লুওইয়াং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

লুওইয়াং (সরলীকৃত চীনা: 洛阳; প্রথাগত চীনা: 洛陽; ফিনিন: Luòyáng) হলো চীনের হেনান প্রদেশের পশ্চিমে লুও নদী এবং পীত নদীর সঙ্গমস্থলে অবস্থিত একটি শহর। একটি প্রশাসনিক স্তরের শহর হিসাবে পরিচালিত এই শহরটির পূর্বে প্রাদেশিক রাজধানী চেংচৌ, দক্ষিণ-পূর্বে পিংডিংশান, দক্ষিণে নানয়াং, পশ্চিমে সানমেনজিয়া, উত্তরে জিয়ুয়ান এবং উত্তর-পূর্বে জিয়াওজুওর অবস্থান। ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর তারিখ পর্যন্ত লুওইয়াং-এর জনসংখ্যা ছিল ৬,৮৮৮,৫০০ জন; বাসিন্দাদের মধ্যে ২,৭৫১,৪০০ জন লোক ছয়টি তৈরিকৃত শহরের (বা, মেট্রো) মধ্যে পাঁচটি এলাকা ও (জিলি বাদে - ধারাবাহিক নগরায়ন হয়নি) এবং ইয়ানশি জেলা যেখানে সংযোজন করা হচ্ছে, মিলিয়ে বসবাস করে।[১] ২০২২ সালের শেষ নাগাদ লুওইয়াং পৌরসভার অধীনে ৭টি পৌর জেলা, ৭টি কাউন্টি এবং ১টি উন্নয়ন অঞ্চল অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। এর স্থায়ী জনসংখ্যা ৭.০৭৯ মিলিয়ন।[২]

চীনের কেন্দ্রীয় সমভূমিতে অবস্থিত, লুওইয়াং চীনের প্রাচীনতম শহরগুলির মধ্যে একটি এবং প্রাচীন চৈনিক সভ্যতার অন্যতম আতুড়ঘর। এটি চীনের চারটি মহান প্রাচীন রাজধানীগুলির মধ্যে অন্যতম।

নামসমূহ[সম্পাদনা]

নগরের লুওইয়াং নামটি এসেছে লুও নদীর উত্তরে বা রৌদ্রালোকিত ("ইয়াং") দিকে অবস্থানের ফলে। যেহেতু নদীটি পশ্চিম হতে পূর্ব দিকে প্রবাহিত হচ্ছে এবং সূর্যের অবস্থান নদীর দক্ষিণ পার্শ্বে বলে সূর্য সর্বদা নদীর উত্তরাংশে কিরণ দেয়। শতাব্দীর পর শতাব্দী যাবৎ লুওইয়াংকে লুওয়ি (洛邑) এবং লুওঝু (洛州) সহ নানাবিধ নামে ডাকা হয়েছে, কিন্তু লুওইয়াং এর প্রাথমিক নাম। এছাড়াও এই নগরটি তাং রাজবংশের সময় ডংডু (東都; "পূর্বের রাজধানী") নামে, সং রাজবংশের আমলে জিজিং বা জিংলুও (চীনা: 京洛; আক্ষরিক: "রাজধানী লুও") নামে পরিচিত ছিলো। চীনের ইতিহাসের একমাত্র নারী সম্রাট উ জেতিয়ানের শাসনামলে এই নগরটি শেন্দু (神都; "আলোকিত রাজধানী") নামে পরিচিত ছিলো। চিং রাজবংশের শাসনামলে নগরটিকে হেনানফু (河南府) নামে নামকরণ করা হলেও ১৯১২ সালে এটি পুনরায় তার পূর্বতন নাম ফিরে পায়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গণপ্রজাতন্ত্রী চীন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর লুওইয়াং একটি প্রধান ভারী শিল্প কেন্দ্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে। চীনের প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় ১৫৬টি সোভিয়েত-সহায়তাপ্রাপ্ত প্রধান শিল্প কর্মসূচির মধ্যে ৭টি লুওইয়াংয়ের জিয়ানসি জেলায় চালু করা হয়েছিল, যার মধ্যে ডংফাংহং ট্রাক্টর ফ্যাক্টরি, লুওয়াং মাইনিং মেশিন ফ্যাক্টরি এবং লুওয়াং বিয়ারিং ফ্যাক্টরি রয়েছে। পরবর্তীতে, তৃতীয় ধাপের নির্মাণের সময়, লুওয়াং গ্লাস ফ্যাক্টরি সহ আরও ভারী শিল্প কারখানা এখানে স্থানান্তরিত বা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শিল্প উন্নয়ন উল্লেখযোগ্যভাবে লুওইয়াংয়ের জনসংখ্যার পরিবর্তন এনেছে এবং লুওইয়াং-এর জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক ১৯৪৯ সালের পর প্রদেশের বাইরে থেকে আগত বা তাদের বংশধর অভিবাসী।

ভূগোল[সম্পাদনা]

লুওইয়াং পুরাতন শহরটি লুও নদীর উত্তর তীরে অবস্থিত, যা পীত নদীর মধ্য স্থলে এসে সংযুক্ত হওয়া এর দক্ষিণ প্রান্তের একটি শাখা নদী। আধুনিক নগরকেন্দ্রটি নদীর উভয় তীর এবং চতুর্পাশের ঘিরে থাকা পার্বত্যভূমি নিয়ে গঠিত।

গ্রামীণ এলাকাসমূহ, যা পৌরসভার নিয়ন্ত্রণাধীন, তা অদ্যাবধি অনুর্বর রুক্ষভূমি; এর মোট ভূমির ৪৫.৫১% ভূমি পার্বত্যময়, ৪০.৭৩% পাহাড়ি এলাকা এবং ১৩.৮% সমভূমি।[৩]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

কোপেন জলবায়ু শ্রেণিবিন্যাস অনুসারে এখানকার জলবায়ু আর্দ্র উপ-ক্রান্তীয় জলবায়ু (সিডব্লিউএ) ধরণের।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

শহরের দক্ষিণের লংম্যান গ্রোটোগুলি ২০০০ সালের নভেম্বরে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের তালিকাভূক্ত করা হয়। তিন রাজত্বের সময়ের একজন নায়ক গুয়ান ইউর সম্মানে নির্মিত মন্দিরগুলির একটি সিরিজ যা গুয়ানলিন নামে পরিচিত, তা এর কাছেই। হোয়াইট হর্স টেম্পল আধুনিক শহরটির ১২ কিমি (৭.৫ মা) পূর্বে অবস্থিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "China: Hénán (Prefectures, Cities, Districts and Counties) - Population Statistics, Charts and Map"www.citypopulation.de 
  2. "洛阳市2022年国民经济和社会发展统计公报"www.ly.gov.cn। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-১০-৩০ 
  3. 洛阳市人民政府网站 [Luòyángshì Rénmín Zhèngfǔ Wǎngzhàn, Luoyang Municipal People's Government Website] op. cit. 北京2008年奥运火炬接力官方网站 [Běijīng 2008 Nián Àoyùn Huǒjù Jiēlì Guānfāng Wǎngzhàn, Beijing 2008 Torch Relay Official Website]. 〈洛阳地理及气候概况〉 ["Luòyáng Dìlǐ Jí Qìhòu Gàikuàng", "Overview of Luoyang's Geography and Climate"]. 20 Mar 2008. Accessed 16 Jan 2014. (চীনা ভাষায়)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]