অতুল অগ্নিহোত্রী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অতুল অগ্নিহোত্রী
Atul Agnihotri Diwali bash.jpg
অতুল অগ্নিহোত্রী
জন্ম (1969-07-08) ৮ জুলাই ১৯৬৯ (বয়স ৫২)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাপ্রযোজক, পরিচালক, অভিনেতা
কর্মজীবন১৯৮৩, ১৯৯৩–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীআলবিরা খান অগ্নিহোত্রী (বি. ১৯৯৬)
সন্তান
আত্মীয়দেখুন সেলিম খান পরিবার

অতুল অগ্নিহোত্রী (জন্ম: ৮ জুলাই ১৯৬৯) হলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক। তিনি একজন অভিনেতা হিসেবে তার বলিউড কর্মজীবন শুরু করেন, পরে চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক হিসেবে সফলতা অর্জন করেন। তিনি তার অভিষেক চলচ্চিত্র স্যার (১৯৯৩) অভিনয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিত। এটি তার কর্মজীবনের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র এবং এতে তিনি প্রধান অভিনেতা হিসেবে অভিনয় করেন। তার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল অতিশ: ফিল দ্য ফায়ার (১৯৯৪) ও ক্রান্তিবীর (১৯৯৪)। তার পরিচালিত দুটি চলচ্চিত্র হল দিল নে জিসে আপনা কাহা (২০০৪) ও হ্যালো (২০০৮)। তার প্রযোজিত চলচ্চিত্রসমূহ হল হ্যালো (২০০৮), বডিগার্ড (২০১১), ও তেরি (২০১৪), ও ভারত (২০১৯)।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

অগ্নিহোত্রী ১৯৬৯ সালের ৮ই জুলাই একটি পাঞ্জাবি ব্রাক্ষ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[১] তার পিতা রোহিত অগ্নিহোত্রী ছিলেন একজন অভিনেতা। পিতার অভিনয় সূত্রে তিনি মুম্বইয়ে বেড়ে ওঠেন। অল্প বয়সে তার পিতাকে হারালে তার উপর পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব বর্তায়। অগ্নিহোত্রীর চাচাতো বোন রতি অগ্নিহোত্রী দক্ষিণ ভারতে চলচ্চিত্রে অভিনেত্রী ছিলেন। তিনি দুই বছর অতুলের পরিবারের সাথে মুম্বইয়ে বসবাস করতেন। সেই সময়ে অতুল তার সাথে একটি চলচ্চিত্রে শিশু শিল্পীর ভূমিকায় অভিনয় করেন। পরে তিনি কলেজেও মঞ্চনাটকে অভিনয় করতেন।[১]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

অগ্নিহোত্রী কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৮৩ সালে পসন্দ আপনি আপনি চলচ্চিত্রে তার চাচাতো বোন রতি অগ্নিহোত্রীর সাথে শিশু শিল্পী হিসেবে অভিনয়ের মাধ্যমে। পরে পঙ্কজ পরশরের সহকারী সঞ্জয় গুপ্ত নিজেই চলচ্চিত্র পরিচালনা শুরু করলে অতুল তার পরিবর্তে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। সে সময়ে তিনি কলেজে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন এবং তখন থেকে কোন দিন ছুটি না নিয়ে কাজ করতে থাকেন। তিনি পঙ্কজের সহকারী হিসেবে চার বছর কাজ করেন এবং অতিশ: ফিল দ্য ফায়ার (১৯৯৪) চলচ্চিত্রে সঞ্জয় দত্তের ছোটো ভাই চরিত্রে কাজের মাধ্যমে তার অভিনয়ে অভিষেক ঘটে।[১] একই সময়ে তিনি মহেশ ভাটের স্যার (১৯৯৩) চলচ্চিত্রের একটি চরিত্রে কাজের সুযোগ পান। এটি ছিল তার মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র, যা বাণিজ্যিক ও সমালোচনামূলক সফলতা অর্জন করে।[২] ১৯৯০-এর দশক জুড়ে ও ২০০০-এর দশকের শুরুতে তার অভিনীত চলচ্চিত্রসমূহ হল ক্রান্তিবীর (১৯৯৪), চাচী ৪২০, (১৯৯৭), যশবন্ত (১৯৯৭), ও হাম তুমহারে হ্যায় সনম (২০০২)।[৩][৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. গুপ্তা, প্রিয়া (১২ মার্চ ২০১৪)। "Salim uncle replaced my father: Atul Agnihotri"দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  2. "'May be I am a bit spoilt'"দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ নভেম্বর ১৯৯৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  3. লালওয়ানি, ভিকি (১৭ মে ২০০৩)। "No, says Salman to Manjrekar"রেডিফ.কম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  4. বোরা, আনিতা (২৪ মে ২০০২)। "Two's company, three's jealousy"রেডিফ.কম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]