রণজিৎ দাশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রণজিৎ দাশ
জন্ম১৯৪৯
জাতীয়তাভারতীয়
মাতৃশিক্ষায়তনগুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাকবি ও প্রাবন্ধিক
পুরস্কারবীরেন্দ্র পুরস্কার (২০০৪)
রবীন্দ্র পুরস্কার (২০১৩)
ওয়েবসাইটhttps://www.ranajitdas.com/

রণজিৎ দাশ (জন্ম: ১৯৪৯ ) হলেন কবি শঙ্খ ঘোষ পরবর্তী সময়ে আশির দশকে বাংলার যে কয়জন আধুনিক কবি খ্যাতিলাভ করেন তাদের অন্যতম। সমসাময়িক বাংলা কবিতার ধারায় নাগরিক জীবনের নিজস্বতা ও নতুন কাব্যিক রীতি যোগ করেছেন। ২০১৩ খ্রিস্টাব্দের পশ্চিমবঙ্গ সরকার তার শ্রেষ্ঠ কবিতা কাব্যগ্রন্থের জন্য রবীন্দ্র পুরস্কার প্রদান করে।[১]

জন্ম ও প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

কবি রণজিৎ দাশের জন্ম ১৯৪৯ খ্রিস্টাব্দে অসমের কাছাড় জেলার শিলচরে। তার পৈতৃক নিবাস ছিল অধুনা বাংলাদেশের ঢাকার বিক্রমপুরে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তার পিতা উদ্বাস্তু হয়ে নিঃস্ব অবস্থায় ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দে ভারতের অসমে চলে আসেন। তার ছয় সন্তানদের মধ্যে তিনি ছিলেন জ্যেষ্ঠ। তার বেড়ে ওঠা আর পড়াশোনা সবই শিলচরে। বিদ্যালয়ের পাঠ শিলচরের গভর্নমেন্ট স্কুলে। বিজ্ঞানে স্নাতক হন গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। শিলচরে থাকাকালীন তিনি স্কুলের ছাত্রবস্থাতেই কবিতা রচনা শুরু করেন। স্থানীয় 'অতন্দ্র' কাব্যান্দোলনের একজন কবি উদয়ন ঘোষ বিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসাবে যোগ দেওয়ায় তার কবিতার প্রতি আরো আগ্রহ জন্মে। প্রথম কবিতা "ছন্নছাড়া" প্রকাশিত হয় এবং সত্তরের দশকের শেষের দিকে প্রথম কাব্যগ্রন্থ আমাদের লাজুক কবিতা দিয়ে তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেন।[২] পশ্চিমবঙ্গ সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা পাশের পর সরকারী কর্মকর্তাপদে নিযুক্ত হলে ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে শিলচর ছেড়ে স্থায়ীভাবে কলকাতা আসেন। সরকারী আমলার পদ হতে ২০০৬ খ্রিস্টাব্দে স্বেচ্ছাবসর নেন এবং পুরোপুরিই সাহিত্যকর্মে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। সাহিত্যকর্মের পাশাপাশি চিত্রাঙ্কন, চলচ্চিত্র ও খেলাধূলাতেও তার বিশেষ আগ্রহ আছে। [৩]

রণজিৎ দাশ গল্পের ছলে নগর জীবনের অমোঘ জিজ্ঞাসাগুলোকে সহজ বাক্যে এমন করে উপস্থাপন করেন যে, সহজ বাক্য ও শব্দের প্রয়োগে, ভাব ও বিষয় উচ্চ মার্গে উন্নীত হয়।

এযাবৎ, তিনি বারোটি কাব্যগ্রন্থ, দুটি প্রবন্ধ সংকলন, একটি উপন্যাস রচনা করেছেন।

ভারতীয় লেখকদের অন্যতম সদস্য হয়ে তিনি ২০১২ খ্রিস্টাব্দে ক্রোয়েশিয়া ভ্রমণ করেন।

প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ[সম্পাদনা]

কাব্যগ্রন্থ -
  • আমাদর লাজুক কবিতা - দুর্গা প্রকাশনা, কলকাতা, (১৯৭৭)
  • জিপসীদের তাঁবু, কলকাতা, (১৯৮৪)
  • সময়, সবুজ ডাইনি - সময়, কলকাতা, ১৯৮৭
  • বন্দরের কথ্যভাষা কলকাতা, (১৯৯৩)
  • ঈশ্বরের

চোখ - আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা, (১৯৯৯)

  • সন্ধ্যার পাগল - সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০০৪)
  • সমুদ্র সংলাপ - আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা,

(২০০৭)

  • শহরে নিস্তব্ধ মেঘ - আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা, (১৯৯৯)
  • রণজিৎ দাশের শ্রেষ্ঠ কবিতা - দে'জ পাবলিশিং, কলকাতা (২০১৩)
  • ধানখেতে বৃষ্টির কবিতা - সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০১৩)
  • অসমাপ্ত আলিঙ্গন - সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০১৬)
  • বিষাদসিন্ধুর কিছু লেখা - সিগনেট প্রেস, কলকাতা (২০১৮)
উপন্যাস -
  • বিয়োগপর্ব- প্রতিভাস প্রকাশনী, কলকাতা, সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (১৯৯৭)
প্রবন্ধ সাহিত্য-

“খোঁপার ফুল বিষয়ক প্রবন্ধ” - সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০০৬)

  • কবিতার দ্বিমেরুবিশ্ব, সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০১১)
সম্পাদনা-
  • বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ কবিতা (বাংলাদেশের নির্বাচিত কবিতা) বাংলাদেশের কবি সাজ্জাদ শরিফ এর সঙ্গে যৌথভাবে, সপ্তর্ষি প্রকাশন, কলকাতা, (২০০৯)


রণজিৎ দাসের কবিতার সংকলন ইংরেজি অনুবাদ

  • এ সামার নাইটমেয়ার অ্যান্ড আদার পোয়েমস - অনুবাদক-

নির্মল কান্তি ভট্টাচার্য, - রূপা অ্যান্ড কো, নিউ দিল্লি, (২০১১)

[৩]


সম্মাননা ও পুরস্কার[সম্পাদনা]

কবি রণজিৎ দাশ ২০০৪ খ্রিস্টাব্দে প্রথম কাব্যগ্রন্থের জন্য কবি বীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায় স্মরণ কমিটি কর্তৃক বীরেন্দ্র পুরস্কারে সম্মানিত হন। ২০১১ খ্রিস্টাব্দে পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাডেমি পুরস্কার লাভ করেন। এরপর ২০১৩ খ্রিস্টাব্দে রণজিৎ দাশের শ্রেষ্ঠ কবিতা কাব্যগ্রন্থের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের রবীন্দ্র পুরস্কার লাভ করেন।[১] রমানাথ ভট্টাচার্য ফাউন্ডেশন লিটারারি অ্যাওয়ার্ড,

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "রবীন্দ্র পুরস্কার পাচ্ছেন কবি রণজিৎ দাশ"। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২২ 
  2. "পাঠকনামা-৪"। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১১ 
  3. "Ranajit Das - Biography (ইংরাজীতে)"। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১৬