স্টকহোম সিনড্রোম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্টকহোম সিনড্রোম হল জিম্মিদের মধ্যে দেখা যায় এমন একটি মানসিক অবস্থা, যার দরুন জিম্মিরা তাদের অপহরণকারীদের প্রতি আনুগত্য ও আবেগপ্রবণ টান অনুভব করে। ১৯৭৩ সালে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে সংঘটিত এক ব্যাংক ডাকাতির ঘটনার সময় ৬ দিন ধরে জিম্মি হয়ে থাকা ব্যক্তিরা তাদের আটককারী ডাকাতদের প্রতি দূর্বলতা প্রকাশ করেছিল - এই ঘটনার পর থেকেই এধরনের আচরণকে স্টকহোম সিনড্রোম বলা হয়ে থাকে। একই অবস্থা ঘটতে পারে স্ত্রী নির্যাতন, শিশু নির্যাতন, এমনকি ধর্ষণের ক্ষেত্রেও।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

স্টকহোম ব্যাংক ডাকাতি[সম্পাদনা]

১৯৭৩ সালে যখন চারজনকে অপহরণ করা হয় সুইডেনের স্টকহোমে অবস্থিত একটি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায়, তখন পর্যন্ত এর সাধারণ নাম ছিল “Capture bonding syndrome”। দিনটি ছিল ১৯৭৩ সালের ২৩শে অগাস্টের সকাল, স্টকহোমের ব্যাংকটিতে এমন নাটকীয়তার সূত্রপাত হলো যা সারা বিশ্বের খবরের কাগজের প্রথম পাতায় জায়গা করে নিলো এবং মনোবিজ্ঞানের জগতে স্টকহোম সিনড্রোম নামের এক নতুন বিষ্ময়ের জন্ম দিলো। ব্যাংকে ঢুকে অপরাধীরা তাদের বন্দুক চালিয়ে ঘোষণা করলো যে “The party has just begun”। দুজন ডাকাত তখন পরবর্তী প্রায় ১৩১ ঘন্টার জন্যে চারজনকে জিম্মি করলো, যার মধ্যে তিনজন ছিলো মহিলা এবং একজন পুরুষ। স্টকহোম সিনড্রোম নামটা তখন থেকেই চালু হয় যখন এই চারজন অপহৃত ব্যক্তি মুক্তি পাবার পর অদ্ভুত ব্যবহার করা শুরু করে। মুক্তি পাবার পর গণমাধ্যমে দেওয়া তাদের সাক্ষাৎকারে বিষয়টি আস্তে আস্তে পরিষ্কার হয়ে ওঠে যে, তারা মানসিকভাবে তাদের অপহরণকারীদের সমর্থন করা শুরু করেছে এবং মনে করছে আইনরক্ষাকারী বাহিনী তাদের আঘাত দেওয়ার চেষ্টা করছে। তারা মনে করতে থাকলো যে, অপরাধীরাই তাদের বাঁচানোর চেষ্টা করছে। তারা শুধু অপরাধীদের কোর্টে দোষী হিসেবে চিহ্নিত করতে অস্বীকারই করেনি, বরং তাদের মুক্তির জন্য অর্থ সংগ্রহ করা শুরু করে। এমনকি তাদের মধ্যে একজন মহিলা অপহরণকারীদের একজনের সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে যান। স্পষ্টভাবে এই ঘটনাটিতে অপরাধীদের সাথে অপরাধের শিকার ব্যক্তিরা মানসিকভাবে আবদ্ধ হয়ে যায়।

অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার পর থেকেই আক্রান্ত ব্যক্তির মনের এই অবস্থাকে স্টকহোম সিনড্রোম বলে ডাকা শুরু হয়।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘটনা[সম্পাদনা]

প্যাটি হার্স্ট[সম্পাদনা]

প্যাটি হার্স্ট ছিলো একজন কোটিপতি প্রকাশকের উত্তরাধিকারী। সে অপহৃত হয়েছিলো সিমবায়োনিজ লিবারেশন আর্মি (SLA) নামের একটা গ্রামীণ গেরিলা দল দ্বারা। কিন্তু ঘটনার দু’মাস পরেই তাকে দেখা যায় অপহরণকারীদের সাথেই স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করতে একটা ডাকাতিতে। এমনকি পুলিশের কাছে ধরা পড়ার পরও সে পারিবারিক পরিচয় গোপন করে এবং নিজেকে একটি মিথ্যা নামে (তানিয়া) পরিচয় দেয়। আদালতে এক পর্যায়ে যখন SLA এর প্রতি তার সহানুভূতির কথা সে প্রকাশ্যে জানায় তখন ৭ বছরের কারাদন্ডের আদেশও তাকে তার অবস্থান থেকে সরাতে পারেনি। পরবর্তীতে মানসিক অসুস্থতার কথা বলে এফ. লি বেইলি নামের একজন উকিল তার মুক্তির ব্যবস্থা করেন।

স্টন হর্ণব্যাক[সম্পাদনা]

২০০২ সালে মাত্র ১১ বছর বয়সে স্টন হর্ণব্যাক নামের এক ব্যক্তিকে অপহরণ করা হয়েছিল। দুই বছর পর অপহরণকারীর বাসা থেকে যখন তাকে উদ্ধার করা হয়, তখন দেখা যায় অনেক সুযোগ থাকা সত্ত্বেও সে পালানোর কোনো চেষ্টা করেনি। এমনকি তার কাছে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ পর্যন্ত ছিলো।

নাতাশা ক্যাম্পুশ[সম্পাদনা]

অস্ট্রিয়ান মেয়ে নাতাশা ক্যাম্পুশ মাত্র দশ বছর বয়সে উলফগ্যাং প্রিকলোপিল এর দ্বারা অপহৃত হয়। প্রায় আট বছর পর সে যখন পালায়, তার অপহরণকারী মাত্র কয়েক ঘন্টার মধ্যে রেলের সামনে ঝাঁপিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করে। অন্যদিকে নাতাশা সে মৃত্যুতে শোকার্ত হয়ে ওঠে। পরবর্তীতে সে তার অপহরণকারী সম্পর্কে লিখেছেন-“আমি তার জন্য অনেক অনেক দুঃখ পাচ্ছি, সে খুব দুখী একটা মানুষ ছিলো।”

মেরী ম্যাকইলোরী[সম্পাদনা]

১৯৩৩ সালে মে মাসের ২৭ তারিখ সন্ধ্যায় যখন ২৫ বছর বয়সী মেরী ম্যাকইলোরী তার বাবার বাসায় গোসল করছিলেন তখন হঠাৎ চারজন লোক দ্বারা অপহৃত হন। ওই চারজন লোকের মধ্যে ছিলেন দুই ভাই জর্জ এবং ওয়াল্টার ম্যাকজি। লোকগুলো তালা ভেঙে ঘরে ঢোকে এবং মেরীর জামা কাপড় পরা পর্যন্ত অপেক্ষা করে। এরপর তাকে নিয়ে যাওয়া হয় শহর থেকে দূরের এক বাড়িতে এবং তাকে শিকল দিয়ে বন্দি করে রাখা হয়।

মেরীর বাবা ধনী রাজনীতিবিদ হওয়ায় অপহরণকারীরা ৬০,০০০ হাজার ডলার মুক্তিপণ চায় এবং পরে ৩০,০০০ হাজার ডলারেই মেরীকে মুক্তি দেয়। পরবর্তীতে অপহরণকারীদের তিনজন ধরা পড়ে এবং আশ্চর্যের বিষয় এই যে, মেরী তখন অপহরণকারীদের পক্ষ নিয়ে বলে যে তারা বন্দিদশায় তার খুবই খেয়াল রাখতো। এমনকি তাদের মধ্যে একজন তাকে ফুলও দেয়। যখন বিচার শেষে তিনজনকে কঠোর শাস্তি দেয়া হয়, মেরী তখন অপরাধবোধে কুঁকড়িয়ে ওঠে। মেরী প্রকাশ্যে তাদের প্রতি সহানুভূতি জানাতে থাকে এবং আদালতকে অনুরোধ করে তাদের শাস্তি কমিয়ে দিতে। পুরো বিচার এবং কারাবাসের সময়টা মেরী ম্যাকজি ভাইদের পাশে থাকে, তাদের সাথে নিয়মিত দেখা করে, এমনকি তাদের জন্যে উপহার পর্যন্ত নিয়ে যেতো। বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে তার জীবনের বাকি ঘটনাগুলো ঘটতে থাকে। জীবনের এই কঠিন অগ্নিপরীক্ষা মেরীকে মাল্টিপল নার্ভাস ব্রেকডাউনের দিকে নিয়ে যায়। ১৯৩৯ সালে বাবার মৃত্যুর পর তার মানসিক অবস্থা আরো ভঙ্গুর হয়ে ওঠে। ১৯৪০ সালের ২১শে জানুয়ারি মেরী আত্মহত্যার মাধ্যমে পৃথিবীকে বিদায় জানায়। আর যাবার আগে তার সুইসাইড নোটে লিখে যায়- “আমার চারজন অপহরণকারীই সম্ভবত পৃথিবীতে একমাত্র মানুষ যারা আমায় পুরোদস্তুর বোকা ভাবেনি।”

এলিজাবেথ স্মার্ট[সম্পাদনা]

স্টকহোম সিনড্রোম নিয়ে সবচেয়ে বিখ্যাত, সাম্প্রতিক এবং আলোড়ন সৃষ্টিকারী ঘটনা হলো এটি। ২০০২ সালের ৫ জুন নিজের বাসার শোবার ঘর থেকে অপহৃত হয় মাত্র ১৪ বছর বয়সী এলিজাবেথ স্মার্ট। অপহরণকারী ব্রায়ান ডেভিড মিশেল এবং তার স্ত্রী এলিজাবেথকে বন্দী করে রাখে এবং মিশেল এলিজাবেথকে জোর করে বিয়ে করে ও ধর্ষণ করে। এরপর থেকে প্রায় নয় মাস পর্যন্ত তাকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করা হতো। কোনো রকম অবাধ্যতা তার জন্যে ভয়ঙ্কর শাস্তি নিয়ে আসতো। ধীরে ধীরে এলিজাবেথ একজন আদর্শ বন্দীতে পরিণত হয়। অনেক সুযোগ থাকা সত্ত্বেও এলিজাবেথ পরবর্তী নয় বছরে পালানোর কোনো চেষ্টা করেনি। এমনকি একবার রাস্তায় এক পুলিশ অফিসারের সাথে কথা হলেও সে তার আসল পরিচয় দেয়নি। পরবর্তীতে তাকে অপহরণকারীদের থেকে সরিয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হয় এবং ঘটনার সাত বছর পরে সে অপরাধীদের চিহ্নিত করতে রাজি হলে তাদের শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়।

ভুক্তি[সম্পাদনা]

বিশেষত নারী নির্যাতন, দীর্ঘ দিন থেকে চলে আসা শিশু নির্যাতন, যুদ্ধবন্দি, ধর্মীয় কারণে আটক রাখা ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে, নিকটাত্মীয় দ্বারা ধর্ষণের স্বীকার এমন কেউ বা ব্যক্তিসত্ত্বা ধ্বংসকারী সম্পর্কে জড়িত থাকা ব্যক্তির ক্ষেত্রেও প্রায়ই স্টকহোম সিনড্রোমের লক্ষণগুলো দেখা যায়। অবাক হচ্ছেন তো? আগেই বলেছিলাম- মানুষের মনের চেয়ে বিচিত্র কিছু নেই।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]