শাস্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আধুনিক কারাগারের ঘর
কাঁটাতারের জেলের বৈশিষ্ট্য।
স্টার এ হস্টার প্রিন - ১৮৭৮ সংস্করণের একটি খোদাই করা চিত্র
হাঙ্গেরিতে একজন অপরাধীর শাস্তি, ১৭৯৩

অন্য ব্যবহারের জন্য শাস্তি (দ্ব্যর্থতা নিরসন)

শাস্তি হল একটি দল বা কোনো ব্যক্তির উপর অনাকাঙ্ক্ষিত বা অপ্রীতিকর পরিণতি চাপিয়ে দেওয়া। যা নির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্বারা দেওআ হয় করা। শাস্তি শিশুর বিচার থেকে শুরু করে ফৌজদারি আইন পর্যন্ত দেওয়া হয়। শাস্তি কোন নির্দিষ্ট ক্রিয়া বা অনুশীলনের প্রতিক্রিয়া হিসেবে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত বা অগ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত। কোন শিশুকে আত্ম-বিপন্ন হওয়া থেকে রক্ষা করা, সামাজিক আনুগত্যের দিকে ফিরিয়ে আনা (বিশেষত বাধ্যতামূলক শিক্ষা বা সামরিক শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে), রক্ষার জন্য, ভবিষ্যতের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করা (বিশেষত, যারা সহিংস অপরাধ থেকে রক্ষা পায়) ইত্যাদি কারনে শাস্তি বিধান করা হয়। এবং আইন বজায় রাখার এবং আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধার (যার অধীনে সামাজিক গোষ্ঠী পরিচালিত হয়) লংঘন হলেও শাস্তি দেওয়া যায়।[১][২][৩][৪][৫] ধর্মীয় স্থিতি অনুযায়ী শাস্তি স্ব-উজ্জীবিত ও মাংসের দেহরূপ (উপমা হিসেবে ব্যবহৃত) হিসাবে স্ব-আক্রান্ত হতে পারে। তবে এটি প্রায়শই সামাজিক বাধ্যতার এক রূপ।

অপ্রীতিকর ভাবে চাপিয়ে দেওয়া বা শাস্তি হিসেবে অর্থ জরিমানা, জরিমানা বা কারাবাস অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। আবার আনন্দদায়ক বা কাঙ্ক্ষিত কিছু অপসারণ করানো হতে পারে, যা স্বতন্ত্র ব্যক্তি এমনকি একটি প্রাণীও হতে পারে। কর্তৃপক্ষ গোষ্ঠী বা একক ব্যক্তি হতে পারে এবং আইন-শৃঙ্খলার আওতায় আনুষ্ঠানিকভাবে শাস্তি দেওআ যেতে পারে। অথবা পরিবারের মধ্যে যেমনঃ অন্যান্য ধরনের সামাজিক বিন্যাসে অনানুষ্ঠানিকভাবে শাস্তি কার্যকর করা যেতে পারে।[৬] নেতিবাচক ফলাফল যা অনুমোদিত নয় এবং নিয়ম লঙ্ঘন ছাড়া পরিচালিত হয় এমন বিষয় এখানে শাস্তি হিসাবে সংজ্ঞায়িত হবে না।[৭] অপরাধের শাস্তির অধ্যয়ন ও অনুশীলনকে (বিশেষত এটি কারাবাসের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য) বলা হয় দন্ডবিজ্ঞান। অথবা, প্রায়ই আধুনিক গ্রন্থগুলিতে এই শাস্তি প্রক্রিয়াটিকে উচ্চারণমূলকভাবে "সংশোধন প্রক্রিয়া" বলা হয়।[৮] শাস্তির বিষয়ে গবেষণা প্রায়ই অপরাধ প্রতিরোধ নিয়ে কাজ করে ও একই রকম গবেষণা দন্ডবিজ্ঞানয় অন্তর্ভুক্ত করে।

শাস্তির ন্যায্যতার মধ্যে রয়েছেঃ প্রতিশোধ, প্রতিরোধ, পুনর্বাসন এবং অক্ষমতা। সর্বশেষে বিচ্ছিন্নতার মতো ব্যবস্থাগুলো শাস্তির ভিতরে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। যার ফলে অপরাধীরা সম্ভাব্য শিকারের সাথে যোগাযোগ রাখতে না পারে বা অপরাধকে আরও কঠিন করার জন্য কোন ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। চারটি নায্যতার মধ্যে কেবলমাত্র প্রতিশোধই শাস্তির সংজ্ঞার অংশ এবং অন্য কোন নায্যতা কোন উপযুক্ত ফলাফল নিয়ে আসে না।[৯] মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির মতো স্পষ্ট ব্যতিক্রমকে বাদ দিয়ে আরো অন্য অপরাধ সম্পর্কিত ক্ষেত্রে নায্যতাগুলো অক্ষম হয়ে পড়েছে।[৭]

শাস্তির সংজ্ঞায় অন্তর্ভুক্ত কয়েকটি শর্ত যদি উপস্থিত থাকে তবে "শাস্তি" ব্যতীত অন্যান্য বর্ণনাকে আরও সঠিক হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। কর্তৃপক্ষ ব্যতীত অন্য কেউ যদি কোন ব্যক্তি বা প্রাণীর উপর নেতিবাচক বা অপ্রীতিকর কোনও কিছু চাপিয়ে দেয়, তবে তা শাস্তির পরিবর্তে প্রতিশোধ বলে বিবেচিত হয়।[৭] এছাড়াও, "শাস্তি" শব্দটি রূপক হিসাবে ব্যবহৃত হয়, যেমনঃ কোন লড়াইয়ের সময় বক্সিংয়ে "শাস্তি" পাওয়া যায়। অন্যান্য পরিস্থিতিতে, কোন বিধি ভঙ্গ করা পুরস্কৃত হতে পারে। এবং তাই এই জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্তি শাস্তি হিসাবে গন্য হয় না। পরিশেষে শাস্তি হিসাবে বিবেচিত হওয়ার জন্য নিয়ম ও শর্তগুলো লঙ্ঘন করতে হবে।[৭]

শাস্তিগুলি তাদের তীব্রতার মাত্রা অনুযায়ী পৃথক হয়।[১০] এবং এতে তিরস্কার, সুযোগ সুবিধা বা স্বাধীনতা বঞ্চিতকরণ, জরিমানা, কারাবাস, অপমান, ব্যথার ছাপ, মৃত্যুদণ্ড এবং মৃত্যুদণ্ডের মতো নিষেধাজ্ঞাগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। শারীরিক শাস্তি বলতে এমন শাস্তি বোঝায় যেখানে সীমা লঙ্ঘনকারীকে শারীরিক ব্যথা দেওয়া হয়। শাস্তিগুলিকে অপরাধ হিসাবে তাদের পারস্পরিক সামঞ্জস্যতা এবং আনুপাতিকতার মাত্রা অনুযায়ী এর বিচারে নায্য বা অন্যায় হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। শাস্তি সামাজিকীকরণের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। এবং অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণের জন্য শাস্তি প্রায়শই শিক্ষানবিশ বা আচরণগত পরিবর্তনের একটি পদ্ধতি যাকে পুরষ্কার হিসেবেই অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।[১১]

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

দর্শন অনুযায়ী[সম্পাদনা]

বিভিন্ন দার্শনিক শাস্তির বিভিন্ন সংজ্ঞা উপস্থাপন করেছেন।[৬][৭][১০][১২][১৩] শাস্তি হিসাবে কোন ক্রিয়াকে বর্ণনা করার জন্য সাধারণত যথাযথভাবে প্রয়োজনীয় বিবেচিত শর্তগুলি হলঃ

  1. এটি কর্তৃপক্ষ দ্বারা আরোপিত হয়,
  2. এটির সাথে অপরাধীর ক্ষতি জড়িত,
  3. এটি অপরাধের প্রতিক্রিয়া হিসাবে দেওয়া হয় এবং
  4. যে লোকের (বা অন্যান্য প্রাণী) ক্ষতি করা হয়েছে তাকে অপরাধের জন্য কমপক্ষে কিছুটা হলেও দায়বদ্ধ বলে মনে করা হয়।

মনোবিজ্ঞান অনুযায়ী[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধঃ শাস্তি (মনোবিজ্ঞান)

বি.এফ. স্কিনার দ্বারা প্রবর্তিত, শাস্তির আরও নিয়ন্ত্রনমূলক এবং প্রযুক্তিগত সংজ্ঞা রয়েছে। আরো মজবুত সংজ্ঞার পাশাপাশি এটি অপারেন্ট কন্ডিশনিং বিভাগেরও অন্তর্গত। অপারেন্ট কন্ডিশনিং বলতে বোঝানো হয় শাস্তি (প্রায়ই নেতিবাচক হিসাবে বিভ্রান্ত হয়) এমন একটি পুরষ্কার যা বিভিন্ন পাঠ্য শেখার ইতিবাচক শক্তি হিসাবে কাজ করে।[১৪] মনোবিজ্ঞানে শাস্তি হল অপ্রীতিকর উদ্দীপনা প্রয়োগের ("ইতিবাচক শাস্তি") বা একটি আনন্দদায়ক উদ্দীপনা অপসারণ ("নেতিবাচক শাস্তি") এর মাধ্যমে খারাপ আচরণ হ্রাস করা। অতিরিক্ত কাজ হল ইতিবাচক শাস্তির উদাহরণ। যখন কোনও অপরাধ করা শিক্ষার্থীর অবকাশ অপসারণ করা হয় তখন এটি নেতিবাচক শাস্তির উদাহরণ। সংজ্ঞাটি কেবল আচরণ সম্পর্কিত শাস্তি দ্বারা আলোচিত। আসলে বিষয়টি হল আপত্তিকর আচরণ যদি না কমে, তবে এটি শাস্তি হিসাবে বিবেচিত হবে না। শাস্তি ও বিপর্যয়ের কিছু পার্থক্য রয়েছে, যদি কোনো শাস্তি খারাপ আচরণ হ্রাস করে না তবে এমন মনোভাব মনোবিজ্ঞানে শাস্তি হিসাবে বিবেচিত হয় না।[১৫] আরো বলা যায়, আচরণবিদরা সাধারণত শাস্তিদাতার পরিবর্তে নেতিবাচক পুনর্বহালকারীদের ক্ষেত্রে "বিপর্যস্ত উদ্দীপনা" (এড়ানো শেখার ক্ষেত্রে) প্রয়োগ করেন।

সামাজিক-জীববিদ্যা অনুযায়ী[সম্পাদনা]

ইংল্যান্ডের ল্যাঙ্কাশায়ার চ্যাপেলটাউনে গ্রামের পুরানো স্টক

শাস্তিকে কখনও কখনও প্রতিশোধমূলক বা নৈতিকতাবাদী[১৬] আগ্রাসন বলা হয়।[স্পষ্টকরণ প্রয়োজন] এটি সামাজিক প্রজাতির সমস্ত প্রানীর প্রজাতিতে দেখা গেছে, যা বিবর্তনবাদী জীববিজ্ঞানীদের সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে যে, এটি একটি বিবর্তনমূলক স্থিতিশীল কৌশল। এবং এটি সহযোগিতামূলক আচরণের পক্ষে নির্বাচিত কারণ।[১৭][১৮]

সামাজিক-জীববিদ্যা ব্যবহারের বিরুদ্ধে উদাহরণ[সম্পাদনা]

সমস্ত সামাজিক প্রাণীর শাস্তির জন্য বিবর্তনমূলকভাবে কঠোর হওয়ার একটি সমালোচনা প্রাণীর অধ্যয়ন থেকে আসে। যেমনঃ ইতালির কপ্রির নিকটবর্তী অক্টোপাস যা হঠাৎ করেই একাকী জীবন যাপন করে সাম্প্রদায়িক সংস্কৃতি সৃষ্টি করেছিল। ভারী মাছ ধরার মৌসুমে এবং পর্যটনকালীন সময়ে যা তাদের অঞ্চলটিতে ছড়িয়ে পড়েছিল। তারা একে অপরের কাছ থেকে বিশেষ শিকারের কৌশল শিখতে শুরু করে দলে দলে বসবাস শুরু করেছিল। ছোট ও অল্প বয়স্ক অক্টোপাসগুলো তাদের দ্বারা খাওয়া ছাড়াই সম্পূর্ণরূপে বেড়ে ওঠা অক্টোপাসগুলির কাছাকাছি থাকতে পারতো। যদিও তারা অন্যান্য যেমনঃ অক্টোপাস ভালগারিসের মতো দল গঠনের ঠিক আগে পর্যন্ত নরখাদক ছিল। লেখকরা জোর দিয়েছিলেন যে, আচরণের পরিবর্তন খুব দ্রুত ঘটেছিল, যা অক্টোপাসগুলোতে একটি জেনেটিক বৈশিষ্ট্য সৃষ্টি করে। এবং নিশ্চয়ই সেখানে স্তন্যপায়ী বা অন্যান্য সামাজিক প্রাণীর সাথে জড়িত নৃশংসতার জন্য অক্টোপাসগুলিকে "স্বাভাবিকভাবে" শাস্তি প্রদান করা হয়নি। লেখকরা আরও লক্ষ করেন যে, অক্টোপাসগুলোর জন্য বিশেষায়িত অভিযোজনের কোনও বিবর্তনীয় ইতিহাস ছাড়াই তারা পর্যবেক্ষণমূলক শিক্ষাকে গ্রহণ করেছিল।[১৯][২০]

পোকামাকড়ের মতো খুব ছোট-মস্তিষ্কযুক্ত প্রাণীতে শাস্তির অধ্যয়নের জন্য বুদ্ধির প্রয়োজন। এমন শাস্তির ধারণার বিরুদ্ধেও তর্কও রয়েছে। মধু মৌমাছি কর্মীদের এমন মিউটেশনের প্রমাণ রয়েছে যা কেবলমাত্র অন্যান্য মধু মৌমাছিরা তাদেরকে লালন-পালন না করেই ডিম দেওয়ার সময় করে তোলে এবং যে কয়েকজন এই অপরাধে ধরা পড়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] যার জন্য তাদের হত্যা করা হয়। কম্পিউটারের সিমুলেশনের দ্বারা এটি প্রমাণিত হয়েছে যে, পোকামাকড়ের সীমিত বুদ্ধির মূলধারার মতামতগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি সাধারণ প্রতিক্রিয়া "রাজনৈতিক" আচরণ অনুকরণ করার জন্য যথেষ্ট। লেখকরা যুক্তি দেখিয়েছেন যে এটি দাবীটিকে মিথ্যা বলে প্রমাণ করে। যে শাস্তিটি তারা পেয়েছে তা কী করার জন্য পেয়েছে তা জানার পক্ষে সক্ষম ব্যক্তিদের মোকাবেলা করার কৌশল হিসাবে এই আচরণ বিকশিত হয়েছিল।[২১]

আরও জটিল মস্তিষ্কের ক্ষেত্রে, ইচ্ছাকৃতভাবে নির্বাচিত নিয়মের লঙ্ঘন এবং/অথবা উদ্দেশ্যমূলক বাছাই করতে সক্ষম অন্যায়কারীদের নির্দিষ্ট শাস্তি দেওয়ার জন্য বিবর্তনের ধারণা (উদাহরণস্বরূপ, প্রাণঘাতী ভাইরাসের শাস্তি না দেওয়া যেখানে খুনের জন্য মানুষকে শাস্তি দেওয়া হয়) সমস্যা সৃষ্টি করে ও তা সমালোচনার শিকার হয়। নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যযুক্ত ব্যক্তিদের এই শাস্তি (তাত্ত্বিকভাবে, মানসিক ক্ষমতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়) বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের বিরুদ্ধে নির্বাচন করে। জনগণের দায়বদ্ধতার ভিত্তি হিসাবে বিবেচিত যে কোনও মানসিক দক্ষতার বিবর্তনকে এই জাতীয় শাস্তির সাপেক্ষে অসম্ভব বলে মনে করা হয়। কিছু বিজ্ঞানী যুক্তি দিয়েছিলেন যে, এটি শাস্ত্রের ইচ্ছাকৃত অপরাধের জৈবিক অনুভূতি থাকার মানুষের ধারণাটি ভূল, তাই তারা ধারণাটিকে অস্বীকার করেন।[২২][২৩][২৪]

প্রয়োগের সুযোগ[সম্পাদনা]

সমাজ বা পরিবার দ্বারা নির্ধারিত যথাযথ আচরণকে উত্সাহিত করতে এবং প্রয়োগ করতে সাধারণত বিভিন্ন উদ্দেশ্যে শাস্তি প্রয়োগ করা হয়। জরিমানা, শারীরিক শাস্তি বা কারাগারের মতো হেফাজতমূলক শাস্তির দ্বারা অপরাধীদের বিচারিকভাবে শাস্তি দেওয়া হয়। আটককৃদের অভ্যন্তরীণ বিধি লঙ্ঘনের জন্য শাস্তি আরও ঝুঁকিপূর্ণ। শিশু, ছাত্র এবং অন্যান্য প্রশিক্ষণার্থীরা তাদের শিক্ষক বা প্রশিক্ষকের (প্রধানত পিতামাতা, অভিভাবক, বা শিক্ষক, টিউটর এবং কোচ) দ্বারা শাস্তি পেতে পারে।

দাস, গৃহপালিত এবং অন্যান্য চাকররা তাদের মালিকের দ্বারা শাস্তি পায়। কর্মীরা এখনও জরিমানা বা পদচ্যুতির একটি চুক্তির অধীনে থাকতে পারে। সামরিক ও পুলিশ বাহিনী বা এমনকি গীর্জার মতো বেশিরভাগ শ্রেণিবদ্ধ সংস্থা এখনও তাদের নিজস্ব বিচার ব্যবস্থা (কোর্ট মার্শাল, ক্যানোনিকাল কোর্ট) সহ বেশ কড়া অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা প্রয়োগ করে।

শাস্তি নৈতিক, বিশেষত ধর্মীয় ভিত্তিতেও প্রয়োগ করা যেতে পারে, যেমন তপস্যা হিসাবে (যা স্বেচ্ছাসেবী) বা অনুশোচনার মাধ্যমে (যেমন ইরানের মতো কঠোর ইসলামী রাষ্ট্র বা তালেবানদের অধীনে) যা দিব্যতন্ত্রের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে (যদিও সত্য নয়)।

শাস্তি হিসাবে নরক[সম্পাদনা]

বিশ্বাস করা হয়ে থাকে যে, একজন ব্যক্তির চূড়ান্ত শাস্তি হল ঈশ্বর কর্তৃক নরকে প্রেরণ করা। যা এমন একটি জায়গা যা পরবর্তী জীবনের জন্য বিশ্বাস করা হয়, সাধারণত এখানে সবাইকে জীবনকালে সংঘটিত পাপের শাস্তি দেওয়া হয়। কখনও কখনও এই পার্থক্যগুলি নির্দিষ্ট হয়ে থাকে, প্রতিটি পাপের জন্য পাপী আত্মারা শাস্তি ভোগ করে (উদাহরণস্বরূপ প্লেটোর The Divine Comedy নামক রূপকথার কাহিনী)। তবে কখনও কখনও এগুলি সাধারণ হয়, নিন্দা করা পাপীদের দ্বারা নরকে এক বা একাধিক স্তরে দুর্ভোগে পর্যবসিত হয়।

খ্রিস্টান ও ইসলাম সহ অনেক ধর্মীয় সংস্কৃতিতে, জাহান্নামকে ঐতিহ্যগতভাবে অগ্নি ও বেদনাদায়ক, দোষী অপরাধীদের স্থান ও যন্ত্রণারূপে বর্ণনা করা হয়।[২৫][উল্লেখ করুন] জাহান্নামের এই সাধারণ চিত্রকে আগুনের জায়গা হিসাবে চিহ্নিত করা হলেও, কিছু অন্যান্য ঐতিহ্য নরককে শীতল হিসাবে চিত্রিত করেছে।[২৬] বৌদ্ধ, এবং বিশেষত তিব্বতি বৌদ্ধ নরকের বর্ণনাতে সমান সংখ্যক উষ্ণ ও শীতল হিসেবে বর্ণনা করেছে। খ্রিস্টান বর্ণনার মধ্যে ড্যান্টের ইনফার্নো রক্ত ​​এবং অপরাধবোধের হিমায়িত হ্রদ হিসাবে জাহান্নামের অন্তঃস্থ বৃত্তকে চিত্রিত করেছে। তবে নরকের পূর্বের খ্রিস্টান চিত্রগুলিতেও ঠান্ডার বর্ণনা পাওয়া যায়। যে বর্ণনাগুলো মূলত তৃতীয় শতাব্দীর গোড়ার দিক থেকে পলের অ্যাপোক্যালপিস দিয়ে শুরু হয়েছিল।[২৭] সপ্তম শতাব্দী থেকে ভেন্যারেবল বেডের "Vision of Dryhthelm";[২৮] "সেন্ট প্যাট্রিকের Purgatory","The Vision of Tundale" বা "Visio Tnugdali", এবং "Vision of the Monk of Enysham", সবগুলি দ্বাদশ শতাব্দীর;[২৯] এবং তের শতাব্দীর প্রথম দিকের "Vision of Thurkill"। [৩০]

ইতিহাস এবং যুক্তি[সম্পাদনা]

মার্কিন কারাগারে বন্দীকরণের টাইমলাইন

মূল নিবন্ধঃ প্রতিশোধমূলক বিচারব্যবস্থাচোখের বদলে চোখ

আরো দেখুনঃ গুরু অপরাধলঘু অপরাধ

একটি অপরাধের গুরুতরতা; অপরাধের সাথে শাস্তির মানানসইযোগ্যতা[সম্পাদনা]

যে নীতিটি প্রায়ই শাস্তির মাত্রা নির্ধারণের বিষয়ে উল্লেখ করা হয় তা হল শাস্তিটি কোন অপরাধের সাথে মেলে।[৩১][৩২][৩৩] পরিমাপের একটি মানদন্ড হল এমন একটি মাত্রা যা কোনও অপরাধে অন্যকে বা সমাজকে প্রভাবিত করে। কোন অপরাধের গুরুত্বের মাত্রা পরিমাপ করা হয় জঘন্যতার মাত্রার দ্বারা।[৩৪] যা সাধারণত "উচ্চ গম্ভীরতা" হলে অপরাধ হিসাবে বিবেচনা করা হয়, অন্যক্ষেত্রে এটি অন্যায় কাজ নয়।

শাস্তির সম্ভাব্য কারণ[সম্পাদনা]

আরো দেখুনঃ ফৌজদারি বিচার

কাউকে কেন শাস্তি দেওয়া উচিত তা ন্যায়সঙ্গতভাবে ব্যাখ্যা করার জন্য অনেকগুলো সম্ভাব্য কারণ রয়েছে। এখানে সাধারণ, সম্ভবত বিবাদমান, ন্যায়সঙ্গতার বিস্তৃত রূপরেখা অনুসরণ করা হয়েছে।

প্রতিরোধ[সম্পাদনা]

শাস্তি ন্যায়সঙ্গত করার অন্যতম কারণ হল শাস্তি অপরাধীকে[৩৫] অপরাধ করা থেকে বিরত রাখে। পূর্ববর্তী অপরাধীদের শাস্তি দেওয়ার মাধ্যমে পরবর্তীতে তারা যেন অপরাধমূলক আচরণ থেকে বিরত থাকে তা নিশ্চিত করা হয়, এবং যারা অপরাধের কথা ভাবছেন তারাও যেন শাস্তি প্রত্যক্ষ করে অপরাধ করা থেকে বিরত থাকে এটিও নিশ্চিত করা হয়। শাস্তির অন্যতম উদ্দেশ্যে হল, সবাই যাতে শাস্তি ভোগ করার পরিবর্তে অপরাধ না করাকে বেছে নেয়। আরও একটি উদ্দেশ্য হল সম্প্রদায়ের প্রত্যেককে অপরাধ করা থেকে বিরত করা।

কিছু অপরাধতাত্ত্বিক বলেছেন যে বেশী গুরুতর শাস্তির ফলে অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত লোকের সংখ্যা কমে যায় না।[৩৬] এবং তার এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে এই শাস্তিগুলো অকার্যকর। অন্যান্য অপরাধ বিশেষজ্ঞরা এই সিদ্ধান্তে আপত্তি জানিয়ে বলেছেন যে, যদিও বেশিরভাগ লোকেরা শাস্তির সঠিক তীব্রতা জানেন না, যেমনঃ হত্যার সাজা ৪০ বছর বা যাবজ্জীবন। তবুও বেশিরভাগ মানুষ এখনও সশস্ত্র ডাকাতি বা জোরপূর্বক ধর্ষণের শাস্তি হিসাবে মোটামুটি জানেন। তারা এটুকু জানেন যে খুব তাড়াতাড়ি গাড়ি চালানো বা গাড়ি ভুলভাবে চালানোর জন্য শাস্তির চেয়ে খুন বা ধর্ষণের শাস্তি গুরুতর। এই অপরাধ-বিশেষজ্ঞরা যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ইতিমধ্যে কঠোর শাস্তিপ্রাপ্ত অপরাধের জন্য শাস্তি বৃদ্ধি করা প্রতিরোধ ব্যবস্থার মডেলের কিছুই বর্ণনা করে না।[৩৭][৩৮]

কিছু অপরাধী বিশেষজ্ঞরা যুক্তি দেখিয়েছেন যে, অপরাধের জন্য সাজা বৃদ্ধি করা তদন্তকারীদের অপরাধের মাত্রা নির্ধারণে সাহায্য করে। এই অপরাধ-বিশেষজ্ঞরাই যুক্তি দেখান যে, অপরাধের বিরুদ্ধে শাস্তির মডেলগুলোর কার্যকারিতা পরিমাপের জন্য পরিসংখ্যানের ব্যবহার কোন মডেল কত কার্যকর তা নির্ণয় করে। যার ফলে এটি বিচার ব্যবস্থাকে অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষেত্রে কোন মডেল সবচেয়ে ভাল ও কার্যকর তা বুঝতেও সাহায্য করে। আর শাস্তির অকার্যকারিতা এর একটি উদাহরণ হতে পারে।[৩৯][৪০]

পুনর্বাসন[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধঃ পুনর্বাসন (দন্ডবিজ্ঞান)

কিছু শাস্তির মধ্যে অপরাধীর সংস্কার ও পুনর্বাসনের কাজ অন্তর্ভুক্ত থাকে, যাতে তারা আবার অপরাধ না করে। এটি প্রতিরোধের থেকে আলাদা।[৩৫] এখানে লক্ষ্য হল অপরাধীর মনোভাব তাদের কৃতকর্মের বিপরীতে পরিবর্তন করা। যাতে তারা তাদের আচরণটি ভুল ছিল কিনা তা বুঝতে পারে।

অক্ষমতা এবং সামাজিক সুরক্ষা[সম্পাদনা]

শাস্তির হিসাবে অক্ষমতা অপরাধী[৩৫] যেন পরবর্তীতে অপরাধ করতে না পারে তার জন্য তাদের অপরাধের ক্ষমতা অপসারণ। কারাবাস অপরাধীদেরকে তাদের নিজের সম্প্রদায় থেকে পৃথক করে। উদাহরণস্বরূপঃ অস্ট্রেলিয়া ব্রিটিশ অপরাধীদের জন্য একটি কারাগার হিসেবে ব্যবহৃত হত। অপরাধীদের নির্দিষ্ট কিছু অপরাধের ক্ষমতা হ্রাস করার এটাই ছিল কার্যকর উপায়। মৃত্যুদণ্ডের দ্বারা স্থায়ীরুপে (এবং অপরিবর্তনীয়) অপরাধীকে শাস্তি দেওআ হতো। কিছু সমাজে, যারা চুরি করেছে তাদের হাত কেটে দেওয়ার মাধ্যমে শাস্তি দেওয়া হতো।

প্রতিফল[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধঃ প্রতিফলমূলক বিচারব্যবস্থা

অপরাধমূলক কর্মগুলো সাধারণত অপরাধীকে সুবিধা দেয় এবং ক্ষতিগ্রস্থদের ক্ষতি করে।[৩৫][৪১] অন্যায়ের ন্যায়বিচার হিসেবে প্রতিফল গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যাতে অপরাধী ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে কি না, তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে অর্জিত যে কোন অন্যায় সুবিধা বা সম্পদ পুনরুদ্ধার করার যায়। কখনও কখনও যাদের ক্ষতি করা হয় তাদের জন্য কোন পুনরুদ্ধারমূলক সুবিধা না থাকলেও অন্যায়কারীর ভোগান্তি অন্যায়কারীকে শোধরাতে সাহায্য করে। যার ফলে ভবিষ্যতে তারা আর অন্যায় বা অপরাধ করে না। এমনকি অন্যকেও অপরাধ থেকে দূরে থাকার জন্য উপদেশ দেয়। সমাজে শাস্তি দেওয়ার একটি কারণ হলঃ প্রতিশোধমূলক "রাস্তায় বিচার", নিজেদের মধ্যে কলহ এবং সতর্কতার প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করা।

পুনরুদ্ধারমূলক বিচার[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধঃ পুনরুদ্ধারমূলক বিচারব্যবস্থা

ছোটখাটো অপরাধের জন্য, অপরাধীর "অন্যায়কে বা ভুলকে সঠিক কিছুতে রুপান্তর করা" বা ভুক্তভোগীর ক্ষতিপূরণ দেওয়ার এই শাস্তির ধরনের বৈশিষ্ট্য।[৪২] সম্প্রদায় পরিষেবা বা ক্ষতিপূরণের আদেশ এই ধরনের শাস্তির উদাহরণ। পুনরুদ্ধারমূলক বিচারের মডেলে, ক্ষতিগ্রস্থরা তাদের প্রতি যারা অপরাধ করেছে সেই অপরাধীকে তার ক্রিয়াকলাপের দায়দায়িত্ব নিতে উত্সাহিত করা হয়, "তারা যে ক্ষতি করেছে তা পুষিয়ে দিতে - যেমনঃ ক্ষমা চেয়ে, চুরি করা অর্থ ফেরত দিয়ে, বা সম্প্রদায় পরিষেবা দিয়ে"। যা এই প্রক্রিয়ায় সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করে।[৪৩] পুনরুদ্ধারমূলক ন্যায়বিচারের পদ্ধতির লক্ষ্য অপরাধী যেন ভবিষ্যতে আর অপরাধ না করে সেই ব্যবস্থা করা।

শিক্ষা এবং নিন্দা[সম্পাদনা]

গথিক পিলরি (ষোড়শ শতাব্দীর প্রথমদিকে) জার্মানির শোবিবিচ হলে

শাস্তিটি ইতিবাচক প্রতিরোধের তত্ত্ব দ্বারা ব্যাখ্যা করা যেতে পারে। যাতে অপরাধ সঠিক বিচার ব্যবস্থার সামাজিক মানদণ্ডগুলো কী তা শেখানোর জন্য এবং অপরাধ না করার উৎসাহ হিসাবে কাজ করে।

সমাজ থেকে শুরু করে সবখানে অপরাধ চিহ্নিত করে শাস্তি দিলে তা প্রকাশ্য নিন্দা প্রকাশের একটি ভাল উপায় হিসাবে কাজ করতে পারে। অগ্রহণযোগ্য আচরণের বিষয়ে মানুষকে শিক্ষিত করার পাশাপাশি এটি জনসাধারণের ক্ষোভকে প্রকাশ করে সতর্ক হতে সাহায্য কর। যাতে ন্যায়বিচার করার দ্বৈত কার্যকারিতা নিশ্চিত হয় এবং একই সাথে অপরাধীকে কলঙ্কিত করে যাতে ভবিষ্যতে অপরাধমূলক ক্রিয়াকলাপ না করে। একে কখনও কখনও নিন্দার "প্রকাশক তত্ত্ব" বলা হয়।[৪৪] ক্রুশবিদ্ধ করা জনসাধারণের নিন্দা প্রকাশের একটি পদ্ধতি ছিল।[৪৫]

শিক্ষা এবং নিন্দার মডেলের কিছু সমালোচক বিবর্তনবাদী সমস্যাটিকে এই ধারণা দিয়ে উদ্ধৃত করেছেন যে, শাস্তি কার্যকর না হলে সামাজিক নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থা হিসাবে শাস্তির অনুভূতি বিকশিত হয়। সমালোচকরা বলেন যে, কিছু ব্যক্তি সময় ও শক্তি ব্যয় করে অন্যকে শাস্তি দেওয়ার ঝুঁকি গ্রহণ করে থাকে। এবং শাস্তিপ্রাপ্ত দলের সদস্যদের ক্ষতি করার বিরুদ্ধে উৎসাহিত করা হত। যার ফলে শাস্তি কম ঝুঁকিপূর্ণ উপায়ে দেওয়া যায়।[৪৬][৪৭]

একীভূত তত্ত্ব[সম্পাদনা]

শাস্তির একীভূত তত্ত্ব একাধিক দণ্ডিত উদ্দেশ্য, যেমনঃ প্রতিশোধ, প্রতিরোধ ও পুনর্বাসনের মতো শাস্তিগুলোকে একক, সুসংগত উপায়ে একীভূত করে। শাস্তি দেওয়ার পরিবর্তে আমরা শাস্তির ধরনের যে কোন একটি প্রক্রিয়া বেছে নেই। একীভূত তাত্ত্বিকরা যুক্তি দেখান যে, তারা অধিকারের সুরক্ষার মতো কিছু বিস্তৃত লক্ষ্যের অংশ হিসাবে এই কাজটি করে।[৪৮]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

কিছু লোক মনে করেন যে সামগ্রিকভাবে শাস্তি অসহযোগী এবং এমনকি মানুষের পক্ষে ক্ষতিকারক।[৪৯] নিন্দুকেরা যুক্তি দিয়েছেন যে শাস্তি কেবলমাত্র ভুল ব্যবস্থা। যা "দুটি ভুল একটি অধিকার তৈরি করে" নকশার এর মতো একটি নকশা। সমালোচকরা যুক্তি দিয়েছিলেন যে শাস্তির মাধ্যমে কেবল প্রতিশোধ নেওয়া হয়। লেখক প্রফেসর দেয়ারড্রে গোলাশ The Case against Punishment: Retribution, Crime Prevention, and the Law এ বলেছেন:

আমাদের যদি এটির জন্য খুব ভাল কারণ না থাকে তবে কারও উপর আমাদের এ ধরনের ক্ষতি চাপিয়ে দেওয়া উচিত নয়। এই মন্তব্যটি তুচ্ছ সত্য বলে মনে হতে পারে, তবে মানবসমাজের ইতিহাস উদ্দেশ্যহীন ব্যক্তিদের দ্বারা ইচ্ছাকৃত ক্ষতির কারণের ব্যর্থতা খোজার মধ্যে নিহিত রয়েছে। যেই ক্ষতি সকলকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। মানবতার এই উপকারভোগীরা পৌরাণিক দেবতাদের সন্তুষ্ট করার জন্য তাদের অনুগামীদের ত্যাগ করেছিল। এবং তাদের আত্মাকে একটি নরক থেকে বাঁচাতে তাদের ওপর নির্যাতন করেছে। বাচ্চাদের তাদের পরিণয়গত বিবাহের প্রচারের জন্য পা ভাঙ্গা এবং বাধা হতো। শিক্ষকদের প্রতি পড়াশোনা ও শ্রদ্ধা বাড়াতে ধীরগতির পড়ুয়াদের মারধর করা হতো, অসুস্থদেরকে তাদের অতিরিক্ত রক্ত ​​থেকে মুক্তি দিতে এবং সন্দেহভাজনদের সত্য বলার জন্য ঠোঁট এবং হাটুতে স্ক্রু দ্বারা যন্ত্রনা দেওআ হতো। ইচ্ছাকৃতভাবে এই ভুল বিশ্বাসকে ক্ষতি করার চেষ্টা করায় আরও ভাল কিছু প্রচার করা হত যা বেদনার সারমর্ম হিসেবে পরিচিত ছিল। অপরাধীদের ক্ষতি করার জন্য আমরা যে পণ্যগুলি অনুসন্ধান করি সেগুলি সার্থক কিনা এবং আমরা যে উপায়গুলি বেছে নিয়েছি সেগুলি সত্যই তাদের সুরক্ষিত করবে কিনা তা জিজ্ঞাসা করা আমাদের জন্যই ভাল।[৫০]

গোলাশ কারাবাস সম্পর্কেও লিখেছেন:

কারাবাসের অর্থ, সর্বনিম্ন জীবন, স্বাধীনতা এবং স্বায়ত্তশাসনের ক্ষতি, পাশাপাশি অনেকগুলি উপাদান যেমনঃ স্বাচ্ছন্দ্য, ব্যক্তিগত সুরক্ষা এবং সম্পর্কেরও ক্ষতি। গ্রেশাম সাইকসের (যারা প্রথমে তাদের চিহ্নিত করেছিল) মতে, "এই বঞ্চনাগুলি একসাথে 'গভীর আঘাত' সৃষ্টি করেছিল যা বন্দীর সত্তার ভিত্তি ছিল। তবে এগুলি কেবল সর্বনিম্ন ক্ষয়ক্ষতি। কারাগারে থাকা সবচেয়ে কম দুর্বল বন্দীরা অন্য বন্দীদের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বেশিরভাগ কারাগার খারাপভাবে চালানো হয় এবং কারও কারও মধ্যে বস্তির সবচেয়ে খারাপ অবস্থা, এমনকি তার চেয়েও বেশি অসচ্ছল। উদাহরণস্বরূপ, কলম্বিয়া জেলা কারাগারে, লন্ড্রি মেশিন নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে বন্দীদের সেল টয়লেটগুলিতে তাদের কাপড় এবং চাদর ধুয়ে ফেলতে হয়েছিল। ভার্মিন এবং কীটপতঙ্গ বিল্ডিংয়ে প্রবেশ করে। যেখানে বায়ু চলাচলের রাস্তাগুলো দশক ধরে ধূলিকণা এবং কুঁকড়ে থাকা দ্বারা অবস্থায় আবদ্ধ ছিল। এমনকি কারাগারে বন্দিদেরও খুব খারাপ পয়ঃনিষ্কাশন পরিস্থিতি ছিল। যার ফলে তাদের এখনও কারাগারের জীবন হতাশার শূন্যতা এবং শূন্যতার মুখোমুখি হতে হয়। নষ্ট দিনের এক বিশাল প্রান্তর যেখানে সৃষ্টি হয় সেখানে অর্থবহ কার্যকলাপ সামান্যই সম্ভব।[৫১]

চিন্তা এবং উন্নতির ধ্বংসাত্মকতা[সম্পাদনা]

শাস্তির সমালোচক যারা আছেন তারা যুক্তি দেখান যে, উদ্দেশ্যমূলক ক্রিয়াকলাপের ভিত্তিতে মানুষকে শাস্তি দেওয়া হয়। যেখানে তার অভিপ্রায় অনুসারে কাজ করার দক্ষতা দমন করতে বাধ্য করে। এই দৃষ্টিভঙ্গির উকিলগণ যুক্তি দেখান যে, এই জাতীয় সকল উদ্দেশ্যকে দমন করার ফলে ক্ষতিকারক আচরণগুলো স্থায়ী হয় এবং শাস্তি প্রতিরোধমূলক হয়। এরা পরামর্শ দেন যে ইচ্ছাকৃতভাবে পছন্দ করার দক্ষতার পরিবর্তে উন্নতির সম্ভাবনার উত্স হিসাবে মূল্যবান হওয়া উচিত। উল্লেখ করা হয়ে থাকে যে, জটিল জ্ঞান বিবর্তনের মতানুসারে শক্তিহীন উপায়ে অপব্যয় হত যদি এটি নির্ধারিত কর্মের ন্যায্যতা তৈরি করতে পরিচালিত করে। এবং এতে সাধারণ অক্ষমতা হিসাবে কোন পরিবর্তন হয় না যদি যুক্তিগুলো সামাজিক হেরফেরের জন্য হয়ে থাকে।[৫২] ইচ্ছাকৃতভাবে খারাপ কাজ করে এমন লোকদের নিন্দা যদি প্রত্যাখ্যাত হয় তবে তাদের পক্ষে বিভ্রান্ত হওয়া থেকে তর্কগুলো সবচেয়ে তীব্র সুরক্ষা হিসাবে থাকে। অসচ্ছলতা, অনুপস্থিতি বা নিম্নমানের কাজের দক্ষতার মতো অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ বন্ধে শাস্তি কার্যকর হতে পারে। যাইহোক, শাস্তি অগত্যা কোনও কর্মীকে পছন্দসই আচরণ প্রদর্শন করে না।[৫৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

উদ্ধৃতিসমূহ[সম্পাদনা]

  1. Hugo, Adam Bedau (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১০)। "Punishment, Crime and the State"Stanford Encyclopedia of Philosophy। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০৪The search for a precise definition of punishment that exercised some philosophers (for discussion and references see Scheid 1980) is likely to prove futile: but we can say that legal punishment involves the imposition of something that is intended to be burdensome or painful, on a supposed offender for a supposed crime, by a person or body who claims the authority to do so. 
  2. and violates the law or rules by which the group is governed. McAnany, Patrick D. (আগস্ট ২০১০)। "Punishment"Online। Grolier Multimedia Encyclopedia। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০৪Punishment describes the imposition by some authority of a deprivation—usually painful—on a person who has violated a law, rule, or other norm. When the violation is of the criminal law of society there is a formal process of accusation and proof followed by imposition of a sentence by a designated official, usually a judge. Informally, any organized group—most typically the family, in rearing children—may punish perceived wrongdoers. [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. Hugo, Adam Bedau (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১০)। "Theory of Punishment"Stanford Encyclopedia of Philosophy। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০৪Punishment under law... is the authorized imposition of deprivations—of freedom or privacy or other goods to which the person otherwise has a right, or the imposition of special burdens—because the person has been found guilty of some criminal violation, typically (though not invariably) involving harm to the innocent. (The classical formulation, conspicuous in Hobbes, for example, defines punishment by reference to imposing pain rather than to deprivations.) This definition, although imperfect because of its brevity, does allow us to bring out several essential points. 
  4. Peters, Richard Stanley (১৯৬৬)। "Ethics and Education"। British Journal of Educational Studies20 (3): 267–68। জেস্টোর 3120772Punishment... involves the intentional infliction of pain or of something unpleasant on someone who has committed a breach of rules... by someone who is in authority, who has a right to act in this way. Otherwise, it would be impossible to distinguish 'punishment' from 'revenge'. People in authority can, of course, inflict pain on people at whim. But this would be called 'spite' unless it were inflicted as a consequence of a breach of rules on the part of the sufferer. Similarly a person in authority might give a person £5 as a consequence of his breaking a rule. But unless this were regarded as painful or at least unpleasant for the recipient it could not be counted as a case of 'punishment'. In other words at least three criteria of (i) intentional infliction of pain (ii) by someone in authority (iii) on a person as a consequence of a breach of rules on his part, must be satisfied if we are to call something a case of 'punishment'. There are, as is usual in such cases, examples that can be produced which do not satisfy all criteria. For instance there is a colloquialism which is used about boxers taking a lot of punishment from their opponents, in which only the first condition is present. But this is a metaphorical use which is peripheral to the central use of the term.

    In so far as the different 'theories' of punishment are answers to questions about the meaning of 'punishment', only the retributive theory is a possible one. There is no conceptual connection between 'punishment' and notions like those of 'deterrence', 'prevention' and 'reform'. For people can be punished without being prevented from repeating the offence, and without being made any better. It is also a further question whether they themselves or anyone else is deterred from committing the offence by punishment. But 'punishment' must involve 'retribution', for 'retribution' implies doing something to someone in return for what he has done.... Punishment, therefore, must be retributive—by definition.
     
  5. Kleining, John (অক্টোবর ১৯৭২)। "R.S. Peters on Punishment"। British Journal of Educational Studies20 (3): 259–69। doi:10.1080/00071005.1972.9973352জেস্টোর 3120772Unpleasantness inflicted without authority is revenge, and if whimsical, is spite.... There is no conceptual connection between punishment, or deterrence, or reform, for people can be punished without being prevented from repeating the offence, and without being made better. And it is also a further question whether they themselves, or anyone else is deterred from committing the offence by punishment. 
  6. punGR
  7. Peters1966
  8. Mary Stohr; Anthony Walsh; Craig Hemmens (২০০৮)। Corrections: A Text/Reader। Sage। পৃষ্ঠা 2। আইএসবিএন 978-1-4129-3773-3 
  9. McAnany, Patrick D. (আগস্ট ২০১০)। "Justification for punishment (Punishment)"Online। Grolier Multimedia Encyclopedia। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-১৬Because punishment is both painful and guilt producing, its application calls for a justification. In Western culture, four basic justifications have been given: retribution, deterrence, rehabilitation, and incapacitation. The history of formal punitive systems is one of a gradual transition from familial and tribal authority to the authority of organized society. Although parents today retain much basic authority to discipline their children, physical beatings and other severe deprivations—once widely tolerated—may now be called child abuse [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  10. stanford-theoryOf
  11. Diana Kendall (২০০৯)। Sociology in Our Times: The Essentials (7th revised সংস্করণ)। Cengage Learning। আইএসবিএন 978-0-495-59862-6 
  12. stanford-crimeState
  13. j-kleining
  14. W, J.C, Furman, Masters (১৯৮০)। "Affective consequences of social reinforcement, punishment, and neutral behavior."Developmental Psychology। 16(2): 100–104। 
  15. I, Lorge (১৯৩৩)। "The effect of the initial chances for right responses upon the efficacy of intensified reward and of intensified punishment."Journal of Experimental Psychology। 16(3): 362–373। 
  16. T.H., G.A., Clutton-brock, Parker (১৯৯৫)। "Punishment in animal societies"Nature। 373(6511): 209–216। 
  17. Mary Stohr; Anthony Walsh; Craig Hemmens (২০০৮)। Corrections: A Text/Reader। Sage। পৃষ্ঠা 3। আইএসবিএন 978-1412937733 
  18. Fehr, Gätcher, Ernst, Simon (১০ জানুয়ারি ২০০২)। "Altruistic punishment in humans"Nature34: 137–140। 
  19. "Observational Learning in Octopus vulgaris." Graziano Fiorito, Pietro Scotto. 1992.
  20. Aliens of the deep sea, documentary. 2011.
  21. How the Body Shapes the Way We Think: A New View of Intelligence, Rolf Pfeifer, Josh Bongard, foreword by Rodney Brooks. 2006
  22. Friedrich Nietzsche (1886). Beyond Good and Evil: Prelude to a Philosophy of the Future
  23. Allen, Elizabeth, et al. (1975). "Against 'Sociobiology'". [letter] New York Review of Books 22 (Nov. 13).
  24. Dawkins, Richard (1979). Twelve misunderstandings of kin selection
  25. Numerous verses in the Qu'ran and New Testament.
  26. Alighieri, Dante (June 2001 (orig. trans. 1977)) [c. 1315]। "Cantos XXXI–XXXIV"। Inferno। trans. John Ciardi (2 সংস্করণ)। New York: Penguin।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  27. Eileen Gardiner, Visions of Heaven and Hell Before Dante (New York, Italica Press, 1989), p. 43.
  28. Gardiner, Visions, pp. 58 and 61.
  29. Gardiner, Visions, pp. 141, 160 and 174, and 206–07.
  30. Gardiner, Visions, pp. 222 and 232.
  31. Doing Justice – The Choice of Punishments, A Vonhirsch, 1976, p. 220
  32. Criminology, Larry J. Siegel
  33. ”An Economic Analysis of the Criminal Law as Preference-Shaping Policy”, Duke Law Journal, Feb 1990, Vol. 1, Kenneth Dau-Schmidt
  34. Lynch, James P.; Danner, Mona J.E. (১৯৯৩)। "Offense Seriousness Scaling: An Alternative to Scenario Methods"। Journal of Quantitative Criminology9 (3): 309–22। doi:10.1007/BF01064464 
  35. justify
  36. reference | J. Mitchell Miller | 2009 | 21st Century Criminology: A Reference Handbook
  37. reference | Gennaro F. Vito, Jeffrey R. Maahs | 2015 | Criminology
  38. reference | Frank E. Hagan | 2010 | Introduction to Criminology: Theories, Methods, and Criminal Behavior
  39. reference | Anthony Walsh, Craig Hemmens | 2008 | Introduction to Criminology: A Text/Reader
  40. Ronald L. Akers (2013). Criminological Theories: Introduction and Evaluation
  41. Falls, Margaret (এপ্রিল ১৯৮৭)। "Retribution, Reciprocity, and Respect for Persons"। Law and Philosophy6 (1): 25–51। doi:10.1007/BF00142639জেস্টোর 3504678 
  42. "restitution"। La-articles.org.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৮-২৭ 
  43. "A New Kind of Criminal Justice", Parade, October 25, 2009, p. 6.
  44. "Theory, Sources, and Limitations of Criminal Law"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৬ 
  45. "Theories Of Punishment"। Free Legal Encyclopedia। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৬Theories of punishment can be divided into two general philosophies: utilitarian and retributive. 
  46. J. Robert Lilly, Francis T. Cullen, Richard A. Ball (2014). Criminological Theory: Context and Consequences
  47. Tim Newburn 2017 Criminology
  48. "Thom Brooks on Unified Theory of Punishment"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৯-০৩ 
  49. G.T, Gwinn (১৯৪৯)। "The effects of punishment on acts motivated by fear"। Journal of Experimental Psychology39 (2): 260–69। doi:10.1037/h0062431 
  50. https://www.questia.com/read/117883311/the-case-against-punishment-retribution-crime-prevention
  51. "golash"
  52. Mind, Brain and Education, Kurt Fischer, Christina Hinton
  53. Milbourn Jr, Gene (নভেম্বর ১৯৯৬)। "Punishment in the workplace creates undesirable side effects"। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২১, ২০১৮ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]