ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(সার্চ ইঞ্জিন থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন বা আন্তর্জাল অনুসন্ধান ব্যবস্থা হল ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব বা আন্তর্জালের দুনিয়াতে যেকোনো তথ্য বা ছবি খুঁজে বের করার প্রযুক্তি মাধ্যম। অনুসন্ধান ইঞ্জিনের মাধ্যমে বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তথ্য সংগ্রহ করে প্রদর্শন করা হয়ে থাকে।

সার্চ ইঞ্জিন[সম্পাদনা]

সার্চ ইঞ্জিন কি সার্চ ইঞ্জিন/ ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন বলতে একটি নিদির্ষ্ট প্রোগ্রামকে বুঝায় যা নিদির্ষ্ট শব্দ বা কিওয়ার্ডের ভিত্তিতে তার সংরক্ষিত বিভিন্ন নথি বা ডকুমেন্টের একটি শ্রেণী বদ্ধ তালিকা তৈরী করে ব্যবহারকারীদের প্রদর্শন করে। বর্তমানে সার্চ ইঞ্জিন বলতে বুঝানো হয় গুগল, ইয়াহু, বিং যা ইন্টারনেটের বিভিন্ন তথ্য খুজে পেতে সহায়তা করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মিনিনসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্ক ম্যাকাহিল নামের একজন ছাত্র গফার নামে একটি অ্যাপ্লিকেশন তৈরী করেন যা টেক্সট ফাইল সমুহ একটি নিদির্ষ্ট ক্রমানুসারে সাজিয়ে রাখবে যা বর্তমানে ইনডেক্স করার সাথে তুলানা করা যেতে পারে এবং পরর্বতীতে খোজ করলে সেখান থেকে তা দেখাবে । ইন্টারনেটে প্রথম সকলের জন্য উন্মুক্ত ওয়েবসাইট তার ই বানানো। আধুনিক সার্চ ইঞ্জিনের ইতিহাস Search Engine বর্তমানে অনেকাংশে পুর্ণতা লাভ করেছে। সার্চ ইঞ্জিনের প্রকারভেদ সার্চ ইঞ্জিন সমুহকে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে বিভিন্ন ভাবে ভাগ করা যায়। প্রাইমারী সেকেন্ডারি টার্গেটেড সার্চ ইঞ্জিনের এই সকল শ্রেণীবিভাগের মুলে রয়েছে তাদের এলগরিদম বা তাদের কার্যপদ্ধতি। প্রাইমারি সার্চ ইঞ্জিন সার্চ ইঞ্জিনের কথা বললে প্রথম যেসকল সার্চ ইঞ্জিনের নাম আপনার মুখে আসে সেগুলোই হচ্ছে প্রাইমারী সার্চ ইঞ্জিন । যেমন গুগল , ইয়াহু,বিং ইত্যাদি। প্রাইমারী সার্চ ইঞ্জিন থেকেই অধিকাংশ ট্রাফিক আপনার সাইটে প্রবেশ করবে । তাই এসইও এর জন্য সর্বাধিক গুরুত্ব এই সকল সার্চ ইঞ্জিনগুলোকেই দিতে হবে । প্রত্যেকটি সার্চ ইঞ্জিন একটি আর একটি থেকে আলাদা। যেমন লাইসোস গুগলের অনেক আগেই তৈরী। কিন্তু গুগল সার্চ ইঞ্জিন জগতে সর্বাধিক জনপ্রিয়। প্রশ্ন আসতে পারে কেন ? কারণ গুগল সর্বাধিক নিখুত প্রদর্শন করে। অধিকাংশ প্রাইমারি সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ ফলাফলের ছাড়াও অন্যান্য অনেক সেবা প্রদান করে। যেমন যেমন ইমেইল সেবা, মানচিত্র, সংবাদ ও বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ্লিকেশন সেবা । এই সেবাগুলো ব্যবহারকারীর সার্চ করার ধরন পাল্টিয়ে দেয় নি কিন্তু ব্যবহারকারীকে নিদির্ষ্ট সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারে উৎসাহিত করেছে। গুগল সার্চ ইঞ্জিনের রাজা বলা যায়। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনে সর্বাধিক গুরুত্ব পাওয়ার কারণ হচ্ছে সর্বাধিক ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন। আর ব্যবহারকারীর কাছে গুগলের গুরুত্ব পাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে নিখুত ফলাফল। গুগল বিভিন্ন ধরনের সেবা প্রদান করে যেমন ইমেইল , পার্সোনালাইজড হোম পেজ কিন্তু গুগলের জনপ্রিয়তার মুল কারণই হচ্ছে এর সার্চ ফলাফলের বিশ্বস্ততা। নিজস্ব এলগরিদমের মাধ্যমে গুগল সর্বাধিক নিখুত ফলাফল প্রদর্শন করে। কোন ওয়েবসাইটকে র‌্যাংকিং এ এগিয়ে রাখবে তার জন্য প্রায় গুগলের ২০০ এর অধিক র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর রয়েছে। পড়ুন : গুগল র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর ইয়াহু সার্চ ইঞ্জিনের পাশাপাশি ইয়াহু ওয়েব ডিরেক্টরি। ওয়েব ডিরেক্টরি বলতে সাধারণভাবে বল যায়, বিভিন্ন ওয়েবপেজের লিষ্ট তৈরী করে তাকে বিভিন্ন ক্যাটাগরী ও সাব- ক্যাটাগরীতে বিভিক্ত করে । ইয়াহুর যাত্রা শুরু হয়েছিল ওয়েব ডিরেক্টরি হিসাবেই । সময়ের সাথে All the Web, Altavista, Overture ইত্যাদি সার্চ ইঞ্জিন হিসাবে পরিচিতি লাভ করে । জেনে অবাক হবেন , গুগল একসময় ইয়াহুর ডিরেক্টরি ব্যবহার করতো লিংক প্রদর্শনের জন্য। বর্তমানে বিভিন্ন এলগরিদম তৈরীর মাধ্যমে গুগল ইয়াহু এর চেয়েও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। এমএসএন বা বিং ইয়াহু বা গুগলের মত পুর্ণতা লাভ করে নি এই সার্চ ইঞ্জিনটি । মুলত কিওয়ার্ডের ঘনমাত্রা ও আরও কিছু বিষয়ের উপর নির্ভর করে সার্চের ফলাফল প্রদর্শন করে। বিভিন্ন ব্যবহারকারীর পছন্দ বলে এটি প্রাইমারী সার্চ ইঞ্জিনের মত গুরুত্ব দেওয়া হয়। সেকেন্ডারী সার্চ ইঞ্জিন সেকেন্ডারী সার্চ ইঞ্জিন মুলত ছোট ও নিদির্ষ্ট উদ্দ্যেশ্যে ব্যবহৃত হয়। যেমন লাইসোস (lycos), আস্ক (Ask) (বিভিন্ন প্রশ্নের সরাসরি উত্তরের জন্য আস্ক), লুকস্মার্ট (LookSmart) ইত্যাদি । অধিকাংশ সেকেন্ডারী সার্চ ইঞ্জিন কিওয়ার্ড , রেসিপ্রোকাল লিংক ও মেটা ট্যাগ সমুহ এর উপর ভিত্তি করে সার্চ ফলাফল প্রদর্শন করে। সেকেন্ডারী ইঞ্জিন সমুহ এসইও পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে যদিও এই সার্চ ইঞ্জিনসমুহ প্রাইমারী সার্চ ইঞ্জিনের মত এত বেশী ট্রাফিক নিয়ে আসবে না । যেমন Aol যদিও অধিকাংশ AOl ব্যবহারকারীদের হারিয়েছে। কিন্তু নিদির্ষ্ট কিছু সংখ্যাক ব্যবহারকারী বিশেষত ব্রড ব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের অনেকেই Aol ব্যবহারে স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করেন । টার্গেটেড সার্চ ইঞ্জিন একেবারে নিদির্ষ্ট কিছু সার্চের জন্য ব্যবহৃত হয়। যেমন Yahoo! Travel,মিউসিক সার্চ, আবার ইউটিউব ও বলতে পারেন । শুধু ভিডিও সার্চের জন্য ইউটিউব । এই সব সাইট থেকে ট্রাফিক খুব কম আসলেও এই গুলো অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ। কারণ এই সব সাইট থেকে টার্গেটেড ট্রাফিক আপনার সাইটে আসবে । আবার কার্যপদ্ধতির উপর নির্ভর করে সার্চ ইঞ্জিনকে ৫ টি ভাগে ভাগ করা যায়। ক্রলার নির্ভর ডাইরেক্টরিস হাইব্রিড ম্যাটা বিশেষায়িত সার্চ ইঞ্জিন ক্রলার নির্ভর স্পাইডারস, ক্রলারস, রোবটস অথবা বোট ইত্যাদি হচ্ছে বিশেষ ধরনের এপ্লিকেশন। এই এপ্লিকেশনগুলো প্রতিনিয়ত এক ওয়েবপেজ থেকে অন্য ওয়েবপেজে ঘুরে বেড়ায় এবং ডাটা বা তথ্য সংগ্রহ করে নিদির্ষ্ট শ্রেনীতে সাজিয়ে রাখে। ব্যবহারকারীর কিওয়ার্ডের উপর ভিত্তি করে সার্চ ফলাফল প্রদর্শন করে। গুগল, আস্ক ইত্যাদি হচ্ছে ক্রলার নির্ভর সার্চ ইঞ্জিন। ডাইরেক্টরিস ডারেক্টরি নির্ভর সার্চ ইঞ্জিনগুলো মুলত বিভিন্ন সাইটের প্রাপ্ত তথ্যকে নিদির্ষ্ট ক্রমানুসারে সজ্জিত রাখে। বুঝার সুবিধার জন্য অনেক ক্ষেত্রে ফোন ডিরেক্টরির সাথে তুলানা করা যেতে পারে। ইয়াহু, ওপেন ডিরেক্টরি (dmoz.org) হাইব্রিড যখন ক্রলার নির্ভর সার্চ ইঞ্জিন এবং ডাইরেক্টরিস সার্চ ইঞ্জিন এক সাথে কাজ করে সেটা হচ্ছে হাইব্রিড সার্চ ইঞ্জিন ।উদাহরণ হিসাবে : ইয়াহু, গুগল ম্যাটা সার্চ ইঞ্জিন ম্যাটা সার্চ ইঞ্জিনগুলো অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন থেকে ফলাফল নিয়ে থাকে এবং সকল ফলাফলকে একত্রিত করে ফলাফল দেখায়। ম্যাটা সার্চ ইঞ্জিনের উদাহরন , যেমন –মেটা ক্রলার, ডগপাইল। স্পেশাল বা বিশেষায়িত সার্চ ইঞ্জিন স্পেশাল সার্চ ইঞ্জিনের প্রধান কাজ নিশ রিলেটেড সার্চের কাঠামো উন্নত করা। এর সংখ্যা কম নয় বরং অসংখ্য , যেমন – যেমন কেনাকাটার জন্য – ফ্রগেল (www.froogle.com) – ইয়াহু শপিং (www.shopping.yahoo.com) – বিজরেট (www.bizrate.com) – প্রাইস গ্রেবার (www.pricegrabber.com) – প্রাইসস্পাই (www.pricespy.co.nz) লোকাল সার্চ – এনজেডপেজ (www.nzpages.co.nz) – পিপিলিকা ডোমেইন নেম খোজার জন্য – আইসার্ভ (www.iserve.co.nz) – ফ্রি পার্কিং (www.freeparking.co.nz) ফ্রিওয়্যার ও সফটওয়্যারের জন্য – টুকাউস (www.tucows.com) – সিনেট ডাউনলোড(www.download.com) সর্বশেষ কিছু কথা : সার্চ ইঞ্জিনের শ্রেণীবিভাগ আরও অনেকভঅবে করা যায় ।প্রতিনিয়ত নতুন নতুন সার্চ ইঞ্জিন তৈরী হচ্ছে। প্রত্যেকটি আলাদা আলাদা কারণে বিখ্যাত। তাই এসইও জন্য সার্চ ইঞ্জিনগুলো সম্পর্কে জ্ঞান রাখা আবশ্যক।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ইন্টারনেট অনুসন্ধান ইঞ্জিনের যাত্রা শুরু হয় ১৯৯০ সালের ডিসেম্বর মাসে। অবশ্য এর আগে ১৯৮৬ সালে হিউলেট প্যাকার্ড প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রথম অনুসন্ধান ইঞ্জিন আবিষ্কৃত হয়। ১৯৯৪ সালে চালু হয় প্রথম পূর্ণ টেক্সট ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন ওয়েবক্রলার [১]

বর্তমানে আমরা সার্চ ইঞ্জিন বলতে যা বুঝি তার উৎপত্তি হয় ১৯৯৩ সালে। ম্যাথু গ্রে ছিলের প্রখম সার্চ ইঞ্জিনের নির্মাতা । এর নাম ছিল ওয়ানডেক্স । ওয়ানডেক্স ই হচ্ছে প্রথম প্রোগ্রাম যা ইনডেক্স পদ্ধতি চালু করে । এবং ওয়েবে ইনডেক্সকৃত পেজগুলোকে ফলাফলে প্রদর্শন করত । এই পদ্ধতিই সকল সার্চ ইঞ্জিনের মুল ভিত্তি। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত সম্ভবত সবগুলো প্রধান সার্চ ইঞ্জিনের উদ্ভব । এক্সাইট (Excite) – ১৯৯৩ সাল ইয়াহু (Yahoo)-১৯৯৪ সাল ওয়েব ক্রলার (Web Crawler) – ১৯৯৪ সাল লাইসোস (Lycos) – ১৯৯৪ সাল ইনফোসিক (info seek) – ১৯৯৫ সাল অ্যাল্টা ভিসদা (Alta Vista)- ১৯৯৫ সাল ইঙ্কটোমি (inkTomy) – ১৯৯৬ সাল আস্ক জেভিস (Ask)- ১৯৯৭ সাল গুগল (Google) – ১১৯৭ সাল এমএসএন সার্চ – ১৯৯৮ সাল এছাড়া বর্তমানে অনেক সার্চ ইঞ্জিন আছে। যেমন DuckDuckgo, Dogpile ইত্যাদি ।

ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন যেভাবে কাজ করে[সম্পাদনা]

অনুসন্ধান ইঞ্জিনের তালিকা[সম্পাদনা]

অনুসন্ধান ইঞ্জিন উৎপত্তি দেশ পরিসেবা বাংলা সংস্করণ
গুগল  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী হ্যাঁ
চরকি  বাংলাদেশ বাংলাদেশ হ্যাঁ
খুঁজুন.কম  বাংলাদেশ বাংলাদেশ হ্যাঁ
পিপীলিকা  বাংলাদেশ বাংলাদেশ হ্যাঁ
ইয়াহু! জাপান  জাপান জাপান না
নাভের  দক্ষিণ কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়া না
ইয়াণ্ডেক্স  রাশিয়া রাশিয়াসাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রগুলি না
ইয়াহু!  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী না
বিং  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী না
এওএল  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র না
বাইডু  গণচীন চীন না
soso  গণচীন চীন না
ডাকডাকগো  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী না
কিওওয়ান্ট  ফ্রান্স বিশ্বব্যাপী না

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [www.professorsbd.com অনুসন্ধান ইঞ্জিন] |url= স্কিম পরীক্ষা করুন (সাহায্য) (২০ তম জুলাই ২০১৩ সংস্করণ)। ৩৪২ পৃষ্ঠার ২য় কলামে: প্রফেসর’স প্রকাশন। পৃ: ৩৪২। 
Nuvola apps kfig.svg প্রযুক্তি বিষয়ক এই নিবন্ধটি অসম্পূর্ণ। আপনি এটি সম্পাদনা করে উইকিপিডিয়াকে সাহায্য করতে পারেন।

২. বিস্তারিত #ITShikkha ওয়েবসাইটে : http://www.itshikkha.com/%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%9A-%E0%A6%87%E0%A6%9E%E0%A7%8D%E0%A6%9C%E0%A6%BF%E0%A6%A8/