তাহরুন নেসা আবদুল্লাহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

তাহরুননেসা আহমেদ আবদুল্লাহ বাংলাদেশের একজন লেখক ও সমাজ কর্মী। তিনি বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের নারীদের নিয়ে বিভিন্ন গবেষণা করেছেন এবং তাদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে কাজ করেছেন। তিনি বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর সাথে যুক্ত ছিলেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

তাহরুননেসা আবদুল্লাহর জন্ম ১৯৩৭ সালের ২১ এপ্রিল এ তৎকালীন পূর্ববঙ্গের যশোর জেলার ঘোড়াগাছা গ্রামে। তার পিতা রফিউদ্দিন আহমেদ ছিলেন নামকরা উকিল, যিনি তার মেয়ের পড়াশোনার উপর অনেক গুরুত্ব দিতেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কল্যাণ বিভাগের প্রথম ব্যাচের ছাত্রী ছিলেন। ১৯৬০ সালে সমাজ কল্যাণে এম.এ. ডিগ্রী লাভ করেন। পরবর্তীতে ১৯৬২ সালে লেবাননে আমেরিকান ইউনিভার্সিটি, বৈরুত থেকে গণস্বাস্থ্যে ডিপ্লোমা এবং এম.এস. ইন এগ্রিকালচার এক্সটেনশন এডুকেশন করেন আমেরিকার মিশিগান স্টেটস ইউনিভার্সিটি থেকে ১৯৬৮ সালে। পরে তিনি বর্তমান পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (বার্ড) কুমিল্লায় প্রশিক্ষক হিসেবে যোগ দেন।

তিনি বয়স্ক নারী শিক্ষা, পুষ্টি এবং নারীদের কৃষি সংক্রান্ত কর্মকান্ডের পাশাপাশি সমবায়ের মাধ্যমে আয় বর্ধনের উপর প্রশিক্ষণ দেন। ১৯৭৪ এ পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের যুগম-পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পান। তিনি প্রধানত নারী সমবায় সমিতি গঠন ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ে কাজ করেন । ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশের গ্রামীন নারীদের পর্দা প্রথার থেকে বের করে নারী পুরুষের সমতার পথে যাত্রার নতুন দিগন্তে পথ প্রদর্শনের ভুমিকার জন্য র‌্যামন ম্যাগসেই পদক লাভ করেন।[১] পি কে এস এফ ২৯ মার্চ ২০০৮ তারিখে তাকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করে । বাংলাদেশের বাইরে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা এবং থাইল্যান্ডে কাজ করেন । সরকারী, আন্তর্জাতিক সংঘ, অসংখ্য প্রকল্পে বিভিন্ন পর্যায়ে সম্পৃক্ত ছিলেন। স্থানীয় সরকার কমিশন, নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। বর্তমানে তিনি ডেমোক্রেসিওয়াচ নামক এন.জি.ও.'র স্থানীয় সরকার বিষয়ক প্রকল্পের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়া তিনি ব্রাক, পিকেএসএফ, আশা, আইন সালিশ কেন্দ্র, গণ বিশ্ববিদ্যালয় সহ অনেক শিক্ষা ও সামাজিক উন্নয়ন মূলক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সদস্য।

তিনি "Rural Women in Bangladesh: Prospects for Change" বইয়ের সহলেখক। তার অসংখ্য প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক জার্নালে। তিনি আইসিডিডিআর,বি এবং সিরডাপ জার্নালের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য। প্রচার বিমূখ তাহরুন নেসা আবদুল্লাহ নিরবে নিভৃতেই কাজ করতে পছন্দ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]