রাজা জানকীবল্লভ সেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাজা জানকীবল্লভ সেন

রাজা জানকীবল্লভ সেন (১৮৩৫-১৯১০) ছিলেন রংপুরের জমিদার নীলকমল সেন ও চৌধুরাণী শ্যামা সুন্দরী দেবীর(দেবী চৌধুরাণী) পুত্র । সন্তান না থাকায় শ্যামা সুন্দরী দেবী তাকে বর্ধমান জেলার বাগনা গ্রাম থেকে  দত্তক নেন।[১] তিনি ডিমলার জমিদারিত্ব দক্ষতার সাথে পরিচালনা করেন । তিনি ব্ৰজজীবন বসু মহাশয়ের জ্যেষ্ঠা কন্যা শ্রীমতি রানী বৃন্দারানীকে বিয়ে করেন।[২] তিনি রংপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন ১৮৯২-১৮৯৪ ইং পর্যন্ত। তিনি চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে ১৮৯২ সালে তার বাগান বাড়িতে প্রতিষ্ঠিত হয় রংপুর পৌরসভা ভবন[৩]। রাজা জানকী বল্লভ সেন ছিলেন অনারারী ম্যাজিস্ট্রেট, লোকাল বোর্ডের চেয়ারম্যান ও জেলা বোর্ডের সদস্য। ১৮৯১ সালে ব্রিটিশ সরকার তার কাজে খুশি হয়ে তাকে রাজা উপাধি দেয়।তার মায়ের মৃত্যু ম্যালেরিয়া জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হয়। রংপুর শহরে মশার উপদ্রব ঠেকাতে তিনি ১৮৯০ সালে "শ্যামা সুন্দরী খাল" খনন করেন।[৪] তিনি বঙ্গের অনেক জমিদারকে নানাভাবে সাহায্য করেন। তিনি প্রজাদের  অভাবে ৭৫ হাজার টাকার খাদ্য দান করেন। তিনি তৎকালীন রংপুরে কৃষি গবেষণার জন্য ৮ হাজার টাকা দান করেছিলেন। এছাড়া তিনি দার্জিলিঙের শিখরে হিন্দুদের জন্য হাসপাতাল নির্মান করেছিলেন। তিনি ১৯০৮ সালে এক উইলের মাধ্যমে ডিমলা জমিদারীকে দুটি ভাগ যথা মুজকুরী ও দেবোত্তর এস্টেটে ভাগ করেন । তার দেবোত্তর এস্টেট ছিল প্রায় ১২৬৫ একরের। এমন বিপুল দেবোত্তর এস্টেট শুধু নাটোরের মহারানী রাণী ভবানীর ছিল। যা সাবেক রঙ্গপুর জেলা বা উত্তরবঙ্গের অন্য জমিদারীতে কারো ছিল না। এই দেবোত্তর এস্টেটের প্রথম সেবায়েত হন তার  স্ত্রী শ্রীমতি রানী বৃন্দারানী।

তিনি পুত্র যামিনী মোহন সেনের কিশোর অবস্থায় প্রায় ৭৫ বছর বয়সে ১৯১০ সালের ১৪ অক্টোবর পরলোক গমন করেন । তার মৃত্যুর সময় ডিমলা জমিদারীর মোট আয় ছিল ২ দশমিক ৩৮ লক্ষ টাকা । আর জমিদারির সরকারী জমা ছিল ৩৫ হাজার টাকারও বেশি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রিপোর্টার, স্টাফ (২০২০-০১-১৩)। "ডিমলার জমিদার বংশের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস | উত্তরবাংলাভয়েস" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০১ 
  2. "পাতা:বংশ-পরিচয় (ষষ্ঠ খণ্ড) - জ্ঞানেন্দ্রনাথ কুমার.pdf/৩৭৮ - উইকিসংকলন একটি মুক্ত পাঠাগার"bn.wikisource.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০১ 
  3. "রংপুর (শহর)"Wikipedia। ২০১৯-০৮-২৪। 
  4. BonikBarta। "শ্যামাসুন্দরী খাল সংস্কার না হওয়ায় রংপুরে বন্যা আতঙ্ক"শ্যামাসুন্দরী খাল সংস্কার না হওয়ায় রংপুরে বন্যা আতঙ্ক (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০১