গুরু নানক দেব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

গুরু নানক দেব (পাঞ্জাবী: ਗੁਰੂ ਨਾਨਕ ਦੇਵ) (অক্টোবর ২০, ১৪৬৯ - মে ৭, ১৫৩৯) শিখ ধর্মের প্রবক্তা এবং এই ধর্মের ১০ জন প্রধান গুরুর মধ্যে সর্বপ্রথম। তিনি বর্তমান পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের অন্তর্গত নানকানা সাহেব নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। তার মৃত্যু হয় বর্তমান ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের করতারপুর নামক স্থানে। আসলে তার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি। তিনি একসময় সবার অলক্ষ্যে চলে গিয়েছিলেন। শিখ ধর্মের প্রবক্তা ছাড়াও তিনি হিন্দু ধর্মানুসারীদের কাছে বিশেষ মর্যাদা পেয়ে থাকেন। তার মতে সমাজেরে প্রতি মানুষের প্রধান কর্তব্য হচ্ছে কার্যসিদ্ধিতে বিশেষ তৎপরতা এবং চিন্তার একাগ্রতা।

জীবনী[সম্পাদনা]

গুরু নানক ১৪৬৯ সালের ১৩ এপ্রিল বেদী ক্ষত্রী গোত্রের এক হিন্দু পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্মস্থান পাকিস্তানের লাহোরের নিকটে অবস্থিত রায় ভয় দি তালবন্দী গ্রামে। বর্তমানে এই গ্রামের নাম গুরুর নামানুসারে নানকানা সাহেব রাখা হয়েছে। তার জন্মস্থানে বর্তমানে শিখদের একটি বৃহৎ উপাসনালয় রয়েছে যার নাম গুরুদুয়ারা জনম আস্থান। তার বাবা মেহতা কল্যাণ দাস বেদী (মেহতা কালু নামে পরিচিত) একজন পাটোয়ারি ছিলেন। অর্থাৎ সরকারের ভূমি রাজস্ব বিভাগে কাজ করতেন। তিনি গ্রামের মুসলিম জমিদার রায় বুল্লারের অধীনে চাকরি করতেন। নানকের মায়ের নাম তৃপ্তা দেবী এবং তার এক বড় বোন ছিল যার নাম নানাকি

জনমসাক্ষীর মাধ্যমে নানকের জন্মের সময়কার সকল তত্য জানা যায়। এই সূত্রমতে জানা যায়, যে জ্যোতিষী তার জন্মের কোষ্ঠী লিখতে এসেছিলেন তিনি শিশুটিকে দেখার জন্য বিশেষ আগ্রহ প্রদর্শন করেন। শিশুটিকে দেখে তিনি হাত জোড় করে তার নিকট প্রার্থনা করেন। এবং এরপর তিনি এই বলে দুঃখ প্রকাশ করেন যে, এই শিশু যখন হিন্দু এবং মুসলিম সবার কাছে বিশেষ প্রভাবশালী এবং উপাসনার লক্ষ্য হয়ে উঠবে তখন তিনি তা দেখতে পারবেন না।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]