অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ
অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ
অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের লোগো.png
সংক্ষেপেএবিভিপি
গঠিত৯ই জুলাই, ১৯৪৯
ধরনছাত্র সংগঠন
আইনি অবস্থাসক্রিয়
সদরদপ্তরমুম্বই, মহারাষ্ট্র, ভারত
অবস্থান
সদস্যপদ
৩২ লক্ষ (২০১৪ - ২০১৫)
জাতীয় সভাপতি
ছাগনভাই প্যাটেল
জাতীয় সাধারন সম্পাদক
নিধি ত্রিপাঠী
প্রধান প্রতিষ্ঠান
রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ
ওয়েবসাইটwww.abvp.org

অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ ভারতের একটি ডানপন্থী ছাত্র সংগঠন, যেটি ভারতের হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের সাথে সম্পৃক্ত[১]। তাদের দাবি অনুযায়ী এটি ভারতের সবথেকে বড় ছাত্র সংগঠন[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৪৮ সালে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ নেতা বলরাজ মাধেক প্রথম এই সংগঠনটি তৈরি করেন এবং ১৯৪৯ সালে ৯ই জুলাই প্রথম আইনত নথিভুক্ত করা হয়। এই ছাত্র সংগঠনটির প্রতিষ্ঠার প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল তৎকালীন ভারতের বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতে ক্রমবর্ধমান কমিউনিস্ট প্রভাব রোধ করা। ১৯৫৮ সালে যশবন্ত রাও কেল্লার এই সংগঠনটির প্রধান প্রচারকের ভুমিকা গ্রহণ করেন। এবিভিপির ওয়েবসাইটে যশবন্ত রাওকেই সংগঠনের 'প্রধান স্থপতি' বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

১৯৬১ সাল থেকেই ভারতের বিভিন্ন হিন্দু - মুসলিম দাঙ্গায় এবিভিপির যোগসূত্র পাওয়া যায়[৩]। যদিও ১৯৭০ এর পর থেকে এবিভিপি দুর্নীতি, মূল্যবৃদ্ধির মতো বিভিন্ন মধ্যবিত্ত সমস্যা গুলো নিয়ে কথা বলতে শোনা যায়। সত্তরের জেপি আন্দোলনের সময় এবিভিপি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেন। ভারতে জরুরী অবস্থার পর থেকে এবিভিপির উত্থান আরও ত্বরান্বিত হয়।

বিজেপি ও এবিভিপি[সম্পাদনা]

বিজেপি এবং এবিভির সম্পর্ক যদি লক্ষ্য করা যায় দেখা যায় দুটোই জাতীয়তাবাদী সংগঠন, কিছু ক্ষেত্রে মতের চিন্তা ধারারও মিল লক্ষ্য করা যায়, তবে দুটোই ভিন্ন সংগঠন।

ক্রিয়া কলাপ[সম্পাদনা]

বিতর্ক[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]