লাহার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
১৯৮৯ সালে গুয়াতেমালায় সান্তা মারিয়া আগ্নেয়গিরির কাছে একটি নদীর উপত্যকায় লাহার

লাহার ( /ˈlɑːhɑːr/, জাভানীয়: ꦮ꧀ꦭꦲꦂ) হল একটি ভয়ংকর ধরনের কাদা প্রবাহ বা ধ্বংসাবশেষ প্রবাহ, যেটি পাইরোক্লাস্টিক পদার্থ, পাথুরে ধ্বংসাবশেষ এবং জলের স্লারির (তরল ও কঠিন পদার্থকণার অসমসত্ত্ব মিশ্রণ) সমন্বয়ে গঠিত। উপাদানগুলি একটি আগ্নেয়গিরি থেকে প্রবাহিত হয়, সাধারণত একটি নদী উপত্যকা বরাবর।[১]

লাহার চরম ধ্বংসাত্মক: লাহারের প্রবাহ বেগ প্রতি সেকেন্ডে দশ মিটারের বেশি হতে পারে। এগুলি ১৪০ মিটার (৪৬০ ফু) গভীর হতে পারে, এবং প্রবাহ পথে যে কোনও কাঠামো ধ্বংস করে দিতে পারে। উল্লেখযোগ্য লাহারগুলির মধ্যে আছে মাউন্ট পিনাটূবো এবং নেভাদো দেল রুইজে আসা লাহার, এর মধ্যে দ্বিতীয়টিতে আর্মেরো শহরে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

লাহার শব্দটি জাভাই ভাষা থেকে এসেছে।[২] ১৯২২ সালে বেরেন্ড জর্জ এস্কার ভূতাত্ত্বিক শব্দ হিসাবে এটি চালু করেছিলেন।[৩]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়ার জাভা শহরের যোগ্যকর্তা কাছে নবম শতকের হিন্দু মন্দির সাম্বিসারি খনন করে বার করা হয়েছে। মেরাপি পর্বত বিস্ফোরণে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে জমে থাকা আগ্নেয়গিরির লাহার ধ্বংসাবশেষের নীচে চাপা পড়েছিল।

লাহার হল আগ্নেয়গিরির কাদা প্রবাহ বা ধ্বংসাবশেষ প্রবাহ।[৪] লাহারে ভেজা কংক্রিটের দৃঢ়তা, সান্দ্রতা এবং প্রায় সেইরকম ঘনত্ব রয়েছে: এটি প্রবাহিত অবস্থায় তরল, কিন্তু স্থিত অবস্থায় কঠিন।[৫] লাহার বিশাল হতে পারে। প্রায় ৫৬০০ বছর আগে ওয়াশিংটনের রাইনিয়ার পর্বত থেকে উৎপন্ন ওসেওলা লাহারটি হোয়াইট রিভার উপত্যকায়, ১৪০ মিটার (৪৬০ ফু) গভীর কাদা প্রাচীর তৈরি করেছিল। এটি ৩৩০ বর্গকিলোমিটার (১৩০ মা) অঞ্চল জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছিল, এর মোট আয়তন ছিল ২.৩ ঘনকিলোমিটার ( মা)।[৬]

পর্যাপ্ত আকার এবং তীব্রতার একটি লাহার তার পথে আসা যে কোনও কাঠামো কার্যত মুছে দিতে পারে। লাহার তার নিজস্ব প্রবাহ পথ তৈরি করে নেয়, কিন্তু তার প্রবাহ দিক অনুমান করা কঠিন। বিপরীতভাবে, যখন একটি লাহার তার প্রবাহের গতিপথ পাল্টায় তখন দ্রুত শক্তি হারাতে থাকে: এমনকি দুর্বল কুঁড়েঘরও পুরো কাদায় চাপা পড়েও ভেঙে পড়ে না। সময়ের সাথে সাথে লাহারের সান্দ্রতা হ্রাস পায়, এবং বৃষ্টিপাত হলেও লাহারের ঘনত্ব কমে যায়। গতি স্তব্ধ হলে লাহার খুব তাড়াতাড়ি জমে যায়।

বিভিন্ন লাহার আকার এবং গতিতে পৃথক হয়। কয়েক মিটার প্রশস্ত এবং কয়েক সেন্টিমিটার গভীর ছোট লাহার প্রতি সেকেন্ডে কয়েক মিটার বেগে প্রবাহিত হতে পারে। কয়েক শত মিটার প্রশস্ত এবং দশ মিটারের বেশি গভীর বড় লাহার প্রতি সেকেন্ডে দশ মিটারের বেশি বেগে (২২ মাইল বা তার বেশি) প্রবাহিত হতে পারে: এই বেগ মানুষের পক্ষে দ্রুতগমনে অতিক্রম করা কঠিন।[৫] খাড়া ঢালে, লাহারের গতি ২০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা (১২০ মা/ঘ) অতিক্রম করতে পারে।[৫] লাহারের ৩০০ কিলোমিটার (১৯০ মা) এর বেশি দূরত্বে প্রবাহিত হবার ক্ষমতা আছে, এতটা রাস্তার মধ্যে লাহার বিপর্যয়কর ধ্বংস করতে পারে।[৭]

১৯৮৫ সালে কলম্বিয়ার নেভাদো দেল রুইজ আগ্নেয়গিরির বিষ্ফোরণে সৃষ্ট লাহার আর্মেরো ট্র্যাজেডি ঘটিয়েছিল, যার ফলে আনুমানিক ২৩,০০০ মানুষ মারা গিয়েছিল। আর্মেরো শহরটি ৫ মিটার (১৬ ফু) কাদা এবং ধ্বংসাবশেষের মধ্যে চাপা পড়ে গিয়েছিল।[৮] একটি লাহার নিউজিল্যান্ডের টাঙ্গিওয়াই বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিল,[৯] সেখানে ১৯৫৩ সালে একটি ক্রিসমাস-পূর্ব এক্সপ্রেস ট্রেন ওয়াংগাহু নদীতে পড়ে যাওয়ার পরে ১৫১ জন মারা গিয়েছিল। ১৭৮৩ থেকে ১৯৯৭ সালের মধ্যে ১৭% আগ্নেয়গিরি সংক্রান্ত মৃত্যুর জন্য লাহার দায়ী।[১০]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Lahar"USGS Photo Glossary। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৪-১৯ 
  2. Vallance, James W.; Iverson, Richard M. (২০১৫)। "Chapter 37 – Lahars and Their Deposits"। Sigurdsson, Haraldur। Encyclopedia of Volcanoes। Amsterdam: Academic Press। পৃষ্ঠা 649–664। আইএসবিএন 978-0-12-385938-9ডিওআই:10.1016/B978-0-12-385938-9.00037-7 
  3. Vincent E. Neall (২০০৪)। "Lahar"। Andrew S. Goudie। Encyclopedia of Geomorphology2। পৃষ্ঠা 597–599। আইএসবিএন 9780415327381 
  4. Gerrard, John (১৯৯০)। Mountain Environments: An Examination of the Physical Geography of Mountains। MIT Press। পৃষ্ঠা 209আইএসবিএন 978-0262071284 
  5. টেমপ্লেট:USGS
  6. Crandell, D.R. (১৯৭১)। "Post glacial lahars From Mount Rainier Volcano, Washington"U.S. Geological Survey Professional Paper। Professional Paper। 677ডিওআই:10.3133/pp677অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  7. Hoblitt, R.P.; Miller, C.D.; Scott, W.E. (১৯৮৭)। "Volcanic hazards with regard to siting nuclear-power plants in the Pacific northwest"। U.S. Geological Survey Open-File Report। Open-File Report। 87–297। ডিওআই:10.3133/ofr87297অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  8. "Deadly Lahars from Nevado del Ruiz, Colombia"USGS Volcano Hazards Program। ২০০৭-০৮-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৯-০২ 
  9. "Lahars from Mt Ruapehu" (PDF)Department of Conservation (New Zealand)। ২০০৬। ২৬ জুন ২০১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  10. Tanguy, J.; ও অন্যান্য (১৯৯৮)। "Victims from volcanic eruptions: a revised database"। Bulletin of Volcanology60 (2): 140। এসটুসিআইডি 129683922ডিওআই:10.1007/s004450050222 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]