১৯৪২ সালে আরাকান গণহত্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানী বাহিনী ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে বার্মা আক্রমণ করে। ব্রিটিশ বাহিনী পশ্চাদপসরণ করে এবং ক্ষমতা শূন্যতা সৃষ্টি হয়, প্রো-অ্যাকসিস বৌদ্ধ রাখাইন ও মুসলিম গ্রামবাসীদের মধ্যে যথেষ্ট আন্ত:সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। উত্তর আরাকানে ব্রিটিশ সশস্ত্র স্থানীয় রোহিঙ্গাদের দ্বারা জাপানি আগ্রাসন থেকে রক্ষা পেতে একটি বাফার জোন তৈরি করে যখন তারা পশ্চাদপসরণ করেছিল।[১]

ব্রিটিশ ও বার্মিজ জাতীয়তাবাদীদের অনুগত গোষ্ঠীর মধ্যে সহিংসতা দেখা দেয়।[১]

আন্তঃসাম্প্রদায়িক সহিংসতা[সম্পাদনা]

কান্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসবিদ আয়ে চ্যান লিখেছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্র বাহিনীর থেকে অস্ত্র সংগ্রহের ফলে রোহিঙ্গারা জাপানিদের প্রতিরোধের পরিবর্তে সহযোগী আরাকানি গ্রাম ধ্বংস করার চেষ্টা করেছিল। [২]

উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যের মুসলিমরা ৫০,০০০ আরাকানে হত্যা করে, যার মধ্যে ডেপুটি কমিশনার ইউ ওও কিউ খাইং ছিলেন।[৩] পরিবর্তে বৌদ্ধরাও সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের হত্যা করেছে। [৪] তবে আরাকানে নিহতদের সংখ্যা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এবং ২০০৮ সালের ২১ শে সেপ্টেম্বরে ৪০ হাজারেরও বেশি মুসলমানকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। [২][৫] এই দ্বন্দ উভয় পক্ষের মোট ক্ষতির নির্দিষ্ট এবং কোন সঠিক সরকারী তথ্য পাওয়া যাবে না।

জাপানি বাহিনী দ্বারা নিপীড়ন[সম্পাদনা]

পরাজিত ৫০,০০০ আরাকানেস শেষ পর্যন্ত রোহিঙ্গা ও জাপানী বাহিনী দ্বারা গণহত্যা শেষে চট্টগ্রাম বিভাগের দিনাসপুরে পালিয়ে যায়।[৬]

জাপানী বাহিনী রোহিঙ্গা মুসলমান ও ভারতীয় মুসলমানদের নির্যাতন, ধর্ষণ ও অত্যাচার করে। তারা ব্রিটিশ ভারতে হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলায় বহিষ্কার করেছেন। হাজার হাজার রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাপানী গণধর্ষণ, ধর্ষণ, নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে।[৭] এই সময়ের মধ্যে, ২২ হাজার রোহিঙ্গা ভারতে ব্রিটিশ শাসনের সীমানা অতিক্রম করে, এই সহিংসতা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য।[৮][৯] বর্ধিত, ৪০,০০০ রোহিঙ্গা অবশেষে বার্মা ও জাপানী বাহিনী দ্বারা গণহত্যার পরে চট্টগ্রামে পালিয়ে যান।[১০]

ব্রিটিশ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গণহত্যার পর "আমরা যে এলাকাটি দখল করেছিলাম তা প্রায় সম্পূর্ণ মুসুলমান দেশ"।[২]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Field-Marshal Viscount William Slim (২০০৯)। Defeat Into Victory: Battling Japan in Burma and India, 1942–1945। London: Pan। আইএসবিএন 0330509977 
  2. Chan (Kanda University of International Studies), Aye (Autumn ২০০৫)। "The Development of a Muslim Enclave in Arakan (Rakhine) State of Burma (Myanmar)" (PDF)SOAS Bulletin of Burma Research3 (2): 396–420। আইএসএসএন 1479-8484। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৩ 
  3. Kyaw Zan Tha, MA (জুলাই ২০০৮)। "Background of Rohingya Problem": 1। 
  4. <http://www.rohingya.org/portal/index.php/rohingya-library/26-rohingya-history/55-the-muslim-massacre-of-1942.html ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে
  5. http://www.burmalibrary.org/docs14/ARAKAN-Racism_to_Rohingya-red.pdf
  6. Asian profile, Volume 21। Asian Research Service। ১৯৯৩। পৃষ্ঠা 312। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১১ 
  7. Kurt Jonassohn (১৯৯৯)। Genocide and gross human rights violations: in comparative perspective। Transaction Publishers। পৃষ্ঠা 263। আইএসবিএন 0765804174। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১১ 
  8. Howard Adelman (২০০৮)। Protracted displacement in Asia: no place to call home। Ashgate Publishing, Ltd.। পৃষ্ঠা 86। আইএসবিএন 0754672387। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১১ 
  9. Human Rights Watch (Organization) (২০০০)। Burma/Bangladesh: Burmese refugees in Bangladesh: still no durable solution। Human Rights Watch। পৃষ্ঠা 6। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১১ 
  10. Asian profile, Volume 21। Asian Research Service। ১৯৯৩। পৃষ্ঠা 312। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]