সুই সম্রাট ইয়াং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইয়াং গুয়াং
চীনের সম্রাট
Sui Yangdi Tang.jpg
রাজত্বআগস্ট ২১, ৬০৪ – এপ্রিল ১১, ৬১৮
জন্ম৫৬৯
মৃত্যু১১ এপ্রিল ৬১৮ (বয়স ৪৯)
ডানইয়াং, সুই, চীন
সমাধিজিয়াংডু
দাম্পত্য সঙ্গীসুই সম্রাজ্ঞী সিয়াও
উপপত্নী সিয়াও
উপপত্নী চেন
উপপত্নী চাই
উপপত্নী চেন চও
উপপত্নী ওয়াং
বংশধরইয়াং ঝাও
সুই যুবরাজ ইয়াং জিয়ান
ইয়াং গাও
যুবরাজ্ঞী নানইয়াং
উপপত্নী ইয়াং
মরণোত্তর নাম
তাং রাজবংশ সময়: ইয়াং 煬 "অলস"
ইয়াং তং সময়: মিং 明 "বুঝতে সক্ষম"
ডউ জিয়ানডে সময়: মিন 閔 "সতর্ক"
উপাসনালয়ের নাম
শিজু 世祖
রাজবংশসুই সাম্রাজ্য
পিতাসুই সম্রাট ওয়েন
মাতাডুগু কিয়েলুও

সুই সম্রাট ইয়াং (隋煬帝, ৫৬৯ – এপ্রিল ১১, ৬১৮) ছিলেন সুই সম্রাট ওয়েনের দ্বিতীয় পুত্র এবং সুই সাম্রাজ্যের দ্বিতীয় সম্রাট। তার পারিবারিক নাম ছিল ইয়াং গুয়াং, অন্য নাম ইয়াং, ডাকনাম আমো, এবং তার নাতী ইয়াং তংয়ের সংক্ষিপ্ত রাজত্বকালে সম্রাট মিং নামে পরিচিত ছিলেন। সম্রাট ওয়েন ৫৮১ সালে সুই সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করলে ইয়াং গুয়াংকে জিনের যুবরাজ করেন। ৫৮৮ সালে তাকে পাঁচ সৈন্যদলের প্রধান করে দক্ষিণে চেন সাম্রাজ্য আক্রমণে জন্য পাঠানো হয় এবং তিনি তার সফলতার জন্য প্রশংসিত হন। তার এই সফলতা এবং তার বড় ভাই সুই যুবরাজ ইয়াং ইয়ংয়ের বিরুদ্ধে তার মিথ্যা প্রমাণাদি তাকে ৬০০ সালে রাজদরবারের যুবরাজ হতে সাহায্য করে। ৬০৪ সালে তার পিতা সম্রাট ওয়েনের মৃত্যুর পর, যদিও অনেক ইতিহাসবেত্তা ধারণা করেন তাকে ইয়াং গুয়াংয়ের নির্দেশে হত্যা করা হয়, তিনি সম্রাট ইয়াং উপাধি নিয়ে সিংহাসনে আরোহণ করেন।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

ইয়াং গুয়াং ৫৬৯ সালে উত্তর ঝও সম্রাট য়ুর রাজত্বকালে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা ইয়াং জিয়ান ছিলেন সুই ডিউক এবং তার মাতা ডুগু কিয়েলুও ছিলেন ডিউকপত্নী। তিনি ছিলেন তার পিতামাতার দ্বিতীয় সন্তান। তার বড় ভাই সুই যুবরাজ ইয়াং ইয়ং এবং বড় বোন ইয়াং লিহুয়া, যিনি পরে ৫৭৩ সালে সম্রাট য়ুর পুত্র রাজদরবার যুবরাজ ইয়ুওয়েন ইয়ুনের স্ত্রী হন। তিনি ছেলেবেলা থেকেই দেখতে সুন্দর ও বুদ্ধিমান ছিলেন এবং ডিউক দম্পতির সন্তান হওয়ায় বিশেষ সুযোগ-সুবিধা পেতেন। কয়েক বছর পরে ইয়াং জিয়ানের সফলতার স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে ইয়ানমেনের ডিউক করা হয়।

৫৮০ সালে ইয়াং জিয়ান সম্রাট সুয়ানের মৃত্যুর পর রাজপ্রতিনিধির দায়িত্ব দখল করেন। ৫৮১ সালে তিনি সম্রাট সুয়ানের পুত্র উত্তর ঝও সম্রাট জিংকে তার কাছে সিংহাসন ছেড়ে দিতে বাধ্য করেন এবং উত্তর ঝও সাম্রাজ্য শেষ হয় ও ইয়াং জিয়ান সম্রাট ওয়েন উপাধি নিয়ে সুই সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হয়। সম্রাট ওয়েন তার বড় পুত্র ইয়াং ইয়ংকে রাজদরবার যুবরাজ করেন এবং ইয়াং গুয়াংকে জিন যুবরাজ উপাধি প্রদান করেন।

জিন যুবরাজ[সম্পাদনা]

৫৮১ সালে সম্রাট ওয়েন ইয়াং গুয়াংকে বিং প্রদেশে (বর্তমান তাইয়ুয়ান, শানসি) হুয়াংহো নদীর উত্তরের প্রদেশসমূহের দায়িত্ব প্রদান করেন। ৫৮২ সালে সম্রাট ওয়েন বিং প্রদেশে তার সরকারের নির্বাহী শাখা চালু করেন এবং ইয়াং গুয়াংকে তার প্রধান করেন। সম্রাট ওয়েন রাজকর্মকর্তা ওয়াং শাওকে ডেপুটি করেন ইয়াং গুয়াংকে সহায়তার জন্য। ৫৮২ সালের শেষের দিকে সম্রাট ওয়েন তার মিত্র সম্রাট মিংয়ের কন্যা সিয়াওকে ইয়াং গুয়াংয়ের স্ত্রী ও যুবরাজ্ঞী হিসেবে গ্রহণ করেন।

৫৮৪ সালে সুইদের কয়েকটি সামরিক ও কূটনৈতিক জয়ের পর তুজুয়ের শাবোলুয়ে খান আশিনা শেতু সুইদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। ইয়াং গুয়াং সম্রাট ওয়েনকে আশিনা শেতুর প্রস্তাব প্রত্যাখান করে তুজুয়েতে আক্রমণের পরামর্শ দেন, কিন্তু সম্রাট তার প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন। ৫৮৫ সালে আশিনা শেতুকে তার এক অধস্তন খান, বুজিয়া খান আশিনা ডিয়ানজুয়ে আক্রমণ করলে সম্রাট ওয়েন ইয়াং গুয়াংকে আশিনা শেতুকে সাহায্য করার জন্য পাঠান।

৫৮৮ সালে সম্রাট ওয়েন ইয়াং গুয়াংয়ের দপ্তর স্থানান্তর করে শুউচুনে (বর্তমান লু'আন, আনহুই) নিয়ে যান এবং সেখানেও তাকে নির্বাহী বোর্ডের প্রধান করেন। ৫৮৮ সালের শীতে সম্রাট ওয়েন চেন সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে আক্রমণ চালান এবং ইয়াং গুয়াং, তার ভাই সুই যুবরাজ ইয়াং জুন ও সেনাপ্রধান ইয়াং সুকে তিনটি প্রধান সৈন্যদলের দায়িত্ব প্রদান করেন। ইয়াং গুয়াং পূর্বদিকে আক্রমণের দায়িত্বসহ পুরো আক্রমণের দায়িত্ব পান। আরেক প্রধান কর্মকর্তা গাও জিয়ং ইয়াং গুয়াংয়ের সহকারী হিসেবে ছিলেন। ৫৮৯ সালের বসন্তে সেনাপ্রধান হান কিনহু ও হেরুও বি দুজনেই ইয়াং গুয়াংয়ের নির্দেশে ইয়াংজি নদী]] পার হয়ে চেন রাজধানী জিয়ানকাংয়ের দিকে অগ্রসর হন। কয়েকদিনের মধ্যেই হেরুও চেন সেনাপ্রধান সিয়াও মোহেকে পরাজিত করলে জিয়ানকাং পতন হয় এবং চেন সম্রাট চেন শুবাও বন্দী হন। ইয়াং গুয়াং চেন শুবাওয়ের উপপত্নী ঝাং লিহুয়ার প্রতি অনুরক্ত হন এবং গাও জিয়ংয়ের পুত্র গাও ডেহংকে তার পিতাকে লিহুয়াকে নিয়ে আসার নির্দেশ দেন। গাও জিয়ং তাকে শাং সম্রাট ঝওয়ের স্ত্রী ডাইজির মত ভেবে তার শিরশ্ছেদ করেন। ইয়াং গুয়াং গাওয়ের প্রতি রুষ্ট হন। ইয়াং গুয়াংয়ের নির্দেশে যেসব কর্মকর্তা চেন সাম্রাজ্যের পতনের জন্য দায়ী, যেমন শি ওয়েনকিং, শেন কেকিং, ইয়াং হুইলাং, সু সি, ও জি হুইজিংকে হত্যা করা হয়। চেন শুবাও ও তার পরিবারের সদস্যদের কোনো ক্ষতি করা হয় না এবং ইয়াং গুয়াং চেন শুবাওকে তার সেনাপ্রধানদের কাছে আত্মসমর্পণ করার জন্য পত্র লিখতে অনুরোধ করেন। ঐ বছরের শেষের দিকে ইয়াং গুয়াংয়ের সৈন্যরা তাদের রাজধানী চাংআনে নিয়ে আসে।

৫৯৪ সালে ইয়াং গুয়াং খরার সময়ে সম্রাট ওয়েনকে তাই পর্বতে উপাসনা অনুষ্ঠান পালনের পরামর্শ দেন। সম্রাট ওয়েন অর্থ সঙ্কটের জন্য বড় পরিসরে অনুষ্ঠান পালনের প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন, কিন্তু ছোট পরিসরে একটি অনুষ্ঠান পালন করেন।

৬০০ সালের বসন্তে তুজুয়ের নতুন খান আশিনা ডিয়ানজুয়ে সীমান্তে আক্রমণ চালালে সম্রাট ওয়েন ইয়াং গুয়াং, ইয়ুয়ের ডিউক ইয়াং সু, ইয়াং গুয়াংয়ের ভাই হান যুবরাজ ইয়াং লিয়াং ও তাইপিংয়ের ডিউক শি ওয়ানসুইকে পাঠান। তারা আশিনা ডিয়ানজুয়ের বিরুদ্ধে সফলতা লাভ করেন এবং কিমিন খান আশিনা রাংআনকে ডিয়ানজুয়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। সে বছর ইয়াং গুয়াংয়ের বড় ভাই রাজদরবারের যুবরাজ ইয়াং ইয়ং তার অপব্যয় ও অধিক উপপত্নী রাখার জন্য সম্রাট ওয়েন ও সম্রাজ্ঞী ডুগুর অনুগ্রহ হারায়। অন্যদিকে ইয়াং গুয়াং মিতব্যয়ী ও তার যুবরাজ্ঞীর প্রতি অনুরক্ত এমন ভাব প্রদর্শন করেন।[১]

ইয়াং গুয়াং সম্রাজ্ঞী ডুগুকে জানান যে ইয়াং ইয়ং সম্রাট ওয়েনকে মারার পরিকল্পনা করছে। সম্রাজ্ঞী তাকে রাজদরবার থেকে বের করে দেওয়ার জন্য সমাধান দেন। ইয়াং গুয়াং তার সহযোগী ইয়ুওয়েন শুকে ইয়াং সুর ভিয়া ইয়াং ইয়ুয়েকে বুঝাতে বলে যে ইয়াং সুর সাথে ইয়াং ইয়ংয়ের সম্পর্ক খারাপ এবং সে ক্ষমতায় এলে তাদের পরিবারকে ধ্বংস করে দিবে। অবশেষে ইয়াং গুয়াং ইয়াং ইয়ংয়ের সহযোগী জি ওয়েইকে দিয়ে ইয়াং ইয়ংয়ের বিরুদ্ধে রাজদ্রোহিতার অভিযোগ আনেন। সম্রাট ওয়েন ইয়াং সুকে তদন্ত করার দায়িত্ব দেন এবং ইয়াং গুয়াং ও ইয়াং সু তার বিরুদ্ধে আরও প্রমাণ পেশ করলে সম্রাট ওয়েন তাকে পদোবনতি দিয়ে তার স্থলে ইয়াং গুয়াংকে রাজদরবারের যুবরাজ করেন এবং ইয়াং ইয়ংকে গৃহবন্দী করেন।

রাজদরবার যুবরাজ[সম্পাদনা]

ইয়াং গুয়াং তার রাজদরবার যুবরাজ উপাধি ধরে রাখার জন্য অন্য যুবরাজদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগের প্রমাণাদি সংগ্রহ করেন। ৬০২ সালে তার ভাই শু যুবরাজ ইয়াং সিউ য়ি প্রদেশের (বর্তমান চেংডু, সিচুয়ান) সেনাপ্রধানের দায়িত্বে ছিলেন এবং তার আয়ত্ত্বে বিশাল সম্পত্তি ছিল। ইয়াং গুয়াং তার বিরুদ্ধে অমিতব্যয়িতার প্রমাণাদি সংগ্রহ করেন এবং সম্রাট ওয়েনের কাছে পেশ করেন। সম্রাট ওয়েন তাকে রাজদরবারে ডেকে পাঠান এবং ইয়াং সুকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। ইয়াং গুয়াং ও ইয়াং সু আরও প্রমাণাদি পেশ করলে সম্রাট ওয়েন তার যুবরাজ উপাধি থেকে পদবনতি দিয়ে তাকে সাধারণ জনগণের পর্যায়ে নিয়ে আসেন এবং তাকে গৃহবন্দী করার নির্দেশ দেন।

কথিত আছে, ৬০২ সালে সম্রাজ্ঞী ডুগু মারা গেলে তিনি শোকাতুর হয়ে খাবার ত্যাগের ভান করেন কিন্তু গোপনে সব ধরনের খাবার খেতেন।

৬০৪ সালে সম্রাট ওয়েন তার গ্রীষ্মকালীন অবকাশ কেন্দ্র রেনশুউ প্রাসাদে (বর্তমান বাওজি, শানসি) অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং মারা যান। অনেক ইতিহাসবেত্তারা মনে করেন তার মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না, তাকে ইয়াং গুয়াংয়ের নির্দেশে হত্যা করা হয়। সম্রাট ওয়েনের মৃত্যুর পর ইয়াং গুয়াং সম্রাট ইয়াং উপাধি নিয়ে সিংহাসনে আরোহণ করেন।

প্রাথমিক রাজত্বকাল[সম্পাদনা]

সিংহাসনে আরোহণ করার পর সম্রাট ইয়াং তার ভাই বিং প্রদেশের সেনাপতি ইয়াং লিয়াংয়ের বিদ্রোহের সম্মুখীন হয়। ইয়াং লিয়াংকে সেনাপ্রধান ওয়াং কুই এবং সিয়াও মোহেসহ ১৯টি প্রদেশ সমর্থন প্রদান করেন কিন্তু কোন সম্মিলিত পরিকল্পনা না থাকার কারণে তারা ইয়াং গুয়াংয়ের সমগ্র সামাজ্যে বিদ্রোহ না করে শুধু হুয়াংহো নদীর উত্তরাঞ্চলে বিদ্রোহ করে। প্রাথমিক কিছু সাফল্যের পর ইয়াং লিয়াং ক্ষান্ত হলে সম্রাট ইয়াং ইয়াং সুকে তার বিরুদ্ধে আক্রমণের জন্য পাঠান। ইয়াং সু দ্রুত ইয়াং লিয়াংয়ের দপ্তরের দিকে অগ্রসর হন এবং সিয়াওকে বন্দী করে ইয়াং লিয়াংকে আত্মসমর্পণ করার জন্য বাধ্য করেন। সম্রাট ইয়াং ইয়াং লিয়াংকে হত্যা না করে তাকে সাধারণ জনগণ হিসেবে পদোবনতি দেন এবং তাকে আজীবন কারাদন্ড প্রদান করেন।

৬০৪ সালে শীতে জাদুকর ঝাংচউ তাইয়ির কথা অনুসারে চাংআনের ভুপ্রকৃতি তার স্বাস্থ্যের জন্য অনুপযুক্ত হওয়ায় সম্রাট ইয়াং লুওইয়াংয়ে চলে যান এবং চাংআনে ফিরে না আসলেও চাংআনই প্রধান রাজধানী রয়ে যায়। তিনি লুওইয়াংয়ে বড় বড় স্থাপনা নির্মাণের নির্দেশ দেন এবং তার বড় পুত্র জিন যুবরাজ ইয়াং ঝাওকে চাংআনের শাসনভার দিয়ে যান।

৬০৫ সালের শুরু থেকে সম্রাট ইয়াং বড় বড় স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেন, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল লুওইয়াংয়ের রাজপ্রাসাদ। তিনি অসংখ্য মানুষকে তংজি খাল নির্মাণে বাধ্য করেন, যা লুওইয়াংকে হুয়াংহো নদীর সাথে এবং হুয়াংহো নদীকে হুয়াই নদীর সাথে যোগ করে। এছাড়া তিনি হুয়াই নদীর সাথে ইয়াংজি নদীকে যোগ করতে হান খাল পুনঃখনন করান। এই খাল দুটি পরবর্তীতে গ্র্যান্ড খালের সাথে সম্পৃক্ত হয়। এই বছর শরতে তংজি ও হান খাল খনন সম্পন্ন হলে সম্রাট ইয়াং রাজকীয় সাম্পানে করে ইয়াংঝও প্রদেশের রাজধানী জিয়াংডু ভ্রমণ করেন।

একই বছরের বসন্তে সম্রাট ইয়াং তার পত্নী সিয়াওকে সম্রাজ্ঞী করেন এবং ইয়াং ঝাওকে রাজদরবারের যুবরাজ করেন। তিনি সামরিক বাহিনীর সকল সেনাপতির দপ্তর তুলে দেন। তিনি সেসময় সম্রাজ্ঞী সিয়াওয়ের ভাই জুয়ের ডিউক পশ্চিম লিয়াং সম্রাট জিংকে বিশ্বাস করতেন এবং তাকে লিয়াংয়ের ডিউক ও তার আত্মীয়স্বজনদের রাজদরবারের গুরুত্বপূর্ণ পদ প্রদান করেন।

৬০৫ সালে খাইতান সম্প্রদায় য়িং প্রদেশ (বর্তমান ঝাওইয়াং, লিয়াওনিং) আক্রমণ করলে সম্রাট ইয়াং ওয়েই ইয়ুনকির তুজুয়ে সৈন্যদলকে আশিনা রাংআনের অধীনে খাইতানদের আক্রমণের নির্দেশ দেন। খাইতান সম্প্রদায় বন্দী হয় এবং পরাজিত হয়।

৬০৬ সালে যুবরাজ ইয়াং ঝাও লুওইয়াংয়ে ভ্রমণকালে অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং মারা যান। সম্রাট ইয়াং অন্য কাউকে রাজদরবার যুবরাজ না করে ইয়াং ঝাওয়ের পুত্র ইয়াং তান, ইয়াং তংসুই সম্রাট গংইয়াং ইউকে যুবরাজ করেন। একই বছর সম্রাট ইয়াং লুওইয়াংয়ের কাছে দুইটি বড় শস্যাগার নির্মাণের নির্দেশ দেন। শস্যাগার দুইটি হল লুওকউ শস্যাগার ও হুইলুও শস্যাগার।

৬০৭ সালের বসন্তে আশিনা রাংআন লুওইয়াংয়ে সম্রাট ইয়াংয়ের সাথে দেখা করতে যান। এ সময়ে ইয়ুওয়েন শুর প্ররোচনায় সম্রাট ইয়াং ইয়াং ইয়ংয়ের আট পুত্রকে হত্যা করেন। এই বছরের গ্রীষ্মে সম্রাট ইয়াং সকল প্রাদেশিক ব্যবস্থা তুলে দেন। তিনি তার পিতার পাঁচ প্রধান আমলাতান্ত্রিক ব্যবস্থার চারটি ব্যবস্থা – শাংশু শেং (নির্বাহী দপ্তর), মেনসিয়া শেং (পরীক্ষণ দপ্তর), নেইশি শেং (আইন প্রনয়ণ দপ্তর) ও খোজাদের কর্ম দপ্তর বাদ দিয়ে ডিয়ানেই শেং (রাজ গ্রন্থাগার) চালু করেন।

এবছর কিমিন সম্রাট ইয়াংয়ের সাথে ইয়ুলিনে সাক্ষাৎ করেন।[২] এছাড়া পেই জুর প্ররোচনায় সম্রাট ইয়াং সিয়ু রাজ্যসমূহের সাথে পুনরায় সম্পর্ক স্থাপন করেন।

৬০৮ সালে সম্রাট ইয়াং ১০ লাখের বেশি মানুষকে ইয়ংজি খাল খননের জন্য বাধ্য করেন, যা হুয়াংহো নদীর সাথে ঝওয়ের (বর্তমান বেইজিং) যোগসূত্র স্থাপন করেন। কথিত আছে, যথেষ্ট পরিমাণ পুরুষ না থাকায় নারীদেরও এ কাজ সম্পন্ন করার জন্য বাধ্য করা হয়।

মধ্য যুগ[সম্পাদনা]

৬০৯ সালে আশিনা রাংআন আবার সম্রাট ইয়াংয়ের সাথে দেখা করেন এবং সম্রাট ইয়াং তাকে অনেক উপঢৌকন প্রদান করেন। এবছর বসন্তে সম্রাট ইয়াং তার সাম্রাজ্যে কৃষিজমি পুনঃবণ্টনের আদেশ দেন। ৬০৯ সালের বসন্তের শেষ দিকে তিনি নব্য বিজিত তুইয়ুহুন অঞ্চল দেখতে যান এবং তার কয়েকজন সেনাপ্রধানকে মুরং ফুয়ুনকে পরাজিত করার জন্য পাঠান। সুই সৈন্যরা মুরং ফুয়ুনের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয় এবং তাকে ডাংসিয়াং সম্প্রদায়ের দিকে পালিয়ে যেতে বাধ্য করেন। ৬০৯ সালের শেষের দিকে আশিনা রাংআন মারা যান এবং তার পুত্র শিবি খান আশিনা ডুওজিশি তার স্থলাভিষিক্ত হন। তুজুয়ে রীতি অনুসারে, আশিনা ডুওজিশি আশিনা রাংআনের স্ত্রী যুবরাজ্ঞী য়িচেংকে বিয়ে করার জন্য সম্রাট ইয়াংয়ের অনুমতি প্রার্থনা করেন এবং সম্রাট তাকে অনুমতি দেন। একই বছর সম্রাট ইয়াং তার কর্মচারী সুয়ে ডাওহেংয়ের সাহিত্য প্রতিভায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তাকে মিথ্যা অভিযোগে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন।

৬১১ সালে সম্রাট ইয়াং পশ্চিম তুজুয়ের খান আশিনা দামানকে সাক্ষাৎ করতে বললে তিনি তার নিমন্ত্রণ প্রত্যাখান করলে তিনি রাগান্বিত হন। তিনি পেই জুকে আশিনা দামানের অনুগত খান আশিনা শেগুইকে আশিনা দামানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করার জন্য প্রণোদিত করার নির্দেশ দেন এই শর্তে যে তার সাথে একজন সুই যুবরাজ্ঞীর বিয়ে দেওয়া হবে। আশিনা শেগুই আশিনা দামানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন এবং তাকে প্রথমে গাওচাং ও পরে সুই সাম্রাজ্যে পালাতে বাধ্য করেন। সম্রাট ইয়াং আশিনা দামানকে ক্ষমা করে দেন এবং তার সম্পদায়কে তিন ভাগে ভাগ করে আশিনা দামানকে তার খান উপাধি ফেরত দেন কিন্তু তাকে কখনো তার সম্প্রদায়ের কাছে ফিরে যাওয়ার অনুমতি প্রদান করেন নি।

৬১২ সালে ঝও সেনাদপ্তরে সৈন্যদের একত্রিত করা হয় এবং সম্রাট ইয়াং গগুর‍্যেও অঞ্চলের বিভিন্ন শহরে আক্রমণ চালান। তাদের প্রধান লক্ষ্য ছিল গুরুত্বপূর্ণ শহর লিয়াওডং (বর্তমান লিয়াওইয়াং, লিয়াওনিং) ও গগুর‍্যেও রাজধানী পিয়ংইয়াং। সম্রাট ইয়াং সেনাপ্রধানের তাদের ইচ্ছানুসারে যুদ্ধ পরিচালনা না করে তার সিদ্বান্ত অনুসারে যুদ্ধ পরিচালনার নির্দেশ দেন। গগুর‍্যেওদের সকল দুর্গ ও শহর সুই সৈন্যদের প্রতিহত করার যোগ্য ছিল। ফলে মানচুরিয়াকে সহজে প্রাজিত করা সম্ভব হয় নি। সম্রাট ইয়াং নতুন পরিকল্পনা করেন। তিনি গগুর‍্যেও রাজধানী দখল করার জন্য নৌবহরের সাহায্য নেন। নৌবহর স্বল্প সময়ের নির্দেশে রাজধানীতে আক্রমণ করে কিন্তু ওঁতপেতে থাকা গগুর‍্যেও সৈন্যদের কাছে পরাজিত হয়। নৌবহর স্থলবাহিনী আসার জন্য অপেক্ষা করে কিন্তু খাদ্য সরবরাহ কমতে থাকলে অনেক সুই সৈন্য মারা যান। গগুর‍্যেও সেনাপ্রধান এউলজি মেউনডেউক প্রতিনিয়ত তাদের উপর আক্রমণ চালায় এবং তাদের পিছু হটতে বাধ্য করে। সুই সৈন্যরা সালসু নদীতে আসে কিন্তু এউলজি ও গগুর‍্যেও সইন্যর তাদের আক্রমণ করার জন্য ওঁত পেতে ছিল। সালসু নদীতে গগুর‍্যেওরা একটি বাঁধ নির্মাণ করে রেখেছিল যাতে সুইরা মনে করে নদীটি অগভীর। যখন সুই সৈন্যরা নদীর মাঝখানে আসে তার বাঁধ ভেঙ্গে দেয় এবং অসংখ্য সুই সৈন্য ডুবে মারা যায়। ৩০৫,০০০ সৈন্যের মধ্যে মাত্র ২,৭০০ সৈন্য জীবিত ফিরতে সক্ষম হয়।

৬১৩ সালে সম্রাট ইয়াং ঝও সেনাদপ্তরে সৈন্যদের একত্রিত করার নির্দেশ দেন এবং গগুর‍্যেওদের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় আক্রমন পরিচালনা করেন। তিনি তার সৈন্যদের মধ্যে সেরা সৈন্যদের নিয়ে বিশেষ দল সিয়াওগুও সেনা (শক্তিশালী ও সাহসী) তৈরি করেন এবং তারা হন সম্রাটের ব্যক্তিগত প্রহরী। সৈন্যদের বাধ্য করার কারণে আরও অনেকে পালিয়ে যায় এবং ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহীদের সাথে যোগ দেয়।

শেষ যুগ[সম্পাদনা]

৬১৪ সালে সম্রাট ইয়াং গগুর‍্যেও সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আরেকটি আক্রমণের প্রস্তাব করলে তার কর্মকর্তাদের সম্মতি না থাকলেও কেউ তার বিরোধিতা করেন নি। ঝও সেনাদপ্তর থেকে অনেক সৈন্য পালিয়ে যায়। সম্রাট ইয়াং যারা পালিয়ে যাচ্ছিল তাদের হত্যা করার নির্দেশ দেন কিন্তু তাও পালিয়ে যাওয়া সৈন্যের সংখ্যা বাড়তে থাকে। গগুর‍্যেও সৈন্যরাও সুই সৈন্যদের একের পর আক্রমণ করতে থাকে এবং তারা সুইদের খাবার সরবরাহের আক্রমণ করেন। গগুর‍্যেওরা ইয়ান সুয়াংআনের সহযোগী হুসি ঝেংকে ফেরত নিয়ে যায়।

৬১৫ সালের বসন্তে ইয়ুওয়েন শুর অভিযোগ করেন রাজকর্মকর্তা লি হুন তার বোন ইয়াং লিহুয়ার মেয়ের স্বামী লি মিনকে তার স্থলাভিষিক্ত করার ফন্দি করছেন। সম্রাট ইয়াং তার কথা বিশ্বাস করে এবং একজন লি পরবর্তী সম্রাট হবেন এমন এক দৈববাণীর শুনার পর লি হুন, লি মিন ও তাদের সম্প্রদায়ের লোকদের হত্যা করান। এমনকি তার বোন ইয়াং লিহুয়ার কন্যা ইয়ুওয়েন এয়িংকে বিষ পান করিয়ে হত্যা করেন।

সম্রাট ইয়াং লুওইয়াং ছেড়ে যাওয়ার পর ইয়াং সুয়াংআনের প্রাক্তন কুশলী লি মি ঝাই রাংয়ের বিদ্রোহীদের পরামর্শ প্রদান করেন লুওইয়াংয়ে সরাসরি আক্রমণ করতে। ঝাই সম্মত হন এবং ঝাগ্ন সুতুওকে এক যুদ্ধে হত্যা করলে সুই সৈন্যরা ভেঙ্গে পরে। ঝাই লি নামক কেউ পরবর্তী সম্রাট হবে এই দৈববাণী বিশ্বাস করে লি মিকে তাদের নেতা হিসেবে সম্মান প্রদর্শন শুরু করেন। ইতিমধ্যে, সুই সেনাপ্রধান ইয়াং ইয়িচেন হুয়াংহো নদীর ঝাং জিনচেং ও গাও শিডাকে হত্যা করে উত্তরের বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে জয়লাভ করেন, কিন্তু সম্রাট ইয়াং ও তার প্রধানমন্ত্রী ইয়াং ইয়িচেনের প্রতিভায় ভীত হয়ে তাকে পদোন্নতি দিয়ে মন্ত্রী করে রাজদরবারে নিয়ে আসেন। ইয়াং ইয়িচেন কিছুদিন পর মারা যান এবং হুয়াংহো নদীর উত্তরে ডুও জিয়ানডের অধীনে আবার বিদ্রোহ শুরু হয়। ৬১৭ সালের মধ্যে কিছু প্রধান বিদ্রোহ দেখা দেয়, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলঃ

  • ডু ফুওয়েই, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান দক্ষিণ আনহুই অঞ্চল দখল করেন
  • গাও কাইডাও, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান উত্তর হপেই অঞ্চল দখল করেন
  • লিয়াং শিডু, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান মধ্য মঙ্গোলিয়া অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে লিয়াং সম্রাট হিসেবে ঘোষণা দেন
  • লি গুই, প্রাক্তন সুই রাজকর্মকর্তা, বর্তমান মধ্য ও পশ্চিম গানসু অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে লিয়াং যুবরাজ হিসেবে ঘোষণা দেন
  • লি ইউয়ান, প্রাক্তন সুই রাজকর্মকর্তা (সম্রাট ইয়াংয়ের চাচাতো ভাই), বর্তমান মধ্য শানসি অঞ্চল দখল করেন
  • লিন শিহং, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান জিয়াংসি অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে চু সম্রাট হিসেবে ঘোষণা দেন
  • লিউ য়ুঝও, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান শানসি অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে ডিংইয়াং খান হিসেবে ঘোষণা দেন
  • লুও য়ি, প্রাক্তন সুই সেনাপ্রধান, বর্তমান বেইজিং অঞ্চল দখল করেন
  • সিয়াও সি, প্রাক্তন সুই রাজকর্মকর্তা, পশ্চিম লিয়াং সম্রাট সুয়ান-এর নাতী, বর্তমান হুবেই, হুনানগুয়াংসি অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে লিয়াং সম্রাট হিসেবে ঘোষণা দেন
  • সুয়ে জু, ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, বর্তমান পূর্ব গানসু অঞ্চল ও পশ্চিম শানসি অঞ্চল দখল করেন এবং নিজেকে পশ্চিম কিন যুবরাজ হিসেবে ঘোষণা দেন
  • ঝু চান, প্রাক্তন সুই রাজকর্মকর্তা, তার সেনাবাহিনী নিয়ে বর্তমান দক্ষিণ হেনান অঞ্চল ও দক্ষিণপূর্ব শানসি অঞ্চলে ঘুরে বেড়ান, প্রথমে নিজেকে জিয়ালুওলউ যুবরাজ ও পরে চু সম্রাট হিসেবে ঘোষণা দেন

৬১৭ সালের বসন্তে লি মি ও ঝাই লুওইয়াংয়ের নিকটবর্তী সম্রাট ইয়াংয়ের প্রধান খাদ্যাগার, লুওকউ ও হুইলুও দখল করে এবং তাদের সৈন্যদের পরিমিত খাদ্য সরবরাহ করতে থাকে। অন্যদিকে সুই সৈন্যদের খাবারের মজুদ শেষ হতে থাকে। লি মি ওয়েইয়ের ডিউক উপাধি গ্রহণ করে এবং ঝাইকে ডং সেনাদপ্তরের ডিউক করেন, যদিও পরে লি ঝাইকে ভয় করে তাকে হত্যা করেন ও তার সেনাবাহিনীর উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করেন। কয়েকজন ভূমি ও কৃষি বিষয়ক বিদ্রোহী, ডউ ও লি ইউয়ান লি মিকে পরবর্তী সম্রাট হতে পারে ভেবে তার সাথে যোগ দেয়। সম্রাট ইয়াং ওয়াংকে লুওইয়াংয়ে প্রতিরক্ষায় সাহায্যের জন্য প্রেরন করেন এবং লি মির আক্রমণ প্রতিহত করেন। ইতিমধ্যে ৬১৭ সালের শীতে লি ইউয়ান দক্ষিণ-পশ্চিমে অগ্রসর হয়ে চাং'আন দখল করে। তিনি ইয়াং ইউকে সম্রাট ঘোষণা করেন এবং সম্রাট ইয়াংকে তাইশাং হুয়াং (অবসরপ্রাপ্ত সম্রাট) হিসেবে সম্মান প্রদান করেন এবং তিনি নিজে তাং যুবরাজ উপাধি নিয়ে প্রকৃত ক্ষমতার অধিকারী হন।

পিতৃহত্যা বিতর্ক[সম্পাদনা]

সম্রাট ওয়েনের মৃত্যুর সময় ধরা হয় যে তিনি অসুস্থতার কারণে মারা গেছেন। কিন্তু পরবর্তী তাং রাজবংশ সময়ে অনুমান করা হয় সম্রাট ওয়েনকে সম্রাট ইয়াংয়ের নির্দেশে হত্যা করা হয় – যদিও এর কোন সত্যতা পাওয়া যায় নি তবুও বেশির ভাগ ইতিহাসবেত্তারা হত্যার বিষয়টা সত্য বলে মনে করেন। সোং সাম্রাজ্য সময়কালের ইতিহাসবেত্তা সিমা গুয়াং রচিত জিঝি তংজিয়ান বইকে চীনের ইতিহাসের সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য উৎস হিসেবে ধরা হয় এবং এতে বর্ণিত আছে যে সম্রাট ওয়েন রেনশুউতে তার গ্রীষ্মকালীন রাজপ্রাসাদে অবকাশ যাপন করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেসময়ে তিনি যুবরাজ ইয়াং গুয়াংকে রাজপ্রাসাদের ডাবাও হলে থাকার নির্দেশ দেন। ইয়াং গুয়াং সম্রাট ওয়েনকে মারার পরিকল্পনার ব্যাপারে সতর্কতা কথা উল্লেখ করে ইয়াং সুকে পত্র লিখেন। ইয়াং সু তার জবাবে গুয়াংয়ের কাছে একটি পত্র লিখেন যা সম্রাটের হাতে গিয়ে পরে। এছাড়া ইয়াং গুয়াং সম্রাটের উপপত্নী চেনকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করার কথা তার কানে গেলে তিনি ক্ষিপ্ত হন এবং লিউ শু ও ইয়াং ইয়ানকে দিয়ে ইয়াং ইয়ংকে ডেকে পাঠান তাকে পুনরায় রাজদরবারের যুবরাজ করার জন্য। কিন্তু ইয়াং গুয়াং ও ইয়াং সু তাদের বন্দী করেন এবং ঝেং হেংকে সম্রাটকে দেখাশুনার দায়িত্ব দেন। ঝেং হেং সকল সেবিকা ও খোজা কর্মকর্তাদের সম্রাটের কক্ষ থেকে বের করে দেন এবং পরদিন সম্রাটের মৃত্যু হয়। এ কারণে তার মৃত্যু নিয়ে বিতর্ক রয়েছ।[৩][note ১]

সমাধি[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে সম্রাট ইয়াংয়ের সমাধি ইয়াংঝওয়ে আবিস্কৃত হয়। দুই ইটের গাঁথুনিযুক্ত সমাধিটি ইয়াংঝওয়ের হানজিয়াং জেলায় এক গৃহনির্মাণের সময় আবিস্কৃত হয়।পশ্চিমের একটি সমাধিতে সুই সম্রাট ইয়াংয়ের এপিটাফ খোদাই করা একটি পাথর পাওয়া যায়। ধারণা করা হয় অপর সমাধিটি ছিল সম্রাটের কোন এক উপপত্নীর কিন্তু তা কার তা জানা যায় নি।[৪][৫]

সমাধিটির আয়তন ৪.৯৮ × ৫.৮৮ মিটার, যা সেসময়ের অন্য অ-রাজকীয় সমাধির তুলনায় ছোট। চীনা প্রত্নতাত্ত্বিকেরা ধারণা করেন সম্রাট ইয়াংঝও থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর মারা গেলে সময় স্বল্পতার জন্য বড় সমাধি নির্মাণ সম্ভব হয় নি। সমাধিটির উপরের দিক পরবর্তী সময়ের এর উপরে ভবন নির্মাণের ফলে ভেঙ্গে যায়। সমাধিতে কোনো কফিন বা মানবকঙ্কাল পাওয়া যায় নি। তবে কিছু হস্তনির্মিত বস্তু, যেমন সিংহ আকৃতির স্বর্ণখচিত দরজার খিল ও স্বর্ণ দিয়ে অলংকৃত জেড বেল্ট।[৪]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

সম্রাট ইয়াং নিজে শিল্পকলার পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। তিনি এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে সুই রাজদরবারে সাত থেকে নয় অর্কেস্ট্রায় বৃদ্ধি করেন। তিনি নিজেও একজন শিল্পি ছিলেন, কিন্তু তিনি বেশি ঈর্ষাকাতর ও একগুঁয়ে ছিলেন এবং অন্য বিজ্ঞ লোকের কথা কম কানে নিতেন। তিনি একজন গুনী কবি ছিলেন কিন্তু আরও দুইজন কবির কবিতার অন্ত্যমিল তার থেকে ভাল হওয়ায় তাদের হত্যা করেন।[৬]

যুগের নাম[সম্পাদনা]

  • ডায়ে (大業 dà yè) ৬০৫–৬১৮

পরিবার[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. After Empress Wenxian [(i.e., Empress Dugu)] died, Emperor Wen greatly favored both Consort Chen (the Lady Xuanhua) and Consort Cai (the Lady Ronghua). Consort Chen was the daughter of Emperor Xuan of Chen. Consort Cai was from Danyang [(丹楊, in modern Nanjing, Jiangsu)]. The Emperor grew ill at Renshou Palace, and was bedridden. Yang Su, the left head of the Shangshu Sheng, Liu Shu [(柳述)], the minister of defense [(Emperor Wen's son-in-law as the husband of his daughter Yang Awu (楊阿五) the Princess Lanling)], and Yuan Yan [(元巖)] the court administrator, were all attending to him. The Emperor ordered the Crown Prince to enter the palace to stay at Dabao Hall [(大寶殿)]. The Crown Prince thought that precautions needed to be taken in case of the Emperor's death, and therefore he personally wrote a secret note to inquire of Yang Su what precautions to take. Yang Su wrote a return note detailing his security precautions, but by error the palace attendants delivered it to the Emperor. The Emperor was greatly displeased. Further, one morning, Consort Chen was going to the latrine. Yang Guang could not resist her beauty, and grabbed her, wanting to have sexual relations with her. She resisted and fled back to the Emperor. The Emperor was surprised by her anxiety and asked her; she shed tears and stated, "The Crown Prince was being indecent to me." The Emperor was shocked and angry, pounding the bed and stating, "Animal! How can I give him the important affairs? Dugu destroyed me!" He then summoned Liu and Yuan, telling them, "Summon my son!" They were about to summon the Crown Prince when he clarified, "Yang Yong!" Liu and Yuan left the palace to write the edict. When Yang Su heard this, he reported to the Crown Prince, and thereafter an edict of the Emperor was forged to arrest Liu and Yuan and detain them at the jail at the Supreme Court. The guards of the Eastern Palace [(i.e., the Crown Prince's guards)] were summoned to take over security from the Renshou Palace guards. Security measures were instituted to disallow entry into or exit out of the palace. Yuwen Shu and Guo Yan [(郭衍)] were put in command. Further, the deputy chief of staff for the Crown Prince's palace, Zhang Heng [(張衡)] entered the Emperor's palace to attend to his medical needs. Zhang expelled all of the ladies in waiting and the eunuchs. Soon thereafter, the Emperor died. Thereafter, there were different views as to how he died. When Consort Chen and the other women of the palace heard of this, they stared at each other in fear and shook with fear. At dusk, the Crown Prince sent a eunuch with a small gold box, personally sealed by the Crown Prince, to be delivered to Consort Chen. When Consort Chen saw it, she, believing that there was poison inside, was very fearful, and did not dare to open it. Only after the eunuch urged her did she open it. Instead, the box contained several tongxin knots [(同心結, a decoration showing love)]. Her ladies in waiting were relieved and became happy, stating to each other, "Finally, death is avoided." Consort Chen, in shame and anger, sat down and refused to accept the box. The ladies in waiting forced her to bow to the eunuch. That night, the Crown Prince ordered Consort Chen to have sexual relations with him.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. It was written that Yang Guang did have concubines, but he pretended that he did not, and that he forced his concubines to have abortions if they became pregnant.
  2. Victor Cunrui Xiong (১ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। Emperor Yang of the Sui Dynasty: His Life, Times, and Legacy। SUNY Press। পৃষ্ঠা 39–। আইএসবিএন 978-0-7914-8268-1 
  3. Zizhi Tongjian, vol. 180.
  4. "Emperor's real burial site found in E China"। ১৬ এপ্রিল ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-১৭ 
  5. Cui Jiaming (崔佳明) (১৫ এপ্রিল ২০১৩)। 扬州出土"隨故煬帝墓誌" 初步认定为隋炀帝墓 (Chinese ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-১৭ 
  6. 劉餗 隋唐嘉話
  7. Bo Yang (1977). Records of Familial Relations of Chinese Emperors, Empresses, Princes, and Princesses 中國帝王皇后親王公主世系錄, vol. 2, p. 777.
  8. Wei, Zheng; Yan, Shigu; Kong, Yingda; Zhangsun, Wuji (636). Biography 19 列传第十九, Wang Zhangshu 王长述. Book of Sui, vol. 54.

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

রাজত্বকাল শিরোনাম
পূর্বসূরী
সুই সম্রাট ওয়েন
সুই সম্রাট (পশ্চিম)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
সুই সম্রাট গং
সুই সম্রাট (পূর্ব)
৬০৪-৬১৮
উত্তরসূরী
ইয়াং তং (ইয়ুয়ে যুবরাজ)
সুই সম্রাট (সিয়াওগুও সেনা)
৬০৪-৬১৮
উত্তরসূরী
ইয়াং হাও (কিনের যুবরাজ)
চীনের সম্রাট (মধ্য হেনান)
৬০৪-৬১৬
উত্তরসূরী
লি মি (ওয়েইয়ের ডিউক)
চীনের সম্রাট (শানডং)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
সু ইউয়ানলাং (লু যুবরাজ)
চীনের সম্রাট (জিয়ানসি/গুয়ানডং/হাইনান)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
লিন শিহং (চু সম্রাট)
চীনের সম্রাট (পশ্চিম মঙ্গোলিয়া/উত্তর শানসি)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
লিয়াং শিডু (লিয়াং সম্রাট)
চীনের সম্রাট (উত্তর শানসি)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
লিউ য়ুঝও (ডিংইয়াং খান)
চীনের সম্রাট (হপেই)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
ডউ জিয়ানডে (সিয়া যুবরাজ)
চীনের সম্রাট (পূর্ব গানসু)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
সুয়ে জু (কিন সম্রাট)
চীনের সম্রাট (পশ্চিম গানসু)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
লি গুই (লিয়াং সম্রাট)
চীনের সম্রাট (হপেই/হুনান/গুয়াংসি/উত্তর ভিয়েতনাম)
৬০৪-৬১৭
উত্তরসূরী
সিয়াও সি (লিয়াং সম্রাট)
চীনের সম্রাট (ঝেজিয়াং)
৬০৪-৬১৮
উত্তরসূরী
শেন ফাসিং (লিয়াংয়ের যুবরাজ)
চীনের সম্রাট (বেইজিং)
৬০৪-৬১৮
উত্তরসূরী
তাং সম্রাট গাওজু
চীনের সম্রাট (উত্তর হপেই)
৬০৪-৬১৮
উত্তরসূরী
গাও কাইডাও (ইয়ানের যুবরাজ)
সম্মানজনক পদবীসমূহ
শূন্য
Title last held by
উত্তর ঝও সম্রাট সুয়ান
চীনের অবসরপ্রাপ্ত সম্রাট
৬১৭-৬১৮
শূন্য
Title next held by
তাং সম্রাট গাওজু