আসমা বার্লাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আসমা বার্লাস
জন্ম১৯৫০
পাকিস্তান
শিক্ষাকিন্নার্ড কলেজ (বি.এ.); পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় (এম.এ.); ডেনভার বিশ্ববিদ্যালয় (এম.এ.; পিএইচডি)
উল্লেখযোগ্য রচনাবলি"বিলিভিং উইমেন" ইন ইসলাম: কুরআনের অপঠিত পিতৃতান্ত্রিক ব্যাখ্যা
সক্রিয় বছর১৯৭৬–বর্তমান

আসমা বার্লাস (জন্ম ১৯৫০) একজন পাকিস্তানি আমেরিকান লেখিকা এবং শিক্ষাবিদ। তার বিশেষত্বগুলির মধ্যে তুলনামূলক এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতি, ইসলাম ও কোরআনের ব্যাখ্যার পদ্ধতি (হার্মেনিউটিক্স) এবং মহিলাদের অধ্যয়ন অন্যতম।[১] তিনি "বিলিভিং উইমেন" ইন ইসলাম: কুরআনের অপঠিত পিতৃতান্ত্রিক ব্যাখ্যা সহ বিভিন্ন বই এবং প্রবন্ধ রচনা করেছেন। বার্লাস ১৯৮৩ সালে পাকিস্তানের তৎকালীন রাষ্ট্রপতির নির্দেশে বরখাস্তের পরে, তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেয়েছিলেন।[১]

প্রারম্ভিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

বার্লাস ১৯৫০ সালে পাকিস্তানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।[২] তিনি পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত কিন্নার্ড কলেজ ফর উইমেন ইউনিভার্সিটি থেকে ইংরেজি সাহিত্য ও দর্শনে স্নাতক এবং পাকিস্তানের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। এছাড়াও তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত ডেনভার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ও আন্তর্জাতিক গবেষণায় পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।[১][৩]

পেশা[সম্পাদনা]

আসমা বার্লাস ১৯৭৬ সালে পাকিস্তানের বৈদেশিক সেবায় অন্তর্ভুক্ত হওয়া প্রথম মহিলা ছিলেন।[১][৪] কিন্তু ছয় বছর পর তৎকালীন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া উল হকের নির্দেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়েছিল।[১][৪] তিনি ১৯৮৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার আগে[১] সরকার বিরোধী পত্রিকা দ্য মুসলিমের সহকারী সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছিলেন।[৫]

আসমা বার্লাস ১৯৯১ সালে ইথাকা কলেজের রাজনীতি বিভাগে যোগদান করেন। তিনি প্রায় ১২ বছর ধরে সংস্কৃতি, জাতি এবং নৃগোষ্ঠীর গবেষণা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন। তিনি ২০০৮ সালে নেদারল্যান্ডের আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শনশাস্ত্রে স্পিনোজা আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছিলেন।[১][৬]

গবেষণা[সম্পাদনা]

আসমা বার্লাস মুসলমানদের যেভাবে ধর্মীয় জ্ঞান উৎপন্ন করে সেদিকে মনোনিবেশ করেছে, বিশেষ করে কুরআনের পুরুষতান্ত্রিক ব্যাখ্যা অথবা সমালোচনার ভাষ্য, যার একটি বিষয় নিয়ে তিনি তার বই "বিলিভিং উইমেন" ইন ইসলাম: কুরআনের অপঠিত পিতৃতান্ত্রিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করেছেন।[৭]

তিনি "ইসলামী নারীবাদ" হিসেবে ইসলাম বিষয়ক তার মতামত এবং ব্যাখ্যা থেকে তার নাম প্রত্যাখ্যান করেছেন, যদি না সেই শব্দটিকে "লিঙ্গ সমতা এবং সামাজিক ন্যায়বিচারের বক্তৃতা হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয় যা কুরআন থেকে তার বোঝাপড়াকে প্রতিফলিত করে এবং আদেশ গ্রহণ ও অধিকারের চর্চা প্রাপ্ত নিশ্চিত করে এবং সরকারি ও বেসরকারি ধারাবাহিকতায় তাদের অস্তিত্বের সামগ্রিকতায় সমস্ত মানুষের জন্য ন্যায়বিচার পোষণ করে।"[৮]

আসমা বার্লাস তার প্রথম বই গণতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ এবং সাম্প্রদায়িকতা: দক্ষিণ এশিয়ায় উপনিবেশিক উত্তরাধিকার -এ ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের সাথে পাকিস্তানি রাজনীতিতে সামরিকতার সম্পর্ক অনুসন্ধান ও বিশ্লেষণ করেছিলেন।[৯]

কাজসমূহ[সম্পাদনা]

বই[সম্পাদনা]

প্রবন্ধ[সম্পাদনা]

  • "ইসলামী সার্বজনীনতা পুনরুজ্জীবিত: পূর্ব/গুলি, পশ্চিম/গুলি এবং সহাবস্থান," আবদুল আজিজ সাইদ এবং মীনা শরীফী-ফাঙ্ক (সংস্করণ), সমসাময়িক ইসলাম: গতিশীল, স্থির নয় (রাউটলেজ, ২০০৬)
  • "কোরআনের নারী ও নারীবাদী পাঠ," জেন ড্যামেন ম্যাকআলিফে (সংস্করণ), কুরআনের নিকট কেমব্রিজের সহচর (ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস, ২০০৬)
  • "বিশ্বব্যাপী সমতা: মুসলিম নারী, ধর্মতত্ত্ব এবং নারীবাদ," ফেরা সিমোনে (সংস্করণ), নড়বড়ে স্থানের উপর: বৈশ্বিক যুগে মুসলিম নারী (নিউইয়র্ক:নারীবাদী প্রেস, ২০০৫)
  • "আমিনা ওয়াদুদের কুরআনের হারমেনিউটিক্স: মহিলারা পবিত্র গ্রন্থগুলি পুনপাঠ করছেন," সুহা তাজি-ফারুকী (সংস্করণ) -এ, সমসাময়িক মুসলিম বুদ্ধিজীবী এবং কুরআন: আধুনিকতাবাদী এবং পরবর্তী আধুনিকতাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি (অক্সফোর্ড: অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস, ২০০৪)

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Asma Barlas"Ithaca College (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০৩ 
  2. "Muslim Women: Past and Present"। ১২ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  3. "Asma Barlas - CV" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  4. Sikand, Yoginder (২০০৪)। Struggling to Be Heard: South Asian Muslim Voices। Global Media Publications। পৃষ্ঠা ১৭১। এএসআইএন B000XT98BK 
  5. "Bio of Asma Barlas"Center for the Study of Islam & Democracy। ২৮ জুলাই ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  6. "Center for the Study of Culture, Race, and Ethnicity"Ithaca College (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০৩ 
  7. "Believing Women" in Islam Unreading Patriarchal Interpretations of the Qur'an By Asma Barlas (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০২-০৬-০৫। আইএসবিএন 978-0-292-70903-4 
  8. The Qur’an, Sexual Equality, and Feminism ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে University of Toronto থেকে সংগৃহীত। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০২১।
  9. Barlas, Asma (১৯৯৫-০৬-২২)। Democracy, Nationalism, And Communalism: The Colonial Legacy In South Asia (ইংরেজি ভাষায়)। Avalon Publishing। আইএসবিএন 978-0-8133-8750-5 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]