সবুজ গম্বুজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মসজিদে নববীর সবুজ গম্বুজ (মদীনা)

সবুজ গম্বুজ (আরবি: القبة الخضراء‎, প্রতিবর্ণী. আল-কুবাহ আল খাদরা’‎) হলো নবী মুহাম্মদ (সা), খলিফা আবু বকর এবং উমরের সমাধির উপরে নির্মিত একটি সবুজ বর্ণের গম্বুজ। গম্বুজটি মদিনার মসজিদে নববীর দক্ষিণ-পূর্ব কোণে অবস্থিত।[১]

কাঠামোটি খ্রিস্টীয় ১২৭৯ সালে গঠিন হয়, যখন সমাধির উপরে একটি কাঠের বর্ণহীন ছোট গম্বুজ তৈরি করা হয়। পরে এটি ১৫ম শতাব্দীর শেষের দিকে এবং ১৮১৭ সালে একবার একবার করে দু'বার বিভিন্ন রঙ ব্যবহার করে পুনর্নির্মাণ এবং আঁকা হয়েছিল। গম্বুজটি সর্বপ্রথম ১৮৩৭ সালে সবুজ রঙে আঁকা হয়েছিল এবং পরে এর জন্য এটি সবুজ গম্বুজ হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মামলুক সুলতান আল মনসুর কালাবুনের শাসনামলে ১২৭৯ খ্রিস্টাব্দে বা ৬৭৮ হিজরিতে এটি নির্মিত হয়,[৩] মূল কাঠামোটি কাঠের তৈরী ছিল এবং বর্ণহীন ছিল,[৪] পরে পুনর্নির্মাণে সাদা এবং নীল রঙে আঁকা হয়। ১৪৮১ সালে মসজিদে এক কঠিন অগ্নিকাণ্ডের পরে, মসজিদের গম্বুজটি পুড়ে যায় এবং ভবিষ্যতে গম্বুজটির পতন রোধ করার জন্য সুলতান কাইতবাই এটি পুনর্নির্মাণের প্রকল্প শুরু করেন, যেখানে বেশিরভাগ কাঠের জায়গা তিনি ইটের কাঠামো দ্বারা প্রতিস্থাপন করেন। আর নতুন কাঠের গম্বুজটির বাইরের অংশে সীসার পাত ব্যবহার করেন। নবীর সমাধিসৌধ সহ এই কাঠামোটি কাইতবাইয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় ব্যাপকভাবে নবায়ন করা হয়েছিল। [৫] বর্তমান গম্বুজটি ১৮১৮ সালে অটোমান সুলতান মাহমুদ ২য় যুক্ত করেন। [১] গম্বুজটি ১৮৩৭ সালে প্রথম সবুজ রঙে আঁকা হয়েছিল। [২]

১৮০৫ সালে যখন সৌদ বিন আবদুল-আজিজ মদিনা দখল করেন, তখন তাঁর ওহাবী অনুসারীরা, মদিনার সকল সমাধি ধ্বংস করেন, কারণ সমাধিতে অলৌকিক ক্ষমতা রয়েছে বলে মানুষ মনে করতো আর এটি ছিলো তাওহীদের একদম বিপরিত। [৬] মুহাম্মদ (সা) এর সমাধি থেকে স্বর্ণ ও রত্ন অলংকার সরিয়ে দেয়া হয়েছিল, তবে গম্বুজটি টিকে যায়। এর কারণ হয় এটির শক্ত কাঠামোটি ভাঙতে তারা ব্যর্থ চেষ্টা হয়েছিলো, অথবা ইবনে আবদ-ওয়াহহাব লিখেছিলেন যে, সমাধির জায়গায় মানুষদের নামাজ পড়া সত্ত্বেও; তিনি গম্বুজটি ধ্বংস হওয়া দেখতে চাননি। [৭] ১৯২৫ সালে যখন সৌদি মিলিশিয়ারা পুনরায় মদিনা দখল করতে সক্ষম হয়, তখনও একই ঘটনা ঘটে। [৮][৯][১০] ২০০৭ সালে, ইনডিপেনডেন্টের তথ্য অনুসারে , সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি কর্তৃক অনুমোদিত এবং সৌদি ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দ্বারা প্রকাশিত একটি পত্রিকা বলেছিল যে "সবুজ গম্বুজটি ভেঙে দেওয়া হবে এবং তিনটি কবর মসজিদে নববীর সাথে সমতল করে দেয়া হবে"। তবে চরম প্রতিক্রিয়া ও বিশ্বব্যাপী ব্যাপক বিক্ষোভের আশঙ্কার কারণে এটি কার্যকর করা যায়নি। [১১]

মুহাম্মদ (সা) এর সমাধি[সম্পাদনা]

হুজরার দিক থেকে দৃশ্য।
ভিতরে অবস্থিত মুহাম্মদ (সা) এর কবর এখান থেকে দেখা যাচ্ছে।

মুহাম্মদ (সা) এর কবরটি তাঁর এবং তাঁর স্ত্রী আয়েশার বাড়ীর মধ্যে ছিলো। তাঁর জীবদ্দশায় এটি মসজিদ সংলগ্ন ছিলো। খলিফা প্রথম আল-ওয়ালিদের আমলে তাঁর সমাধিটি মসজিদ সম্প্রসারণের সাথে মসজিদের ভিতরে অন্তর্ভুক্ত হয়। [২] গম্বুজটির পবিত্রতা মুহাম্মদ (সা) এর কবরের জন্যই হয়েছে বলে বলা হয়। [১২] প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ মক্কার হাজীরা মসজিদটি দেখার জন্য আসে। প্রথম দুই খলিফা আবু বকরউমরকে মুহাম্মদ (সা) এর পাশের কবর দেওয়া হয়। হযরত উমর (রাঃ) এর পরে মুহাম্মদ (সা) এর পাশে একটি জায়গা পেয়েছিলেন, যা আয়শার অনুমতি সাপেক্ষেই হয়েছিলো। এই জায়গাটি সোনার জ্বাল এবং কালো পর্দা দ্বারা আবদ্ধ হয়ে থাকায় মুহাম্মদ (সা) এর কবরটি দেখা যায় না [১২]

সূর্যাস্তের সময় সবুজ গম্বুজ এবং মসজিদে নববী।

গম্বুজের বিরোধিতা[সম্পাদনা]

হিজরী দ্বাদশ শতাব্দীতে এর আবির্ভাবের পর থেকে, সালাফীরা কবরের উপর গম্বুজ নির্মাণের বিরোধিতা করেছে এবং তারা আল - বাক্বীতে সাহাবায়ে কেরাম এবং ঘরের পরিবারের কবরের উপর অবস্থিত সমস্ত গম্বুজ ধ্বংস করেছে। আয়েশার ঘর মসজিদের অংশ নয়, যেমন মুকবিল বিন হাদি আল-ওয়াদিই বলেছেন: “এর পর, আমি নিঃসন্দেহে বলি যে, মুসলমানদেরকে নবীর মসজিদকে পূর্ব দিক থেকে ফিরিয়ে আনতে হবে যেমনটি নবীর যুগে ছিল, যাতে কবরটি মসজিদের ভিতরে না থাকে, এবং তাদের অবশ্যই অপসারণ করতে হবে। এটি সেই গম্বুজ যার বিরুদ্ধে অনেকে প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে... তাই আমাদের, মুসলমানদের, কবরের উপর নির্মিত সেই গম্বুজগুলি নিয়ে ভাবা,উচিৎ, যাতে আমরা তাদের মাটি থেকে সরিয়ে দিতে পারি।"[১৩]

সালেহ বিন মুকবিল আল-উসাইমি বলেছেন: “আট শতাব্দী ধরে এই গম্বুজটি অব্যাহত থাকার অর্থ এই নয় যে এটি জায়েয হয়ে গেছে, বা এর অর্থ এই নয় যে এটি সম্পর্কে নীরবতা এটির সমর্থন বা এর অনুমোদনের প্রমাণ। বরং মুসলিম শাসকরাদের এটিকে অবশ্যই অপসারণ করতে হবে, এবং ভবিষ্যদ্বাণীর যুগে যে অবস্থা ছিল তা পুনরুদ্ধার করতে হবে এবং মসজিদের গম্বুজ এবং অলঙ্করণ ও শিলালিপি অপসারণ করতে হবে এবং যার উপরে রয়েছে মসজিদুল হারাম, যতক্ষণ না এর ফলে একটি সমস্যা না হয়। এর চেয়েও বড় রাষ্ট্রদ্রোহিতা, এবং এর ফলে যদি আরও বড় রাষ্ট্রদ্রোহ হয়, তাহলে সুযোগ পেলেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করার দৃঢ় সংকল্প নিয়ে শাসকের অপেক্ষা করা উচিত।”[১৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Petersen, Andrew (২০০২-০৩-১১)। Dictionary of Islamic Architecture। Routledge। পৃষ্ঠা 183আইএসবিএন 9780203203873 
  2. Ariffin, Syed Ahmad Iskandar Syed (২০০৫)। Architectural Conservation in Islam : Case Study of the Prophet's Mosque। Penerbit UTM। পৃষ্ঠা 88–89,109। আইএসবিএন 9789835203732 
  3. "Prophet's Mosque"ArchNet। ২০১২-০৩-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-১৩ 
  4. "The history of Green Dome in Madinah and its ruling"। Peace Propagation Center। ৪ জুন ২০০৯। ২৪ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-১৩ 
  5. Meinecke, Michael (১৯৯৩)। Mamlukische Architektur। পৃষ্ঠা 396–442। 
  6. Encyclopaedia of Islam 
  7. Mark Weston (২০০৮)। Prophets and princes: Saudi Arabia from Muhammad to the present। John Wiley and Sons। পৃষ্ঠা 102–103। আইএসবিএন 978-0-470-18257-4 
  8. Mark Weston (২০০৮)। Prophets and princes: Saudi Arabia from Muhammad to the present। John Wiley and Sons। পৃষ্ঠা 136। আইএসবিএন 978-0-470-18257-4 
  9. Vincent J. Cornell (২০০৭)। Voices of Islam: Voices of the spirit। Greenwood Publishing Group। পৃষ্ঠা 84। আইএসবিএন 978-0-275-98734-3 
  10. Carl W. Ernst (২০০৪)। Following Muhammad: Rethinking Islam in the Contemporary World। Univ of North Carolina Press। পৃষ্ঠা 173–174। আইএসবিএন 978-0-8078-5577-5 
  11. Jerome Taylor (২৪ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Mecca for the rich: Islam's holiest site 'turning into Vegas'"The Independent। independent.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-১৩ 
  12. "Important Sites: The Prophet's Mosque"Inside Islam (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১২-০২-১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-১৩ 
  13. حكم القبة المشيدة على قبر الرسول صلى الله عليه وسلم، من كتاب رياض الجنة، تأليف: مقبل بن هادي الوادعي، بإشراف: حماد الأنصاري، ص41.
  14. القبة الخضراء في المدينة ، تاريخها ، وحكم بنائها ، وبقائها الإسلام سؤال وجواب ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৬-০৮-১৬ তারিখে

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]