সিনকোনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
সিনকোনা
Cinchona.pubescens01.jpg
Cinchona pubescens - flowers
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Plantae
(শ্রেণীবিহীন): Angiosperms
(শ্রেণীবিহীন): Eudicots
(শ্রেণীবিহীন): Asterids
বর্গ: Gentianales
পরিবার: রুবিয়াসিয়াসি
উপপরিবার: Cinchonoideae
গোত্র: Cinchoneae[১]
গণ: সিনকোনা
ক্যারোলাস লিনিয়াস
আদর্শ প্রজাতি
সিনকোনা অফিসিনালিস
ক্যারোলাস লিনিয়াস
প্রজাতি

৩৮ টি প্রজাতি

সিনকোনা যা সাধারণভাবে কুইনা নামে পরিচিত, রুবিয়াসিয়াসি পরিবারের একটি গোত্র যার ২৫ টি প্রজাতি সনাক্ত করা হয়েছে, আদিনিবাস দক্ষিণ আমেরিকার পশ্চিমাংশে অবস্থিত আন্দিজ জঙ্গলে।[২] সামান্য কিছু প্রজাতি মধ্য আমেরিকা, জ্যামাইকা, ফরাসি পলিনেশিয়া, সুলাওয়েসি, দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে অবস্থিত সেন্ট হেলেনা এবন নিরক্ষীয় আফ্রিকার উপকূলে সাঁও টোমে এন্ড পিন্সিপেতে প্রাকৃতিক ভাবে জন্মে। কুইনিনের অল্প কিছু প্রজাতির ঔষধি গুণ আছে। এই সকল গাছের বাকল থেকে কুইনিন এবং অন্যান্য যৌগ আহরণ করা হয়।

বিজ্ঞানী ক্যারোলাস লিনিয়াস ১৭৪২ সালে পেরুর সেই সময়কার ভাইরয়ের পত্নী কাউন্টেস অফ সিনকোন এর নামানুসারে এই বৃক্ষের নামকরণ করেন। যদিও কয়েক শতাব্দী ধরে মানুষ এই গাছের ছালের বাকলের উপকারীতার কথা অবগত ছিলো। সিনকোনা গাছ ইকুয়েডর[৩] এবং পেরুর[৪] জাতীয় বৃক্ষ।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

সিনকোনা গাছ ৫-১৫ মিটার (১৬-৪৯ ফুট) উঁচু হয়। পাতা বিপরীতমুখী, ১০-৪০ সে.মি. লম্বা। ফুল সাদা, গোলাপী বা লাল বর্ণের হয়। ছোট ক্যাপস্যুলের মত ফলের মধ্যে অনেকগুলো বীজ থাকে।

ঔষধী ব্যাবহার[সম্পাদনা]

সিনকোনা গাছে ঔষধি গুণ আবিষ্কার করে পেরু, বলিভিয়া ও ইকুয়েডর অঞ্চলের কুইচুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ। নিম্ন তাপমাত্রায় কম্পন থেকে রক্ষা পেতে তারা দীর্ঘকাল ধরে এই গাছের চাষ করে। ম্যালেরিয়া জ্বরে তীব্র কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসে। এই কাঁপুনি নিরাময়ে তারা সিনকোনা গাছের পাতা ব্যবহার করতো। জেসুইট মিশনারীগণ সিনকোনা গাছ প্রথম ইউরোপে নিয়ে আসে।

বাস্তুবিদ্যা[সম্পাদনা]

লেপিডোপ্টেরা প্রজাতির কিছু লার্ভা সিনকোনা গাছ থেকে খাবার হিসেবে ব্যবহার করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

চাষ[সম্পাদনা]

রসায়ন[সম্পাদনা]

সিনকোনা অ্যালক্যালয়েড[সম্পাদনা]

সিনকোনা অ্যালক্যালয়েডস

সিনকোনা গণের বিভিন্ন গাছের ছাল বিভিন্ন ধরণের অ্যালক্যালয়েডের উৎস হিসেবে কাজ করে। এর মধ্যে সবথেকে পরিচিত রূপ হচ্ছে কুইনিন। একটি এন্টিপাইরেটি (জ্বরনাশক) উপাদান যা বিশেষ করে ম্যালেরিয়া চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। সিনকোনা অ্যালক্যালয়েডসে থাকেঃ

অজৈব রসায়নে অসম্পৃক্ত সংশ্লেষনে এগুলোকে অজৈব প্রভাবক হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

অন্যান্য রাসায়নিক[সম্পাদনা]

অ্যালক্যালয়েডের পাশাপাশি অনেক সিনকোনা গাছের বাকলে সিনকোট্যানিক এসিড পাওয়া যায়, একটি বিশেষ ধরণের ট্যানিন, যা জারণের মাধ্যমে দ্রুত গাঢ় বর্ণের ফ্লোবাফেনে রুপান্তরিত হয়,[৫] যা লাল সিনকোনিক নামে পরিচিত,[৬] সিনকোনো-ফুলভিক এসিড অথবা সিনকোনা লাল নামেও ডাকা হয়।[৭]

Cinchona officinalis, the harvested bark

প্রজাতি[সম্পাদনা]

উদ্ভিদবিজ্ঞানীদের মতে ৩১ প্রজাতির সিনকোনা গাছ পাওয়া যায়। কিন্তু সংকরায়নের মাধ্যমে এর প্রজাতি সংখ্যা বৃদ্ধি করা সম্ভব।

ঔষধি প্রজাতি[সম্পাদনা]

(সিনকোনা রোবুস্টা বিভিন্ন সংকর সুকিরুব্রার সংকর।

অন্যান্য প্রজাতি[সম্পাদনা]

Peru offers a branch of cinchona to Science (from a 17th-century engraving): Cinchona, the source of Peruvian bark, is an early remedy against malaria.
A 19th-century illustration of Cinchona calisaya

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বিস্তারিত পাঠ[সম্পাদনা]

  • Reader's Digest, Strange Stories, Amazing Facts II; Title : "The Bark of Barks" -Reader's digest publication
  • The Journals of Hipólito Ruiz: Spanish Botanist in Peru and Chile 1777–1788, translated by Richard Evans Schultes and María José Nemry von Thenen de Jaramillo-Arango, Timber Press, 1998
  • Druilhe, P., et al.। "Activity of a combination of three Cinchona bark alkaloids against Plasmodium falciparum in vitro"। Antimicrobial Agents and Chemotherapy 32 (2): 25–254। 

তথ্য উৎস[সম্পাদনা]

  1. "Genus Cinchona"Taxonomy। UniProt। সংগৃহীত ২০১০-০২-১৩ 
  2. Motley, Cheryl। "Cinchona and its product--Quinine"Ethnobotanical leaflets। Southern Illinois University Herbarium। সংগৃহীত ১১ জুন ২০১০ 
  3. "Arcoiris Rerserve San Francisco Cloud Forest – Podocarpus National Park"। Arcoiris Ecologic Foundation। সংগৃহীত ১৫ এপ্রিল ২০১৩ 
  4. Deborah Kopka (১২ Jan ২০১১)। Central & South America। Milliken Pub. Co.। পৃ: ১৩০। আইএসবিএন 978-1429122511। সংগৃহীত ১৫ এপ্রিল ২০১৩ 
  5. Henry G. Greenish (১৯২০)। "Cinchona Bark (Cortex Cinchonae). Part 3"A Text Book Of Materia Medica, Being An Account Of The More Important Crude Drugs Of Vegetable And Animal Origin। J. & A. Churchill। এএসআইএন B000J31E44 
  6. Alfred Baring Garrod (২০০৭)। "Cinchonaceae. Part 2"Essentials Of Materia Medica And Therapeutics। Kessinger Publishing। আইএসবিএন 1-4326-8837-5 
  7. "Quinine"Encyclopaedia Britannica (10 সংস্করণ)। ১৯০২। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

 
উইকিমিডিয়া কমন্স অনুসন্ধান
  উইকিমিডিয়া কমন্সে নিচের বিষয় সংক্রান্ত মিডিয়া রয়েছে::