সোনোরান মরুভূমি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যারিজোনার স্কট্‌স্‌ডেলে তোলা সোনোরান মরুভূমির একাংশের ছবি
WickenburgCountryside.JPG

সোনোরান মরুভূমি (ইংরেজি: Sonoran Desert) দক্ষিণ-পশ্চিম অ্যারিজোনা, দক্ষিণ-পূর্ব ক্যালিফোর্নিয়া ও উত্তর-পশ্চিম মেক্সিকো জুড়ে বিস্তৃত একটি বড়, নিচু, ঊষর মরুভূমি। মরুভূমিটির উত্তরে মোহাভে মরুভূমি, পূর্বে অ্যারিজোনার উঁচুভূমি, দক্ষিণে মেক্সিকোর পশ্চিম সিয়ারা মাদ্রে, এবং পশ্চিমে ক্যালিফোর্নিয়া উপসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগর। এটি প্রায় ৩১০,৭৯৯ বর্গকিমি আয়তনবিশিষ্ট।

স্থানীয় তোহোনো ও ওধাম ভাষার সোনোতা শব্দটি থেকে সম্ভবত মরুভূমিটির নামকরণ করা হয়েছে। সোনোতা শব্দের অর্থ "উদ্ভিদের আবাসস্থল"।

সোনোরান মরুভূমি অ্যারিজোনার মাত্র ২০ শতাংশ এলাকা দখল করলেও এখানে রাজ্যটির ৮০% মানুষ বসবাস করে। তারা প্রধানত ফিনিক্স ও টুসন - এই দুই এলাকাতেই বাস করে। এই মরু এলাকার অন্যান্য শহরের মধ্যে আছে ক্যালিফোর্নিয়ার ইন্ডিও, ব্লাইদ, এবং এল সেন্ত্রো, অ্যারিজোনার ইউমা, এবং মেক্সিকোর হেরমোসিলো, গুয়াইমাস, ও সিউদাদ ওব্রেগন। এই মরুভূমিতে অনেকগুলি আদিবাসী আমেরিকানদের রেজার্ভেশন এবং মার্কিন সেনাবাহিনী ও বিমানবাহিনীর অনেকগুলি সামরিক ঘাঁটি আছে। মরুভূমির বড় অংশ পার্ক এলাকা হিসেবে সংরক্ষিত। জশুয়া ট্রি ন্যাশনাল পার্ক, সাগুয়ারো ন্যাশনাল পার্ক, অর্গান পাইপ ক্যাকটাস ন্যাশনাল মনুমেন্ট, কাবেজা প্রিয়েটা ন্যাশনাল ওয়াইল্ডলাইফ রেফিউজ, ইম্পিরিয়াল ন্যাশনাল ওয়াইল্ডলাইফ রেফিউজ এবং কোফা ন্যাশনাল ওয়াইল্ডলাইফ রেফিউজ সোনোরান মরুভূমিতে অবস্থিত।

সোনোরানের গড় উচ্চতা আশেপাশের অঞ্চলের তুলনায় কম, প্রায় ৩০০ মিটার। মরুভূমিটির অভ্যন্তরে গুরুত্বপূর্ণ পর্বতসারির মধ্যে আছে ক্যালিফোর্নিয়ার চকোলেট ও চাকওয়াল্লা পর্বতমালা, অ্যারিজোনার কোফা ও হারকুয়াহালা পর্বতমালা, এবং মেক্সিকোর কের্‌রো দেল পিনাকাতে পর্বতমালা।

সোনোরান মরুভূমি উত্তর আমেরিকার সবচেয়ে শুষ্ক ও উষ্ণ অঞ্চলগুলির একটি। এখানে গ্রীষ্মকালীন দৈনিক তাপমাত্রা ৩৮° সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যায়। শীতকালও বেশ উষ্ণ; জানুয়ারিতে গড় তাপমাত্রা ১০° থেকে ১৬° সেলসিয়াসের মধ্যে উঠানামা করে। মরুভূমির অধিকাংশ স্থানে বছরে ১০ ইঞ্চির বেশি বৃষ্টিপাত হয় না। এ অঞ্চলের পানির অভাব তাই ভূ-গর্ভস্থ পানি কিংবা অন্যান্য নদীর গতিপথ সরিয়ে নিয়ে আসা হয়। এই নদীগুলির মধ্যে আছে কলোরাডো নদী, গিলা নদী, সল্ট নদী, ইয়াকুই নদী, ফুয়ের্তে নদী, সিনালোয়া নদী, ইত্যাদি। সোনোরান মরুভূমির অর্থনীতিতে সেচভিত্তিক কৃষিকাজ গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৬০-এর দশকের পর থেকে ভূ-গর্ভস্থ পানির পরিমাণ অনেক কমে গেছে। কেন্দ্রীয় অ্যারিজোনা প্রকল্প নামের একটি বিশাল পানি সরবরাহকারী ব্যবস্থা প্রতিদিন কলোরাডো নদী থেকে বহু মিলিয়ন লিটার পানি সনোরান মরুভূমির পূর্ব অংশে টুসন ও ফিনিক্স এলাকায় নয়ে আসে।

এই মরুভূমিতে মূলত অনুর্বর ভূমিতে বেড়ে ওঠা এবং প্রচণ্ড গরম ও ঝড়ো বাতাস সহ্যকারী উদ্ভিদ জন্মে। এদের মধ্যে আছে বিভিন্ন প্রজাতির ক্যাকটাস। অন্যান্য স্থানীয় উদ্ভিদের মধ্যে আছে ক্রেওসোট ঝোপ, বুরো ঝোপ, মেসকিতে, পালো ভের্দে, জশুয়া গাছ এবং আয়রনউড। বাইরে থেকে লাগানো দুটি নতুন প্রজাতি বাফেল ঘাস ও তামারিস্ক ঝোপ এলাকাটির স্থানীয় বাস্তু-ভারসাম্য বিনষ্ট করেছে।

এলাকায় অনেক সরীসৃপের বাস। এদের মধ্যে আছে মরু কচ্ছপ, গিলা মন্সটার, চাকওয়াল্লা, দাগওয়ালা গেকো, কলোরাডো মরুভূমির টিকটিকি, ও বিভিন্ন ধরনের র‌্যাটলস্নেক। স্তন্যপায়ীদের মধ্যে আছে উত্তর আমেরিকীয় ইঁদুর বা গোফার, ছোট ইঁদুর, বড় ইঁদুর বা র‌্যাট, কাঠবেড়ালী, খরগোশ, শেয়াল, কয়োটি, ববক্যাট, হরিণ, পার্বত্য সিংহ, ও বড় শিংওয়ালা ভেড়া। পাখির মধ্যে আছে ক্যাকটাস রেন, এল্‌ফ পেঁচা, অ্যারিজোনা ক্রেস্টেড ফ্লাইক্যাচার, কাঠঠোকরা, সাদা ঘুঘু, ইত্যাদি।

এলাকাটিতে সম্ভবত ১০,০০০ বছর আগে মানুষ বসতি স্থাপন করেছিল। ৮০০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে বর্তমান ফিনিক্স এলাকায় হোহোকাম জাতির লোকেরা বেশ উন্নত একটি সভ্য সংস্কৃতি গড়ে তুলেছিল। তখন এখানে স্থায়ী গ্রাম ও শস্য সেচের জন্য জটিল খাল ব্যবস্থা বিদ্যমান ছিল। এই সভ্যতার পতনের পর অন্যান্য আদিবাসী আমেরিকানেরা এই এলাকায় বাস শুরু করে। ১৫শ শতকের মাঝামাঝি সময়ে এখানে প্রথম স্পেনীয়দের আগমন ঘটে এবং তারা ইয়াকুই, ইয়ুমা, তোহোনো ও ওধাম, এবং অন্যান্য আদিবাসী জাতির মোকাবেলা করে। স্পেনীয়রা মরুভূমিটির নিম্নাংশের প্রায় পুরোটাতেই উপনিবেশ স্থাপন করে।

১৮৪৮ সালের পর সোনার সন্ধানীরা ক্যালিফোর্নিয়ায় যাবার পথে গিলা ট্রেইল নামের একটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা তৈরি করে, যা মরুভূমিটির মধ্য দিয়ে গিলা নদীর পাশ ঘেঁষে টুসন থেকে লস অ্যাঞ্জেলেস পর্যন্ত চলে গেছে। ১৮৮১ সালে ঐ একই পথ ধরে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় রেলপথ নির্মাণ সমাপ্ত হয়। বর্তমানে ইন্টারস্টেট ৮ মহাসড়কটি এই পথ ধরেই মরুভূমির মধ্য দিয়ে চলে গেছে। ইদানীং টুসন ও ফিনিক্স শহর মরুভূমিটির ভেতরে বহুদূর অগ্রসর হয়েছে, এবং এতে মরুভূমিটির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বলে অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।