শহীদ আজমী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শহীদ আজমী
জন্ম
শহীদ আজমী

১৯৭৭
মুম্বাই, ভারত
মৃত্যু১১ ফেব্রুয়ারি ২০১০(2010-02-11) (বয়স ৩৩)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাআইনজীবী,
মানবাধিকার কর্মী

শহীদ আজমী (ইংরেজি: Shahid Azmi; জন্মঃ ১৯৭৭ – ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১০) ছিলেন একজন সুপরিচিত ভারতীয় আইনজীবী এবং মানবাধিকার কর্মী। তিনি ভুলভাবে সন্ত্রাসবাদের ক্ষেত্রে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের রক্ষার জন্য সবচেয়ে পরিচিত; যেমনঃ প্রমাণের অভাবের জন্য খালাসী ছিলেন ফাহিম আনসারি, তিনি ২৬/১১ মুম্বাই হামলার মধ্যে অভিযুক্ত হন।[১][২] ১৪ বছর বয়সে তিনি ১৯৯২ সালে মুম্বাই দাঙ্গার সময় গ্রেপ্তার হন। তিনি একটি জঙ্গি প্রশিক্ষণ শিবির মধ্যে পাকিস্তান শাসিত কাশ্মীর গিয়েছিলেন, কিন্তু মোহমুক্ত ফিরে আসেন। তাকে টিএডিএর অধীন আবার গ্রেপ্তার করা হয়, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অঙ্কন অভিযোগে দিল্লির তিহার কারাগারে সাত বছর কাটান, যদিও তিনি পরে খালাসী ছিলেন।[৩] তিনি যখন জেলে ছিলেন তখন থেকে পড়াশোনা শুরু করেন এবং ২০০৩ মুম্বাই এর অপরাধী প্রতিরক্ষা আইনজীবিতে পরিণত হন সন্ত্রাসবাদের জন্য অভিযুক্ত তাদের জন্য মামলা রক্ষার ক্ষেত্রে। সন্ত্রাসবাদ আইন ২০০২ (পিওটিএ) এর প্রতিরোধ পরে রহিত করা হয়। তিনি মাত্র ৩২ বছর বয়সে কুরলায়, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১০ সালে মুম্বাই তার অফিসে তিন আক্রমণকারীদের হাতে নিহত হন।[৪][৫]

তিনি মুম্বাই এর আবু অসীম আজমি, একটি সমাজবাদী পার্টির রাজনীতিবিদ ও এমএলএ এর ভাগ্নে ছিলেন।[৪]

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

আজমী আজমগড়, উত্তর প্রদেশের মধ্যে একটি মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে, মুম্বাই এর দেহনার শহরতলীতে জন্মগ্রহণ করেন এবং সেখানে প্রতিপালিত হন। তিনি পাঁচ ভাইদের মধ্যে তৃতীয় ছিলেন।[৬] এছাড়াও মুম্বাইয়ের মধ্যে তার আরেক ভাই খালিদ আজমি একজন উকিল হন।[৭]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

তার ডিগ্রী প্রাপ্তির পর তিনি কিছু মাস ধরে আইনজীবী মজীদ মেমোন এর সঙ্গে কাজ করেন,[৮] ২০০৩ সালের একজন স্বাধীন আইনজীবী হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করার আগে। শীঘ্রই সন্ত্রাসবাদ আইনের প্রতিরোধে ২০০২ সালে (পিওটিএ) অধীন অভিযুক্ত মুসলমানদের ক্ষেত্রে কাজ শুরু করেন। জামাত ই উলেমা ই হিন্দ মত এনজিও সঙ্গে আলোচনা করেন।[৯] একজন প্রতিরক্ষা আইনজীবী হিসেবে তাঁর প্রথম প্রধান সাফল্য ২০০২ সালে ঘাটকোপার বাসে বোমা হামলা কেস, যখন ​​আরিফ পানওয়ালাকে সন্ত্রাসবাদ আইন (পিওটিএ) এর প্রতিরোধ অধীন গ্রেপ্তার করা হয়।

আজমী এরপর ৭/১১ এর মুম্বাই স্থানীয় ট্রেনে বিস্ফোরণের, ২০০৬ সালে ঔরঙ্গাবাদ অস্ত্র ছিনিয়ে, ২০০৬ সালে মালেগাঁও ক্ষেত্রে বিস্ফোরণ মধ্যে অভিযুক্তদের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন।[৪][৯]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

তিনি কুরলায় ট্যাক্সি পুরুষ উপনিবেশনে তার অফিসে ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১০ সালে নিহত হন, যখন চার বন্দুকধারীর তার অফিসে প্রবেশ করে এবং দুটি গুলি করেন, ফাকা গুলি এবং শেষে পালিয়ে যান। তাকে ঘাতকোপাররের রাজাওয়ান্দি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়, কিন্তু শীঘ্রই তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।[৪][১০][১১]

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে আজমী[সম্পাদনা]

রাজকুমার রাও চরিত্রে অভিনীত শহীদ (২০১৩) শিরোনামে আজীমের জীবনের উপর ভিত্তি করে হিন্দি চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়। চলচ্চিত্রটি হানসাল মেহতা পরিচালনায় এবং অনুরাগ কাসাপ এর প্রযোজনায় নির্মিত হয়।

চলচ্চিত্রটি ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ২০১২ টরন্টো ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভাল এর 'শহরের সিটি' তে ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হয়েছিল এবং ২০১৩ সালের ১৮ অক্টোবর ভারতে মুক্তি দেওয়া হয়।[৯][১২] চলচ্চিত্রটিতে জনাব আজমীর আদালত কক্ষ বাইরে আক্রমণকারীদের দ্বারা আক্রমণ হওয়ার একটি দৃশ্য রয়েছে।[৩] উপরন্তু, আজমীর দায়ের করা বিভিন্ন পিটিশন ছবিতে নাটকীয় আবহের জন্য একটি একক কেস এর মধ্যে সংযুক্ত করা হয়।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Film remembers Indian lawyer Shahid Azmi as symbol of hope"। BBC News। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২। a murdered Indian human rights lawyer.. 
  2. "Ansari acquitted for lack of evidence"IBN 7। ৪ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৩ 
  3. "Film remembers Indian lawyer Shahid Azmi as symbol of hope"BBC। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৩ 
  4. "26/11 accused Fahim Ansari's lawyer Shahid Azmi shot dead"The Times of India। ফেব্রু ১১, ২০১০। 
  5. Ajit Sahi (ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১০)। "A Grain In My Empty Bowl: A crusader for justice is silenced. Actually not .."Tehelka Magazine, Vol 7, Issue 08। ২ এপ্রিল ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২০, ২০১২ 
  6. Shivam Vij (ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১১)। "Remembering Shahid Azmi, the Shaheed: Mahtab Alam"। Kafila। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২২, ২০১২ 
  7. "Man on mission to free Shahid Azmi killer from court arrested"। DNA। ৯ এপ্রিল ২০১১। 
  8. "The lawyer who courted death"। Mint। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১২। 
  9. "The 'unlikely' lawyer as an unlikely hero"Indian Express। আগস্ট ৯, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২১, ২০১২A movie based on the lawyer and human rights activist.. 
  10. Rana Ayyub (মার্চ ২, ২০১০)। "A murder riddled with holes: The irony is that slain lawyer Shahid Azmi came to fame exposing police lapses"। Tehelka। ৭ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২০, ২০১২ 
  11. Shahid Azmi dead NDTV.
  12. ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজে Shahid (ইংরেজি)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • "A Martyr Lives On"Tehelka। ২৫ আগস্ট ২০১২। ২৯ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৪