২০১৯-২০ করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারী সংক্রান্ত ভুল তথ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

করোনাভাইরাস রোগ ২০১৯ (কোভিড-১৯)-এর প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই অনলাইনে এই রোগের উৎপত্তি, মাত্রা এবং রোগের অন্যান্য দিক সম্পর্কে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র তত্ত্ব এবং ভুল তথ্য ছড়াতে শুরু করে।[১][২] বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে দেওয়া পোস্টে দাবি করা হয়েছে এই ভাইরাস জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে পেটেন্ট করা টিকাসহ তৈরি একটি জীবাণু অস্ত্র। কিংবা এটি কোনো স্পাই অপারেশন[৩][৪][৫]

ভুল তথ্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধ[সম্পাদনা]

২ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) সঠিক ও ভুল তথ্যের ব্যাপকতা দেখে এই অবস্থাকে "বিশাল তথ্যের মহামারী" হিসেবে ব্যাখ্যা করে। এই তথ্যের মহামারী ভাইরাস সম্পর্কে "মানুষের জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী সঠিক এবং নির্ভরযোগ্য তথ্যসূত্র পাওয়াকে কঠিন করে দিয়েছে"। ডব্লিউএইচও বলে যে সময়মত নির্ভরযোগ্য তথ্যের চাহিদা ডব্লিউএইচকে বাধ্য করেছে ২৪/৭ জনশ্রুতি ধ্বংস করার জন্য হটলাইন চালু করতে এবং এর যোগাযোগ ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম দলকে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম পাতাগুলো দেখে সঠিক তথ্য প্রচার করতে।[৬][৭][৮] ডব্লিউএইচও বিশেষভাবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে যাওয়া ভুল তথ্যের প্রেক্ষিতে নির্দিষ্টভাবে সঠিক তথ্য প্রচার করেছে। যেমন দাবি করা হয়েছিল যে শ্বাস ধরে রেখে কোনো ব্যক্তি শনাক্ত করতে পারেন তিনি কোভিড-১৯ আক্রান্ত কীনা, অপর এক দাবি থেকে জানা যায় প্রচুর পরিমাণ পানিপান এই ভাইরাস থেকে দূরে রাখে, এবং অপর এক দাবি ছিল যে লবণপানি দিয়ে গার্গল করা হলে সংক্রমণ এড়ানো যাবে।[৯]

ফেসবুক, টুইটার এবং গুগল জানায় তারা ডব্লিউএইচও-এর সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে "ভুল তথ্যে"র বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছে।[১০] একটি ব্লগের লেখায় ফেসবুক জানায় যে তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং স্থানীয় প্রশাসনের নীতি ভঙ্গ করে ভুল তথ্য প্রচার যা কীনা "শারীরিক" ক্ষতির কারণ হয়, এমন যেকোনো কিছু অপসারণ করবে।[১১] ফেসবুক বিনামূল্যে ডব্লিউএইচও'র বিজ্ঞাপনও করে।[১২]

ফেব্রুয়ারির শেষদিকে আমাজন করোনাভাইরাসের প্রতিরোধ বা মোকাবেলায় সক্ষম এরকম নামধারী প্রায় দশলক্ষ সামগ্রী তাদের ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে দেয়। একইসাথে অতিরিক্ত মূল্যের ওষুধজাতীয় পণ্যও তারা ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে দেয়।[১৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "China coronavirus: Misinformation spreads online about origin and scale"BBC News। ৩০ জানুয়ারি ২০২০। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  2. Taylor, Josh (৩১ জানুয়ারি ২০২০)। "Bat soup, dodgy cures and 'diseasology': the spread of coronavirus misinformation"The Guardian। ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  3. Jessica McDonald (২৪ জানুয়ারি ২০২০)। "Social Media Posts Spread Bogus Coronavirus Conspiracy Theory"factcheck.org। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  4. "Here's A Running List Of Disinformation Spreading About The Coronavirus"Buzzfeed News। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  5. Ghaffary, Shirin; Heilweil, Rebecca (৩১ জানুয়ারি ২০২০)। "How tech companies are scrambling to deal with coronavirus hoaxes"Vox। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  6. World Health Organization (২০২০)। Novel Coronavirus (‎2019-nCoV)‎: situation report, 13 (প্রতিবেদন)। World Health Organizationhdl:10665/330778অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  7. "Coronavirus: UN health agency moves fast to tackle 'infodemic'; Guterres warns against stigmatization"UN News। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  8. "WHO Says There's No Effective Coronavirus Treatment Yet"। Yahoo! Finance। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  9. Elassar, Alaa (মার্চ ১৭, ২০২০)। "One dangerous coronavirus 'self-check test' is circulating on social media. Here's why you should avoid it."CNN। ১৭ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২০ 
  10. Richtel, Matt (৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০)। "W.H.O. Fights a Pandemic Besides Coronavirus: an 'Infodemic'"The New York Timesআইএসএসএন 0362-4331। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  11. "As coronavirus misinformation spreads on social media, Facebook removes posts"। Reuters। ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  12. "Facebook announces how it plans to help fight the coronavirus"Inverse। ৬ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  13. "Amazon culls one million fake coronavirus products"BBC News। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০২০