হ্যালির ধূমকেতু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
১পি/হ্যালি
Comet Halley
আবিষ্কার
আবিষ্কারক: প্রাগৈতিহাসিক;
এডমান্ড হ্যালির নামে পরিচিত
আবিষ্কারের তারিখ: ১৭০৫; প্রথম ভবিষ্যদ্বাণী করা অনুসূর ১৭৫৯ সালের এপ্রিলে
অন্য নাম: হ্যালির ধূমকেতু, ১পি
কক্ষীয় বৈশিষ্ট্যA
ইপক: ২৪৪৯৪০০.৫
(১৭ই ফেব্রুয়ারি ১৯৯৪)
অপসূর দূরত্ব: ৩৫.১ এইউ
(৯ই ডিসেম্বর ২০২৩)
অনুসূর দূরত্ব: ০.৫৮৬ এইউ
উপ-মুখ্য অক্ষ: ১৭.৮ জ্যোতির্বিজ্ঞান একক
উৎকেন্দ্রিকতা: ০.৯৬৭
কক্ষীয় পর্যায়: ৭৫.৩ জুলীয় বর্ষ
নতি: ১৬২.৩°
শেষ অনুসূর: ৯ই ফেব্রুয়ারি ১৯৮৬
পরবর্তি অনুসূর (ভবিষ্যদ্বাণী): ২৮শে জুলাই ২০৬১

হ্যালির ধূমকেতু (ইংরেজি ভাষায়: Halley's Comet), প্রতি ৭৫-৭৬ বছর পরপর পৃথিবীর আকাশে দৃশ্যমান হয়ে উঠা একটি ধূমকেতু। বিখ্যাত ইংরেজি জ্যোতির্বিজ্ঞানী এডমান্ড হ্যালির নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে। এর অফিসিয়াল ডেসিগনেশন হচ্ছে ১পি/হ্যালি। মাঝে মাঝে একে "কমেট হ্যালি" তথা "ধূমকেতু হ্যালি" নামে ডাকতে দেখা যায়। প্রতি শতাব্দীতেই আকাশে কোন কোন তারা অনেক উজ্জ্বলভাবে দৃশ্যমান হয়ে উঠে। এর অনেকগুলোই আবার দীর্ঘ সময় ধরে দৃশ্যমান থাকে। কিন্তু হ্যালির ধূমকেতু একমাত্র স্বল্পমেয়াদী ধূমকেতু যা খালি চোখেও স্পষ্ট দেখা যায়। সে হিসেবে এটি খালি চোখে দৃশ্যমান একমাত্র ধূমকেতু যা একজন মানুষের জীবদ্দশায় দুইবার দেখা দিতে পারে। ১৯৮৬ সালে সৌর জগৎতের অভ্যন্তরভাগে এই ধূমকেতুকে শেষবারের মত দেখা গিয়েছিল। ২০৬১ সালে এটি আবার পৃথিবীর আকাশে দেখা দেবে।

বিজ্ঞানীদের কাছে গুরুত্ব[সম্পাদনা]

১৯৮৬ সালের হ্যালীর ধূমকেতুর পর্যবেক্ষণে মহাকাশযান দিয়ে প্রথম কোনও ধূমকেতুর নিউক্লিয়াস, কমা, লেজের বিশদভাবে গবেষণা করা হয়। Giotto ও Vega মিশনে ধূমকেতুর তলদেশ ও নিউক্লিয়াস দেখার সুযোগ হয়। জাপান দুটি মহাকাশযানের মাধ্যমে বাড়ন্ত কমা পর্যবেক্ষণ করে। এই মিশনগুলির সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে NASA বর্তমানে "Deep Space ও Stardust" মহাকাশযান ব্যবহার করে ধূমকেতুর বিশদ গঠন জানার চেষ্টা করছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

হ্যালীর হিসাব[সম্পাদনা]

ক্যাসিনি প্রথম ধারণা করেন যে ১৫৭৭, ১৬৬৫, ১৬৮০ সালের ধূমকেতু সম্ভবত একই। তার এই অসমাপ্ত ধারণা কাজে লাগিয়ে ১৩৩৭ সাল থেকে ১৬৯৮ সাল পর্যন্ত ২৪টি ধূমকেতুর তথ্য থেকে দেখান যে ১৫৩১, ১৬০৭, ১৬৮২ সালের ধূমকেতুর ভেতরে অনেক মিল। এর আগে নিউটন হ্যালীর একটি সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে কেপলারের সূত্র থেকে বিপরীত বর্গীয় নীতি প্রমাণ করেন যার নাম On the Motion of Bodies in Orbit . যার ফলে হ্যালী ধূমকেতুর কক্ষপথ উপবৃত্তাকার ধরে হিসাব করেন এবং ১৭০৫ সালে A Synopsis of the Astronomy of Comets এ দেখান যে ধূমকেতুটি ১৭৫৯ সালের শেষে দেখা যাবে। পরবর্তীতে Alexis Clairaut, Joseph Lalande এবং Nicole-Reine Lepaute এই তিনজন ফরাসি গণিতবিদের একটি দল তাঁর হিসাবে শুদ্ধি আনেন এবং দেখান হ্যালীর হিসাব প্রায় সম্পূর্ণ সঠিক। তাঁদের ভবিষ্যদ্বাণী করা অনুসূর দূরত্ব হয় ১৭৫৯ সালের মধ্য এপ্রিলে।

বিজ্ঞানী হ্যালী প্রথম দেখান যে ১৫৩১, ১৬০৭, ১৬৮২ সালের ধূমকেতু ১৭৫৯ সালের শেষে আবার দেখা যাবে। তার এই সফল হিসাবের জন্য এই ধূমকেতুর নাম হ্যালীর ধূমকেতু।

ট্যালমুডে বর্ণনা[সম্পাদনা]

ট্যালমুডর (এটি ইহুদিদের একটি পবিত্র গ্রন্থ যা প্রথম শতাব্দীর ৪০ এবং ৮০ এর মধ্যে একটি পর্যায়কালে হুব্রু ভাষায় লেখা হয়েছে।) একটি স্থানে বর্ণিত আছে "একটি তারকা আছে যা প্রতি সত্তর বছর একবার আবির্ভূত হয় এবং জাহাজের অধিনায়কে আকাশ বিভ্রান্তজনক ত্রুটি তৈরি করে"।[১] এই বক্তব্যটি থেকে ইহুদি ধর্মযাজক Yehoshua ben Hananiah আরোপ করে। যদি সত্যই হ্যালির ধূমকেতুর তথ্যসূত্র হয়ে থাকে, তাহলে সম্ভবত সে ৬৬ শতাব্দীকে নির্দেশ করেছে তার জীবনকাল একবার ঘটে ছিল।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]