রশ্মি বনশল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রশ্মি বনশল
Rashmi Bansal (cropped).JPG
২০১১ সালে রশ্মি বনশল
বাসস্থানমুম্বই
জাতীয়তাভারতীয়
যেখানের শিক্ষার্থীইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট আহমেদাবাদ, সোফিয়া কলেজ ফর উইমেন
পেশালেখিকা
উল্লেখযোগ্য কর্ম
স্টে হাঙরি, স্টে ফুলিশ, কানেক্ট দ্য ডটস, আই হ্যাভ আ ড্রিম, পুওর লিটল রিচ স্লাম, ফলো এভ্রি রেইনবো, টেক মি হোম, অ্যারাইজ, অ্যাওয়েক, গড'স ওন কিচেন
দাম্পত্য সঙ্গীযতীন বনশল

রশ্মি বনশল একজন ভারতীয় লেখিকা ও উদ্যোক্তা। ২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি ব্যবসায় উদ্যোগ নিয়ে আটটি বই রচনা করেছেন।[১][২] তার প্রথম বই স্টে হাঙরি, স্টে ফুলিশ, ২৫ জন এমবিএ করা উদ্যোক্তার ব্যবসায়ের উদ্যোগ নিয়ে লিখিত হয়েছে। গোটা ভারত জুড়ে বইটির পাঁচ লাখেরও অধিক কপি বিক্রি হয়েছে। যা ভারতের ইতিহাসে একটি রেকর্ড। তার বইগুলো প্রকাশ করে থাকে প্রকাশনা সংস্থা ওয়েস্টল্যান্ড

প্রারম্ভিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

রশ্মি বনশল বেড়ে ওঠেন দক্ষিণ মুম্বাইয়ের টাটা মৌলিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানে, যেখানে তার বাবা জ্যোতিঃপদার্থবিদ হিসেবে কাজ করতেন। কোলাবায় অবস্থিত সেন্ট জোসেফ'স হাইস্কুল থেকে পাস করার পর তিনি ভর্তি হন সোফিয়া কলেজ ফর উইমেনএ। কলেজের পর ভর্তি হন ভারতবিখ্যাত প্রতিষ্ঠান ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট আহমেদাবাদে[২]

সাংবাদিক জীবন[সম্পাদনা]

আহমেদাবাদের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট শিক্ষার পাঠ চুকানোর পর তিনি টাইমস অব ইন্ডিয়ার পণ্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করেছেন। এরপর তিনি দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকার সাথে যুক্ত হন। তারপর তিনি যুক্ত হন যুব ম্যাগাজিন জ্যাম(জাস্ট অ্যানাদার ম্যাগাজিন) এর সাথে। এখানে তিনি তার জীবনসঙ্গী যতীন বনশলের সাথে কাজ করেছিলেন।[৩][৪]

লেখক জীবন[সম্পাদনা]

ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট আহমেদাবাদে থাকাকালীন রশ্মি, অধ্যাপক রাকেশ বসন্ত কর্তৃক, স্টে হাঙরি, স্টে ফুলিশ বইটি লিখতে উদ্বুদ্ধ হন। বইটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২৫ জন উদ্যোক্তাকে নিয়ে লেখা। বইটি বের হবার পর ভারতের বাজারে ব্যাপকহারে বিক্রি হয়। প্রথম দশ মাসে বইটির এক লাখ কপি বিক্রি হয়। বইটির সাড়ে তিন লাখেরও অধিক কপি ভারতীয় বাজারে বিক্রি হয়েছে। ২০১০ সালে তার দ্বিতীয় বই কানেক্ট দ্য ডটস বাজারে আসে। এই বইটি সেসব উদ্যোক্তাদের নিয়ে লেখা হয়েছিল, যাঁরা এমবিএ করেন নি। এই বইটি সর্বাধিক বিক্রিত বইয়ের তালিকায় স্থান করে নেয়। ২০১১ সালে তার আরেকটি বই আই হ্যাভ আ ড্রিম বের হয়। বইটি সামাজিক উদ্যোক্তাদের নিয়ে লেখা হয়েছিল। বইটি লেখা হয়েছিল হিন্দিইংরেজি ভাষার সংমিশ্রণে, যাকে সচরাচর 'হিংলিশ' বলে অভিহিত করা হয়।[২][৩]

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান যে, তার হিংলিশে বই লেখার কারণ হল হিংলিশে বই লিখলে তা জনসাধারণের নিকট তাদের "আরো বাস্তব করে তোলে তোলে"।[৩] সম্প্রতি তার লেখা চারটি বই ভারতের বাজারে সবচেয়ে বিক্রিত বইয়ের তালিকায় স্থান করে নেয়। বইগুলো হল: পুওর লিটল রিচ স্লাম, ফলো এভ্রি রেইনবো,টেক মি হোমঅ্যারাইজ অ্যাওয়েক[৫]

তার প্রতিটি বই ব্যবসায় উদ্যোগ নিয়ে লেখা। বইগুলোতে তিনি সফল উদ্যোক্তা হবার পথ সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন।

প্রকাশিত গ্রন্থমালা[সম্পাদনা]

  • স্টে হাঙরি, স্টে ফুলিশ(২০০৮)
  • কানেক্ট দ্য ডটস(২০১০)
  • আই হ্যাভ আ ড্রিম(২০১১)
  • পুওর লিটল রিচ স্লাম(২০১২)
  • ফলো এভ্রি রেইনবো(২০১৩)
  • টেক মি হোম(২০১৪)
  • অ্যারাইজ, অ্যাওয়েক(২০১৫)
  • গড'স ওন কিচেন(২০১৭)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Author Rashmi Bansal Biography, Books, Blog, Marriage, Husband, Daughter"। Youth Developers। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. "Rashmi Bansal: An Author, Speaker and Entrepreneur!"। Yo! Success। ১৫ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  3. Timmons, Heather (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "A Conversation With: Rashmi Bansal"New York Times 
  4. "Digital capitalization, India, Mumbai, Bansal, 12/17/2008"। IFTFdate=26 December 2008। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  5. Follow Every Rainbow