আইরিন জোলিও-কুরি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আইরিন জোলিও-কুরি
Irène Joliot-Curie
জন্ম (১৮৯৭-০৯-১২)১২ সেপ্টেম্বর ১৮৯৭
প্যারিস, ফ্রান্স
মৃত্যু ১৭ মার্চ ১৯৫৬(১৯৫৬-০৩-১৭) (৫৮ বছর)
প্যারিস, ফ্রান্স
বাসস্থান প্যারিস, ফ্রান্স
নাগরিকত্ব ফরাসী
জাতীয়তা ফরাসী, পোলিশ
কর্মক্ষেত্র রসায়ন
প্রাক্তন ছাত্র সরবোন
পিএইচডি উপদেষ্টা পল ল্যাঙ্গেভিন
পিএইচডি ছাত্র সন্তানদ্বয়
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার Nobel prize medal.svg রসায়নে নোবেল পুরস্কার (১৯৩৫)

আইরিন জোলিও-কুরি (ফরাসি: Irène Joliot-Curie; জন্ম: ১২ সেপ্টেম্বর, ১৮৯৭ - মৃত্যু: ১৭ মার্চ, ১৯৫৬) ছিলেন বিখ্যাত ফরাসী বিজ্ঞানী। এছাড়াও, তিনি মারিয়া স্ক্লদভ্‌স্কা কুরি এবং পিয়ের কুরি দম্পতির কন্যা ও ফ্রেদেরিক জোলিও-কুরি'র স্ত্রী ছিলেন। তিনি এবং তাঁর স্বামী ফ্রেদেরিক জোলিও-কুরি'র সাথে যৌথভাবে কৃত্রিম তেজস্ক্রিয় পদার্থ আবিস্কারের ফলে রসায়নশাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। কুরি দম্পতির এ সাফল্যের প্রেক্ষাপটে অদ্যাবধি সফলতম নোবেল বিজয়ী পরিবার হিসেবে আসীন রয়েছে।[১]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ফ্রান্সের প্যারিসে আইরিন কুরি জন্মগ্রহণ করেন। ১০ বছর বয়সে একবছর মেয়াদী সনাতনী শিক্ষাগ্রহণের পর পিতা-মাতা তাঁর মধ্যে অসম্ভব গাণিতিক বুদ্ধিমত্তার ছাঁপ দেখতে পান। কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা আনয়ণে আরো বেশি প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবেলা করতে হয় তাদেরকে। মেরি কুরি বেশ কয়েকজন প্রখ্যাত ফরাসী ব্যক্তিত্বসহ পদার্থবিদ পল ল্যাঙ্গেভিনের সহায়তায় দ্য কোঅপরাটিভ নামে একটি অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা পদ্ধতির সূচনা করেন যা ফ্রান্সের শিক্ষাব্যবস্থার তুলনায় ভিন্নতর ছিল। এ পদ্ধতিতে একজন অভিভাবক অন্যের সন্তানকে পড়াশোনা করানোর জন্যে বাড়িতে গিয়ে পড়াতেন। এর শিক্ষাসূচী মানসম্পন্ন ছিল এবং বিজ্ঞান ও বৈজ্ঞানিক গবেষণার পাশাপাশি বৈচিত্র্যপূর্ণ বিষয় হিসেবে নিজস্ব অভিব্যক্তি প্রকাশ ও খেলার ছলে চীনা ভাষা এবং ভাস্কর্যকলাও শেখানো হতো।[২]

এ শিক্ষাপদ্ধতি দুই বছরের জন্যে স্থায়ী হয়েছিল। এরপর ১৯১২ থেকে ১৯১৪ সাল পর্যন্ত তাঁকে পুণরায় অর্থোডক্সের পরিবেশে শেখার জন্যে প্যারিসের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত কলেজ সেভিনেতে ভর্তি করানো হয়। অতঃপর সরবোনে বিজ্ঞান অনুষদে ভর্তি হয়ে তিনি তাঁর ব্যাকালরেট ডিপ্লোমা অর্জন করেন। কিন্তু প্রথম বিশ্বযুদ্ধজনিত কারণে তাঁর পড়াশোনা ব্যাহত হয়েছিল।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ডি.এসসি ডিগ্রী অর্জনের শেষদিকে ১৯২৪ সালে ব্যবহারিক পরীক্ষাগারের দিক-নির্দেশনায় তেজস্ক্রিয় রাসায়নিক গবেষণায় তরুণ রাসায়নিক প্রকৌশলী ফ্রেদেরিক জোলিও'র কাছ থেকে শিক্ষাগ্রহণ করেন। ঐ সময় ফ্রেদেরিক জোলিও রেডিয়াম ইনস্টিটিউটে বিখ্যাত মহিলা বিজ্ঞানী মেরি কুরি'র সহকারী হিসেবে কাজ করছিলেন। একপর্যায়ে আইরিন কুরি ফ্রেদেরিক জোলিওকে ভালবেসে ফেলেন। ৪ অক্টোবর, ১৯২৬ সালে প্যারিসে তাঁরা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। উভয়েই তাঁদের গোত্র নাম পরিবর্তন করে জোলিও-কুরি রাখেন। এ দম্পতির দুই সন্তান রয়েছে। বিয়ের এগারো মাস পর হেলেন এবং ১৯৩২ সালে পিঁয়েরে জন্মগ্রহণ করেন। তন্মধ্যে - হেলেন খ্যাতনামা পদার্থবিদ এবং পিঁয়েরে জীববিজ্ঞানী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।[৩]

জোলিও তাঁর জীবনের শেষদিকে অরসেতে পরমাণু পদার্থবিদ্যা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠায় মনোনিবেশ করেন। সেখানেই তাঁর সন্তানেরা উচ্চ শিক্ষালাভ করেন।

গবেষণা কর্ম[সম্পাদনা]

১৯২৮ সালে স্বামী-স্ত্রী একসাথে পারমাণবিক পদার্থবিদ্যা সম্পর্কীয় গবেষণায় মনোনিবেশ করেন। তাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা কর্মে পজিট্রন এবং নিউট্রনকে একত্রে দেখতে পান যা ফলাফলে আশানুরূপ হয়নি। এ গুরুত্বপূর্ণ গবেষণার ফলাফলকে কেন্দ্র করে কার্ল ডেভিড এন্ডারসন এবং জেমস চ্যাডউইক কর্তৃক ১৯৩২ সালে নিউট্রন আবিস্কৃত হয়। এ আবিস্কারগুলো ১৮৯৭ সালে জে. জে. থমসনের ইলেকট্রন আবিস্কারের পাশাপাশি আলোচিত হতে থাকে ও জন ডাল্টনের পরমাণু গঠন তত্ত্বের স্থলাভিষিক্ত হয়। ১৯৩৫ সালে জোলিও-কুরি দম্পতি রসায়নশাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। কৃত্রিম তেজস্ক্রিয়তা আবিস্কারের দরুন তাদের এ মূল্যায়ন করা হয়। এরফলে স্বল্পকালীন সময়ের জন্যে বোরন, ম্যাগনেসিয়াম এবং অ্যালুমিনিয়াম সহযোগে আলফা উপাদান থেকে রেডিওআইসোটোপ তৈরী করা সম্ভবপর।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Nobel Laureates Facts: 'Family Nobel Laureates'". Nobel Foundation. 2008. Retrieved 2008-09-04.
  2. http://www.woodrow.org/teachers/ci/1992/IreneJoliot-Curie.html Woodrow Wilson National Fellowship Foundation
  3. Byers, Nina; Williams, Gary A. (2006). "Hélène Langevin-Joliot and Pierre Radvanyi". Out of the Shadows: Contributions of Twentieth-Century Women to Physics. Cambridge, UK: Cambridge University Press. ISBN 0-521-82197-5.