রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অভিযান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অভিযান
राष्ट्रीय माध्यमिक शिक्षा अभियान
দেশভারত
প্রধানমন্ত্রীনরেন্দ্র মোদী, মনমোহন সিং
মন্ত্রণালয়শিক্ষা মন্ত্রণালয়
উদ্বোধনমার্চ ২০০৯, মনমোহন সিং কর্তৃক

রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অভিযান ভারত সরকারের মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের কেন্দ্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় সমগ্র ভারতের সরকারি স্কুলগুলিতে মাধ্যমিক শিক্ষার বিকাশের জন্য পরিচালিত একটি কেন্দ্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা প্রকল্প। এটি ২০০৯ সালের মার্চে চালু করা হয়েছিল। সকলের জন্য দক্ষ প্রবৃদ্ধি, উন্নয়ন এবং সমতার শর্তে ২০০৯-২০১০ সাল থেকে এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে।[১] এই প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে বহুমাত্রিক গবেষণা, প্রযুক্তিগত পরামর্শ, বিভিন্ন বাস্তবায়ন এবং তহবিল সহায়তা। প্রকল্পটির প্রধান উদ্দেশ্য গুলি হ'ল মাধ্যমিক শিক্ষার মান বৃদ্ধি করা এবং মোট তালিকাভুক্তির হার পাঁচ বছরে ৫২% (২০০৫-২০০৬ পর্যন্ত) থেকে বাড়িয়ে ৭৫% (২০০৯-২০১৪ পর্যন্ত) করা।[২] এর লক্ষ্য ছিল ১৫-১৬ বছর বয়সী সব শিশুদের জন্য সার্বজনীন শিক্ষা প্রদান করা।[৩] কেন্দ্রীয় মন্ত্রক থেকে অর্থায়ন রাজ্য সরকারগুলির মাধ্যমে সরবরাহ করা হয়, যা পৃথক বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাস্তবায়ন করে।[৪] একাদশ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার (২০০২-২০০৭) সময় বরাদ্দ করা মোট বাজেট ছিল  ২,০১২ বিলিয়ন (US$ ২৭.১৬ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার।[৫]

উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অভিযানের উদ্দেশ্যগুলিকে সংক্ষেপে নিম্নরূপে উল্লেখ করা যেতে পারে:[৩]

  1. সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে নির্ধারিত নিয়মের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ করার মাধ্যমে মাধ্যমিক স্তরে প্রদত্ত শিক্ষার মান উন্নত করা।
  2. লিঙ্গ, আর্থ-সামাজিক এবং প্রতিবন্ধকতার বাধা দূর করা।
  3. ২০১৭ সালের মধ্যে অর্থাৎ দ্বাদশ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার শেষে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষায় সার্বজনীন প্রবেশাধিকার।
  4. ২০২০ সালের মধ্যে শিক্ষার্থীদের সার্বজনীন অন্তর্ভুক্তি।

মাধ্যমিক শিক্ষার পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

  • ১৯৮৬ সালের জাতীয় শিক্ষানীতি (এনপিই) শুরু হওয়ার পর থেকে নবম পরিকল্পনা সময়ের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থার কাঠামো ও সংগঠনে কোন বড় পরিবর্তন হয়নি।
  • এই পরিকল্পনার কেন্দ্রবিন্দু ছিল বিভিন্ন বৈষম্য হ্রাস করা, বৃত্তিমূলককরণ এবং কর্মসংস্থান-ভিত্তিক কোর্সগুলিকে গুরুত্ব দিয়ে পাঠ্যক্রম পুনর্নবীকরণ করা। এটি উন্মুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা, শিক্ষক প্রশিক্ষণ এবং আইসিটি সম্প্রসারণ এবং বৈচিত্র্য আনার বিষয়টিকেও গুরুত্ব দেয়। মেয়েদের জন্য বিনামূল্যে শিক্ষা এবং হোস্টেলের সুবিধা এবং প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য সমন্বিত শিক্ষাও নজরে আনা হয়েছিল, ইত্যাদি।[৬]

বেসরকারী খাতের অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

  • বেসরকারী সংস্থা (এনজিও)-সহ বেসরকারী খাতের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে, এই বেসরকারী খাতগুলি প্রায় ৫১% মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং ৫৮% উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা করে।
  • যোগাযোগ কেন্দ্র এবং মাল্টিমিডিয়া প্যাকেজ ব্যবহার করে জাতীয় ও রাজ্যিক উন্মুক্ত বিদ্যালয়ের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক শিক্ষাব্যবস্থায় নিজেদের ভর্তি করতে না পারা শিশুদের জন্য সুযোগ সরবরাহ করা হয়েছিল।
  • এটি কেন্দ্রীয় সরকারের আর্থিক সহায়তায় বিষয়বস্তু, প্রক্রিয়া এবং শিক্ষার মান, বিশেষ করে পরিবেশ শিক্ষা, বিজ্ঞান, গণিত এবং কম্পিউটার সাক্ষরতার উপর অত্যন্ত জোর দিয়েছিল।
  • সংশোধিত এনপিই নীতি, ১৯৯২-এর পর পাঠ্যক্রম সংশোধন, মানসম্পন্ন শিক্ষার জন্য সম্পদ কেন্দ্র এবং ন্যাশনাল সেন্টার ফর কম্পিউটার-এইডেড এডুকেশন ইত্যাদির মতো নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
  • জনবলের চাহিদা এবং একাডেমিক নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদির অভাবে এই আবেদনে শিক্ষার বৃত্তিমূলককরণের অভাব রয়েছে। অতএব, ২০০০ সালের মধ্যে, ২৫% এর বিপরীতে মাত্র ১০% শিক্ষার্থী বৃত্তিমূলক স্ট্রিম বেছে নেয়।

বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য পরিকল্পনা (সিডব্লিউএসএন)[সম্পাদনা]

  • প্রতিবন্ধী ব্যক্তি আইন, ১৯৯৫ প্রণয়নের সাথে সাথে সিডব্লিউএসএন-এর শিক্ষা একটি প্রেরণা পায়। এই আইনটি সরকার এবং কিছু কর্তৃপক্ষকে শিক্ষার জন্য এই শিশুদের জন্য বিনামূল্যে প্রবেশাধিকারের ব্যবস্থা, নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে বরাদ্দ জমি, পরিবহনে বৈষম্যহীনতা, তাদের গবেষণা করার জন্য আর্থিক প্রণোদনা ইত্যাদির দায়িত্ব দেয়।
  • এই প্রকল্পটি এই শিশুদের স্বার্থে শিক্ষকদের মধ্যে মনোভাব পরিবর্তন এবং ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যেও কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।[৭]

তহবিল পদ্ধতি[সম্পাদনা]

মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক সরাসরি রাজ্য সরকারগুলিকে তহবিল সরবরাহ করে। প্রতিটি রাজ্য সরকার তখন অনুমোদিত বাস্তবায়নকারী সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানগুলিকে তহবিল প্রদান করে। একাদশ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার সময় কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিটি রাজ্যের জন্য মোট তহবিলের ৭৫% সরবরাহ করেছিল, বাকি ২৫% রাজ্য যৌথ শেয়ার হিসাবে বহন করেছিল। প্রত্যন্ত উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য এবং সিকিমে যৌথ শেয়ার ১০% মকুব করা হয়েছিল।[৮][৯]

প্রগতি[সম্পাদনা]

প্রকল্পের ফলে মাধ্যমিক শিক্ষার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে, কিন্তু বিদ্যালয়ের সংখ্যা বৃদ্ধি সত্ত্বেও এগুলোর ভৌগোলিক বণ্টন অসম। লিঙ্গ-ব্যবধান হ্রাস পেয়েছে। দশম পরিকল্পনায় সমস্ত স্তরে মানসম্পন্ন শিক্ষার দিকে মনোনিবেশ করা হচ্ছে।[৭]

বিভক্তি[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অভিযান সহ সর্বশিক্ষা অভিযান এবং শিক্ষক শিক্ষা বিষয়ক কেন্দ্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা প্রকল্প (সিএসএসটিই) সমগ্র শিক্ষা অভিযান গঠনের জন্য বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Loading..."rmsaindia.org 
  2. Ministry of Human Resource Development। "Rashtriya Madhyamik Shiksha Abhiyan"। National Informatics Centre। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  3. "Rashtriya Madhyamik Shiksha Abhiyan"। EdCIL (India) Limited। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  4. "Rashtriya Madhyamik Shiksha Abhiyan"। Indian Yojana। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  5. "Rashtriya Madhyamik Shiksha Abhiyan (RSMA)"। Bihar Madyamik Siksha Parishad। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  6. Service, Tribune News। "Move to cut salary in lieu of regular jobs under lens"Tribuneindia News Service (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  7. "Loading..." (PDF)rmsaindia.org। ১৮ এপ্রিল ২০২১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০২১ 
  8. Parveen Kaswan (৪ মে ২০১৩)। "Rashtriya Madhyamik Siksha Abhiyan (RMSA)"। Simply Decoded। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  9. "Union cabinet approves Rashtriya Madhyamik Shiksha Abhiyan proposal"Indian Education Review। ৩ মে ২০১৩। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪