সরলা ঠকরাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সরলা ঠকরাল
Sarla Thakral.jpg
সরলা ঠকরাল
জন্ম১৯১৪
নয়া দিল্লী, ভারত
মৃত্যু১৫ মার্চ ২০০৮(২০০৮-০৩-১৫)
দাম্পত্য সঙ্গীপি. ডি. শর্মা , আর.পি ঠকরাল

সরলা ঠকরাল (১৯১৪ - ১৫ মার্চ ২০০৮ [১] ) ছিলেন প্রথম ভারতীয় মহিলা বৈমানিক। [২][৩][৪] ১৯১৪ সালে জন্মগ্রহণ করে, ১৯৩৬ সালে, মাত্র ২১ বছর বয়সে তিনি বিমানের পাইলট হিসাবে লাইসেন্স অর্জন করেছিলেন এবং একটি জিপসি মথ বিমান এককভাবে চালনা করেছিলেন। তখন তার একটি চার বছর বয়সী মেয়ে ছিল। প্রাথমিক লাইসেন্স পাওয়ার পর, তিনি লাহোর ফ্লাইং ক্লাবের মালিকানাধীন বিমানটিকে এক হাজার ঘন্টা চালিয়েছিলেন। তার স্বামী ছিলেন পি.ডি. শর্মা,[৫] যাঁর সাথে তার মাত্র ১৬ বছর বয়সে বিয়ে হয়েছিল। পি.ডি. শর্মা এমন একটি পরিবার থেকে উঠে এসেছিলেন, যেখানে পরিবারের ভিতরে নয়জন পাইলট ছিলেন, এটি ঠকরালকে পাইলট হবার জন্য যথেষ্ট উৎসাহ প্রদান করেছিল। একদিকে শর্মা ছিলেন প্রথম ভারতীয়, যিনি এয়ারমেইল পাইলট লাইসেন্স পেয়েছিলেন, করাচি ও লাহোরের মধ্যে উড়ে চলা বিমানের জন্য, অপরদিকে তার সহধর্মিনী ছিলেন "এ" লাইসেন্স পাওয়া প্রথম ভারতীয় নারী, যাঁর প্রায় ১০০০ ঘন্টারও বেশি বিমান চালানোর অভিজ্ঞতা ছিল। [৬]

দুঃখজনকভাবে, ক্যাপ্টেন শর্মা ১৯৩৯ সালে একটি বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান। এর কিছু সময়ের পর, তার অল্পবয়সী বিধবা স্ত্রী, নিজের বাণিজ্যিক পাইলট লাইসেন্সের প্রশিক্ষণ নেবার জন্য আবেদন করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু এসময় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছিল এবং সিভিল পাইলট প্রশিক্ষণ স্থগিত করা হয়েছিল। নিজের বাচ্চাকে বড় করা এবং নিজের জীবিকা অর্জনের তাগিদে, ঠকরাল তার বাণিজ্যিক বৈমানিক হওয়ার স্বপ্ন ত্যাগ করে লাহোরে ফিরে আসেন এবং সেখানে মেয়ো স্কুল অব আর্টে ভর্তি হন, এখানে তিনি বেঙ্গল স্কুল অফ পেইন্টিং এর উপর প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন এবং ফাইন আর্টসের উপর ডিপ্লোমা অর্জন করেছিলেন।

ঠকরাল আর্য সমাজের একজন নিবেদিত অনুসারী ছিলেন। এটি একটি আধ্যাত্মিক সম্প্রদায় যাঁরা বেদের শিক্ষা অনুসরণ করার জন্য নিজেদের উৎসর্গ করেন।[৭] এই সম্প্রদায়ের মধ্যে, ঠকরালের জন্য পুনর্বিবাহের একটি সম্ভাবনা ছিল।

ভারত ভাগের পর, তিনি তার দুই কন্যার সাথে দিল্লীতে চলে আসেন, যেখানে তার সাথে আর. পি. ঠকরালের পরিচয় হয় এবং তাকে তিনি ১৯৪৮ সালে বিয়ে করেন। সরলা, যিনি মাটি নামেও পরিচিত ছিলেন, একজন সফল মহিলা ব্যবসায়ী এবং চিত্রকর হয়ে উঠেন। তিনি পোশাক-পরিচ্ছদ ও অলংকারের নকশার কাজ শুরু করেন।[৬] তিনি ২০০৮ সালে মৃত্যূ বরণ করেন। [১][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sarla Thakral, in a clear sky"hindi.indiatvnews.com। মে ১৪, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-২৩ 
  2. "First National Pilot Licences: Sarla Thakral – India"। Institute for Women Of Aviation Worldwide। ২০১৫-০৭-২৫। ২০১৭-০৮-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  3. "Women's Day: Top 100 coolest women of all time: 72/100"CNN-IBN। ২০১১-০৩-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  4. "Down memory lane: First woman pilot recounts life story"NDTV। ২০০৬-০৮-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  5. "In 1936, she was the first woman pilot to enter the cockpit in a saree!"NTDTV। ২০১৭-০৯-১৬। ২০১৭-১০-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  6. Ramachandran, Smriti Kak (২০০৬-০২-০৫)। "Flying colours & ground reality"The Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  7. Kulkarni, Jayant (২০০৯-১১-২৫)। "Remember Sarla Thakral's maiden flight of fancy"Daily News and Analysis। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  8. Austa, Sanjay (২০০৩)। "Sarla Thakral - India's First Lady Pilot - Still Flying High"। ২০০৮-১২-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪