পর্কে তাদের সমসাময়িক অথবা তাদের মাধ্যমে আরও পূর্ববর্তীদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছেন । এভাবে ইলমে হাদিসের গৌরবান্বিত যে শাখাটি অস্তিত্বে আসে তা-ই 'আসমাউর রিজাল' বা রিজাল শাস্ত্র নামে অভিহিত ।

রিজাল শাস্ত্রের প্রসিদ্ধ পণ্ডিতগণ[সম্পাদনা]

গ্রন্থাবলি[সম্পাদনা]

আসমাউর রিজাল-এর উপর এ পর্যন্ত অসংখ্য বই রচিত হয়েছে । শুধু এই বিষয়ের বইগুলো যদি একত্রে সংগৃহীত করে কোথাও রাখা হয় - দৈর্ঘ্য-প্রস্থে স্থান সংকুলানে বিশাল আয়তনে একটি বড় লাইব্রেরির প্রয়োজন হবে এতে কোন সন্দেহ নাই । এ সম্পর্কিত উল্লেখযোগ্য প্রসিদ্ধ কিছু গ্রন্থের নাম নিম্নে প্রদত্ত হলো ।

সাধারণ গ্রন্থাবলি[সম্পাদনা]

এতে সাহাবি অ-সাহাবি , সিকাহ্ ও যঈফ সকল শ্রেনির রাবীর (বর্ণনাকারী) সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে । এদের জীবনের খুঁটিনাটি তথ্য সংগ্রহ করে এতে তুলে ধরা হয়েছে ।

  • আত-তাবাকাতুল কুবরা - এ গ্রন্থের প্রণেতা হলেন মুহাম্মাদ ইবনে সা'দ (মৃত্যু : ২৩০ / ৮৪৫ ) পাঠক ও গবেষক মহলে এটি তাবাকাত ইবনে সা'দ নামে পরিচিত ।
  • কিতাবুত-তাবাকাত - এটির রচয়িতা হলেন আলী ইবনুল মাদীনী (র) (মৃত : ২৩৪/৮৪৯) ।
  • কিতাবুত-তাবাকাত - এটি রচনা করেন খলিফা ইবনে খাইয়াত (র) ( মৃত: ২৪০/৮৫৪) ।
  • আত-তারিখুল কাবির - এ গ্রন্থটি প্রণয়ন করেন ইমাম বুখারী (মৃ: ২৫৬ / ৮৭০) । গ্রন্থটি বর্ণনাক্রমিক ভাবে সাজানো ।
  • কিতাবুত-তারিখ - এর রচয়িতা হলেন ইবনে আবু খাইসামা যুহাইর ইবনে হারব আল-বাগদাদি (মৃ: ২৭৯ / ৮৯২) । গ্রন্থটি বার খন্ডে বিভক্ত । এটি রিজাল শাস্ত্রের একটি বিরাট গ্রন্থ ।
  • কিতাবুত-তারিখ
  • আত-তামঈয
  • কিতাবুল জারহি ওয়াত তা'দিল
  • কিতাবুল জারহি ওয়াত তা'দিল
  • কিতাবুল ওয়াহাম ওয়াল ইহাম
  • আল-ই'তিবার
  • আল-ইরশাদ
  • মিজানুল ই'তিদাল
  • আত-তাকমিল ফি আসমাইস সিকাত ওয়ায যু'আফা
  • আত-তাকমিল ফি মা'রিফাতিস সিকাত ওয়ায যু'আফা ওয়াল মাজাহিল
  • তাবাকাতুল মুহাদ্দিসীন
  • আল-কামাল ফি মা'রিফাতির রিজাল
  • তাহযিবুল কামাল ফি আসমাইর রিজাল
  • তাহযিবুত তাহযিব
  • তাহযিবুত তাহযিব
  • লিসানুল মিজান - ইবনে হাজার আসকালানী ।
  • আল-মুগনী - গ্রন্থটির রচয়িতা হলেন শায়খ মুহাম্মাদ তাহির পাট্টনী সিন্ধী (মৃত্যু : ৯৮৬ / ১৫৭৮) হরকতসহ নির্ভুলভাবে রাবীগণের নামসমুহ এতে উল্লিখিত হয়েছে ।

বিশেষ গ্রন্থাবলি[সম্পাদনা]

এতে সাহাবি , সিকাহ্ বা যঈফ এরকম আলাদা আলাদা শুধু এক শ্রেনির রাবীগণের জীবনী সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. হাদীস অধ্যায়নের মূলনীতি, পৃষ্ঠা : ১০৯ ; - আবুল ফাতাহ মুহা.ইয়াহইয়া , আল মাকতাবাতুল আযহার , ১২৮ আদর্শ নগর, মধ্য বাড্ডা ঢাকা ।
  2. دهخدا، علی‌اکبر. لغت‌نامه، ج ۷. ذیل «رجال»؛
  3. রিজাল শাস্ত্র ও জাল হাদীসের ইতিবৃত্ত - ড: মুহাম্মদ জামাল উদ্দিন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ
  4. নুর মুহাম্মদ আজমী - হাদীসের তত্ত্ব ও ইতিহাস ; এমদাদিয়া লাইব্রেরি, ঢাকা  ; ৪র্থ প্রকাশ ১৯৯২ খ্রিঃ, পৃষ্ঠা - ৪ ।