শাহজাহানপুর ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
শাহজাহানপুর
ইউনিয়ন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ সিলেট বিভাগ
জেলা হবিগঞ্জ জেলা
উপজেলা মাধবপুর উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
স্থাপিত ১৯৯৯
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

শাহজাহানপুর ইউনিয়ন বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

শাহজাহানপুর ইউপি আয়তনে মাধবপুর উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন। এর আয়তন প্রায় ১২ বর্গকিলোমিটার। এটি ভারতের ত্রিপুরা সীমান্তঘেষা পাহাড়ী এলাকা,চা বাগান, টিলা ও সমতলভূমির সমন্বয়ে গঠিত একটি দর্শনীয় পর্যটন সমৃদ্ধ ইউনিয়ন। এর উত্তর-পশ্চিমে জগদীশপুর ইউপি, পশ্চিমে আন্দিউড়া ইউপি, দক্ষিণ-পশ্চিমে বহরা ইউপি, উত্তর-পূর্বে চুনারুঘাট উপজেলার আমতলী ইউপি ও দক্ষিণ -পূর্বে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সীমান্ত এলাকা অবস্হিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের সাথে অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে আছে শাহজাহানপুর ইউপি'র নাম। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে গুরুত্বের দিক থেকে মুজিবনগরের পরই এই ইউপি'র তেলিয়াপাড়া চা বাগানের অবস্হান। কিন্তু কোন এক অজানা কারণে এই ইউনিয়নটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস স্মরণ ও তাৎপর্যের দিক থেকে অবহেলিত। ১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল এই ইউপি'র তেলিয়াপাড়া চা বাগানের ম্যানেজারের বাঙলোয় মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এমএজি ওসমানীর নেতৃত্বে ১১টি সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার, অনেক জাতীয়, হবিগঞ্জ তথা সিলেটের জাতীয় নেতৃবৃন্দসহ স্হানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ইউপি'র কৃতি সন্তান জনাব খোরশেদ আলম চৌধুরী, জনাব দেওয়ান আশ্রব আলী ও জনাব আব্দুস সাত্তার মেম্বার প্রমুখ উপস্হিত ছিলেন।

ভৌগোণিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

পাহাড়ী মৃত্তিকায় গঠিত এই অঞ্চলটি।

প্রশাসনিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়টি টি মৌজার টি গ্রামের সমন্বয়ে গঠিত।

  • গ্রাম -

জনসংখ্যা উপাত্ত[সম্পাদনা]

নির্বাচিত জন-প্রতিনিধি[সম্পাদনা]

শিক্ষাব্যবস্থা[সম্পাদনা]

আয়তনে মাধবপুর উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দিক থেকে যথেষ্ট পিছিয়ে আছে এই ইউনিয়নটি। এখানে একটিমাত্র উচ্চ বিদ্যালয়, ২টি নিম্ন মাধ্যমিক আলিয়া মাদ্রাসা, ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়,২টি কিন্ডার গার্টেন, ১টি হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও ব্র্যাক পরিচালিত কয়েকটি উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা কেন্দ্র রয়েছে।

স্বাস্থ্যসেবা[সম্পাদনা]

কৃষি[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়ন কৃষিপ্রধান অর্থনীতি নির্ভর। তবে এর একটি বড় অংশের মানুষ চা শিল্পের সাথে জড়িয়ে জীবন নির্বাহ করছে। এছাড়া এখানকার অধিবাসীদের একটা ছোট অংশ সরকারী- বেসরকারী বিভিন্ন চাকুরীতে নিয়োজিত আছে। অধিবাসীদের অনেকে ইউরোপ- আমেরিকাসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে অবস্হান করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে এবং পরিবার তথা রাষ্ট্রীয় অর্থনীতির চাকা সচল রাখছে। এই ইউনিয়নে বর্তমানে কয়েকটি বস্ত্রকল গড়ে উঠেছে।

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

কৃতি ব্যক্তিত্ত্ব[সম্পাদনা]

১. জনাব শাহ্ চাঁন মিয়া চৌধুরী (র:): শাহজাহানপুর ইউপি'র প্রখ্যাত পীর, আউলিয়ায়ে কামেল জনাব শাহ্ চাঁন মিয়া চৌধুরী (র:) সুরমা গ্রামের বিখ্যাত চৌধুরী পরিবারের সন্তান। তিনি বংশগত পীর না হলেও নিজস্ব আমল আখলাক ও সাধনার দ্বারা আল্লাহ'র দিদার লাভ করেন ও অনেক অলৌকিক ঘটনার জন্ম দেন। বর্তমানে তার ওফাত গমনের পরও দেশ-বিদেশের তার অগণিত অনুসারী ও ভক্তবৃন্দ ওনার রওজা মোবারক দর্শন করেন এবং উনার সম্মানে প্রতি বছর ফাল্গুন মাসের প্রথম রবিবার ওরছ মোবারকে মিলিত হন। ব্যক্তিগত জীবনে নি:সন্তান ছিলেন তিনি। বংশের দিক থেকে সাবেক চেয়ারম্যান জনাব পারভেজ হোসাইন চৌধুরী,র ছোট দাদা হন তিনি।


২. জনাব মো: রফিকুল আলম চৌধুরী: শাহজাহানপুর ইউপি'র বিখ্যাত সুরমা চৌধুরী বাড়ি'র কৃতি সন্তান শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব রফিকুল আলম চৌধুরী ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিণীর হাতে শহীদ হন। তিনি প্রয়াত সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব শফিকুল আলম চৌধুরী ও ইউপি'র বর্তমান চেয়ারম্যান জনাব তৌফিক আলম চৌধুরী'র সহোদর।

৩. বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আলম চৌধুরী: বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আলম চৌধুরী সুরমা গ্রামের বিখ্যাত চৌধুরী পরিবারের সন্তান। তিনি ২ মেয়াদে শাহজাহানপুর ইউপি চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন। তিনি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এবং বিএনপি'র মাধবপুর উপজেলা কমিটির সভাপতি পদেও আসীন হয়েছিলেন।

৪. জনাব মোঃ আব্দুর রাজ্জাক: উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জনাব আব্দুর রাজ্জাক শাহজাহানপুর ইউনিয়নের উত্তর সুরমা (গোয়াছনগর) গ্রামের কৃতি সন্তান। তিনি ইউপি'র সর্বাধিক তিন মেয়াদে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

দর্শনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা[সম্পাদনা]

১।তেলিয়াপাড়া চা বাগানে অবস্হিত ৩,৪ও ৫ নং সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরনে নির্মিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সৌধ।

২। তেলিয়াপাড়া রেলস্টেশন বাজারে অবস্হিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধ।

৩. তেলিয়াপাড়া চা বাগান।

৪. মতান্তরে বাংলাদেশের বৃহৎ- সুরমা চা বাগান

৫।হযরত শাহ চাঁন মিয়া চৌধুরী (র:) এর মমাজার শরীফ, সুরমা সাহেববাড়ী

৬।শাহপুর শাহনুর(র:) এর মাজার, যেটি ইউনিয়নের দক্ষিণ প্রান্তের শাহপুর রেলস্টেশন থেকে প্রায় ১.৫ কিলোমিটার পূর্বে অবস্হিত।

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]