অমর আকবর অ্যান্থনি (২০১৮-এর চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অমর আকবর অ্যান্থনি
অমর আকবর অ্যান্থনি (২০১৮-এর চলচ্চিত্র).jpg
প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির পোস্টার
মূল শিরোনামఅమర్ అక్బర్ ఆంటోని
পরিচালকশ্রীনু ভাইটলা
প্রযোজকনবীন ইয়েরনেনি
চিত্রনাট্যকারশ্রীনু ভাইটলা
কাহিনিকার
শ্রেষ্ঠাংশে
বর্ণনাকারীশ্রীনু ভাইটলা
সুরকারএস.এস থামান
চিত্রগ্রাহকভেঙ্কট সি দিলীপ
সম্পাদকএমআর ভারমা
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশকইরোস ইন্টারন্যাশনাল
মুক্তি
  • ১৬ নভেম্বর ০১৮ (018-11-16) (ভারত)
দৈর্ঘ্য১৫৩ মিনিট
দেশভারত
ভাষাতেলুগু
আয়প্রা. ₹১৮ কোটি[১]

অমর আকবর অ্যান্থনি ২০১৮ সালের ভারতীয় তেলুগু ভাষার অ্যাকশন চলচ্চিত্র চলচ্চিত্র। এটি সহ-রচনা এবং পরিচালনা করেছেন শ্রীনু ভাইটলা। শ্রেষ্ঠাংশে রবি তেজা প্রথমবারের মতোন একই চলচ্চিত্রে তিনটি চরিত্রে উপস্থিত হয়েছেন। অন্যদিকে মূল নারী চরিত্রে ইলিয়ানা ডি'ক্রুজ এ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রায় ছয় বছর পর তেলুগু চলচ্চিত্রে ফিরে আসেন। তেজা এবং ভাইটলার যৌথভাবে নির্মিত এটি পঞ্চম চলচ্চিত্র। নবীন ইয়েরনেনি, ওয়াই রবিশঙ্কর এবং মোহন চেরুকুরির প্রযোজনায় চলচ্চিত্রটি মৈত্রি মুভি মেকার্সের অধীনে নির্মিত হয়েছে। ২০১৭ সালের জুনে চলচ্চিত্রটির প্রাক-নির্মাণ এবং ২০১৮ সালের এপ্রিলে নিউ ইয়র্কে মূল চিত্রগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছিল। গল্পের মূল চরিত্র অমর একাধিক ব্যক্তিত্ব ব্যধিতে ভুগছেন এমন এক ব্যক্তি। যিনি একজন প্রতিহিংসাপূর্ণ হত্যাকারী যিনি নিজের অজান্তে আরো দুটি চরিত্রের ভূমিকা রাখেন।

২০১৮ সালের ১৬ নভেম্বর বিশ্বব্যাপী মুক্তিপ্রাপ্তির পর[২] চলচ্চিত্রটি সমালোচক এবং শ্রোতাদের দ্বারা আলোচিত হয়েছিল, এবং বক্স অফিস বম্বে পরিণত হয়েছিল।[৩]

পটভূমি[সম্পাদনা]

নিউইয়র্কের অবস্থানকালে , ছবিটিতে দেখান হয়য় অমর ( রবি তেজা ), যিনি একবার কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন এবং তার কাছ থেকে একটি "ফেডো রিং" হাত থেকে বের করার আগে একজন ব্যবসায়ীকে হত্যা করেছিলেন। যাইহোক, অমর এ বিষয়টি সম্পর্কে সম্পূর্ণরূপে অসচেতন ছিলেন এবং তিনি এটিও জানতেন না যে তাঁর একাধিক ব্যক্তিত্বের ব্যাধি রয়েছে। এর ফলে তিনি তার নিজের পাশাপাশি আরও অতিরিক্ত দুটি পরিচয়ও ধারণ করতেন। প্রতিটি পরিচয়ের একটি ট্রিগার থাকে যার ফলে তিনি এক চরিত্র থেকে অন্য চরিত্রে রূপান্তরিত হন। যখনই কোনও কিছু বিস্ফোরিত হয় তখনি তিনি আকবরে রূপান্তরিত হন। যেখানে আকবর একজন মুসলিম ব্যক্তি যিনি দরিদ্রদের সাহায্য করেন। আবার যখনই তিনি কাউকে অস্বাভাবিক আচরণ করতে দেখেন, তিনি একজন শান্ত ডাক্তার মার্ক অ্যান্টনিতে রূপান্তরিত হন। আবার যখনই কিছু বিস্ফোরিত হয়, পুনরায় তিনি তার পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসেন। একসময় আকবর থাকাকালীন তাঁর পূজা ( ইলিয়ানা ডি ক্রুজ ) নামক এক যুবতীর সাথে দেখা হয়, যারও অবশ্য বহুব্যক্তিত্ব ব্যাধি রয়েছে । একটি জিমে, কয়েক জন পুরুষ তার সাথে ফ্লার্ট করার চেষ্টা করে এবং তারা তাকে "ট্রাস্ট মি" বাক্যটি উচ্চারণ করে তাদের প্রতি আস্থা রাখতে বলে । কিন্তু এ "ট্রাস্ট মি" বাক্যটি শুনলে পূজাও ট্রিগারড হয়ে পড়ে । আর তখনি সে সবাইকে হিংস্রভাবে বেদম মারধর শুরু করে। এতে উপস্থিত সকলে আহত হয়ে পড়ে। এদিকে পূজা আকবরকে ডঃ অ্যান্থনি হিসাবে দেখা করে অবাক হয়েছিলেন, যিনি শীঘ্রই তার থেরাপি শুরু করেছিলেন।

ইতিমধ্যে, এফবিআই অফিসার বলওয়ান্ত খড়গ ( অভিমন্যু সিংহ ) প্রথম ব্যবসায়ী হত্যার তদন্ত শুরু করেন এবং একজন অংশীদার হওয়ার কারণে , বাকি তিন ব্যবসায়ী যারা পরবর্তী লক্ষ্য হতে পারেন তাদের তা অবহিত করে যাচ্ছিলেন। প্রমাণসমূহ তাকে এটি উপলব্ধি করতে আরও সাহায্য করেছিল যে এই হত্যাকাণ্ডে আমর জড়িত থাকতে পারে। পূজার চাচা জালাল আকবর ( সায়াজি শিন্ডে ) তার সাথে একতাবদ্ধ হন । তাঁর আসল নামটি ঐশ্বরিয়া বলে প্রকাশিত হয়। সময়ের সাথে সাথে অমর বুঝতে পেরেছিলেন যে তার সাথে কিছু ভুল হয়েছে। তিনি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে তার পিতামাতার কবর পরিদর্শন করেন আর তখনই খড়্গ এবং তাঁর সহকারী আধিকারিকরা পরিকল্পনা অনুযায়ী তাকে তাড়া করেন। তিনি পরের টার্গেটটিকে গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করেন তবে গাড়িতে বুলেট প্রুফ গ্লাস থাকার কারণে ব্যর্থ হন। তিনি একজন আগন্তুক,ববিকে ( সুনীল ) ভাড়া করেন এটি জানতে যে তার কি সমস্যা ছিল। ববি তার সঙ্গে অবস্থানকালে তার বহু রূপের আবির্ভাব সম্পর্কে অবহিত হন। পরবর্তীতে ববি বুঝতে পেরেছিলেন যে তাঁর বহুব্যক্তিত্ব ব্যাধি রয়েছে। যখন খড়্গের কাছে ঐশ্বরিয়ার এবং অমর এর অতীত ঘটনা প্রকাশিত হয় জালাল আকবরের কাছ থেকে এবং ডাঃ মার্ক অ্যান্টনির ( সুভলেখা সুধাকর ) কথায়। জানা যায় যে অমর ও ঐশ্বরিয়ার পরিবারের সাথে চার ব্যবসায়ী বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল। আর তাদের পরিবার ওই ব্যবসায়ীদের বিশ্বাস করে অমরের জন্মদিনে তাদের "ফেডো রিং" প্রদান করে। এর পর চার ব্যবসায়ীদের পরিকল্পনামাফিক তাদের বাসায় গোপনে বোমা রাখা হয়। কিছু সময় পর "ফেডো রিং" পরিহিত ব্যবসায়ীরা সেখান থেকে বেরিয়ে আসে এবং বাড়িটিতে বিস্ফোরণ ঘটায়। অমর এবং ঐশ্বরিয়া ঘটনাস্থলে অনুপস্থিত থাকার কারণে প্রাণে বেঁচে গিয়েছিল। তবে তাঁরা প্রাণে বেঁচে গেলেও এ ভয়াবহ ঘটনা তাদের মনের ভেতরে তৈরি এক মারাত্নক নেতিবাচক প্রভাব। এই বিস্ফোরণের শব্দেই অমরের মানসিক ব্যধিটি সক্রিয় হয়ে উঠে এবং ব্যবসায়ীদের ভীতিপ্রদর্শন ঐশ্বরিয়ার মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে থাকে। ব্যবসায়ীরা অমর,জালাল এবং ঐশ্বরিয়াকে বেশ কয়েকবার তাড়া করে হত্যা করার চেষ্টা করে কিন্তু প্রতিবারই ব্যর্থ হয়। এদিকে ঐশ্বরিয়া এবং অমরকে ডাঃ অ্যান্থনির স্কুলে ভর্তি করানো হয়েছিল এবং সেখানে তারা বিভিন্ন পরিস্থিতির মাধ্যমে পরস্পর পৃথক হয়ে যায়।

বর্তমান সময়ে এসে , অমর দ্বিতীয় ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার চেষ্টা করেন এবং সেই সময় খড়্গের সতর্কতার জন্য সূত্রও রেখে যান। তবে, এই ব্যাধির কারণে অমর সাবু মেননকে ( আধিত্য ) পুনরায় হত্যা করতে ব্যর্থ হন, যে লক্ষ্যটি তিনি প্রথমে হত্যা করতে ব্যর্থ হন। তারপরে তিনি মেননকে হত্যার জন্য তেলুগু সম্প্রদায়ের একটি সংগঠন WATA-র সদস্যদের নিয়ে চালাকি করেছিলেন। এসব পন্থা অবলম্বন করা হয়েছিল যা খড়্গকে সত্যের দিকে পরিচালিত করেছিল। চতুর্থ ব্যবসায়ী করণ অরোরা ( তরুণ অরোরা ) জালাল ও ঐশ্বরিয়ার মুক্তির বিনিময়ে অমরকে একটি সভার জন্য ডেকেছিলেন। তাঁর প্রিয়জনেরা এখনও বেঁচে আছেন বুঝতে পেরে অমর বিনিময়ের জন্য সেখানে উপস্থিত হন। খড়্গ ও তার সহকারীদের উপস্থিতিতেই আমর একটি লড়াইয়ে লিপ্ত হন । এতে আরোরার সহকারীরা আহত হয় ও অরোরা মারা যান। তিনি শেষ ফেডোর রিংটি তার আঙুল থেকে খুলে নেন এবং তারপরে দৃশ্যপট ছেড়ে চলে যান। এদিকে ঐশ্বরিয়ার পরিবর্তে তিনি অন্য কাউকে অপহরণ করেছেন তা বুঝতে পেরে খড়গ হতাশ হয়ে পরেন। তারপরে অমর তার দীর্ঘ-সময় ধরে পরিত্যক্ত বাড়িতে ঐশ্বরিয়ার সাথে একত্রিত হন। এদিকে ডাঃ অ্যান্টনি জালালকে ব্যাখ্যা করেছিলেন যে তাদের মানসিক অবস্থা এখন স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে শুরু করবে। খড়গ অমরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও পরবর্তীকালে অমর তাকে একটি ভিডিও দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করার পরে সে তাকে আইন হতে রক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেয়।

অভিনয়[সম্পাদনা]

প্রযোজনা[সম্পাদনা]

উন্নতি[সম্পাদনা]

রবি তেজা এবং শ্রীনু ভাইটলা ইতোপূর্বে নি কোসম (১৯৯৯), ভেঙ্কি (২০০৪) এবং দুবাই সিনু (২০০৭) চলচ্চিত্রে কাজ করেছিলেন এবং ২০১৭ সালের জুনে এই চলচ্চিত্রের জন্য তারা পুনরায় একত্রিত হয়েছিল।[৪] অমর আকবর অ্যান্থনি শিরোনামটি ২০১৭ সালের নভেম্বরে নিশ্চিত হয়েছিল এবং মৈত্রী মুভি মেকার্স এটির প্রযোজনা করেছিল।[৫]

অভিনয়শিল্পী নির্বাচন[সম্পাদনা]

কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে অনু এম্মানুয়েল প্রথমে চুক্তিবদ্ধ হলেও তারিখ সংক্রান্ত সমস্যার কারণে ২০১৮ সালের মে মাসে এই প্রকল্প থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন।[৬] মে ২০১৮ সালে ইলিয়ানা ডি ক্রুজকে কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে চুক্তিবদ্ধ হন।

চিত্রগ্রহণ[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের ১ এপ্রিল নিউ ইয়র্ক শহরে মূল চিত্রগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছিল।[৭] সর্বশেষ চিত্রগ্রহণের কাজ নিউ ইয়র্ক শহরে ২০১৮ সালের আগস্টে শেষ হয়েছিল।[৮] চলচ্চিত্রটির হিন্দি সংস্করণ ১৫ জুন সনি ম্যাক্সে সম্প্রচারিত হয়েছিল। হিন্দি ডাবিং স্বত্ব গোল্ডমাইন টেলিফিল্মেসের নিকট বিক্রি হয়েছিল।

সাউন্ডট্র্যাক[সম্পাদনা]

অমর আকবর অ্যান্থনি
এস. থামান কর্তৃক সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম
মুক্তির তারিখ১০ নভেম্বর ২০১৮
শব্দধারণের সময়২০১৮
ঘরানাসাউন্ডট্র্যাক
দৈর্ঘ্য১৭:১০
সঙ্গীত প্রকাশনীলাহারী মিউজিক
প্রযোজকএস. থামান
এস. থামান কালক্রম
অরবিন্দ সমিতা বীর রাঘভ
(২০১৮)
অমর আকবর অ্যান্থনি
(২০১৮)
কাভাচাম
(২০১৮)
বহিঃ অডিও
ইউটিউবে Audio Jukebox

অ্যালবামটির সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন এস. থামান এবং এটি লাহারী মিউজিক থেকে ২০১৮ সালের নভেম্বরে প্রকাশিত হয়েছে।[৯]

ট্যাক তালিকা
নং.শিরোনামগীতিকারকণ্ঠশিল্পীদৈর্ঘ্য
১."কালাল কধলা"রামজোগায়্য শ্রাস্ত্রীহরিনি ইভভাতুরি৪:৪১
২."ডন বসকো"বিশ্বশ্রী কৃষ্ণ, জসপ্রীত জাসজ, হরিতেজা, মনীষা ইরাবতিনি, রম্যা বেহারা৪:৩৯
৩."খুল্লাম খুল্লা চিল্লা"বালাজিনাকাশ আজিজ, মোহনা, রম্যা বেহারা৩:৩৪
৪."গুপ্তা"বালাজিরঞ্জিত, কালা ভৈরব, শ্রী কৃষ্ণ, সাকেথ৪:১৬
মোট দৈর্ঘ্য:১৭:১০

মুক্তি[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের জুনে একটি সাক্ষাৎকারে ভাইটলা জানিয়েছিলেন যে চলচ্চিত্রটি দশহরার সময় মুক্তি পাবে।[১০] ২০১৮ সালের ৫ অক্টোবর মুক্তির জন্য পুনঃনির্ধারিত হলেও,[১১] নভেম্বরের ১৬ তারিখ বিশ্বব্যাপী চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেয়েছিল।[১২]

চলচ্চিত্রটি পরবর্তীতে হিন্দিতে ডাব করা হয় এবং ২০১৯ সালের ১৫ অক্টোবর গোল্ডমাইন্স টেলিফিল্মসের অধীনে ইউটিউবে আমার আকবর অ্যান্থনি শিরোনামে প্রকাশিত হয়েছিল।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Tollywood box office report of 2018: highest grossing Telugu movies of year; List of hits and flops"। ২৩ নভেম্বর ২০১৮। ৫ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০২০ 
  2. "Eros to release Telugu film `Amar Akbar Anthony' tomorrow" (ইংরেজি ভাষায়)। বিজনেস লাইন। ১৫ নভেম্বর ২০১৮। ১০ অক্টোবর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  3. ChennaiNovember 23, India Today Web Desk; November 23, 2018UPDATED:। "After Amar Akbar Anthony debacle, budget of Ravi Teja's next gets heavily slashed?"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৭-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ 
  4. জোনালাগেদা, প্রণীতা (২০ জুন ২০১৭)। "Srinu Vaitla and Ravi Teja to reunite?" (ইংরেজি ভাষায়)। ডেস্কান ক্রনিকল। ৩১ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  5. "Interesting title for Ravi Teja & Vaitla movie"দ্য হান্স ইন্ডিয়া। ৯ অক্টোবর ২০১৭। ২০১৯-০৭-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  6. "Ileana D'Cruz in and Anu Emmanuel out of Ravi Teja's Amar Akbar Anthony" (ইংরেজি ভাষায়)। চেন্নাই: ইন্ডিয়া টুডে। ২৩ মে ২০১৮। ২০১৮-০৭-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  7. ইয়েলপ্যান্টুলা, সুহাস (৫ এপ্রিল ২০১৮)। "Srinu Vaitla, Ravi Teja shoot in Jennifer Lopez's mansion for Amar Akbar Anthony" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। ৯ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  8. ""Amar Akbar Anthony shooting in final phase in USA""। ২০১৮-০৯-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-০৮ 
  9. "Amar Akbar Antony – Thaman S. - Download or Listen Free – Saavn"। ১২ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  10. চৌধরী, ওয়াই সুনিতা (১৬ জুন ২০১৮)। "'I am financially disciplined'"দ্য হিন্দু (সাক্ষাৎকার)। চেন্নাই: দ্য হিন্দু গ্রুপ। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০২০ 
  11. "Ravi Teja-Srinu Vaitla film's release date sealed" (ইংরেজি ভাষায়)। ইন্ডিয়া গ্লিটজ। ১১ আগস্ট ২০১৮। ৩১ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  12. কুমার, হেমন্ত (১৬ নভেম্বর ২০১৮)। "Amar Akbar Anthony movie review: This Ravi Teja, Ileana D'Cruz starrer is an action-comedy sans any thrills" (ইংরেজি ভাষায়)। ফার্স্টপোস্ট। ২৪ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 
  13. শ্রীনু ভাইটলা (১৫ জুন ২০১৯)। Amar Akbhar Anthoni (Amar Akbar Anthony) 2019 New Hindi Dubbed Full Movie Ravi Teja, Ileana (মোশন পিকচার) (ইংরেজি ভাষায়)। গোল্ডমাইন্স টেলিফিল্মস। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]