সিয়োন চত্বর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সিয়োন চত্বর
গন চত্বর
কিকার সিয়োন
দিনের বেলায় সিয়োন চত্বর (সামনে বরাবর বেন ইয়েহুদা সড়ক)
দিনের বেলায় সিয়োন চত্বর (সামনে বরাবর বেন ইয়েহুদা সড়ক)
Location:জাফা সড়ক, বেন ইয়েহুদা সড়ক, হার্বার্ট স্যামুয়েল সড়ক, এবং ইওয়েল মোশে সালোমন সড়কের ছেদ
জেরুজালেম
Coordinates: ৩১°৪৬′৫৫.২″ উত্তর ৩৫°১৩′১০.৬″ পূর্ব / ৩১.৭৮২০০০° উত্তর ৩৫.২১৯৬১১° পূর্ব / 31.782000; 35.219611স্থানাঙ্ক: ৩১°৪৬′৫৫.২″ উত্তর ৩৫°১৩′১০.৬″ পূর্ব / ৩১.৭৮২০০০° উত্তর ৩৫.২১৯৬১১° পূর্ব / 31.782000; 35.219611

সিয়োন চত্বর (হিব্রু ভাষায়: כיכר ציון‎, Kikar Tziyon) হচ্ছে জেরুজালেম, ইসরায়েলের একটি পাবলিক স্কয়ার, এটি জাফা সড়ক, বেন ইয়েহুদা সড়ক, হার্বার্ট স্যামুয়েল সড়ক, এবং ইওয়েল মোশে সালোমন সড়কের ইন্টারসেকশনে অবস্থিত।

এই স্কয়ারটি ডাউনটাউন ট্রায়াঙ্গল বাণিজ্যিক জেলার অন্যতম ছেদচিহ্নব্রিটিশ ম্যান্ডেট যুগ থেকে, সিয়োন স্কয়ার ডাউনটাউন জেরুজালেমের সাংস্কৃতিক জীবনের কেন্দ্রী বিন্দু। পর্যটক, বয়স্ক অভিবাসী, বিদেশী ছাত্রছাত্রী, স্থানীয় যুবক, রাস্তার অভিনেতা, এবং ধর্মীয় ব্যক্তিদের কারনে সিয়োন চত্বর দিন ও রাত ব্যস্ত থাকে। সাম্প্রতিক দশকগুলিতে, বিচ্ছিন্ন এবং গৃহহীন যুবকদের জন্য স্কয়ারটি একটি জমায়েতের স্থান হয়ে উঠেছে।

১৯৩০ থেকে ২০১১ পর্যন্ত, চত্বরটি গণ বিক্ষোভ ও প্রতিবাদের জন্য জনপ্রিয় একটি স্থান ছিল।

নাম[সম্পাদনা]

সিয়োন সিনেমা, আরো পরিচিত সিয়োন হল নামে (ডানে), ১৯৪০-এর প্রথম দিকে।

চত্বরটিকে, মূলত ডাকা হয় সিয়োন সার্কাস,[১] নামকরন করা হয় সিয়োন সিনেমার কারনে[২][৩] (আরো ডাকা হয় সিয়োন হল), একটি ৪০০-আসন বিশিষ্ট নীরব সিনেমার হল যেটি ১৯১২ থেকে ১৯২০ পর্যন্ত এই স্থানে একটি কুটির দখল করেছিল। প্রবল তুষারপাতে কুটিরটি ধসের পরে, সিনেমা হলটি পুনর্নির্মিত করে ৬০০- আসন বিশিষ্ট মঞ্চে পরিনত করা হয় চলচ্চিত্র প্রদর্শন এবং লাইভ অপেরা পারফরমেন্স এর জন্য।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সিয়োন চত্বর, ১৯৫০।
ভিয়েনা ক্যাফের জানালা থেকে সিয়োন চত্বরের দৃশ্য,১৯৫০।

জায়গাটি যেখানে সিয়োন চত্বর ও ডাউনটাউন ট্রায়াঙ্গেল দাঁড়িয়ে আছে সেটি গ্রিক অর্থডক্স চার্চ অব জেরুসালেম থেকে ইহুদি উপনিবেশ স্থাপন সমিতি ক্রয় করে নেয়,[৪] যেটি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরে জেরুসালেমে তাদের কিছু হোল্ডিংস বিক্রি শুরু করে।[৫] ব্রিটিশরা জাফা সড়ক, বেন ইয়েহুদা সড়ক (১৯২২ সালে ব্রিটিশ কর্তৃক নির্মিত) এবং কিং জর্জ সড়ক (১৯২৪ সালে ব্রিটিশ কর্তৃক নির্মিত) দ্বারা এই ক্ষেত্রটিকে ত্রিকোণ জেলায় উন্নিত করে[৬] সিয়োন চত্বরটি একটি বৃত্তাকার হিসাবে ব্রিটিশদের দ্বারা পরিকল্পিত ছিল।[৭]

১৯২০ এবং ১৯৩০-এর দশকে সিয়োন সিনেমা হলে উপস্থাপিত চলচ্চিত্র, অপেরা, নাটক, কনসার্ট এবং বক্তৃতাগুলির জনপ্রিয়তা সিয়োন চত্বরকে "জেরুজালেমে সাংস্কৃতিক জীবনের কেন্দ্রে" পরিণত করেছে।[৮] চলচ্চিত্র এবং থিয়েটার-দর্শকরা ডাউনটাউন ট্রায়াঙ্গেলের সিনেমা হল এবং অনেক ক্যাফে এবং কফি হাউজগুলোতে ভীড় করে; দুটি জনপ্রিয় ক্যাফে সিয়োন চত্বরে অবস্থিত ছিল: দ্য ভিয়েনা ক্যাফে[৯] এবং দ্য ইউরোপা ক্যাফে।[১০]

রাজনৈতিক প্রতিবাদ[সম্পাদনা]

১৯৩০-এর দশকের শুরুতে সিয়োন চত্বর রাজনৈতিক বিক্ষোভ ও সামাজিক প্রতিবাদের মিলনস্থল হয়ে উঠে, যখন তরুণ জায়নবাদিরা এখানে সমাবেশ পালন করতো[১১] ১৯৫০ থেকে ২০০০-এর দশকে, প্রাথমিকভাবে ডানপন্থী বিক্ষোভ এখানেই অগ্রগমনশীল হয়েছিল।[২][১২] বেশ কিছু বিক্ষোভ সহিংসতায় রূপ নেয়, যেমন ১৯৭১-এ ইসরায়েলি ব্ল্যাক প্যান্থার প্রধানমন্ত্রী গোল্ডা মেয়ারের প্রতিকৃতি পোড়ায়,[১৩] ও ১৯৯৫-এ তাবা চুক্তির (Oslo II) কারনে প্রধানমন্ত্রী আইজাক রবিন এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, এর পরে হাজার হাজার বিক্ষোভকারীরা নেসেট অব্যাহত রাখে।[১৪] চত্বরে সর্ববৃহৎ বিক্ষোভের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে মে ২০০০-এ Mount of Olives (জৈতুন পাহাড়ের) নিকটবর্তী আরব বসতিগুলির হস্তান্তর দমনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ,[১৫][১৬] নভেম্বর ২০০০-এ এহুদ বারাক এর "নিয়ন্ত্রন নীতির" প্রতিবাদে বিক্ষোভ,[১৭] এবং ২০০৬-এ ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী এহুদ ওলমার্টের নীতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ।[১৮][১৯] যার প্রতিটিতে আনুমানিক ১০০,০০০ মানুষের কাছাকাছি এসেছিল।

আগস্ট ২০১১-এ জাফা রোড-এ জেরুজালেম লাইট রেল খোলার সময়, জেরুজালেম পুলিশ লাইট রেল অপারেশনগুলির বিঘ্ন এড়াতে সিয়োন চত্বরে বিক্ষোভের জন্য অনুমতি প্রদান বন্ধ করে দেয়।[২০][২১]

সন্ত্রাসী হামলা[সম্পাদনা]

সিয়োন সিনেমায় দুইবার বোমা হামলার ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করা হয়েছে, একটি ১৯৫১-এ এবং অন্যটি ১৯৬৭-এ। উভয় ঘটনাতেই, মঞ্চের আসনের নিচে আগ্নেয় ডিভাইস রাখা ছিল এবং সেগুলো উদ্ধার হয়েছে বিস্ফোরনের পূর্বেই।[২][১১]

জুলাই ৪, ১৯৭৫-এ, একটি রেফ্রিজারেটরে ৫ কিলোগ্রাম (১১ পা) বিস্ফোরক রেখে সিয়োন চত্বরে বিস্ফোরন ঘটানো হয়, এ ঘটনায় ১৫ জন নিহত ও ৭৭ জন আহত হয়।[২২] সেই সময়ে, এটি ছিল ইসরায়েলি নাগরিকদের বিরুদ্ধে ঘটা সবচেয়ে ভয়াবহ আত্মঘাতী বোমা হামলা।[২৩] মার্চ ২৪, ১৯৭৯-এ, সিয়োন চত্বরে একটি আর্বজনার ক্যানে বোমা বিস্ফোরিত হয়, এতে একজন নিহত ও ১৩ জন আহত হয়।[২২]

আগস্ট ১৬–১৭, ২০১২-এর রাতে, সিয়োন স্কয়ারে কয়েক ডজন ইহুদি টিনএজার চারজন ফিলিস্তিনি টিনএজারকে ধাওয়া করে এবং একজনকে মেরে অজ্ঞান করে ফেলে, এটিকে ইসরায়েলি পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা বর্ণনা করে লিনচিং এর চেষ্টা হিসেবে।[২৪][২৫]

প্রত্যাখ্যান এবং পুনর্জন্ম[সম্পাদনা]

কিকার সিয়োন হোটেল (উপরের তালা) এবং সাবেক সিয়োন সিনেমার স্থলে ব্যাংক হাপোয়ালিমের শাখা।

১৯৬৭ সালে জেরুজালেমের পুনর্গঠন অনুসারে, উল্লেখযোগ্য সম্প্রসারণে শহরটি চালু হয়েছে। এখান থেকে দূরে আশেপাশে টালপিওট, গিভাট সৌল, এবং মালকা-এ বৃহৎ বানিজ্যিক কেন্দ্র খোলা হয়, যা শহরের এই কেন্দ্র থেকে গ্রাহকদের দূরে নিয়ে যায়। ১৯৭০ এর দশকের শেষভাগে ডাউনটাউন ট্রায়াঙ্গলের অর্থনৈতিক পতনের প্রেক্ষিতে সরকারি অফিসগুলিও এখান থেকে চলে যেতে শুরু করেছিল।[২৬] টেলিভিশনের আবির্ভাবের ফলে ট্রায়াঙ্গলের বেশির ভাগ সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যায়।[২৭] সিয়োন সিনেমাটি ১৯৭২ সালে বন্ধ হয়ে যায় এবং ভেঙ্গে ফেলা হয়।[২] এটির জায়গায়, একটি সুউচ্চ ভবনে কিকার সিয়োন হোটেল (উপরের তলায়) এবং ব্যাংক হাপোয়ালিম (নিচের তলায়) এর একটি শাখা খোলা হয়[২][৭]

১৯৮৩ সালে, শহরটি ট্রাফিকের জন্য বেন ইয়েহুদা সড়ক এবং ত্রিভুজাকৃতির কেন্দ্রস্থলের (ডাউনটাউন ট্রায়াঙ্গল) অভ্যন্তর সড়ক (লুনস, ডরোট রিশিনিম, ইয়াভেট, বেন হিলাল এবং হাহিস্তাদ্রুত সড়ক) বন্ধ করে শহরটিকে পুনর্বিন্যস্ত করার চেষ্টা করে এবং সমগ্র এলাকাটিকে একটি উন্মুক্ত পথচারী ফুটপাত মার্কেট রূপে রূপান্তর করার চেষ্টা করে।[৬]

ওয়াকো, টেক্সাস এর একজন লোকহিতৈষীর চত্বরটির সংস্কারের জন্য ২ মিলিয়ন ডলার প্রদানের অঙ্গীকারের পরে, ২০০৬-এ জেরুজালেম ফাউন্ডেশন একটি গোপন প্রস্তাব উত্থাপন করে চত্বরটির রাপাপোর্ট প্লাজার নামান্তরেরর জন্য।[২৮] লন্ডনের স্থপতি রন আরাডকে নিয়োগ করা হয়েছিল এবং চত্বরটির জন্য একটি কেন্দ্রবিন্দু হিসাবে একটি উঁচু, লাল, প্রতিফলিত ইস্পাত ভাস্কর্য স্থাপন করার জন্য একটি পরিকল্পনা উপস্থাপিত হয়।[২৮][২৯] জনসাধারণের কাছে প্রকাশ করা হয়নি এমন পরিকল্পনাটি জেরুজালেম ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইটের উপর দেখা যাচ্ছিল এবং লেমল্লার তৃণমূল নাগরিকদের একটি অনুসন্ধান গোষ্ঠী দ্বারা জনগণের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছিল, যা নাম পরিবর্তন এবং ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে একটি সফল জন প্রতিবাদ আরম্ভ করেছিল।[২৮] একই সময়ে, চত্বর ও জাফা সড়কের প্রসারের জন্য লেমল্লা এটির নিজস্ব বিপরীত প্রস্তাবনা উত্থাপন করেছিল, প্রস্তাবটি ছিল ছয়-পার্শ্বযুক্ত, ইস্পাতের একটি "শান্তি গম্বুজ" তৈরি।[২৮][৩০] এই ধারণাটিও খুব সফল হয়নি।

২০১৬ এর শুরুতে, চত্বরটির পুনরায় নকশা করার জন্য একটি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় এবং ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৩-এ, জেরুজালেম পৌরসভা ঘোষণা করে যে এটির প্যানেল মায়া অতিদিয়া এবং তামির মঞ্জুর-কর্মিলের "শহুরে বন পরিষ্কার" নামের একটি ডিজাইনকে বিজয়ী হিসেবে বেছে নিয়েছে।[৩১]

রাস্তার দৃশ্য[সম্পাদনা]

জেরুজালেমের অস্তিত্বের একটি বিস্তৃত প্রস্থচ্ছেদের সঙ্গে সিয়োন চত্বরের প্রত্যেক মূহুর্ত বস্তাবন্দী হয়: দাড়িওয়ালা অতীন্দ্রিযবাদী, ভারী সশস্ত্র পুলিশ, আত্মনির্ভরশীল পবিত্র পুরুষদের আবৃত্তি, উল্লসিত হাসিদিম, গোমড়া টিনএজার, উজ্জ্বল চোখের প্রদর্শনী দল এবং রাস্তার গায়ক।

গো জেরুজালেম.কম[৩২]
সিয়োন চত্বরে স্ট্রিট পারফর্মাররা

সব বয়সের লোক, এদের মধ্যে পর্যটক, বয়স্ক অভিবাসী, শিক্ষালয়ের শিক্ষার্থী, রাস্তার অভিনেতা, চাবাদ এবং ব্রেসলভ কর্মীদের সাক্ষাৎ ও সম্মিলনের স্থান হিসেবে সিয়োন চত্বর রাত ও দিন ব্যস্ত থাকে।[১১][৩৩][৩৪] সিয়োন চত্বরকে এভাবে বর্ণনা করা হয়েছে "সবসময় ভিড়, সবসময় পাগল"।[৩]

চত্বরটি মাদক সেবীদের জন্য একটি জমায়েতের স্থান। আনুমানিক ৭০ ভাগ টিনএজার যারা সমাবেত হতে আসে এই চত্বরে তারা মাদক গ্রহন করে।[৩৫] কিকার সিয়োন হোটেলের খোলা রাস্তার স্তরের বেসমেন্টটি মাদক ব্যবসায়ী ও পতিতা উভয়ের জন্য একটি সুপরিচিত স্থান।[৩৬]

বিদ্যালয় ছেড়ে দেওয়া শিক্ষার্থী, অপ্রত্যাশিত ধর্মীয় অভিবাসী টিনএজার, এবং গৃহহীন যুবকরাও এ চত্বরে জড়ো হয়।[৩৭] রাস্তার শ্রমিকরা প্রায়ই রাশিয়ান অভিবাসী যুবক, এদের বৃহৎ গোষ্ঠীগুলি চত্বরে জমায়েত হয় এবং ভ্রমণকারীদের কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে ভদকা পান করে।[৩৮] চত্বরটি ২০০৫ সালে গাজা থেকে ইসরায়েলি নির্বাসনে বসতিস্থাপক যুবকদের অনেক আর্কষন করে।[৩৮] ঝুঁকিপূর্ণ এবং অনাহুত "চত্বরের বাসিন্দাদের" কাছে পৌঁছানোর জন্য, বেশ কয়েকটি ড্রপ-ইন সেন্টার সিয়োন চত্বরের আশেপাশে কাজ করে, যার মধ্যে ক্রসরোড, হেমশালাবাস, হেসরোনি স্কোয়াট এবং দ্য জোন অন্তর্ভুক্ত।[৩৭][৩৯][৪০] দ্য ইএলইম – সপ্তাহের দিনগুলিতে শিল্প প্রকল্পে রাস্তার যুবকদের সম্পৃক্ত করতে ইজরায়েল সংগঠনের যুব দৈন্যতা সিয়োন চত্বরে একটি মোবাইল ইউনিট এনেছে।[৪১]

ল্যান্ডমার্ক[সম্পাদনা]

সিয়োন চত্বরে একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর।
সিয়োন চত্বরে ক্যাফে ইউরোপ; আনুমানিক ১৯৩৪-১৯৪৬।

সিয়োন সিনেমা ১৯২০ থেকে ১৯৭২ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া পর্যন্ত সিয়োন স্কোয়ারের কেন্দ্রীয় ল্যান্ডমার্ক ছিল। সিয়োন চত্বরের দক্ষিণ দিকে অবস্থিত, একটি ৪০০-আসন বিশিষ্ট নীরব সিনেমার হল যেটি ১৯১২ থেকে ১৯২০ পর্যন্ত এই স্থানে একটি কুটির দখল করেছিল। প্রবল তুষারপাতে কুটিরটি ধসের পরে, সিনেমা হলটি পুনর্নির্মিত করে ৬০০- আসন বিশিষ্ট মঞ্চে পরিনত করা হয় চলচ্চিত্র প্রদর্শন এবং লাইভ অপেরা পারফরমেন্স এর জন্য।[২] ১৯২০ এবং ১৯৩০-এর দশক পর্যন্ত সিয়োন চত্বর "জেরুজালেমে সাংস্কৃতিক জীবনের কেন্দ্রে" পরিণত হয়।[৮] সিনেমা হলটি ১৯৭২ সালে ভেঙ্গে ফেলা হয় এবং এ স্থানে একটি সুউচ্চ ভবনে কিকার সিয়োন হোটেলটি ছিল (উপরের তলায়) এবং ব্যাংক হাপোয়ালিম (নিচের তলায়) এর একটি শাখা ছিল।[২] ২০১৩ সালে ১১৭-রুমের হোটেলটি অর্কিড হোটেল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড কর্তৃক কেনা হয়েছিল,[৪২] ২০১৬-এর হিসেবে, হোটেল হার্বার্ট স্যামুয়েল হোটেল নামে এটি পুনরায় খোলার জন্য সংস্কার করা হচ্ছে। হোটেলটিতে থাকবে ১৩৭টি রুম ও স্যুট , এবং একটি ৩৬০ ডিগ্রি প্যানোরামা দৃশ্য সহ কোশের ছাদের উপরিভাগে রেস্টুরেন্ট।[৪৩]

ত্রিভুজের সবচেয়ে উঁচু ভবন হচ্ছে সাত তলা বিশিষ্ট হমাশবীর ল্যাজারচারান ডিপার্টমেন্ট স্টোর, যেটি আয়তনে ৫,০০০ বর্গমিটার (৫৪,০০০ ফু), যেটি ২০১১ সালে সিয়োন চত্বরের পূর্ব দিকে খোলা হয়েছিল। এটি ইসরায়েলের সবচেয়ে বড় ডিপার্টমেন্টাল স্টোর[৪৪] এবং ৩৮টি চেইন স্টোর বিশিষ্ট ফ্লাগশিপ স্টোর[৪৫] হমাশবীর গলাগলি ভাবে ডাউনটাউনের সঙ্গে সংযুক্ত, ১৯৪৭ থেকে এর বর্তমান অবস্থানে হমাশবীর এর প্রথম দোকানটি এই রাস্তায় স্থাপিত হয়, এবং ১৯৭০ থেকে ২০১০ সাল সময়ের মধ্যে ট্রায়াঙ্গেলের অন্য স্থান কিং জর্জ এবং বেন ইয়েহুদা সড়ক সরে যায়।[৪৫]

সিয়োন চত্বরের উত্তর দিকে জেরুসালেম হোস্টেল অবস্থিত। এই বাসস্থানটি ১৯২৬ সালে তেল আভিভ হোটেল হিসেবে খোলা হয় এবং পরে রন হোটেল নামে পরিচিত হয়।[৪৬] ৩ আগস্ট ১৯৪৮-এ মেনাখেম বেগিন ইরগুন এর বিলুপ্ত ঘোষণা করতে এবং ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনী এর সাথে তার সৈন্যদের সাইন আপ করাতে হোটেলটির একটি বারান্দায় দাড়িয়েছিলেন।[৪৬]

সিয়োন চত্বরের পশ্চিমে সানসুর বিল্ডিং অবস্থিত, এটি নির্মিত হয় ১৯২৯ সালে।[১০] এই তিন-তলা বিশিষ্ট অফিস এবং বাণিজ্যিক ভবনটি তৈরি হয়েছে একটি "সারগ্রাহী", নব্য-রেনেসাঁ এবং শাস্ত্রীয় নকশার সমন্বয়ে।[৪৭] এই ভবনটি বেথেলহাম থেকে একজন খ্রিস্টীয় আরব বণিকের জন্য কমিশন করে এবং নামকরণ করা হয়[৮] এবং মূলত এটিতে রয়েছে ক্যাফে ইউরোপ, ১৯৩০ ও ১৯৪০-এর দশকে ইহুদী, আরব ও ব্রিটিশদের পৃষ্ঠপোষকতায় একটি জনপ্রিয় কফিহাউজ।[১০] ১৯৪৭-৪৮ সালে এটি জেরুসালেম ইমারজেন্সি কমিটির জন্য গৃহীত হয়।[৪৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

  1. Glass 2002, পৃ. 289।
  2. כיכר ציבורית מרכזית בליבהּ של ירושלים ומרכז העסקים הראשי [Central public square in the heart of Jerusalem and the main business center] (Hebrew ভাষায়)। allaboutjerusalem.com। ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৪ 
  3. Barrett 1999, পৃ. 175।
  4. Wager, Eliyahu (১৯৮৮)। Illustrated Guide To Jerusalem (ইংরেজি ভাষায়)। Jerusalem Publishing House। পৃষ্ঠা 227। আইএসবিএন 0875592309 
  5. Eisenstadt, David (মে ১৯৯৭)। "The British Mandate" (ইংরেজি ভাষায়)। Ingeborg Rennert Center for Jerusalem Studies। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১৩ 
  6. "The Jerusalem Triangle"। Jerusalem.com। ৫ জুলাই ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১৩ 
  7. Bar-Am, Aviva; Bar-Am, Shmuel (২৪ আগস্ট ২০১৩)। "Haman's Hat: Life in the Jerusalem Triangle"Times of Israel। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  8. Wager 1988, পৃ. 227।
  9. Glass Kark, পৃ. 219।
  10. MacKinnon, Mark (২০০৮)। "Israel at 60, a state of shock"The Globe and Mail। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৩ 
  11. Hermann, Peter (২৭ জানুয়ারি ২০০২)। "Mideast ideologies collide on Jerusalem's Jaffa Road"The Baltimore Sun। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৪ 
  12. Ben Ari, Michal (৭ ডিসেম্বর ২০০৭)। ניפגש בכיכר [Let's Meet in the Square]। Ynetnews (Hebrew ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০১৪ 
  13. Chetrit 2009, পৃ. 110–111।
  14. Pedahzur 2012, পৃ. 148–149।
  15. Balint 2001, পৃ. 46।
  16. "Right-Wing Demonstration at Zion Square"Israel Wire। ১৬ মে ২০০০। ২৮ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪  (subscription)
  17. Gefen 2001, পৃ. 325।
  18. "Anti-Olmert Rally Brings 100,000 to Zion Square"Crown Heights.info। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৪ 
  19. "Anti-Olmert Rally Brings 100,000 to Jerusalem's Zion Square"Israel National News। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। ২৮ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪  (subscription)
  20. Lidman, Melanie (৩০ মে ২০১২)। "J'lem police deny social protesters Zion Square"The Jerusalem Post। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৪ 
  21. Hasson, Nir (২৯ মে ২০১২)। "Jerusalem protesters stopped in their tracks by light rail as Zion Square declared off limits"Haaretz। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০১৪ 
  22. Sheleg, Yair (৩ ডিসেম্বর ২০০১)। "A Short History of Terror"Haaretz। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৪ 
  23. Hagee 2003, পৃ. 35।
  24. Davidson, Amy (২১ আগস্ট ২০১২)। "An Attack in Zion Square"The New Yorker। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  25. Kershner, Isabel (২০ আগস্ট ২০১২)। "Young Israelis Held in Attack on Arabs"The New York Times 
  26. Ramon, Amnon; Yelinek, Aviel; Vitman, Asaf (২০১১)। "Downtown Jerusalem: The story of Jerusalem's city center and its regeneration" (PDF)Jerusalem Institute for Israel Studies। পৃষ্ঠা 5। ৩ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  27. Kreusa-Israel, Hailit (১২ সেপ্টেম্বর ২০১১)। פעם היה פה שמח: געגועים למשולש הזהב של ירושלים [Once It Was Happy Here: Nostalgia for the golden triangle of Jerusalem]। Maariv (Hebrew ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  28. Zohar, Gil (২ মার্চ ২০১২)। "Kikar Zion saved"The Jerusalem Post। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৪ 
  29. "Zion Square 2006"Ron Arad Architects Ltd.। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৪ 
  30. "Zion Square Peace Dome, Jerusalem"YouTube। ১৯ জুন ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৪ 
  31. Zazon, Eli (২০১৬-০৯-১৩)। "Zion Square"Jerusalem Construction News। ২০১৬-০৯-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-১৩ 
  32. "Welcome to Zion Square"। gojerusalem.com। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৪ 
  33. Thomas 2010, পৃ. 132।
  34. "Stepping sideways in Zion Square"। jerusalemite.net। ২৩ জুলাই ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৪ 
  35. Mahdī 2003, পৃ. 71।
  36. Heumann, Gerard (২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "There's no 'there' at Jerusalem's Zion Square"Haaretz 
  37. Bedein, Sara (Fall ২০০২)। "Kikaristim Come Home" (PDF)Jewish Action 
  38. Ha'Ivri, David (১৫ অক্টোবর ২০০৬)। "The Jerusalem You Do Not Want to Know"Israel National News। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৪ 
  39. Berman, Daphna (২১ নভেম্বর ২০০৩)। "Zion Square's West Side Story"Haaretz। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  40. Ivri, Yael (৬ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Square-Dwelling Youths"Ynetnews। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  41. "At-Risk Youth Project"Israel Museum। ২০১৩। ১৪ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৪ 
  42. "Nakash Bros buy hotel in Jerusalem's Zion Square for NIS 80m"Globes। ১ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৪ 
  43. "מלון הרברט סמואל ירושלים" [Herbert Samuel Hotel Jerusalem] (Hebrew ভাষায়)। herbertsamuel.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  44. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; mashbir নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  45. Cashman, Greer Fay (২ নভেম্বর ২০১১)। "J'lem: Landmark Hamashbir dept. store gets new location"The Jerusalem Post। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১৩ 
  46. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; times নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  47. "Sansur Building"Israel Land Development Company। ৩ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৩ 
  48. Joseph 1960, পৃ. 137।

উৎস[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]