শেহনাজ শেখ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শেহনাজ শেখ
জন্ম
কালাও, বার্মা ( বর্তমান মিয়ানমার)
মাতৃশিক্ষায়তনন্যাশনাল কলেজ অব আর্টস
পেশাঅভিনেত্রী, নাট্য পরিচালিকা
কর্মজীবন১৯৮০–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীসিরাত হাজির (বি. ১৯৮২)[১]
সন্তান

শেহনাজ শেখ হলেন একজন পাকিস্তানি টেলিভিশন অভিনেত্রী, উপস্থাপিকা এবং নাট্য পরিচালিকা।[২] তিনি ধারাবাহিক নাটক তানহাইয়ান ও আঁকাহির পাশাপাশি আঙ্কেল সারগাম অনুষ্ঠানেও উপস্থিত হয়েছিলেন। সফল টেলিভিশন কর্মজীবনের পরে তিনি ১৯৯০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে টেলিভিশন শিল্পটি ছেড়ে দিয়ে অবসর গ্রহণ করেছেন। [৩]

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

শেহনাজ শেখ বার্মার কালাওতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং পরে ১৯৬৫ সালে জাতিসংঘের শরণার্থী হিসেবে পাকিস্তানে চলে গিয়েছিলেন এবং তিনি তার খালা ধ্রুপদী সঙ্গীতশিল্পী সাফিয়া বেগসহ তার পরিবারের সাথে পাকিস্তানের লাহোরে বসবাস শুরু করেন। তিনি লাহোরের কনভেন্ট অফ জেসাস অ্যান্ড মেরিতে পড়াশোনা করেছিলেন এবং তারপরে ন্যাশনাল কলেজ অফ আর্টস থেকে চারুকলায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন।[৪]

ব্যক্তিজীবন[সম্পাদনা]

শেহনাজ শেখ ১৯৮২ সালের ২৪ ডিসেম্বরে পাকিস্তানি টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব সিরাত হাজিরকে বিয়ে করেছিলেন। তাদের দুইটি ছেলে আছে। তিনি তার পরিবারের সাথে লাহোরে থাকেন। তিনি প্রথমে লাহোরের আইচিসন কলেজ এবং তারপর লাহোর গ্রামার স্কুলে ১৮ বছরেরও বেশি সময় ধরে শিশুনাট্য শিখানো এবং পরিচালনার কাজ করছেন।[৫]

২০০৫ সালের নভেম্বর মাসে তিনি তার স্বামীর সাথে উত্তর পাকিস্তানের ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার জন্য ফেম নামক একটি কল্যাণমূলক সংস্থার সাথে কাজ করেছিলেন।[৬][৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Everlasting love: This Valentine's Day we celebrate four power couples"। ২৬ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০১৯ 
  2. "Shehnaz sheikh biography"। ২৭ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  3. "Remember the glory"। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  4. "Once Upon A Time…"। সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. "Destiny's child"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩ 
  6. "FAME launched at Depilex to help quake victims"। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩ 
  7. "All for a noble cause"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩