ইউসুফ ইসলাহী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইউসুফ ইসলাহী
মাওলানা ইউসুফ ইসলাহী
জন্ম৯ জুলাই ১৯৩২
মৃত্যু২১ ডিসেম্বর ২০২১(2021-12-21) (বয়স ৮৯)

মুহাম্মদ ইউসুফ ইসলাহী (জন্ম -১৯ জুলাই ১৯৩২-মৃত্যু- ২১ ডিসেম্বর ২০২১[১])[২] একজন জনপ্রিয় ইসলামী মূল্যবোধের লেখক, ইসলামী পণ্ডিত, ও ধর্মীয় বক্তা। তিনি মার্কাজী মজলিস ই শুরা (সেন্ট্রাল অ্যাডভাইজরি কাউন্সিল) জামায়াতে ইসলামী হিন্দের শীর্ষস্থানীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ পরিষদের নেতৃস্থানীয় সদস্য। তিনি উত্তর আমেরিকার ইসলামিক সার্কেলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক।[৩]

প্রাথমিক ও শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

তিনি তার প্রাথমিক শিক্ষা বারেলে পেয়েছিলেন। তিনি প্রাথমিকভাবে মাজহারুল উলুম, সাহারানপুর জেলা ও উচ্চশিক্ষা এবং মাদারসতুল-ইসলা, ফজলেত, সারাই মীর থেকে ইসলামিক স্টাডিজে শিক্ষিত ছিলেন। তিনি কুরআন মজীদতাজউদ্দীন শিখেন। উচ্চ বিদ্যালয় পাস করার পর, তাঁর পিতা শায়খুল হাদিস মাওলানা আবদুল কাদেম খান তাকে সাহারানপুরের মাদ্রাসা মাজাহিরুল উলুমে পাঠিয়েছিলেন, পরে তিনি মাদারসতুল ইসলাম, সারাই মীর, আজমগড়ে যোগ দেন, তিনি মওলানা আখতার আহসান ইসলামির নির্দেশে চার বছর অতিবাহিত করেন এবং সানাদ ফজিলাতকে পার্থক্য করেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ইউসুফ ৩৫ বছর ধরে জনপ্রিয় উর্দু পত্রিকা "জিকরা জেডেড" সম্পাদনা করছেন। তিনি ইসলামের বিভিন্ন দিক নিয়ে ৬০টিরও বেশি গ্রন্থ রচনা করেছেন এবং প্রকাশ করেছেন। এদের মধ্যে বিখ্যাত হলো আদাব ই জিন্দগী (ইসলামের জীবনবৃত্তান্ত),[৫] আসান ফিকহ (প্রতিদিনের ফিকহ), কুরআানী তালিমত, সূরা ইয়াসীন, সূরা-ই-সফ, তাফহিমুল হাদীস, গুলদস্ত-ই-হাদীস, ইসলামী মুশাররা, হোসেন মুশত্র, দাই আজ আজম, রোশন সিটরে এবং অন্যান্য। তার অনেক বই ইংরেজি, হিন্দি, ফার্সি এবং অন্যান্য ভাষায় অনুবাদ করা হয়।

সাংগঠনিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

২৫ বছর বয়সে তিনি জামায়াতে ইসলামীর হিন্দ সদস্য হন এবং বিভিন্ন মূল পদে নিযুক্ত হন। তিনি শেষ পাঁচটি পদে মার্কাজী মজলিস শুরা (কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা কমিটির সদস্য) ছিলেন।[৬]

তিনি অনেক শিক্ষা ও কল্যাণ সংস্থা পরিচালনা করছেন। তিনি জামায়াত সালেহাট, রামপুরের রেক্টর ছিলেন।[৭] (প্রতিষ্ঠাতা: মাওলানা আবদুল হাই), মেয়েদের জন্য উচ্চতর আরবি এবং ইসলামিক শিক্ষার জন্য একটি অনন্য এবং সুপরিচিত প্রতিষ্ঠান।

তিনি উত্তর আমেরিকার ইসলামিক সার্কেলের প্রকল্প ওয়ুইআইসলামের প্রধান পৃষ্ঠপোষকও রয়েছেন।[৮]

মারকাজী দরসগাহে ইসলামী, রামপুর গত কয়েক বছর ধরে তাঁর নির্দেশনায় চলে। অন্যান্য বেশ কয়েকটি শিক্ষা ও কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠানও তাঁর কাছ থেকে পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা নিয়ে থাকে।

তিনি এ জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছর কয়েক মাস দাওয়াহর কাজে সময় ব্য়য় করেন। এছাড়াও দাওয়াহর উদ্দেশ্যে জাপান অনেকবার পরিদর্শন করেন । তিনি অস্ট্রেলিয়ান মুসলমানদের জন্য ইসলামিক ফোরামের অনুরোধে ২০০৮ সালের এপ্রিলে প্রথম অস্ট্রেলিয়া সফর করেন,[৯] এবং তার পর থেকে তিনি প্রতিবছর মার্চ / এপ্রিল মাসে সফর করেন। সিডনি, মেলবোর্ন, পার্থ এবং ক্যানবেরা জুড়ে বক্তৃতা দেওয়ার পাশাপাশি পারিবারিক শিবিরে কাজ করেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. MuslimMirror (২০২১-১২-২১)। "Renowned Islamic scholar Maulana Muhammad Yusuf Islahi passes away"Muslim Mirror (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-২১ 
  2. editor., শইকীয়া, হেমন্ত কুমাৰ, editor. দত্ত, দিব্যলতা,। অসমৰ বিভিন্ন জনগোষ্ঠীৰ জন্ম সম্পর্কীয় বিশ্বাস আৰু অন্যান্যআইএসবিএন 978-93-81069-87-5ওসিএলসি 1089260411 
  3. "Muhammad Yusuf Islahi and Raza Farrukh, operatives for ICNA and Jamaat-e-Islami"www.americansagainsthate.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-২১ 
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৯ 
  5. "muslim-canada.org"ww38.muslim-canada.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-২১ 
  6. "Jamaat-e-Islami Hind"। ৯ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৯ 
  7. http://www.jameatus-salehat.com/about-jamia.php[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  8. "Messages From Shaikh Muhammad Yusuf Islahi"। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৯ 
  9. "IFAM – Islamic Forum for Australian Muslims – Islamic Forum for Australian Muslims (IFAM) is an Australia wide non-profit Islamic organisation. It helps Muslims to live in accordance with the teachings of Islam and to endeavor to establish the way of Islam in all spheres of life." (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]