রাজকন্যা নিলুফার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাজকন্যা নিলুফার
The impossibly gorgeous Princess Niloufer (5613874828).jpg
জন্ম(১৯১৬-০১-০৪)৪ জানুয়ারি ১৯১৬
ইস্তানবুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য (বর্তমান তুরস্ক)
মৃত্যু১২ জুন ১৯৮৯(1989-06-12) (বয়স ৭৩)
প্যারিস, ফ্রান্স
দাম্পত্য সঙ্গীমোয়াজ্জেম জাহ (বি. ১৯৩১; বিচ্ছেদ. ১৯৫২)
এডওয়ার্ড জুলিয়াস পোপ (বি. ১৯৬৩)
পূর্ণ নাম
নিলুফার খানুম সুলতানা ফরহাত
পিতাদামাদ মুরালিজাদা সালার উদ্দিন বে
মাতাআদিল সুলতান

রাজকুমারী বেগম সাহিবা নীলুফার খানুম সুলতানা (তুর্কী: Nilüfer Hanım Sultan ; ৪ জানুয়ারি ১৯১৬ - ১২ জুন ১৯৮৯) উসমানীয় সাম্রাজ্যের শেষ রাজকন্যাদের মধ্যে একজন ছিলেন। তিনি ভারতের হায়দরাবাদের শেষ নিজামের দ্বিতীয় ছেলেকে বিয়ে করেছিলেন। [১]

জন্ম[সম্পাদনা]

নীলুফার তুরস্কের ইস্তাম্বুলের গোস্টেপ প্রাসাদে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এমন এক সময়ে যখন তাঁর মায়ের পরিবার উসমানীয় সাম্রাজ্য শাসন করছিল। তার বাবা ছিলেন দামাদ মুরালিজাদা সালারউদ্দিন বে এফেন্ডি, উসমানীয় আদালতের বিশিষ্ট সদস্য। তাঁর মা আদিল সুলতান, সুলতান পঞ্চম মুরাদের জ্যেষ্ঠ পুত্র ইহজাদে মেহমেদ সেলাহেদ্দিনের কন্যা ছিলেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শেষে, শাসক রাজবংশকে পদচ্যুত করা হয়েছিল এবং তুরস্ককে প্রজাতন্ত্র হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। পরবর্তীতে, ১৯২৪ সালে, তুরস্ক থেকে উসমানদের নির্বাসিত করা হয়েছিল। তারা ফ্রান্সে বসতি স্থাপন করেছিল এবং ভূমধ্যসাগরীয় শহর নিসে বাসস্থান শুরু করেছিল। নিলুফারের বাবা-মা সহ তাদের আদালতের বেশ কয়েকজন সদস্য এবং বর্ধিত পরিবার একইভাবে ফ্রান্সে নির্বাসনে গিয়েছিলেন।

বিবাহ[সম্পাদনা]

১৯৩১ সালের ২০ ডিসেম্বর নিসে তাঁর মামার হিলাফট প্রাসাদে, নিলুফার ১৬ বছর বয়সে হায়দরাবাদের শেষ শাসক নিজামের দ্বিতীয় পুত্র মোয়াজ্জাম জাহের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। নিজামের বড় ছেলে এবং উত্তরাধিকারী দ্বিতীয় সুলতান আবদুলমেসিডের মেয়ে দেরিহ্বরকে বিয়ে করেছিলেন নীলুফারের প্রথম চাচাতো ভাই। তার বিয়ের পরে, নিলুফার ভারতের হায়দরাবাদে শ্বশুরবাড়িতে চলে আসেন।

ব্যক্তিত্ব এবং দাতব্য সংস্থা[সম্পাদনা]

সন্তানের অভাবে নিলুফারের ব্যক্তিগত জীবন শূন্য বলে মনে হলেও, তিনি তার জনজীবনকে অত্যন্ত চকচকে করে তা পূরণ করেছিলেন। তিনি সেই সময় অভিজাত মহিলা ক্লাব, লেডি হাঢদ্ন্রা ক্লাবের সদস্য ছিলেন। তার পরিবারের অন্যান্য মহিলার মতো নয় (এটি তুরস্কের তাঁর জন্মগত পরিবার এবং ভারতে তাঁর বৈবাহিক পরিবার উভয়ের ক্ষেত্রেই সত্য) নীলুফার তার শহরে প্রায় অবাধে চলাফেরা করতে পছন্দ করতেন, জনসাধারণের মধ্যে, ককটেল পার্টিতে এবং গভীর রাতে পার্টি উপভোগ করতে প্রায়শই জেনানা প্রাসাদ ছেড়ে বেড়িয়ে যেতেন। তিনি অনেক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন এবং বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানের উদ্বোধনও করেছিলেন। হায়দরাবাদ রাজপরিবারের অন্য কোনও মহিলা কখনও অনাবৃত বা ককটেল পার্টি বা এমনকি সরকারী অনুষ্ঠানেও অংশ নেন নি। নিলুফার মহিলাদের অগ্রগতির অগ্রদূত হিসাবে বিবেচিত হন। তার সৌন্দর্য এবং সক্রিয় জনজীবন সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ পেয়েছিল এবং ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ পৃষ্ঠায় প্রদর্শিত হয়েছিল। তাকে বিশ্বের ১০ জন সুন্দরী মহিলার মধ্যে একজন হিসাবে বিবেচনা করা হত। [২]

নিলুফার হাসপাতাল[সম্পাদনা]

১৯৪৪ সালে, রাজকন্যার দাসী "রাফাতুন্নিসা বেগম" - চিকিৎসার অভাবে সন্তান প্রসবকালে মারা যান। তার প্রিয় কাজের মেয়েটির মৃত্যুর সংবাদ শুনে রাজকন্যা খুব ব্যথিত হয়ে যায়। [১][৩] তারপরে তিনি নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন এর পরে আর কোনও মা যেন মৃত্যুর মুখোমুখি হন না। নিলুফার তার শ্বশুরবাড়ির সকলে কাছে চিকিৎসা সুবিধার অভাবে যে সমস্যাগুলি দেখা দেয় তা জানিয়েছিলেন। ফলস্বরূপ, শহরের রেড হিলস এলাকায় মহিলা এবং শিশুদের জন্য একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মিত হয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে, তাঁর সম্মানে হাসপাতালটির নাম রাখা হয়েছিল নিলুফার হাসপাতাল এবং তাকে এর রক্ষনাবেক্ষনকারী হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল, হায়দরাবাদে যতদিন তিনি বেঁচে ছিলেন ততক্ষণ তিনি এই অবস্থান ধরে রেখেছিলেন। আজও, হাসপাতালটি সুপরিচিত এবং এখনও রেড হিলস পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের একটি বিশিষ্ট নিদর্শন।

যদিও তার শ্বশুর এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তার নির্দেশে একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল তৈরি করা এবং হায়দরাবাদে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য বিদেশী চিকিৎসকদের উৎসাহিত করা সহ তার দাতব্য কাজের পুরো সমর্থন করেছিলেন, তারা আপত্তিজনক এবং সেলিব্রিটি জীবনাচরণ পছন্দ করেননি। তারা হাসপাতাল এবং শিশুদের স্কুলের মতো গঠনমূলক কাজে তাকে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করেছিল। শ্বশুরবাড়ির ইশারায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নীলুফার নার্স হিসাবে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন এবং হায়দরাবাদে ত্রাণ প্রচেষ্টাতে সহায়তা করেছিলেন যেখানে ইউরোপ বা পূর্ব এশিয়ার যুদ্ধাহত কিছু ভারতীয় সেনাদের সুস্থতার জন্য আনা হয়েছিল। তখন পর্যন্ত, ইউরোপের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরাও তাঁর নিঃসন্তানতার সমাধান করতে পারেননি।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

পরের বছরগুলো[সম্পাদনা]

বিয়ের পরে বেশ কয়েক বছর কেটে গেছে, কিন্তু নিলুফার গর্ভধারণ করতে পারেন নি। তিনি চিকিৎসকের পরামর্শের জন্য ইউরোপ ভ্রমণ করেছিলেন, কারণ হায়দরাবাদে কোনও বিশেষজ্ঞ প্রসূতি বিশেষজ্ঞ ছিলেন না। ১৯৪৮ সালে, নিলুফারের সাথে তার বিবাহের ১৭ বছর পরে, তার স্বামী মোয়াজ্জাম জাহ দ্বিতীয় স্ত্রী গ্রহণ করেছিলেন- হায়দরাবাদের স্থানীয় অভিজাত মেয়ে রাজিয়া বেগমকে, যা ইসলামী আইন ও ঐতিহ্য উভয় অনুসারে একজন মুসলিম পুরুষকে একসাথে চার বিবাহের অনুমতি দেয়। দ্বিতীয় বিবাহটি তাকে ৪ বছরের মধ্যে তিনটি কন্যা সন্তানের পিতা করে। অবশেষে, ১৯৫২ সালে, বিয়ের ২১ বছর পরে, নিলুফার এবং তার স্বামী বিবাহবিচ্ছেদ করেছিলেন। তার বিবাহবিচ্ছেদের পরে, নিলুফার ফ্রান্সে চলে যান যেখানে তুরস্ক থেকে নির্বাসনের পরে উসমান পরিবার বসতি স্থাপন করেছিল। বেশ কয়েকটি দেশ থেকে আসা অন্যান্য রাজকীয় নির্বাসিতদের নিসে বসতি স্থাপন করেছিলেন। ১৯৬৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্যারিসে নীলফার মার্কিন যুদ্ধের নায়ক, লেখক এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা এডওয়ার্ড জুলিয়াস পোপকে বিয়ে করেন। তিনি ১৯৮৯ সালের ১২ জুন প্যারিসে মারা যান।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]